প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় মহিলাদের জন্য কোষ্ঠকাঠিন্য সাধারণ। এটি শরীরের হরমোনের পরিবর্তনের কারণে ঘটে। সুষম খাদ্য এবং ভালো জীবনযাপনের মাধ্যমে এই সমস্যা মোকাবেলা করা গেলেও অতিরিক্ত কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। এই কারণে, গর্ভাবস্থার সময় মহিলার জন্য বেদনাদায়ক হতে পারে। আজকের পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ, লক্ষণ এবং ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করব।

আসুন প্রথম অংশে জেনে নেওয়া যাক কতজন গর্ভবতী মহিলার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য কি সাধারণ?

গর্ভাবস্থায় যে কেউ কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যায় পড়তে পারে। প্রায় 11-33 শতাংশ গর্ভবতী মহিলাদের এর মুখোমুখি হতে হয়। এটি গুরুতর না হলে উদ্বেগের কারণ নয়। তাই গর্ভবতী মহিলার কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যাকে উপেক্ষা করা উচিত নয়।

গর্ভাবস্থায় কখন কোষ্ঠকাঠিন্য হয়?

শরীরে প্রোজেস্টেরন হরমোনের মাত্রা বাড়লেই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা শুরু হয়। এটি দ্বিতীয় বা তৃতীয় মাসে ঘটে। তারপর জরায়ুর আকার বাড়ার সাথে সাথে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও বাড়তে থাকে।

পরবর্তীতে আমরা বলছি যে কোন কারণে গর্ভবতী মহিলার কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ

নিম্নলিখিত কারণে গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে:

হরমোনের পরিবর্তন: গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল প্রোজেস্টেরন হরমোনের বৃদ্ধি।

খাবারে ফাইবারের অভাব: গর্ভবতী মহিলা যদি তার খাদ্যতালিকায় ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার না রাখেন তাহলে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। ফাইবার পরিপাকতন্ত্রকে সর্বোত্তমভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

পানির অভাব: প্রতিদিন অল্প পরিমাণ পানি পান করলেও কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। এছাড়াও, প্রথম ত্রৈমাসিকে মর্নিং সিকনেসের কারণে, ডিহাইড্রেশনের সমস্যাও হতে পারে, যার ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়।

কম শারীরিক পরিশ্রম: অবশ্যই, গর্ভাবস্থায় মহিলার প্রকৃতির পরিবর্তন হয় এবং কখনও কখনও তিনি ক্লান্ত বোধ করেন তবে প্রতিদিন কিছু হাঁটাও প্রয়োজন। এতে খাবার হজম হয় এবং পেট সহজে পরিষ্কার হয়। ডাক্তার যদি আপনাকে সম্পূর্ণ বিছানা বিশ্রামের জন্য বলে থাকেন, তাহলে ভিন্ন কথা।

চিকিৎসা অবস্থা: স্ট্রোক, ডায়াবেটিস, অন্ত্রে বাধা, আইবিএস (ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম) এর মতো সমস্যাগুলিও কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হতে পারে।

ওষুধ: আয়রন এবং কিছু ব্যথা উপশমকারীও কোষ্ঠকাঠিন্যের কারণ হতে পারে।

আসুন এখন সেই লক্ষণগুলির কথা বলি, যেখান থেকে অনুমান করা যায় আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য আছে কি না।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণ

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণগুলি সম্পর্কে নীচে জানুন:

  • খুব কম মলত্যাগ।
  • ক্ষুধামান্দ্য.
  • পেট ফাঁপা এবং ব্যথা।
  • শক্ত মল।
  • শক্ত মল এবং মলের সাথে রক্ত ​​আসার কারণে মলদ্বারে দাগ পড়া।

নিবন্ধের এই অংশে, আমরা কোষ্ঠকাঠিন্য মোকাবেলার গুরুত্বপূর্ণ উপায় এবং ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বলব।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার উপায়

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করার জন্য নিচে কিছু ব্যবস্থা দেওয়া হল:

তরল: বেশি বেশি তরল গ্রহণ করলে খাবার হজম করা সহজ হয়। সারাদিনে অন্তত আট থেকে দশ গ্লাস পানি পান করতে হবে।

ছোট খাবার: একবারে বেশি খাবার না খেয়ে প্রতি ব্যবধানে অল্প করে খান। এতে খাবার সহজে হজম হবে।

প্রতিদিন ব্যায়াম করুন: ব্যায়াম করলে শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ভালোভাবে কাজ করে এবং পরিপাকতন্ত্রও ঠিক থাকে। কিভাবে এবং কতটা ব্যায়াম করতে হবে তা আপনার ডাক্তারই ভালো বলতে পারবেন।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের ঘরোয়া প্রতিকার

এখানে আমরা কিছু ঘরোয়া উপায়ের কথা বলছি, যার সাহায্যে আপনি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে পারবেন:

লেবু: এর সাহায্যে খাবার হজম করা সহজ হয়। লেবুতে রয়েছে সাইট্রিক অ্যাসিড, যার কারণে পরিপাকতন্ত্র ভালোভাবে কাজ করতে পারে এবং মলত্যাগ সহজ হয় হালকা গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়া যায়।

ব্যবহারবিধি:

  • এক গ্লাস গরম পানিতে অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে নিন।
  • স্বাদের জন্য আপনি এতে মধু যোগ করতে পারেন।
  • এই মিশ্রণটি দিনে দুবার খেতে পারেন।

পানি: শরীরে পানির অভাব থাকলেও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা হতে পারে। তাই প্রতিদিন পর্যাপ্ত পানি পান করা জরুরি। পানির সাথে খাবার ভালোভাবে হজম হয় এবং মলত্যাগে কোনো সমস্যা হয় না। ডিহাইড্রেশন এড়াতে, আপনাকে প্রতিদিন 10 গ্লাস পানি পান করতে হবে।

সাইট্রাস ফল: সাইট্রাস ফল (কমলা ইত্যাদি) ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল খাওয়া সুস্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। এর ফলে ইমিউন সিস্টেম ভালোভাবে কাজ করে। এছাড়াও সাইট্রাস ফলের মধ্যেও ফাইবার পাওয়া যায়। তাই এগুলো মূল থেকে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে পারে। আপনি প্রতিদিন একটি বা দুটি কমলা বা অন্য কোনো সাইট্রাস ফল খেতে পারেন।

সাইলিয়াম: এটি ফাইবারের একটি ভাল উৎস হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি তরল শোষণ করে মলত্যাগে সাহায্য করে। সাইলিয়াম সাধারণত ইসাবগোল নামে পরিচিত এবং বাজারে সহজেই পাওয়া যায়। এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে পান করতে পারেন। দ্রুত উপশমের জন্য আপনি এটি দিনে দুবার পান করতে পারেন।

তিসি বীজ: এগুলোকে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের ভালো উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ কারণে শরীরে তরলের পরিমাণ থেকে যায়। এর সাথে, এতে ডায়েটারি ফাইবারের পরিমাণও বেশি থাকে, যার কারণে এটি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দেয়।

আপনি প্রতিদিন আপনার ডায়েটে আধা চা চামচ ফ্ল্যাক্সবীড অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। আপনি এটি তেলের আকারে, পাউডার আকারে বা অন্য যে কোনও উপায়ে গ্রহণ করুন।

ম্যাসাজঃ পেটে ম্যাসাজ করলে পেশীর টান এবং অন্যান্য সমস্যা কমে যায়। একজন গর্ভবতী মহিলা প্রায় 15 মিনিটের জন্য ম্যাসাজ করলে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতে পারেন। মনে রাখবেন হালকা হাতে ম্যাসাজ করতে হবে।

আঙ্গুলের সাহায্যে ঘড়ির কাঁটার দিকে ম্যাসাজ করা উচিত। বাম পাশ দিয়ে শুরু করুন, তারপর মাঝখানে এবং শেষে পেটের ডান দিকে। বাড়ির কোনও সদস্য দ্বারা ম্যাসাজ না করে একজন প্রশিক্ষকের দ্বারা এটি করানো ভাল।

রিফ্লেক্সোলজি: এটি এক ধরনের বিকল্প ওষুধ। এতে তেল বা ক্রিম ছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশ যেমন আঙুল বা বুড়ো আঙুল ইত্যাদি চেপে চিকিৎসা করা হয়। আক্রান্ত স্থানে চাপ প্রয়োগ করলে স্বস্তি পাওয়া যায়। এ জন্য বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিলে ভালো হবে।

আকুপ্রেসার: এটিও একটি বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতি। শরীরের বিভিন্ন অংশে চাপ প্রয়োগ করেও এর চিকিৎসা করা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসাও সম্ভব। এটি একটি বিশেষজ্ঞ দ্বারা করা ভাল হবে।

ফাইবার: ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খেলে হজম প্রক্রিয়া ভালোভাবে কাজ করে। এছাড়াও, ফাইবারে ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা একটি সুস্থ গর্ভাবস্থার জন্য অপরিহার্য। মটরশুটি, শুকনো ফল, শস্য, বাদাম, ফল এবং শাকসবজি ফাইবারের ভালো উৎস।

ভালো চর্বি: সুষম পরিমাণে ভালো চর্বি গ্রহণ করলে মলত্যাগের প্রক্রিয়া উন্নত হয়। আপনি নিয়মিত অ্যাভোকাডোর মতো চর্বি সমৃদ্ধ ফল খেতে পারেন।

দই: এটি প্রোবায়োটিকের একটি ভালো উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়। এটি খাদ্য হজমে সাহায্য করে। প্রতিদিন এক বাটি দই খেতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় দই খাওয়ার ৯টি উপকারিতা, গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা ও নিয়ম

আপেল সিডার ভিনেগার: পেকটিন এবং অ্যাসিটিক অ্যাসিড রয়েছে, যা পাচনতন্ত্রের উন্নতি করতে পারে। এক গ্লাস গরম পানিতে এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। স্বাদের জন্য আপনি এতে মধুও যোগ করতে পারেন। এই মিশ্রণ সকালে এবং রাতে পান করা যেতে পারে।

শিলা লবণ: এটি ম্যাগনেসিয়াম সালফেট নামেও পরিচিত। এটি শিরার উত্তেজনা কমাতে ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়াও, এর রেচক বৈশিষ্ট্যও রয়েছে, যা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। আপনি জলে ভরা বাথটাবে এক কাপ শিলা লবণ যোগ করুন। এবার তাতে কিছুক্ষণ বসুন। এই পানি যেন মুখে না ঢুকে সেদিকে খেয়াল রাখুন।

পরবর্তীতে আমরা সেই ওষুধগুলির কথা বলছি, যেগুলি গর্ভবতী মহিলার কোষ্ঠকাঠিন্য হলে সেগুলি খেতে পারে।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা কিভাবে করবেন?

কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা গুরুতর হলে কিছু ওষুধ সেবন করা ভালো হতে পারে, তবে মনে রাখবেন ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া এসব ওষুধ খাবেন না।

মল সফ্টনার: এটি মল পাতলা করার ওষুধ। যে কোন মেডিক্যাল স্টোর থেকে এই ওষুধ পাওয়া যাবে। এই ওষুধটি বড়ি বা তরল আকারে আসে। আপনার ডাক্তার আপনাকে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার ক্ষেত্রে এই ওষুধটি খেতে বলতে পারেন।

লুব্রিকেন্ট ল্যাক্সেটিভ: এটি মলকে পাতলা করে এবং অন্ত্রের প্রাচীরকে লুব্রিকেট করে, যার ফলে মল বের হওয়া সহজ হয়। গ্লিসারিন সাপোজিটরি এক ধরনের লুব্রিকেন্ট রেচক। এটি খাওয়ার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

অসমোটিক ল্যাক্সেটিভ: এই ওষুধটি অন্ত্রে আরও জল আকর্ষণ করে, মলকে পাতলা করে এবং পেট পরিষ্কার করা সহজ করে। মনে রাখবেন যে এই ধরনের জোলাপ পেটে খিঁচুনি এবং গ্যাস গঠনের কারণ হতে পারে।

আসুন, এবার জেনে নিই কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে কী খাবেন।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে আপনি নিয়মিত হাঁটুন

গর্ভাবস্থায় হাঁটা ভালো। আপনি প্রতিদিন 20 থেকে 30 মিনিট হাঁটতে পারেন। এতে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হবে এবং আপনি সতেজ বোধ করবেন।

গর্ভাবস্থায় সাঁতার কাটা মা ও শিশু উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। সাঁতার আপনার স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিতে পারে। আপনার শুধুমাত্র একজন প্রশিক্ষকের তত্ত্বাবধানে সাঁতার কাটা উচিত। আপনি যদি সাঁতার না পারেন তবে এটি করবেন না।

গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য শিশুর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে?

যদিও কোষ্ঠকাঠিন্য অনাগত শিশুর কোন ক্ষতি করে না, তবে মহিলার পাইলস এবং রক্তাক্ত মল হতে পারে।

আসুন এখন এই সমস্যা সম্পর্কিত পাঠকদের কিছু প্রশ্ন আলোচনা করা যাক।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

কোষ্ঠকাঠিন্য কি প্রাথমিক গর্ভাবস্থার লক্ষণ?

না, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা যে কারো এবং যে কোনো সময় হতে পারে। হজম প্রক্রিয়ার দুর্বলতা এবং অন্ত্রের অনুপযুক্ত কার্যকারিতার কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়। গর্ভাবস্থার সাথে এর কোনো সম্পর্ক নেই।

এটা স্পষ্ট যে গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য একটি গুরুতর রোগ নয়, তবে এর দীর্ঘায়িত অবস্থান অবশ্যই অন্যান্য সমস্যার কারণ হতে পারে। তাই যতটা সম্ভব সুস্থ থাকুন এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সঠিক খাবার খান। যদি এখনও কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দেয়, তবে আপনি এই পোস্টে উল্লিখিত ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়াও নিয়মিত হালকা ব্যায়াম করুন। আমরা আপনার একটি সুস্থ গর্ভাবস্থা কামনা করি।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (14 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button