বিউটি টিপস

ঘরে বসে কালোজিরার তেল বানানোর নিয়ম

কালোজিরা থেকে তৈরি তেল প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে ভরপুর। এর সাহায্যে চুল ও ত্বকের সমস্যা দূর করা যায়। চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে তৈরি করবেন।

আপনারা অনেকেই জানেন না যে কালোজিরার ব্যবহার শুধুমাত্র আপনার চুলের জন্য নয়, ত্বকের জন্যও খুব ভালো। বাজারে পাওয়া যায় এমন অনেক হেয়ার মাস্ক এবং কন্ডিশনারে এই বীজ ব্যবহার করা হয়। এই বীজগুলিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরির পাশাপাশি অনেক পুষ্টি রয়েছে যা আপনার চুল এবং ত্বকের জন্য প্রয়োজনীয়। এই বীজগুলিকে আপনার চুল এবং সৌন্দর্যের যত্নের রুটিনের একটি অংশ করার একটি সহজ উপায় হল এগুলিকে তেল হিসাবে ব্যবহার করা।

তাই আজ আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি ঘরে বসে কালোজিরার তেল তৈরি ও ব্যবহারের পদ্ধতি। এর সাথে, আমরা আপনাকে এর ত্বক এবং চুল সম্পর্কিত উপকারিতা সম্পর্কেও বলব। তাহলে আর দেরি কিসের, চলুন জেনে নিই কীভাবে তৈরি করবেন আমাদের সাথে।

কালোজিরার তেল বানানোর নিয়ম

উপাদানঃ

  • কালোজিরা – 1 চা চামচ
  • মেথি বীজ – 1 টেবিল চামচ মেথি বীজ
  • নারিকেল তেল – 200 মিলি
  • ক্যাস্টর তেল – 50 মিলি
  • কাচের পাত্র

তৈরী পদ্ধতিঃ কালোজিরা ও মেথি ভালো করে পিষে নিন। এবার একটি কাচের পাত্রে এই গুঁড়ো ঢেলে দিন। নারিকেল তেল এবং ক্যাস্টর অয়েল যোগ করুন এবং ভালভাবে মেশান। এবার পাত্রটি বন্ধ করে সূর্যের আলোতে রাখুন। এভাবে ২ থেকে ৩ সপ্তাহ রাখুন। প্রতি দুই দিন পর পর তেল নাড়তে থাকুন এবং ২-৩ সপ্তাহ পর ফিল্টার করুন। ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে এক বা দুবার এই তেল লাগান।

অবশ্যই পড়ুনঃ চুলে ও ত্বকে কালোজিরার তেলের ব্যবহার

চুলের জন্য কালোজিরা

কালোজিরাতে রয়েছে প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্য যা মাথার ত্বকের জ্বালাপোড়া কমায়। মাথার ত্বকের প্রদাহ, খুশকি এবং চুলের অন্যান্য সমস্যাগুলির দিকে পরিচালিত করে যা আরও চুল পড়ার দিকে নিয়ে যায়। পুষ্টিগুণে ভরপুর কালোজিরা আপনার চুলের জন্য দারুণ। এটি আপনার চুলের প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে এবং আপনার চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়।

আপনার চুলের ফলিকলগুলির স্বাস্থ্যের উন্নতি করে, এই তেলটি আপনার চুলের সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। এটি শুধু আপনার চুলের বৃদ্ধিই বাড়ায় না চুল পড়া রোধ করে। কালোজিরার তেলে লিনোলিক অ্যাসিড থাকে যা চুল পাকা হওয়া রোধ করে। এছাড়াও এই তেলে ওমেগা 3 রয়েছে এবং এটি রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়াতে সাহায্য করে যা চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

চুল বৃদ্ধির জন্য কালোজিরার তেলের ব্যবহারঃ

কালোজিরার তেল সরাসরি চুলে ব্যবহার করতে পারেন। কিছু বীজের তেল নিন এবং আপনার মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। আধা ঘণ্টা রেখে তারপর ধুয়ে ফেলুন। এই তেল দিয়ে আপনার চুল ম্যাসাজ করলে চুলের বৃদ্ধি দ্রুত হয়।

আপনি অলিভ অয়েল বা ক্যাস্টর অয়েলের মতো অন্যান্য চুলের তেলের সাথে কালোজিরার তেল ব্যবহার করতে পারেন। কালোজিরার তেল এবং অন্যান্য চুলের তেল সমান পরিমাণে নিন, মিশিয়ে চুলে লাগান। ভালোভাবে ম্যাসাজ করুন এবং তারপর 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর শ্যাম্পু করুন।

আপনি লেবুর রসের সাথে জিরার তেলও ব্যবহার করতে পারেন। লেবুতে রয়েছে ভিটামিন সি যা আপনার মাথার ত্বকে কোলাজেনের মাত্রা বাড়ায়। প্রথমে আপনার চুলে লেবুর রস ব্যবহার করুন, এটি 15 মিনিটের জন্য রাখুন এবং তারপর ধুয়ে ফেলুন। তারপর কালোজিরার তেল নিয়ে চুলে ম্যাসাজ করুন। সারারাতও রাখতে পারেন এই তেল।

কিছু মেথি বীজ নিন এবং কালোজিরা বীজের তেল এবং নারিকেল তেলের সাথে মিশিয়ে নিন। এর সাথে মেথি বীজ পিষে মিক্স করে নিন। এবার এই মিশ্রণটি আপনার চুলে লাগান, 30 মিনিট রাখুন এবং তারপর একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নারিকেল তেল এবং মেথি বীজ উভয়ই আপনার চুলের জন্য দুর্দান্ত। এগুলো চুল পড়া ও চুল পাতলা হওয়ার মতো সমস্যাকে দূরে রাখে।

আপনি যখন অন্য তেলের সাথে কালোজিরার তেল ব্যবহার করেন, তখন এটি আপনার চুল থেকে অপসারণ করা কঠিন। আপনার চুলকে তেলমুক্ত করতে একটি ভালো শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

অবশ্যই পড়ুনঃ মেথির উপকারিতা ও অপকারিতা, লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা, স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্যে নারিকেল তেলের উপকারিতা

ত্বকের জন্য কালোজিরার তেল

এটি ব্রণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। অতিরিক্ত তেল ছিদ্রে জমতে থাকে বলে ত্বকে যে তেল বেশি হয় সেগুলি ব্রণ ব্রেকআউটের জন্য বেশি সংবেদনশীল। কালোজিরার তেলে থাকা প্রয়োজনীয় ফ্যাটি অ্যাসিড এই তেলকে ফ্লাশ করতে সাহায্য করে। এটি স্বাস্থ্যকর ত্বকের কোষ তৈরি করে যা ছিদ্রগুলিতে জমে থাকা চর্বি অপসারণ করে।

এটি চোখের নিচের কালো দাগ দূর করে। কালোজিরার তেলে পাওয়া ভিটামিন এ, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং ফ্যাটি অ্যাসিড ত্বকের কোষগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করতে একসঙ্গে কাজ করে। সময়ের সাথে সাথে, কালো জিরার তেল বয়সের দাগ এবং এমনকি কিছু দাগ ম্লান করে দেয়।

কালোজিরা বার্ধক্যের লক্ষণ কমায়। আর্দ্রতা ধরে রাখার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যের সাথে, কালো জিরার তেল ত্বককে কোমল রাখে এবং বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখা থেকে মুক্তি পেতে ফ্রি র‍্যাডিক্যালের সাথে লড়াই করে।

এটি মুখের লালভাব এবং জ্বালাভাবকে শান্ত করে। কালোজিরা তেলের প্রদাহরোধী গুণ রয়েছে। যারা সোরিয়াসিস বা একজিমা থেকে জ্বালা অনুভব করছেন তাদের জন্য এটি বিশেষভাবে সহায়ক কারণ কালোজিরার তেল প্রদাহ কমায় এবং সুস্থ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি শক্তিশালী অ্যাস্ট্রিংজেন্ট যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

অবশ্যই পড়ুনঃ

5/5 - (30 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button