প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার কারণ ও প্রতিকার

গর্ভাবস্থায়, গর্ভবতীকে বিশেষ যত্ন নিতে হবে, কারণ একটি ছোট ভুল মহিলা এবং অনাগত শিশুর জন্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে। এই সময়ে মহিলাদের অনেক ছোটখাটো সমস্যা মোকাবেলা করতে হয়, তার মধ্যে একটি হল মাথা ঘোরা। মাথা ঘোরার কারণে গর্ভবতী এবং ভ্রূণ উভয়েরই ক্ষতি হতে পারে। এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার কারণ, লক্ষন এবং প্রতিকার সম্পর্কিত অনেক তথ্য দিব।

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা কি?
গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা এমন একটি অবস্থা যেখানে মহিলার চোখের সামনে অন্ধকার থাকে। চোখের সামনে কী ঘটছে ঠিক বুঝতে পারে না। মাথা ঘুরলে দুর্বলতার অনুভূতি হয় এবং চারপাশের সবকিছু ঘুরছে বলে মনে হয়। এর ফলে গর্ভবতী মহিলা তার ভারসাম্য হারাতে পারে এবং পড়ে যেতে পারে। গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলো বমি, বমি বমি ভাব, বিভ্রান্তি এবং মাথাব্যথা হিসাবে দেখা যায় ।

চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা কোনো গুরুতর সমস্যা কি না।

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা কি একটি সাধারণ সমস্যা?
হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা সাধারণ বলে মনে করা হয়। এই সমস্যাটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গর্ভবতী মহিলাদের হয়। এই কারণেই মহিলাদের গর্ভাবস্থায় গাড়ি চালানো এবং সিঁড়ি বেয়ে ওঠা এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়। একটু সাবধান থাকলে গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরাজনিত কারণে যে কোনো দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রোধ করা যায়।

এখন আমরা জানার চেষ্টা করব কখন একজন গর্ভবতী মহিলার মাথা ঘোরা হয়।

কোন ত্রৈমাসিকে গর্ভবতীর মাথা ঘোরা দেখা যায়?
গর্ভাবস্থার তিন ত্রৈমাসিকেই মাথা ঘোরা হতে পারে। প্রথম ত্রৈমাসিকে মাথা ঘোরা স্বাভাবিক, তবে এটি কোনও গুরুতর সমস্যার লক্ষণ নয়। একই সময়ে, দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে, অনেক কারণে মাথা ঘোরা হতে পারে।

আসুন এখন জেনে নিই মাথা ঘোরা গর্ভবতীর জন্য কতটা ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা কি ক্ষতিকর?
হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা ক্ষতিকর। উপরে উল্লিখিত হিসেবে, মাথা ঘোরা এর কারণে পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। এর প্রভাব গর্ভবতী এবং অনাগত শিশুর উপরও দেখা যায়। যদি একজন মহিলা গর্ভাবস্থায় পড়ে যায়, তবে এটি অনাগত শিশুর জীবনকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। একই সময়ে, গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার পিছনে অনেক কারণ থাকতে পারে, যা ভ্রূণের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার কারণ

গর্ভাবস্থায় প্রায়ই মাথা ঘোরা হয়, তবে অনেকেই মাথা ঘোরার কারণ বুঝতে পারেন না। তাদের জন্য আমরা নিচে গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার কারণগুলো বলছি।

১. নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরা হতে পারে। গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা সাধারণত শরীরে তৈরি হওয়া হরমোনের কারণে হয়ে থাকে, যা রক্তের ধমনীকে প্রসারিত করে। এ কারণে হঠাৎ উঠলে বা বসলে মাথা ঘোরা হতে পারে।
২. গর্ভবতী অবস্থায় চিনির পরিমাণ কমে গেলে মাথা ঘোরার সমস্যা দেখা দিতে পারে।
৩. আয়রনের ঘাটতি অর্থাৎ রক্তশূন্যতা গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার অন্যতম কারণ।
৪. তৃতীয় ত্রৈমাসিকে, আপনি পিঠে ভর দিয়ে শুয়ে থাকার কারণে, ক্রমবর্ধমান জরায়ু রক্তনালীতে চাপ দেয়, যার কারণে মাথা ঘোরা হতে পারে।
৫. গর্ভাবস্থায় শরীরে পানিশূন্যতার কারণেও মাথা ঘোরা হতে পারে।
৬. কখনও কখনও দমবন্ধ অনুভূতির কারণে মাথা ঘোরা অনুভূত হতে পারে।
দ্রষ্টব্য: মাথা ঘোরাজনিত কারণে পড়ে যাওয়া প্রতিরোধে, গর্ভবতীর কাছাকাছি রাখা সাপোর্টের সাহায্যে বসা বা ওঠা উচিত। এছাড়াও, এই সময়ে সিঁড়ি বেয়ে উঠবেন না বা নামবেন না।

হঠাৎ মাথা ঘোরা হলে কী করবেন?
এই টিপসগুলি অনুসরণ করলে গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরার ক্ষেত্রে কিছুটা উপশম পাওয়া যায়:

১. গর্ভবতী মহিলার যদি হঠাৎ মাথা ঘোরা বোধ হয়, তবে তাকে কয়েক মিনিটের জন্য সেই জায়গায় বসতে হবে। এরপর মাথা কাত করুন এবং চোখ বন্ধ করুন। এটি আপনাকে পড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করতে পারে। যখন আপনি ভাল বোধ করেন, তখন সহজেই উঠুন।
২. যদি কোন মহিলা কোন কাজ করে এবং মাথা ঘোরা শুরু করে, তাহলে অবিলম্বে সেই কাজ বন্ধ করুন। কাজ বন্ধ করার পর, কয়েক মিনিটের জন্য আপনার মন শান্ত রাখুন এবং একটি দেয়াল বা কাছাকাছি রাখা কিছু ধরে নিজেকে সামলাতে চেষ্টা করুন।
৩. গর্ভাবস্থায়, জনাকীর্ণ জায়গায় যাওয়া অস্বস্তির কারণে একজন মহিলার মাথা ঘোরাতে পারে। এমতাবস্থায় মহিলার উচিত জনাকীর্ণ স্থান থেকে সরে গিয়ে খোলা জায়গায় যাওয়া।
৪. রক্তে চিনির পরিমাণ কম থাকলে মাথা ঘোরার সমস্যা হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে তাৎক্ষণিক উপশমের জন্য চিনিযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত। তবে তা করার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
৫. শ্বাসরোধের কারণে মাথা ঘোরা অনুভূত হতে পারে। এমন অবস্থায়, ঘরের জানালা খুলে দিতে হবে। এটি গর্ভবতীকে কিছুটা স্বস্তি দিতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা সমস্যা দূর করার প্রতিকার
গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা সমস্যা দূর করা সহজ। এর জন্য কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন, যার মধ্যে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি গ্রহণ করা যেতে পারে:

  • নিয়মিত চেকআপ করাতে হবে।
  • শরীরকে হাইড্রেটেড রাখতে অল্প সময়ের মধ্যে পানি পান করতে হবে।
  • শরীরে চিনির পরিমাণ এর ভারসাম্য ঠিক রাখতে হবে।
  • সঠিক পরিমাণে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।
  • সকালে বা সন্ধ্যায় খোলা পার্কে কিছু সময় কাটান এবং সতেজ বাতাস গ্রহণ করুন।
  • সবুজ শাকসবজি ও ফলমূল খান।
  • অতিরিক্ত ব্যায়াম করবেন না।
  • দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে আপনার পিঠের উপর শুয়ে থাকবেন না।


মাথা ঘোরা হলে কি ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত?

গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা একটি সাধারণ বিষয়, তবে আপনি যদি বারবার মাথা ঘোরা অনুভব করেন তবে আপনার এই বিষয়ে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত। গর্ভাবস্থা একটি সূক্ষ্ম সময়, প্রতিটি ছোট জিনিস মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এটি গর্ভবতী এবং অনাগত শিশুকে নিরাপদ রাখতে সাহায্য করবে। এই পরিস্থিতিতে, গর্ভবতীকে সময়ে সময়ে ডাক্তারের কাছে চেক আপ করাতে হবে।

প্রত্যেক মহিলাই চায় যে তার গর্ভাবস্থা ভালোভাবে কাটুক এবং তার খুব বেশি সমস্যা না হোক। এ জন্য অনেক মহিলাই গর্ভধারণের আগে সম্পূর্ণ পরিকল্পনা করে ফেলেন, যাতে আগত শিশুটি সুস্থ থাকে। গর্ভাবস্থায় ছোট ছোট ঝুঁকির কথা মাথায় রেখে এই সময়টা ভালোভাবে কাটানো যায়। আমরা আশা করি যে, প্রদত্ত গর্ভাবস্থায় মাথা ঘোরা সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য পাঠকের জন্য দরকারী হবে। গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত অন্যান্য তথ্যের জন্য, আপনি আমাদের ওয়েবসাইটের অন্যান্য লেখাগুলোও পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

গর্ভাবস্থায় বমি এবং বমি বমি ভাব (সকালের অসুস্থতা),

গর্ভাবস্থায় জ্বরের কারণ ও কমানোর ঘরোয়া উপায়

4.7/5 - (6 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button