বিউটি টিপস

চুলে ও ত্বকে কালোজিরার তেলের ব্যবহার, বানানোর নিয়ম

কালোজিরা গরম মশলায় ব্যবহার করা হয়। এই জিরা থেকে তৈরি তেল আপনার চুল পড়া এবং অন্যান্য অনেক সমস্যা দূর করতে পারে।

কালো (গাঢ়) জিরার তেল খুবই উপকারী। সুন্দর দেখতে চুলের সুন্দর ও ঘন হওয়া খুবই জরুরি। মুখের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে চুল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অন্যদিকে ভুল খাদ্যাভ্যাস এবং ভারসাম্যহীন জীবনযাপনের কারণে বয়সের আগেই চুল পড়ার সমস্যা শুরু হয় কারো কারো। আজ, এই পোস্টের মাধ্যমে, আমরা আপনাকে চুল এবং ত্বককে স্বাস্থ্যকর করার একটি কার্যকর উপায় বলব।

আপনারা সবাই নিশ্চয়ই জিরা ব্যবহার করেছেন। আপনি কি কালো জিরা (গাঢ়) ব্যবহার করেন? যদি না হয়, তাহলে চুলের বৃদ্ধির জন্য এটি ব্যবহার করা শুরু করুন। সাধারণ চেহারার জিরা আপনাকে চুল এবং ত্বক সংক্রান্ত সমস্যা থেকে রক্ষা করে। চুল ভেঙ্গে যাওয়া থেকে ক্ষতিগ্রস্থ চুলের যত্ন নেওয়ার ক্ষেত্রে এটি আরও বেশি কার্যকর। খাবারে, এই জিরা সাধারণ জিরা থেকে স্বাদে কিছুটা আলাদা।

কালোজিরার তেল আপনার চুল ও ত্বককে সুন্দর করার পাশাপাশি মাথাব্যথা ইত্যাদিতে খুবই উপকারী কালোজিরার একটি গরম স্বাদ আছে, যা অতিরিক্ত খাওয়া যাবে না। এই তেল আপনি বাড়িতে সহজেই তৈরি করতে পারেন। এই তেলটি যদি অলিভ অয়েলের সাথে ব্যবহার করা হয়, তবে এটি চুলের দ্বিগুণ উপকার দেয়। আসুন জেনে নেই ত্বক ও চুলের জন্য কালোজিরার তেলের কিছু উপকারিতা ও ব্যবহারের নিয়ম সম্পর্কে।

কালোজিরার তেল চুলে ও ত্বকে ব্যবহারের নিয়ম এবং উপকারিতা

চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করেঃ কালোজিরা (গাঢ়) তেল চুল এবং মাথার ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। কালোজিরার তেলে যে পরিমাণ প্রোটিন এবং অ্যালকালয়েড পাওয়া যায় তা আপনার চুল পড়া বন্ধ করে চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে খুবই সহায়ক। এছাড়াও, এটিতে প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা মাথার ত্বকের ময়লা এবং খুশকি দূর করতে কার্যকর। কালোজিরাতে লিনোলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা আপনার মাথার ত্বকের জন্য উপকারী এবং সাদা চুল থেকে মুক্তি দেয়। অতএব, এই তেলের সাহায্যে আপনাকে কমপক্ষে 15 থেকে 20 মিনিটের জন্য আপনার মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করতে হবে। এটি নিয়মিত ব্যবহারে চুলের সব সমস্যা দূর হতে শুরু করবে।

ত্বক সুস্থ রাখেঃ কালোজিরার তেল আপনার ত্বকের সৌন্দর্যও বজায় রাখে। এর ব্যবহার আপনার ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়াতে অনেক সাহায্য করে। এটি আপনার ত্বকের আর্দ্রতাও ধরে রাখে। কালোজিরার তেলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়, যা আপনাকে ফ্রি র‍্যাডিক্যালস থেকে মুক্তি দেওয়ার পাশাপাশি বলিরেখার সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। শুধু তাই নয়, এতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যও পাওয়া যায়, যা ফুসকুড়ি, ত্বকের ফোলাভাব এবং লালভাব দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি ভিটামিন এ, বি এবং সি সমৃদ্ধ, যা ত্বককে সবসময় ময়েশ্চারাইজ রাখতে সাহায্য করে।

মাথাব্যথা এবং মাইগ্রেনে সহায়কঃ আপনার ত্বক ও চুলের উপকার করার পাশাপাশি কালোজিরার তেল মাথাব্যথার জন্যও খুবই উপকারী। এজন্য মাথায় কালোজিরার তেল মালিশ করে মাইগ্রেনের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। শুধু তাই নয়, এই তেল হাঁপানি, বুকের জমাট বাঁধা সর্দি, সর্দি এবং জ্বর ইত্যাদি সমস্যা দূর করতেও বেশ কার্যকরী প্রমাণিত হয়। এর নিয়মিত সেবন আপনাকে দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়। হালকা গরম পানিতে অল্প পরিমাণে এই তেল মিশিয়ে গার্গল করলে দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

ডার্ক স্পট কমায়ঃ কালোজিরা (গাঢ়) তেলে অ্যামিনো অ্যাসিড, ফ্যাটি অ্যাসিডের সাথে ভিটামিন এ-এর পরিমাণ পাওয়া যায়। এটি আপনাকে সূর্যের শক্তিশালী ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এ কারণে শরীরে জ্বালাপোড়া, ফুসকুড়ি ও কালো দাগ ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয় না। কালোজিরা তেলের একটি গরম প্রভাব রয়েছে, তাই এটি মুখে অতিরিক্ত প্রয়োগ করা উচিৎ নয়। এই তেলের মাত্র 2 থেকে 3 ফোঁটা ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। বেশি লাগালে মুখে জ্বালাপোড়ার সমস্যাও হতে পারে।

চুল পড়া থেকে মুক্তি পানঃ কালোজিরার তেল আপনার মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখতে খুব সহায়ক। এতে থাইমোকুইনোনের মতো অনেক পুষ্টি উপাদান রয়েছে, যা আপনার মাথার ত্বকের মাধ্যমে চুলকে পুষ্টি জোগায়। এটি নিয়মিত সেবন করলে চুল পড়ার সমস্যা থেকে অনেকাংশে মুক্তি পাওয়া যায়। আপনিও যদি চুল পড়ার সমস্যায় ভুগছেন, তাহলে ঘরেই ব্যবহার করুন কালোজিরার তেল।

কালোজিরার তেল ব্যবহারের নিয়ম

আপনি কালোজিরা তেলের সাথে অন্যান্য তেল ব্যবহার করতে পারেন। যাতে আপনার মাথার ত্বক অন্যান্য পুষ্টিগুণও পেতে পারে। এই তেলের সঙ্গে অলিভ অয়েল ব্যবহার করলে চুলে আরও উপকার পাওয়া যায়। এটি দিয়ে আপনার মাথার ত্বকে 15 থেকে 20 মিনিট ম্যাসাজ করুন।

লেবুর রসের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। যাতে এতে উপস্থিত প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি চুলেও শোষিত হতে পারে। উভয়ই মিশিয়ে আপনার মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। আপনি চাইলে নারকেল তেল ও ক্যাস্টর অয়েল দিয়েও ব্যবহার করতে পারেন। কালোজিরার তেলের সঙ্গে নারকেল তেল মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগান। সর্বাধিক উপকারের জন্য, আপনাকে কমপক্ষে 20 মিনিটের জন্য এই তেলটি ম্যাসাজ করতে হবে।

কালোজিরার তেল বানানোর নিয়ম

  1. এই তেল তৈরি করতে প্রথমে কালোজিরা নিন।
  2. আপনি চাইলে এতে অন্যান্য তেলও মেশাতে পারেন।
  3. এটি তৈরি করতে মেথি বীজ এবং ক্যাস্টর অয়েল নিন।
  4. মেথি ও কালোজিরা ভালো করে পিষে নিন।
  5. এবার এর গুঁড়া তৈরি করুন।
  6. মনে রাখবেন আপনাকে জিরা পিষে ক্যাস্টর অয়েলের সাথে মিশিয়ে নিতে হবে।
  7. পাত্রে তেল জমে যাওয়া রোধ করতে, এটিকে কয়েক দিনের ব্যবধানে নাড়ুন এবং কমপক্ষে এক সপ্তাহের জন্য নিরাপদ জায়গায় রাখুন।

আপনি যদি চুল পড়া এবং ত্বক সংক্রান্ত সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে কালোজিরার তেল আপনাকে সাহায্য করবে। এই পোস্টে দেওয়া রেসিপি অনুসরণ করে আপনি সহজেই বাড়িতে এটি তৈরি করতে পারেন।

4.6/5 - (60 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button