প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় দুধ খাওয়ার উপকারিতা

দুধ গর্ভবতী মহিলা এবং অনাগত শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টির একটি সমৃদ্ধ উৎস। গবেষণা অনুসারে, গর্ভবতী মহিলাদের এই পুষ্টি পেতে প্রতিদিন দুই বা তিন কাপ দুধ বা অন্যান্য দুগ্ধজাত খাবার খাওয়া উচিত। যদিও গর্ভাবস্থায় সঠিক পরিমাণে এর ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, তবে এটি অতিরিক্ত পরিমাণে সেবন করলে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। এই পোস্টে আমরা জানব গর্ভাবস্থায় দুধ খাওয়ার উপকারিতা এবং এই পর্যায়ে কোন দুধ খাওয়া উচিত। পাশাপাশি এর অপকারিতা গুলোও জানতে পারবেন।

আসুন প্রথমে জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় আমরা দুধ পান করতে পারি কি না।

গর্ভাবস্থায় দুধ পান করা উচিত কি না?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় দুধ উপকারী। দুধে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, আয়োডিন, ভিটামিন বি 12 এবং রিবোফ্লাভিন সহ অনেক পুষ্টি রয়েছে। এগুলি গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী মহিলা এবং ভ্রূণের ভাল বিকাশের জন্য উপকারী।

এখানে আমরা জানবো গর্ভাবস্থায় কোন দুধ খাওয়া মূল্যবান।

দুধের প্রকার – গর্ভাবস্থায় কোনটি নিরাপদ?

বর্তমানে বাজারে অনেক ধরনের দুধ পাওয়া যায়, তবে এর মধ্যে কোন দুধ গর্ভবতী মহিলার জন্য নিরাপদ, আসুন জেনে নেওয়া যাক।

পাস্তুরিত দুধ: এই দুধ সবচেয়ে ভালো। তুলনামূলকভাবে, কাঁচা দুধে ব্যাকটেরিয়া থাকে, যা আপনার এবং অনাগত শিশুর জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। বাজারে যে প্যাকেটজাত দুধ পাওয়া যায় তাকে পাস্তুরিত দুধ বলে। এটিকে প্রায় 62 ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় গরম করে ঠান্ডা করা হয়। এটি দুধে উপস্থিত সমস্ত ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে। তাই এই দুধ স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

স্কিমড মিল্ক: এই ধরনের দুধে ফ্যাট কম থাকে। এটি আপনাকে সুস্থ রাখার জন্য সেরা বিকল্পগুলির মধ্যে একটি। এটি কোলেস্টেরল বাড়তে দেয় না। এছাড়াও, এতে রয়েছে প্রয়োজনীয় পুষ্টি, যা শিশুর বিকাশে সাহায্য করে।

কাঁচা দুধ: গরু, মহিষ ও ছাগলের দুধ কাঁচা। এতে লিস্টেরিয়া ব্যাকটেরিয়া পাওয়া যায়, যা গর্ভবতী মহিলাদের অসুস্থতার কারণ হতে পারে। কাঁচা দুধ খেলে গর্ভপাতের পাশাপাশি নবজাতকের মৃত্যুও হতে পারে।

ফুল ক্রিম দুধ: এই দুধে অতিরিক্ত চর্বি ও পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এক কাপ ফুল-ক্রিম দুধ 146 ক্যালোরি সরবরাহ করে, যখন স্কিমড দুধে মাত্র 83 ক্যালোরি থাকে। যতক্ষণ না আপনার ওজন বেশি না হয়, এটি আপনার জন্য একটি আদর্শ বিকল্প হতে পারে।

এখানে আমরা জানব কখন গর্ভাবস্থায় দুধ পান করা শুরু করবেন।

গর্ভাবস্থায় কখন দুধ পান করা শুরু করবেন?

আপনি গর্ভাবস্থায় যে কোনও সময় দুধ পান করা শুরু করতে পারেন। সঠিক পরিমাণে গ্রহণ করলে ক্ষতি হয় না। এটি গর্ভবতীর স্বাস্থ্য এবং ভ্রূণের বিকাশে উপকারী।

এখানে আমরা জানব গর্ভাবস্থায় দিনে কতটা দুধ খাওয়া উচিত।

একজন গর্ভবতী মহিলার দিনে কত পরিমাণ দুধ পান করা উচিত?

গর্ভাবস্থায় দুধের সঠিক উপকারিতা নিতে, একজন গর্ভবতী মহিলার প্রতিদিন দুই বা তিন কাপ দুধ পান করা উচিত। অবশ্যই, বৈজ্ঞানিক সত্যে দুই-তিন কাপ দুধ পান করার কথা বলা আছে, তবে প্রতিটি গর্ভবতী মহিলার প্রতিদিনের পরিমাণ সম্পর্কে ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করতে হবে।

দুধের পরিমাণ জানার পর, আমরা আরও জানবো কিভাবে দুধ গর্ভাবস্থায় উপকারী হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় দুধ পানের উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় দুধ মা এবং অনাগত শিশু উভয়ের জন্যই উপকারী। যদিও এর সেবন মায়ের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, এটি ভ্রূণের বিকাশের জন্য সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। আসুন এবার জেনে নিই দুধ পানের উপকারিতা কি কি।

হাড়ের ক্যালসিয়াম: 19 বছরের বেশি বয়সী গর্ভবতী মহিলাদের প্রায় 1,000 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। এক কাপ চর্বিহীন দুধ 302 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম সরবরাহ করে। অতএব, আপনার প্রতিদিনের ক্যালসিয়ামের চাহিদা মেটাতে প্রায় তিন কাপ দুধ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

শিশুর বিকাশের জন্য প্রোটিন: প্রোটিন জরায়ুকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে, রক্তের ক্ষয়কে উন্নত করে এবং ভ্রূণকে পুষ্ট করে। প্রোটিনের অভাবে শিশুর জন্ম ওজন কম হতে পারে। প্রোটিনের দৈনিক প্রয়োজন প্রায় 65 গ্রাম, যেখানে এক কাপ দুধ 8.22 গ্রাম প্রোটিন প্রদান করে। এইভাবে প্রতিদিন তিন কাপ দুধ খাওয়া প্রোটিনের প্রয়োজনের এক-তৃতীয়াংশ পূরণ করতে সাহায্য করে।

ভিটামিন-ডি: গর্ভাবস্থায় ভিটামিন-ডি খাওয়া ভ্রূণের অনেক সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে। গর্ভাবস্থায়, একজন মহিলার প্রতিদিন 400 আইইউ ভিটামিন-ডি প্রয়োজন। এক গ্লাস দুধ 115 থেকে 124 আইইউ ভিটামিন-ডি প্রদান করতে পারে। এভাবে প্রতিদিন তিন গ্লাস দুধ পান করলে 59% পর্যন্ত ভিটামিন-ডি সরবরাহ করা যায়।

অ্যান্টাসিড বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ: গর্ভাবস্থায় অম্বল এবং গ্যাস্ট্রিক সমস্যা সাধারণ। এমন অবস্থায় ঠাণ্ডা দুধ পান করলে অম্বলের উপসর্গ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আপনাকে হাইড্রেটেড রাখে: আপনি যদি ডিহাইড্রেটেড বা চাপ অনুভব করেন তবে এক গ্লাস দুধ পান করা আপনাকে এই অবস্থা থেকে সাহায্য করতে পারে। এটি আপনাকে হাইড্রেটেড রাখে।

এই অংশে, আমরা গর্ভবতী মহিলাকে কোন দুধ দেওয়া যেতে পারে তা খুঁজে বের করব।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য বিভিন্ন ধরনের দুধ

গর্ভাবস্থায় দুধের উপকারিতা জানার পর চলুন জেনে নেওয়া যাক গর্ভবতী অবস্থায় কোন দুধ খেতে পারেন।

গরুর দুধ: এই দুধ মা ও অনাগত শিশুর শরীরে কোষ গঠনে সাহায্য করতে পারে। এর সেবনে হাড় মজবুত হয় এবং ভ্রূণকে অনেক ধরনের রোগ থেকে রক্ষা করা যায়। এই দুধ পান করার আগে ভালো করে ফুটিয়ে নিতে হবে, যাতে এর ক্ষতিকর উপাদান দূর হয়।

দ্রষ্টব্য: এখানে আমরা এটি পরিষ্কার করি যে গর্ভাবস্থায় গরুর দুধ উপকারী কিনা তা নিয়ে খুব বেশি বৈজ্ঞানিক গবেষণা নেই। অতএব, এটি খাওয়ার আগে, অবশ্যই ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন।

ছাগলের দুধ: ছাগলের দুধ স্বাদে কিছুটা ভিন্ন হলেও পুষ্টিগুণে ভরপুর। এতে অনেক খনিজ এবং ভিটামিন রয়েছে। গরুর দুধের তুলনায় ছাগলের দুধ উচ্চ মানের প্রোটিনের একটি ভাল উৎস, এতে বেশি ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-বি6, পটাসিয়াম এবং নিয়াসিন থাকে। এক কাপ ছাগলের দুধে 327 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম থাকে। গর্ভে থাকা ভ্রূণ এবং গর্ভবতী মহিলা উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য ক্যালসিয়াম অপরিহার্য।

বিঃদ্রঃ ছাগলের দুধ পান করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন।

দুধের গুঁড়া: দুধের গুঁড়োতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়, যা হাড়ের বিকাশের জন্য উপকারী। উপরে উল্লিখিত হিসাবে, গর্ভবতী মহিলাদের প্রতিদিন প্রায় 1,000 মিলিগ্রাম থেকে 1,300 মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। দুধের গুঁড়ো খেলে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ হয়।

সয়া মিল্ক: সয়া দুধ গর্ভবতী মহিলাদের আরও ভাল উপায়ে ওজন বাড়াতে এবং একটি সুষম কোলেস্টেরলের মাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এটি রক্তে উপস্থিত চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিসের বিকাশ রোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

এখানে আমরা কিছু টিপস দিচ্ছি, যা আপনি দুধ পান করার সময় অনুসরণ করতে পারেন।

গর্ভাবস্থায় দুধ পান করার সময় মনে রাখার কিছু টিপস

যদিও গর্ভাবস্থায় দুধ খাওয়া উপকারী, তবে কিছু জিনিস রয়েছে যা আপনাকে অবশ্যই মনে রাখতে হবে।

১. ওটস, কর্ন বা কর্নফ্লেক্স এবং বার্লির মতো সিরিয়াল সকালের নাস্তায় দুধে যোগ করা যেতে পারে। এছাড়াও ওটমিল মেশানো যেতে পারে।

২. রাতের খাবারের পর এক কাপ স্কিমড দুধ খাওয়া যেতে পারে।

৩. পাস্তুরিত দুধ এড়িয়ে চলুন, কারণ এটি একটি গর্ভবতী মহিলার খাদ্যে বিষক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় দুধ নিয়ে অনেক গুজব আছে, আসুন জেনে নেই সেগুলি সম্পর্কে।

গর্ভাবস্থায় দুধ সম্পর্কিত মিথ

  • গর্ভাবস্থায় দুধ পান করলে শিশু ফর্সা হয়।
    • দুধ পান করে শিশুর সাদা হওয়ার পেছনে কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। শিশুর রঙ তার জিন দ্বারা নির্ধারিত হয়।
  • গর্ভবতী অবস্থায় দুধ পান করলে বাচ্চা বড় হয়।
    • এই সত্যের কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই, তবে গর্ভাবস্থায় দুধ পান করা শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। দুধ ভ্রূণের বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম, চর্বি, প্রোটিন এবং ক্যালোরির একটি ভাল পরিমাণ সরবরাহ করে। তাই দুধ পান করলে শিশু বড় হয় তা বলা কঠিন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

কেন আমার গর্ভাবস্থায় দুধ চাই?

আমাদের শরীর স্বাভাবিকভাবেই আমাদের প্রয়োজনীয় পুষ্টির চাহিদা রাখে। অতএব, আপনি যদি দুধ পান না করতে চান তবে এটি ক্যালসিয়াম, প্রোটিন বা ফ্যাটের ঘাটতি নির্দেশ করতে পারে। নিয়মিত দুধ খাওয়া আপনার এবং আপনার শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে।

আমি গর্ভাবস্থায় খুব বেশি দুধ পান করলে কি হবে?

অত্যধিক দুধ পান করলে চুলকানি, ফোলাভাব এবং শ্বাসকষ্ট সহ এলার্জির প্রতিক্রিয়া হতে পারে। এছাড়া দুধে উপস্থিত অতিরিক্ত চর্বি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে পারে। যাঁদের হয় দুধে অ্যালার্জি বা কম হিমোগ্লোবিন আছে তাঁদের ক্ষেত্রে এটি প্রায়ই ঘটে।

আমি কি গর্ভবতী অবস্থায় রাতে দুধ পান করতে পারি?

আপনার স্বাস্থ্য এবং ভ্রূণের বিকাশের জন্য দুধ অপরিহার্য। আপনি এটি রাতে সীমিত পরিমাণে খেতে পারেন।

এটা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি গর্ভাবস্থায় কোন ধরনের দুধ বেছে নিন। এটি আপনার শরীর এবং আপনার ভ্রূণকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পেতে সাহায্য করে। আশা করি আপনি এই পোস্ট থেকে দুধ সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য পেয়েছেন। গর্ভাবস্থা সম্পর্কে এই ধরনের আরও তথ্যের জন্য আমার অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে থাকুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (11 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button