স্বাস্থ্য

অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

অশ্বগন্ধার নাম নিশ্চয়ই বহুবার শুনেছেন। আপনি খবরের কাগজ বা টিভিতে অশ্বগন্ধার বিজ্ঞাপনও দেখেছেন। আপনি নিশ্চয়ই ভাবছেন যে অশ্বগন্ধা কী বা অশ্বগন্ধার বৈশিষ্ট্য কী? আসলে অশ্বগন্ধা একটি ভেষজ। অশ্বগন্ধা বহু রোগে ব্যবহৃত হয়। আপনি কি জানেন যে অশ্বগন্ধা স্থূলতা কমাতে, শক্তি বৃদ্ধি এবং বীর্যের ব্যাধিতে ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়াও অশ্বগন্ধার অন্যান্য উপকারিতা রয়েছে। অশ্বগন্ধার অজস্র উপকারিতা ছাড়াও অশ্বগন্ধার অপকারিতা অতিরিক্ত সেবনে স্বাস্থ্যের জন্য অস্বস্তি হতে পারে।

অশ্বগন্ধার বিশেষ কিছু ঔষধি গুণের কারণে এটি খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আসুন আমরা আপনাকে বলি কোন রোগে এবং কীভাবে অশ্বগন্ধা ব্যবহার করতে পারেন:-

অশ্বগন্ধা কি?

অশ্বগন্ধা বিভিন্ন দেশে অনেক ধরনের হয়, কিন্তু আসল অশ্বগন্ধা শনাক্ত করার জন্য, এটির গাছটিকে চূর্ণ করলে ঘোড়ার প্রস্রাবের মতো গন্ধ হয়। অশ্বগন্ধার তাজা মূলে এই গন্ধ বেশি শক্তিশালী। চাষের মাধ্যমে উৎপন্ন অশ্বগন্ধার গুণাগুণ বনে পাওয়া গাছের চেয়ে ভালো। জঙ্গলে পাওয়া অশ্বগন্ধা উদ্ভিদ তেল আহরণের জন্য উত্তম বলে বিবেচিত হয়। এটি দুই প্রকার-

ছোট্ট অশ্বগন্ধাঃ ছোট ঝোপের কারণে একে ছোট অশ্বগন্ধা বলা হলেও এর শিকড় বড়। এটি ভারতের রাজস্থানের নাগৌরে খুব বেশি পাওয়া যায় এবং সেখানকার জলবায়ুর প্রভাবের কারণে এটি বিশেষভাবে প্রভাবশালী। তাই একে নাগরী আসগন্ধাও বলা হয়।

বড় বা স্থানীয় অশ্বগন্ধাঃ এর গুল্ম বড়, তবে শিকড় ছোট এবং পাতলা। এটি সাধারণত বাগান, মাঠ এবং পাহাড়ি জায়গায় পাওয়া যায়। অশ্বগন্ধায় কোষ্ঠকাঠিন্যে প্রতিরোধের বৈশিষ্ট্যের প্রাধান্য এবং এর গন্ধ কিছুটা ঘোড়ার প্রস্রাবের মতো হওয়ার কারণে সংস্কৃতে এর নামকরণ করা হয়েছে বাজি বা ঘোড়া সম্পর্কিত।

বাহ্যিক আকৃতি

বাজারে দুটি প্রজাতির অশ্বগন্ধা পাওয়া যায়:-
প্রথম মূল Ashwagandha Withania somnifera (লিন।) Dunal, 0.3-2 মিটার উঁচু খাড়া, ধূসর রঙের cuboidal স্টেম যা।
অন্যান্য স্ট্রবেরি টমেটো Withania Coagulans (স্টক) Duanl, যা 1.2 মিটার দ্বারা উচ্চ হয়, গুল্মময় স্টেম হয়।

অশ্বগন্ধার উপকারিতা ও ব্যবহার

অশ্বগন্ধা পাতা, অশ্বগন্ধা গুঁড়ো আকারে আয়ুর্বেদে ব্যবহৃত হয়। অশ্বগন্ধার উপকারিতা যেমন অসংখ্য, তেমনি অশ্বগন্ধার অপকারিতাও রয়েছে কারণ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এটি খেলে শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে পারে। আশ্চর্যজনকভাবে উপকারী অশ্বগন্ধা অনেক রোগে ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়, আসুন জেনে নেই বিস্তারিতভাবে-

চুল পাকা সমস্যা বন্ধ করতে ব্যবহার করুন অশ্বগন্ধা পাউডারঃ 2-4 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো নিন। অশ্বগন্ধার উপকারিতার কারণে অকালে চুল পাকা হওয়ার সমস্যা সেরে যায়।
আরও পড়ুন: তিসির তেলের উপকারিতা

দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে অশ্বগন্ধার উপকারিতাঃ 2 গ্রাম অশ্বগন্ধা, 2 গ্রাম আমলকি এবং 1 গ্রাম লিকোরিয়াস একসাথে মিশিয়ে গুঁড়ো তৈরি করুন। এক চামচ অশ্বগন্ধা গুঁড়ো সকাল-সন্ধ্যা জলের সঙ্গে খেলে দৃষ্টিশক্তি ভালো হয়। অশ্বগন্ধার উপকারিতার কারণে চোখ আরাম পায়।

গলগন্ড নিরাময়ে অশ্বগন্ধা পাতার উপকারিতাঃ অশ্বগন্ধার উপকারিতা এবং ঔষধি গুণের কারণে অশ্বগন্ধা গলার রোগে উপকারী প্রমাণিত হয়।
সমপরিমাণ অশ্বগন্ধা গুঁড়া ও পুরানো গুড় মিশিয়ে ১/২-১ গ্রাম ভাটি তৈরি করুন। সকালে বাসি জলের সাথে এটি সেবন করুন। অশ্বগন্ধা পাতার পেস্ট তৈরি করুন। গলগন্ডে লাগান। এটি গলগন্ডে উপকারী।

অশ্বগন্ধা পাউডারের ব্যবহার যক্ষ্মা (টিবি) চিকিৎসায়ঃ 2 গ্রাম অশ্বগন্ধা পাউডার 20 মিলিগ্রাম অসগন্ধার ক্বাথের সাথে নিন। এটি টিবিতে উপকারী। অশ্বগন্ধার মূল থেকে গুঁড়ো তৈরি করুন। এই গুঁড়ো 2 গ্রাম নিয়ে তাতে 1 গ্রাম বড় পিপলের গুঁড়া, 5 গ্রাম ঘি এবং 5 গ্রাম মধু মিশিয়ে নিন। এটি খেলে যক্ষ্মা রোগে উপকার পাওয়া যায়। টিবির চিকিৎসায় অশ্বগন্ধা উপকারী।

অশ্বগন্ধা কাশি থেকে মুক্তি পেতে ব্যবহার করুনঃ অশ্বগন্ধার শিকড় 10 গ্রাম গুঁড়ো করে নিন। এতে 10 গ্রাম চিনির মিছরি মিশিয়ে 400 মিলিগ্রাম পানিতে রান্না করুন। যখন এর এক-অষ্টমাংশ অবশিষ্ট থাকে, তখন আগুন নিভিয়ে দিন। অল্প অল্প করে দিলে বাতজনিত হুপিং কাশি বা কফের সমস্যায় বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।

আসগন্ধার পাতা থেকে 40 মিলিগ্রাম পুরু ক্বাথ নিন। এর মধ্যে 20 গ্রাম বহেদা গুঁড়া, 10 গ্রাম ক্যাচুর গুঁড়া, 5 গ্রাম কালো গোলমরিচ এবং 2.5 গ্রাম শিলা লবণ মেশান। এর থেকে 500 মিলিগ্রাম ট্যাবলেট তৈরি করুন। এই ট্যাবলেট চুষলে সব ধরনের কাশি দূর হয়। টিবি জনিত কাশিতেও এটি বিশেষ উপকারী। এটি কাশি থেকে মুক্তি পেতে একটি প্রতিকার হিসাবে কাজ করে।

অশ্বগন্ধা পাউডার বুকের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করেঃ অশ্বগন্ধা মূলের গুঁড়া ২ গ্রাম পানির সাথে নিন। এটি বুকের ব্যথায় উপকারী।

অশ্বগন্ধা চূর্ণ পেট বা অন্ত্রের কৃমি নিরাময় করেঃ পেটের অসুখে অশ্বগন্ধার গুঁড়োও খেতে পারেন। পেটের রোগে অশ্বগন্ধার গুঁড়ো ব্যবহার করতে পারেন। অশ্বগন্ধা পাউডারে সমপরিমাণ বাহেরার গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এর সাথে ২-৪ গ্রাম গুড় খেলে পেটের কৃমি দূর হয়।
অশ্বগন্ধা পাউডারে গিলয় পাউডারের সমান অংশ মিশিয়ে নিন। এটি নিয়মিত 5-10 গ্রাম মধুর সাথে খান। এটি পেটের কৃমি নিরাময় করে।

কোষ্ঠকাঠিন্যের সাথে লড়াইয়ে অশ্বগন্ধা পাউডার উপকারীঃ 2 গ্রাম অশ্বগন্ধা পাউডার বা অশ্বগন্ধা পাউডার হালকা গরম পানির সাথে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

গর্ভাবস্থায় অশ্বগন্ধা ব্যবহারের উপকারিতাঃ এক লিটার পানিতে 20 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো এবং 250 মিলিগ্রাম গরুর দুধ মিশিয়ে নিন। অল্প আঁচে রান্না করুন। যখন শুধু দুধ বাকি থাকবে তখন তাতে ৬ গ্রাম চিনির মিছরি ও ৬ গ্রাম গরুর ঘি দিন। ঋতুস্রাবের তিন দিন পর এই খাবারটি তিন দিন সেবন করলে গর্ভধারণে সহায়ক হয়।

গর্ভাবস্থার সমস্যায়ও অশ্বগন্ধার গুঁড়োর উপকারিতা পাওয়া যায়। গরুর ঘিতে অশ্বগন্ধার গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। একমাস একটানা গোসলের পর প্রতিদিন 4-6 গ্রাম গরুর দুধ বা বিশুদ্ধ পানির সাথে সেবন করুন। এটি গর্ভাবস্থায় সাহায্য করে।
আসগন্ধা ও সাদা কাটেরির মূল নিন। প্রথম মাস থেকে পাঁচ মাস পর্যন্ত গর্ভবতী মহিলাদের এই দুটির 10 মিলিগ্রাম জুস খেলে অকাল গর্ভপাত হয় না।

লিউকোরিয়া নিরাময়ে অশ্বগন্ধা মূলের উপকারিতাঃ অশ্বগন্ধা মূলের 2-4 গ্রাম পাউডারে চিনি মিশ্রিত করুন। সকাল-সন্ধ্যা গরুর দুধের সাথে খেলে লিউকোরিয়ায় উপকার পাওয়া যায়।
অশ্বগন্ধা, তিল, উড়দ, গুড় ও ঘি সমপরিমাণে নিন। লাড্ডু বানিয়ে খাওয়ালে লিউকোরিয়াতেও উপকার পাওয়া যায়।

সংবেদনশীল দুর্বলতায় (লিঙ্গ দুর্বলতা) অশ্বগন্ধার ব্যবহারঃ অশ্বগন্ধার গুঁড়ো কাপড় দিয়ে ছেঁকে তাতে সমান পরিমাণ খন্ড রাখুন। তাজা গরুর দুধের সাথে এক চা চামচ করে সকালে খাওয়ার তিন ঘন্টা আগে খান।

রাতে অশ্বগন্ধার মূলের মিহি গুঁড়া জুঁই তেলে পিষে লিঙ্গে লাগালে লিঙ্গের দুর্বলতা বা শিথিলতা দূর হয়।
অশ্বগন্ধা, দারুচিনি ও করলা সমপরিমাণ মিশিয়ে পিষে চালনি করে নিন। গরুর মাখনের সাথে মিশিয়ে পেনিসের সামনের অংশ (লিঙ্গ) রেখে বাকি অংশে সকাল-সন্ধ্যা লাগান। কিছুক্ষণ পর কুসুম গরম পানি দিয়ে লিঙ্গ ধুয়ে ফেলুন। এতে লিঙ্গের দুর্বলতা বা ঝুলে যাওয়া দূর হয়।

বাত থেকে মুক্তি পেতে অশ্বগন্ধার উপকারিতাঃ 2 গ্রাম অশ্বগন্ধার গুঁড়ো গরম দুধ বা জল বা গরুর ঘি বা চিনির সঙ্গে সকাল-সন্ধ্যা খেলে বাতের ব্যথায় উপকার পাওয়া যায়।

পিঠের ব্যথা ও অনিদ্রার সমস্যায়ও এটি উপকারী।
250 মিলিগ্রাম জলে 30 গ্রাম অশ্বগন্ধার তাজা পাতা সিদ্ধ করুন। পানি অর্ধেক থেকে গেলে তা ছেঁকে পান করুন। এক সপ্তাহ পান করলে বাত ও কফজনিত বাত রোগে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়। এর পেস্টও উপকারী।

আঘাতে অশ্বগন্ধার ব্যবহারঃ অশ্বগন্ধার গুঁড়ায় গুড় বা ঘি মিশিয়ে নিন। এটি দুধের সাথে খেলে অস্ত্রের আঘাতজনিত ব্যথা উপশম হয়।

চর্মরোগের চিকিৎসায় অশ্বগন্ধার উপকারিতাঃ অশ্বগন্ধা পাতার পেস্ট তৈরি করুন। এর পেস্ট বা পাতার ক্বাথ দিয়ে ধুয়ে নিলে ত্বকের কৃমি নিরাময় করে। এটি ডায়াবেটিস এবং অন্যান্য ধরনের ক্ষত দ্বারা সৃষ্ট ক্ষত চিকিৎসা করে। এটি প্রদাহ দূর করতে উপকারী।
অশ্বগন্ধার শিকড় পিষে কুসুম গরম করে লাগালে হারপিস রোগে উপকার পাওয়া যায়।

অশ্বগন্ধা ব্যবহার করে শারীরিক দুর্বলতা দূর হয়ঃ 2-4 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো নির্ধারিত পদ্ধতিতে এক বছর খেলে শরীর রোগমুক্ত ও শক্তিশালী হয়।
10 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো, তিল এবং ঘি নিন। এতে তিন গ্রাম সিটি মিশিয়ে প্রতিদিন 1-2 গ্রাম করে শীতকালে খেলে শরীর শক্তিশালী হয়।

6 গ্রাম আসগন্ধা পাউডারে চিনি মিছরি এবং মধু সমান অংশ মিশিয়ে নিন। এতে 10 গ্রাম গরুর ঘি দিন। এই মিশ্রণটি 2-4 গ্রাম পরিমাণে সকাল-সন্ধ্যা 4 মাস খেলে শরীরে পুষ্টি যোগায়।
20 গ্রাম আসগন্ধা গুঁড়ো, 40 গ্রাম তিল এবং 160 গ্রাম উরদ নিন। এই তিনটিকে ভালো করে পিষে বড় করে একমাস টাটকা সেবন করলে শরীরের দুর্বলতা দূর হয়।
আসগন্ধার মূল এবং অ্যাবসিন্থ সমান অংশে মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই গুঁড়ো 2-4 গ্রাম সকাল-সন্ধ্যা দুধের সাথে খেলে শরীরের দুর্বলতা দূর হয়।
এক গ্রাম অশ্বগন্ধার গুঁড়ায় 125 মিলিগ্রাম চিনি মিশিয়ে হালকা গরম দুধের সাথে খেলে বীর্যের ব্যাধি দূর হয় এবং বীর্য শক্তিশালী হয় এবং শক্তি বৃদ্ধি পায়।

রক্ত সংক্রান্ত ব্যাধিতে অশ্বগন্ধার উপকারিতাঃ অশ্বগন্ধা পাউডারে সমপরিমাণ চপচিনি পাউডার বা অ্যাবসিন্থ পাউডার মিশিয়ে নিন। সকাল-সন্ধ্যা ৩-৫ গ্রাম পরিমাণে খেলে রক্তের সমস্যা দূর হয়।

জ্বরের সাথে লড়াইয়ে অশ্বগন্ধার ব্যবহারঃ 2 গ্রাম অশ্বগন্ধা গুঁড়ো এবং 1 গ্রাম গিলয় নির্যাস (রস) মেশান। প্রতিদিন সন্ধ্যায় কুসুম গরম পানি বা মধুর সাথে খেলে দীর্ঘস্থায়ী জ্বর উপশম হয়।

অশ্বগন্ধার উপকারী অংশ

  • পাতা
  • রুট
  • ফল
  • বীজ

অশ্বগন্ধা সম্পর্কিত বিশেষ তথ্য

বাজারে বিক্রি হওয়া অগন্ধায় কাকনাজের শিকড় মিশ্রিত করা হয়। কেউ কেউ একে দেশি অশ্বগন্ধাও বলে। কাকনাজের শিকড় অশ্বগন্ধার চেয়ে কম মানের। বন্য অশ্বগন্ধা বাহ্যিকভাবে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়।

অশ্বগন্ধা কতটুকু সেবন করবেন

অশ্বগন্ধার সঠিক উপকার পেতে হলে অশ্বগন্ধা কীভাবে সেবন করবেন তা জানা জরুরি। অশ্বগন্ধার সঠিক উপকারিতা পেতে এবং ক্ষতি এড়াতে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খেতে হবে-
মূল গুঁড়ো – 2-4 গ্রাম
ক্বাথ – 10-30 মিলিগ্রাম

অশ্বগন্ধার অপকারিতা

গরম প্রকৃতির ব্যক্তির জন্য অশ্বগন্ধার ব্যবহার ক্ষতিকর।
কাতিরা ও ঘি খেলে অশ্বগন্ধার ক্ষতিকর প্রভাব নিরাময় হয়।

5/5 - (13 Reviews)

One Comment

  1. ✅অশ্বগন্ধা চূর্ণ।
    উপকারিতা
    অশ্বগন্ধা একটি ঔষধি ভেষজ/হার্বস যা সাধারন দূর্বলতা, যৌ’ন দুর্বলতা, মানসিক দুর্বলতা, ক্লান্তি, অবসাদ, শিশু অপুষ্টি, স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা, পীড়ন, কোষকলার ঘাটতি, স্নায়বিক অবসাদ, গ্রন্থিস্ফীতি, অনিদ্রা, দুগ্ধস্বল্পতা, শু’ক্রস্বল্পতায় কার্যকর ।
    নিতে যোগা যোগ করুন ০১৭১৭২৫৩৫৪০।
    https://www.facebook.com/NatoreVesojVander

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button