বিউটি টিপস

কলার খোসা দিয়ে রূপচর্চা করার উপায় এবং নিয়ম

কলার পাশাপাশি এর খোসাও ত্বক ও চুলের জন্য খুবই উপকারী। আসুন জেনে নিই কিভাবে কলার খোসা দিয়ে রূপচর্চা করবেন।

কলার ব্যবহার ত্বকের জন্য নানাভাবে উপকারী। সাধারণত মানুষ সৌন্দর্য বাড়াতে নানাভাবে কলা ব্যবহার করলেও কলার খোসা ফেলে দেয়। কিন্তু জানেন কি ত্বক ও চুলের পুষ্টি জোগাতে কলার খোসা ব্যবহারের প্রথা বহু পুরনো। প্রতি মৌসুমেই কলা সহজলভ্য। আজকের আমরা আপনাকে বলব কোন উপায়ে কলার খোসা ত্বক এবং চুলের সৌন্দর্য বাড়াতে ব্যবহার করতে পারবেন।

ত্বকের জন্য কলার খোসার উপকারিতা

সুন্দর ও নিশ্ছিদ্র ত্বক কে না চায়? কলার খোসার ফেস মাস্ক দিয়ে আপনি সহজেই আপনার ত্বকের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলতে পারেন। কলার খোসায় উপস্থিত কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন B6, B12, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামের মতো সৌন্দর্য উপাদান কোষের ত্বকের পুনর্জন্ম এবং ত্বকের পৃষ্ঠকে মসৃণ করতে সাহায্য করে।

কলার খোসার ফেসপ্যাক

প্রয়োজনীয় উপাদানঃ

  • কলার খোসা- 1/2টি
  • ডিমের সাদা অংশ- 2 চা চামচ
  • গোলাপ জল- 1 চা চামচ

প্রস্তুত প্রনালীঃ

মিক্সারে কলার খোসা পিষে পেস্ট তৈরি করুন।

একটি পাত্রে বের করে তাতে ডিমের সাদা অংশ যোগ করুন।

এই মিশ্রণে গোলাপ জল যোগ করুন এবং ভাল করে মেশান।

ফেসপ্যাক তৈরি, মুখে ও ঘাড়ে ভালো করে লাগান।

সপ্তাহে দুবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করলে আপনার ত্বক উজ্জ্বল হবে এবং মুখের দাগ দূর হবে।

ডার্ক সার্কেল দূর করুনঃ একটি কলার খোসা পাতলা করে কেটে চোখের নিচে রাখলে ডার্ক সার্কেল কমে যাবে । কলার খোসা চোখের শীতলতা প্রদান করে, যা চোখের ক্লান্তিও দূর করে। সপ্তাহে তিনবার এই ওষুধটি ব্যবহার করলে চোখের নিচের কালো দাগ খুব তাড়াতাড়ি কমতে শুরু করে।

ব্রণ ও পিম্পলের সমস্যা দূর করেঃ কলার খোসায় থাকা হিস্টামিন এবং ভিটামিন সি এবং ই একটি ময়শ্চারাইজিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে এবং অ্যাসিড গঠনকে নিরপেক্ষ করে ত্বকের চুলকানি থেকে মুক্তি দেয়। কলার খোসার তেল-ভারসাম্যকারী বৈশিষ্ট্য অতিরিক্ত সিবাম কমাতে সাহায্য করে এবং ব্রণ বা ত্বকে যে কোনো প্রদাহ দূর করে। এর খোসা দিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক ব্রণ এবং এর দাগ খুব তাড়াতাড়ি নিরাময় করে।

ব্রণ বা ত্বকের জন্য কলার খোসার ফেসপ্যাক প্রয়োজনীয় উপাদানঃ

  • পাকা কলার খোসা- 2টি
  • মধু- 1 চা চামচ
  • লেবু- 1/2 চা চামচ

প্রস্তুত প্রনালীঃ

মিক্সারে কলার খোসা পিষে পেস্ট তৈরি করুন।

এই পেস্টে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।

এই পেস্টটি ব্রণ আক্রান্ত স্থানে ভালো করে লাগান।

এই প্যাকটি পুরো মুখেও লাগাতে পারেন।

প্যাকটি 15 মিনিটের জন্য শুকাতে দিন এবং শুকানোর পরে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে দুইবার এই প্যাকটি ব্যবহার করুন।

খুব তাড়াতাড়ি ত্বকের চুলকানি ও ব্রণের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে।

চুলের জন্য কলার খোসার উপকারিতা

কলার খোসা চুলের বৃদ্ধির জন্য সমান উপকারী, এটি চুলের গোড়া মজবুত করে। কলার খোসা খনিজ সমৃদ্ধ, আমাদের চুলকে সঠিক পরিমাণে আর্দ্রতা দিতে পারে এবং চকচকে রাখার জন্য যত্ন নিতে পারে।

মাথার ত্বকে কলার খোসার মাস্ক চুলের গোড়ায় আর্দ্রতা জোগায়, যা খুশকির সমস্যা অনেকাংশে কমিয়ে দেয়।

খুশকি কমাতে কলার খোসার হেয়ারপ্যাক প্রয়োজনীয় উপাদানঃ

  • কলার খোসা – 2টি
  • নারকেল দুধ – 2 চা চামচ
  • গোলাপ জল – 1 চা চামচ
  • দই – 1 চা চামচ

প্রস্তুত প্রনালীঃ

চামচ বা কাঁটাচামচের সাহায্যে কলার খোসার ভেতরের অংশ মুছে ফেলুন।

একটি পাত্রে দই, নারকেলের দুধ, গোলাপ জল এবং কলার খোসার ভেতরের অংশ দিয়ে ভালো করে মেশান।

তৈরি প্যাকটি চুলের গোড়ায় ভালোভাবে ম্যাসাজ করে লাগান।

একটি শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে আপনার চুল ঢেকে রাখুন এবং এই প্যাকটি আপনার চুলে আধা ঘন্টা রাখুন।

আধা ঘণ্টা পর পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং শ্যাম্পু করবেন না।

সপ্তাহে একবার এই প্যাকটি ব্যবহার করুন, খুব তাড়াতাড়ি খুশকির সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

কলা দিয়ে তৈরি এই ঘরোয়া হেয়ার প্যাকগুলি দিয়ে স্প্লিট এন্ড থেকে মুক্তি পানঃ আপনি কি চুলের বিভক্ত প্রান্তের সমস্যা দ্বারা বিরক্ত? এই কলার হেয়ার মাস্ক আপনার সমস্যার সমাধান করতে পারে।

আমাদের চুল সর্বদা সূর্যালোক এবং দূষণের সংস্পর্শে থাকে, যার কারণে স্প্লিট এন্ডের সমস্যা দেখা দেয়। এটি ঘটে যখন প্রাকৃতিক তেল চুলের গোড়ায় পৌঁছায় না এবং চুল ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। যার কারণে আমাদের চুল তার ঔজ্জ্বল্য হারিয়ে প্রাণহীন দেখাতে শুরু করে। যখন আমাদের চুল পড়া শুরু হয়, তখন আগের চেহারা ফিরে পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে।

ক্রমাগত ময়েশ্চারাইজিং চুল ভাঙ্গা প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায়। এটি বিভিন্ন ব্যবস্থার সাহায্যে করা যেতে পারে। এর জন্য রাসায়নিক ভিত্তিক পণ্য ব্যবহার করার পরিবর্তে, আপনি আপনার চুলের বিভক্ত প্রান্ত নিরাময় করতে প্রাকৃতিক উপায়ে কলা ব্যবহার করতে পারেন। চলুন জেনে নিই আপনার চুলে স্প্লিট এন্ডের সমস্যা রোধ করতে আপনি কী ধরণের কলা হেয়ার মাস্ক তৈরি করতে পারেন।

কলা অপরিহার্য ভিটামিন, আয়রন, পটাসিয়াম এবং প্রাকৃতিক তেল সমৃদ্ধ। কলার খোসা আরও কয়েকটি উপাদানের সাথে মেশালে আরও শক্তিশালী হেয়ার মাস্ক তৈরি হবে।

চুলের জন্য কলার খোসার হেয়ার প্যাক প্রয়োজনীয় উপাদানঃ

  • কলা- 1\2 (চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী)
  • লেবুর রস- 1 চা চামচ
  • গোলাপ জল- 1 চা চামচ
  • দই- 2 টেবিল চামচ

চুল বৃদ্ধির জন্যঃ আমাদের শরীর কোলাজেন নামক প্রোটিন তৈরি করার সময় কলায় উপস্থিত সিলিকা উপাদান শোষণ করে, যা বাউন্সি, সুন্দর চুল দিতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি একটি শক্তিশালী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করতে এবং চুলকে মজবুত করতে ভূমিকা পালন করে, চুলকে মজবুত এবং সুপুষ্ট দেখায়। এইভাবে, কলার খোসা প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুলের চিকিৎসা করার এবং এটিকে একটি সিল্কি চকচকে করার একটি সহজ উপায়।

চুল এবং ত্বকে কলার খোসা ব্যবহার করা সম্পূর্ণ স্বাভাবিক, তবে আপনার যদি সংবেদনশীল ত্বক থাকে তবে এটি ব্যবহার করার আগে একটি প্যাচ পরীক্ষা করুন বা বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

কলার খোসা দিয়ে সুন্দর পা

আপনি যদি আপনার পাকে সিল্কের মতো নরম ও সুন্দর করতে চান তাহলে এইভাবে ব্যবহার করুন কলার খোসা।

মহিলারা প্রায়শই বিভিন্ন ঘরোয়া প্রতিকার চেষ্টা করে এবং তাদের সৌন্দর্যের যত্ন নেওয়ার জন্য প্রসাধনী পণ্যগুলি ব্যবহার করে, কিন্তু মুখ এবং হাতের সৌন্দর্য বজায় রাখার জন্য অনেক সময় পায়ের দিকে খুব বেশি মনোযোগ দেওয়া হয় না। এ কারণে পায়ের সৌন্দর্য ধরে রাখা যায় না।

আপনিও যদি এই সমস্যায় ভুগে থাকেন এবং প্রায়শই গোড়ালি ফাটার কারণে সমস্যায় পড়েন, তাহলে আজ আমরা আপনাদের পা নরম রাখার এমন একটি সহজ উপায় বলছি, যার সাহায্যে আপনি সহজেই আপনার পায়ের সৌন্দর্য ধরে রাখতে পারবেন। হুহ। এর জন্য কলার খোসা ব্যবহার করতে পারেন। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে আপনি এটি দিয়ে আপনার পা নরম করতে পারবেন।

কলা সাধারণত প্রতিটি বাড়িতে খাওয়া হয়। এক বা দুটি কলা সারা দিন শক্তির মাত্রা বজায় রাখে। কলা খেলে শরীর পর্যাপ্ত পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট পায়, যার কারণে মহিলারা সতেজ বোধ করেন। কলা সহজেই খাওয়া যায় এবং খাওয়া হলে কোষ্ঠকাঠিন্য এবং অ্যাসিডিটির মতো সমস্যা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।

কলায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে এবং তাই এটি রক্তস্বল্পতার সমস্যায়ও একটি ওষুধ হিসাবে বিবেচিত হয়। অনেক উপকারী কলা আপনাকে দেয় অঢেল স্বাস্থ্য, কিন্তু আপনি জেনে খুশি হবেন যে আপনি আপনার পায়ের সৌন্দর্য বাড়াতে কলার খোসা ব্যবহার করতে পারেন।

প্রথমত, পা ভালো করে পরিষ্কার করুন যাতে কলার খোসায় পাওয়া উপাদানগুলো শোষণ করতে পারে। এরপর পায়ের তলায় কলার খোসা ঘষে নিন। বিশেষ করে ফাটা জায়গায় কলার খোসা ঘষুন। ৫ মিনিট ম্যাসাজ করার পর হালকা গরম পানি দিয়ে পা ধুয়ে ফেলুন। আপনি যদি চান, খোসা দিয়ে তলদেশ ঘষার পরে, আপনি বেকিং সোডা মিশ্রিত গরম জলে 10 মিনিটের জন্য পা ডুবিয়ে রাখতে পারেন। এতে আপনার পায়ে জমে থাকা ময়লা সহজেই দূর হবে।

আপনি আপনার পা ধোয়ার পরে, তাদের উপর লোশন বা ময়েশ্চারাইজার লাগান। এতে আপনার পা সুন্দর দেখাবে। আপনার পা পরিষ্কার রাখতে, আপনার পা নিয়মিত ঢেকে রাখা উচিত। এর জন্য আপনি মোজা পরতে পারেন,যার কারণে পা পরিষ্কার ও নরম থাকবে।

5/5 - (30 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button