প্রেগন্যান্সি

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় – বিশেষজ্ঞদের দেয়া 11 টি টিপস

প্রতিটি গর্ভবতী মহিলাই উদ্বিগ্ন যে তার নরমাল ডেলিভারি হবে নাকি সিজারিয়ান হবে। সাধারণত ডাক্তাররা শুধুমাত্র স্বাভাবিক প্রসবের পরামর্শ দেন। গত কয়েক বছরে গর্ভবতী মহিলারা স্বাভাবিক প্রসবের সময় ব্যথার কথা বিবেচনা করে সিজারিয়ান ডেলিভারির পথ বেছে নিচ্ছেন। ন্যাশনাল হেলথ ফ্যামিলি সার্ভে (বছর 2019-20) তথ্য অনুযায়ী, শহরাঞ্চলের 35.3 শতাংশ মহিলা গত 5 বছরে সি-সেকশনের মাধ্যমে প্রসবের জন্য বেছে নিয়েছেন।

গ্রাম ও গ্রামাঞ্চলে 18.9 শতাংশ মহিলা সি-সেকশন দ্বারা প্রসব করান, যেখানে 2005-06 সালে, মোট সিজারিয়ান ডেলিভারির (শহর ও গ্রামে উভয় ক্ষেত্রেই সিজারিয়ান ডেলিভারি) সংখ্যা ছিল মাত্র 8.5 শতাংশ। তা সত্ত্বেও সিজারিয়ান ডেলিভারির চেয়ে নরমাল ডেলিভারি হওয়া ভালো। তাই আপনার অবশ্যই নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় গুলো জেনে রাখা উচিৎ। এই পোস্টে আমরা নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় সম্পর্কে কথা বলব।

Contents

নরমাল ডেলিভারি কি?

এটি শ্রম বা প্রসবের একটি প্রক্রিয়া যেখানে শিশুর জন্ম নারীর যোনিপথের মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে হয়। গর্ভাবস্থায় কোনো চিকিৎসা সমস্যা না থাকলে গর্ভবতী মহিলার স্বাভাবিক প্রসব হতে পারে।

যে বিষয়গুলো স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়ায়

নীচে আমরা এমন কিছু কারণ সম্পর্কে বলছি, যা স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিতে পারে:

  • যদি গর্ভবতী মহিলার আগে স্বাভাবিক প্রসব হয়ে থাকে।
  • গর্ভবতী মহিলার কোন প্রকার শারীরিক রোগ না থাকলে (যেমন- হাঁপানি ইত্যাদি)।
  • গর্ভবতী মহিলা এবং গর্ভের শিশুর স্বাভাবিক ওজন থাকলে।
  • যদি গর্ভবতী মহিলা গর্ভাবস্থায় কোনও গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যায় না ভোগেন।
  • যদি গর্ভবতী মহিলা গর্ভাবস্থায় শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকে।
  • গর্ভবতী মহিলার রক্তচাপ, রক্তে সুগার ও হিমোগ্লোবিনের মাত্রা স্বাভাবিক থাকলে।

দ্রষ্টব্য: উপরে উল্লিখিত কারণগুলি স্বাভাবিক প্রসবের গ্যারান্টি দেয় না। এগুলো শুধুমাত্র স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

পরবর্তীতে অংশে আমরা সেই লক্ষণগুলি সম্পর্কে কথা বলব যা স্বাভাবিক প্রসবের ইঙ্গিত দেয়।

স্বাভাবিক প্রসবের লক্ষণ ও উপসর্গ / নরমাল ডেলিভারি সিম্পটমস

হ্যাঁ, কিছু লক্ষণ ও উপসর্গের ভিত্তিতে স্বাভাবিক প্রসবের পূর্বাভাস দেওয়া যায়। সাধারণত প্রসবের চার সপ্তাহ আগে থেকেই গর্ভবতী মহিলার শরীরে এই লক্ষণগুলি দেখা দিতে শুরু করে। এই লক্ষণ এবং লক্ষণগুলি নিম্নরূপ:

১. গর্ভাবস্থার 34 তম সপ্তাহ থেকে 36 তম সপ্তাহের মধ্যে, যদি ভ্রূণের মাথা নিচু হয়ে যায় তবে এটি স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

২. ভ্রূণের মাথা গর্ভবতী মহিলার যোনিপথে চাপ দেয়, যার ফলে মহিলার ঘন ঘন প্রস্রাব হয়। এটি ভ্রূণের নিচে নেমে আসার লক্ষণ।

৩. গর্ভবতী মহিলার যদি ভ্রূণের নিচের দিকে নড়াচড়ার কারণে নড়াচড়া করতে অসুবিধা হয় তবে এটি স্বাভাবিক প্রসবের লক্ষণ।

৪. প্রসবের সময় ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে গর্ভবতী মহিলার মলদ্বারের পেশী আলগা হয়ে যায়। এই কারণে, মহিলা পাতলা মল অভিযোগ করতে পারে। এটি স্বাভাবিক প্রসবের লক্ষণ হিসাবেও বিবেচিত হয়।

আসুন এখন জেনে নিই নরমাল ডেলিভারির প্রক্রিয়া কি? এবং এর পরেই আমরা আলোচনা করব নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় সম্পর্কে।

কিভাবে স্বাভাবিক প্রসব করা হয়?

স্বাভাবিক প্রসবের প্রক্রিয়াটি তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত। এর প্রথম পর্বটিও তিনটি ভাগে বিভক্ত, যা নীচে বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

স্বাভাবিক প্রসবের প্রথম পর্যায়:

১। সুপ্ত প্রক্রিয়া: স্বাভাবিক প্রসবের ক্ষেত্রে, সুপ্ত প্রক্রিয়াটি দীর্ঘ সময়ের জন্য স্থায়ী হয়। এতে সার্ভিক্স ৩ সেন্টিমিটার পর্যন্ত খুলতে পারে। এই প্রক্রিয়াটি প্রসবের এক সপ্তাহ আগে বা প্রসবের কয়েক ঘন্টা আগে শুরু হতে পারে। এই সময়ে, একজন গর্ভবতী মহিলার মধ্যে সংকোচনও হতে পারে।

সুপ্ত প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়া গর্ভবতী মহিলাদের জন্য টিপস:

  • আরাম করুন এবং নিজের যত্ন নিন।
  • এর মাঝে নাড়তে থাকুন এবং প্রচুর পানি পান করুন।
  • একা থাকবেন না, কাউকে না কাউকে সাথে রাখুন।
  • হাসপাতালে যাওয়ার প্রস্তুতি শুরু করুন।
  • আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

২। সক্রিয় পদ্ধতি: সক্রিয় প্রক্রিয়ায় সার্ভিক্স 3-7 সেমি পর্যন্ত খোলে। এই সময়, সংকোচনের কারণে একটি ধারালো ব্যথা হয়। সক্রিয় প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়া গর্ভবতী মহিলাদের জন্য টিপস:

যদি সংকোচন তীব্র হতে শুরু করে, নিজেকে শিথিল করুন এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়ামে ফোকাস করুন।
কাউকে আপনার কাঁধ এবং রুম ম্যাসেজ করুন। এটি আপনাকে স্বস্তি দেবে।

এমন পরিস্থিতিতে, আপনার হাসপাতালে থাকা উচিত, যাতে আপনার এবং ভ্রূণের হৃদস্পন্দন পরীক্ষা করা যায়।

৩। ট্রানজিশন প্রক্রিয়া: ট্রানজিশন প্রক্রিয়ায় সার্ভিক্স 8-10 সেমি পর্যন্ত খোলে। এই সময়ে, সংকোচন ক্রমাগত ঘটতে থাকে এবং ব্যথাও বৃদ্ধি পায়। রূপান্তর প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাওয়া গর্ভবতী মহিলাদের জন্য টিপস:

  • যদি যোনি থেকে তরল আসে, তবে তার গন্ধ এবং রঙের বিবরণ এক জায়গায় নোট করুন।
  • শান্ত থাকুন এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়ামে মনোযোগ দিন।
  • এই সময়ে, ডাক্তার আপনার এবং আপনার শিশুর হৃদস্পন্দন পরীক্ষা করতে পারেন।

স্বাভাবিক প্রসবের দ্বিতীয় পর্যায় – বাচ্চা বের হওয়া

এই সময়, সার্ভিক্স সম্পূর্ণরূপে খোলে এবং সংকোচনের গতি ত্বরান্বিত হয়। এই পর্যায়ে শিশুর মাথা সম্পূর্ণ নিচে নেমে আসে। এ সময় চিকিৎসকরা গর্ভবতী নারীকে নিজেকে ধাক্কা দিতে বলেন। এতে করে প্রথমে শিশুর মাথা বের হয়ে আসে। এরপর চিকিৎসক শিশুটির শরীরের বাকি অংশ বের করে দেন।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য টিপস দ্বিতীয় পর্যায়ে যাচ্ছে:

  • সংকোচনের সময়, আপনি এর মধ্যে আপনার অবস্থান পরিবর্তন করেন।
  • নিয়মিত শ্বাস নিতে থাকুন।
  • বাচ্চাকে ধাক্কা দেওয়ার চেষ্টা করতে থাকুন।

স্বাভাবিক প্রসবের তৃতীয় পর্যায় – নাভির কর্ড বেরিয়ে আসা

বাচ্চা বের হওয়ার সাথে সাথে ডাক্তার নাভি কেটে আলাদা করে দেন। তৃতীয় পর্যায়ে গর্ভবতী মহিলার জরায়ুতে উপস্থিত ‘প্ল্যাসেন্টা’ বেরিয়ে আসে। শিশুর জন্মের পর, প্লাসেন্টাও জরায়ুর দেয়াল থেকে আলাদা হতে শুরু করে। একজন গর্ভবতী মহিলার প্লেসেন্টা আলাদা হওয়ার সময়ও হালকা সংকোচন হয়। এই সংকোচনগুলি শিশুর জন্মের পাঁচ মিনিট পর্যন্ত শুরু হতে পারে। প্ল্যাসেন্টা বেরিয়ে আসার প্রক্রিয়া প্রায় আধা ঘন্টা স্থায়ী হতে পারে। এর জন্যও, ডাক্তাররা গর্ভবতী মহিলাকে নিজেকে জোর করতে বলেন।

নরমাল ডেলিভারি সম্পর্কে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার জন্য কতক্ষণ সময় লাগে?

সাধারণত, স্বাভাবিক প্রসবের সময় গর্ভবতী মহিলার শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করে। যদি একজন গর্ভবতী মহিলার প্রথমবারের মতো স্বাভাবিক প্রসব হতে থাকে, তবে এই প্রক্রিয়াটি 7-8 ঘন্টা পর্যন্ত সময় নিতে পারে। একই সময়ে, এটি যদি গর্ভবতী মহিলার দ্বিতীয় প্রসব হয়, তবে এই প্রক্রিয়াটি একটু কম সময় নিতে পারে।

চলুন এবার নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের দেয়া ১১টি টিপস জেনে নিই।

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় – 11 টিপস

যেকোন গর্ভবতী মহিলা নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় হিসেবে নীচে দেওয়া এই টিপসগুলি অবলম্বন করে স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারেন:

১. মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকুন: গর্ভবতী মহিলারা যারা স্বাভাবিক প্রসব করতে চান তাদের গর্ভাবস্থায় চাপ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করা উচিত। এ জন্য তারা চাইলে ধ্যান করতে পারেন, গান শুনতে পারেন বা বই পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ মানসিক চাপ কমানোর উপায় এবং চাপমুক্ত থাকার জন্য করণীয়, ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

২. নেতিবাচক জিনিস চিন্তা করবেন না: গর্ভাবস্থায় নেতিবাচক জিনিস থেকে দূরে থাকুন। ডেলিভারি সম্পর্কে শোনা নেতিবাচক জিনিস এবং উপাখ্যানগুলিতে কোন মনোযোগ দেবেন না। মনে রাখবেন যে প্রতিটি মহিলার অভিজ্ঞতা ভিন্ন হতে পারে। অতএব, অন্যের খারাপ অভিজ্ঞতার কারণে নিজের মধ্যে ভয় তৈরি করবেন না।

৩. সন্তান জন্মদান সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানুন: সঠিক তথ্য ভয় দূর করে। অতএব, ডেলিভারি সম্পর্কে যতটা সম্ভব সঠিক তথ্য জানতে চেষ্টা করুন। এটি গর্ভবতী মহিলাকে প্রসবের প্রক্রিয়াটি আরও ভালভাবে বুঝতে সহায়তা করে।

৪. প্রিয়জনের সাথে থাকুন: প্রিয়জনের সাথে থাকা একজন গর্ভবতী মহিলাকে মানসিকভাবে শক্তিশালী করে তোলে। তাই গর্ভাবস্থায় সবসময় আপনার প্রিয়জনের সাথে থাকার চেষ্টা করুন।

৫. সঠিক ডাক্তার চয়ন করুন: গর্ভবতী মহিলার খুব সাবধানে প্রসবের জন্য ডাক্তার বেছে নেওয়া উচিত। স্বাভাবিক প্রসবের জন্য, এমন একজন ডাক্তার বেছে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, যিনি গর্ভবতী মহিলার শরীরের অবস্থা সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিতে থাকেন এবং স্বাভাবিক প্রসবের চেষ্টা করেন।

৬. সাহায্যের জন্য একজন অভিজ্ঞ মিডওয়াইফ নিয়োগ করুন: যে মহিলারা নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় খুঁজছেন তাদের সাথে একজন অভিজ্ঞ মিডওয়াইফ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়। এই ধরনের মিডওয়াইফদের স্বাভাবিক প্রসবের ভালো অভিজ্ঞতা থাকে, তাই তারা প্রসবের সময় গর্ভবতী মহিলাদের জন্য খুবই সহায়ক হতে পারে। এছাড়াও, শিশুর জন্মের পর যে যত্ন নেওয়া দরকার সে সম্পর্কেও মিডওয়াইফরা ভালোভাবে পারদর্শী।

৭. নিয়মিত নীচের শরীর ম্যাসাজ করুন: গর্ভাবস্থার সপ্তম মাসের পরে, গর্ভবতী মহিলারা তাদের নীচের শরীরে মালিশ করা শুরু করতে পারেন। এটি ডেলিভারি সহজ করে এবং মানসিক চাপ থেকেও মুক্তি দেয়।

৮. নিজেকে হাইড্রেটেড রাখুন: গর্ভবতী মহিলাদের সবসময় নিজেকে হাইড্রেটেড রাখা উচিত। তাদের প্রচুর পানি বা জুস পান করা উচিত। প্রসব ব্যথায় পানির অভাব হতে পারে, তাই অল্প অল্প করে পানি পান করতে থাকুন।

৯. উঠতে এবং বসতে সঠিক অবস্থানের যত্ন নিন: একজন গর্ভবতী মহিলার বসা থেকে শোয়া পর্যন্ত অবস্থান গর্ভের শিশুর উপর প্রভাব ফেলে। অতএব, তাদের সর্বদা তাদের শরীরকে সঠিক অবস্থানে রাখার চেষ্টা করা উচিত। উদাহরণস্বরূপ, বসার সময়, তাদের পিঠটি সঠিকভাবে সমর্থন করে বসতে হবে।

১০. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন: গর্ভাবস্থায় ওজন বৃদ্ধি স্বাভাবিক, তবে গর্ভবতী মহিলাদের খুব বেশি ওজন বাড়ানো উচিত নয়। অতিরিক্ত ওজনের কারণে প্রসবের সময় সমস্যা হতে পারে। আসলে মা খুব মোটা হলে বাচ্চা বের হতে অসুবিধা হয়।

১১. ব্যায়াম: গর্ভাবস্থায় নিয়মিত ব্যায়াম করলে স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিয়মিত ব্যায়াম করুন। এছাড়াও, ডাক্তারের পরামর্শে, প্রতিদিনের গৃহস্থালির কাজ করতে থাকুন।

এখানে আমরা নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় সম্পর্কে আরও কিছু কাজের টিপস দিচ্ছি।

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার জন্য করণীয়

একজন গর্ভবতী মহিলার খাদ্য এবং জীবনযাত্রার অভ্যাসগুলি তার স্বাস্থ্যের পাশাপাশি গর্ভস্থ শিশুর স্বাস্থ্যের উপর অনেক প্রভাব ফেলে। নীচে আমরা এমন কিছু অভ্যাসের কথা বলছি, যা স্বাভাবিক প্রসবের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

নরমাল ডেলিভারি হয়ার জন্য কি খাওয়া উচিত?

গর্ভবতী মহিলাদের স্বাভাবিক প্রসবের জন্য তাদের খাদ্যতালিকায় দুগ্ধজাত দ্রব্য, সবুজ শাক-সবজি, শুকনো ফল, চর্বিবিহীন মাংস, মৌসুমি ফল, ডিম, বেরি এবং লেবু ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। উপরন্তু, তাদের সারাদিন প্রচুর পানি পান করে নিজেদেরকে হাইড্রেটেড রাখতে হবে।

গর্ভাবস্থায় কী খাবেন না?

কাঁচা ডিম, অ্যালকোহল, সিগারেট, উচ্চ পরিমাণে ক্যাফেইন, উচ্চ পারদের মাত্রা সহ মাছ, কাঁচা পেঁপে, কাঁচা স্প্রাউট, ক্রিম দুধ থেকে তৈরি পনির, কাঁচা মাংস, ঘরে তৈরি আইসক্রিম এবং জাঙ্ক ফুড ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কোন ফল খাওয়া উচিত এবং কোনটি উচিত নয়

স্বাভাবিক প্রসবের জন্য ব্যায়াম

গর্ভবতী মহিলার যদি কোনও চিকিৎসা সমস্যা না থাকে তবে তাকে গর্ভাবস্থায় নিয়মিত ব্যায়াম করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গর্ভাবস্থায় ব্যায়াম করা শুধুমাত্র মা এবং শিশুকে সুস্থ রাখে না, এটি স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনাও বাড়িয়ে দেয়।

গর্ভবতী মহিলাদের নিম্নলিখিত ব্যায়াম করার পরামর্শ দেওয়া হয়:

  • সকাল-সন্ধ্যা নিয়মিত হাঁটুন।
  • কিছুক্ষণ সাঁতার কাটুন।
  • কিছু সাইকেল চালান।
  • হালকা দৌড়ান।
  • আপনি চাইলে গর্ভাবস্থার ব্যায়াম ক্লাসেও যেতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: মনে রাখবেন যে প্রতিটি গর্ভবতী মহিলার শারীরিক অবস্থা আলাদা। তাই যেকোনো ব্যায়াম শুরু করার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

কী করবেন না?

  1. ভারোত্তোলনের মতো ব্যায়াম, যা তলপেটে চাপ দেয়।
  2. মার্শাল আর্ট, সকার এবং বাস্কেটবল ইত্যাদি খেলায় অংশগ্রহণ করবেন না।
  3. আপনি যদি কোন দিন ব্যায়াম করতে না চান, তাহলে সেই দিন ব্যায়াম করবেন না।
  4. জ্বর হলে ব্যায়াম করবেন না।
  5. অতিরিক্ত স্ট্রেচিং ব্যায়াম করবেন না।
  6. দীর্ঘ সময় ব্যায়াম করবেন না। এটি আপনাকে ক্লান্ত করে তুলতে পারে।

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় – যোগব্যায়াম সম্পর্কিত টিপস

যদি একজন গর্ভবতী মহিলা নিয়মিত নির্দিষ্ট ধরণের যোগব্যায়াম করেন তবে স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। স্বাভাবিক প্রসবের জন্য নিম্নলিখিত যোগাসনগুলি সুপারিশ করা হয়:

মার্জারি আসন

image
নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় টিপস1


বৃদ্ধকোণাসন

image 1
নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় টিপস2

বীরভদ্রাসন

image 2
নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় টিপস3

ত্রিকোণাসন

image 3
নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় টিপস4

শ্মশান

image 4
নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় টিপস5

দ্রষ্টব্য: মনে রাখবেন যে প্রতিটি গর্ভবতী মহিলার শারীরিক অবস্থা আলাদা। তাই যোগব্যায়ামের যে কোনো ভঙ্গি অনুশীলন শুরু করার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

পেরিনিয়াল ম্যাসেজ কখন শুরু করবেন?

পেরিনিয়াল ম্যাসাজ স্বাভাবিক প্রসবের জন্য উপকারী প্রমাণিত হয়েছে। এই ম্যাসাজটি গর্ভাবস্থার 34 তম সপ্তাহ থেকে শুরু করা যেতে পারে। গর্ভবতী মহিলারা যারা স্বাভাবিক প্রসব করতে চান তাদের প্রতিদিন কয়েক মিনিটের জন্য পেরিনিয়াল ম্যাসাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এই মালিশের জন্য বাদাম তেল ব্যবহার করা যেতে পারে।

আরো জানুনঃ বাদাম তেলের উপকারিতা, ব্যবহারের নিয়ম এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

পেরিনাল ম্যাসাজ কিভাবে করবেন:

১. নির্জন জায়গায় দেয়ালের সাপোর্ট দিয়ে বসুন। বসার সময় পা সামনের দিকে রাখুন। আপনি চাইলে পেছনে আরামদায়ক বালিশও রাখতে পারেন।

২. আপনার হাত ভাল করে ধুয়ে নিন এবং আপনার আঙ্গুলে কিছু তেল লাগান।

৩. এখন উভয় হাতের বুড়ো আঙুল যোনির ভিতরে প্রায় 2.5 সেন্টিমিটার রাখুন এবং বাকি আঙ্গুলগুলি নিতম্বের উপর রাখুন।

৪. এর পরে, আপনার বুড়ো আঙুল দিয়ে যোনির ভিতরে আলতো করে ম্যাসাজ করুন।

গর্ভবতী মহিলাদের পাঁচ মিনিটের জন্য পেরিনিয়াল ম্যাসাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কেন একজনকে নরমাল ডেলিভারি পদ্ধতি বেছে নেওয়া উচিত?

স্বাভাবিক প্রসব মা এবং শিশু উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এই উপকারিতা গুলো নীচে বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

নরমাল ডেলিভারির উপকারিতা

  • ডেলিভারির পর সুস্থ হতে বেশি সময় লাগে না।
  • নরমাল ডেলিভারিতে মা অবিলম্বে তার শিশুকে দুধ খাওয়াতে সক্ষম হন।
  • সিজারিয়ান ডেলিভারির মতন, নরমাল ডেলিভারিতে কোন চিরার প্রয়োজন হয় না। তাই প্রসবের পর গর্ভবতী মহিলাকে কোন প্রকার ব্যাথা সহ্য করতে হয় না।

শিশুর জন্য স্বাভাবিক প্রসবের উপকারিতা:

একটি স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে, শিশুটি তার মাকে সিজারিয়ান ডেলিভারির চেয়ে একটু আগে সমর্থন করতে সক্ষম হয়। শিশু দ্রুত বুকের দুধ পায়। এতে শিশুর জন্ডিসের ঝুঁকি কমে।

নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় এবং নরমাল ডেলিভারি হলে কি কি উপকার পাবেন, এতক্ষণে আপনি সবকিছু জেনে নিয়েছেন। এবার কিছু গর্ভবতী মায়েদের সচরাচর জিজ্ঞেস করা প্রশ্নের উত্তর জেনে নিন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

কখন এবং কতক্ষণ বাচ্চাকে বাইরে ঠেলে দিতে হবে তা কীভাবে জানে?

যদি একজন গর্ভবতী মহিলার সার্ভিক্স 10 সেন্টিমিটার পর্যন্ত খোলা থাকে, তবে এটি শিশুর জন্য চাপ দেওয়ার সময়। এই সময়ে, গর্ভবতী মহিলারা তাদের পায়ের মধ্যে শিশুর মাথার চাপ অনুভব করতে শুরু করে। যদি একজন গর্ভবতী মহিলার একটি এপিডুরাল ইনজেকশন থাকে তবে তাকে খুব বেশি চাপ দেওয়ার প্রয়োজন নাও হতে পারে। এছাড়া ডেলিভারি ডাক্তার গর্ভবতী মহিলাকে ধাক্কা দেওয়ার বিষয়ে নির্দেশনাও দিয়ে থাকেন।

আমার কি এপিসিওটমি করতে হবে?

এপিসিওটমি শুধুমাত্র নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে প্রয়োজন। এপিসিওটমি সাধারণত প্রয়োজন হয় যখন শিশুর মাথার আকার মায়ের যোনি এলাকার চেয়ে বড় হয়। যখন এটি ঘটে, তখন শিশুর জন্য বের হওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। এছাড়াও, যদি শিশু জন্মের খালে আটকে যায় তবে এটি বের করার জন্য এপিসিওটমিও প্রয়োজন। একটি এপিসিওটমি করার জন্য, ডাক্তাররা গর্ভবতী মহিলার যোনি এলাকায় একটি ছেদ তৈরি করেন। সাধারণত, ডাক্তাররা প্রসবের সময় এপিসিওটমি করার সিদ্ধান্ত নেন।

প্রসবের পরে আমার কি যোনিতে সেলাই লাগবে?

হ্যাঁ, প্রসবের সময় যখন বাচ্চা বের হতে শুরু করে, তখন গর্ভবতী মহিলার যোনিপথে অনেক চাপ পড়ে। এ কারণে যোনির কিছু অংশও সামান্য ছিঁড়ে যেতে পারে। এই ক্ষেত্রে, যোনিতে সেলাই প্রয়োজন হতে পারে। এছাড়াও, যদি একটি এপিসিওটমি হয়, তবে তার পরে সেলাই করতে হবে।

যদি আমার আগে সিজারিয়ান ডেলিভারি হয়ে থাকে, তাহলে দ্বিতীয়বার গর্ভবতী হলে কি স্বাভাবিক ডেলিভারি হতে পারে?

হ্যাঁ, আগে সিজারিয়ান ডেলিভারি হলেও স্বাভাবিক প্রসব করা সম্ভব। এটি মূলত গর্ভবতী মহিলার শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করে। অনেক ডাক্তারও মনে করেন যে নারীদের আগে সিজারিয়ান ডেলিভারি হয়েছে, তাদের পরবর্তী প্রসব স্বাভাবিক হতে পারে।

গর্ভবতী মহিলার পেটে যমজ সন্তান থাকলে তার কি স্বাভাবিক প্রসব হতে পারে?

হ্যাঁ, গর্ভবতী মহিলার গর্ভে উপস্থিত উভয় শিশুই যদি সুস্থ থাকে তবে তাদের স্বাভাবিক প্রসব হতে পারে। প্রথম সন্তান সোজা হলে স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বেড়ে যায়, তবে দ্বিতীয় সন্তানের অবস্থানের কথা মাথায় রেখেও স্বাভাবিক প্রসবের চেষ্টা করা উচিত। অনেক নারী আছেন যারা স্বাভাবিক পদ্ধতিতে যমজ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন।

স্বাভাবিক প্রসবের জটিলতা কি?

যদিও স্বাভাবিক ডেলিভারি একেবারে নিরাপদ, কিন্তু কিছু মহিলাদের নিম্নলিখিত জটিলতার সম্মুখীন হতে হতে পারে:

* প্লাসেন্টা হঠাৎ ফেটে যাওয়া।
* প্রথমে ভ্রূণের মাথা বের হয়।
* শিশুর হৃদস্পন্দনের ঘটনা বা বৃদ্ধি।
* অত্যধিক রক্তপাত
* পানির ব্যাগ তাড়াতাড়ি ফেটে যাওয়া।
এই ধরনের কোনো জটিলতার ক্ষেত্রে, ডাক্তার অবিলম্বে সিজারিয়ান ডেলিভারির সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।

নরমাল ডেলিভারি ব্যাথা কেমন?

স্বাভাবিক প্রসবের সময় প্রতিটি মহিলার অভিজ্ঞতা ভিন্ন হতে পারে। প্রসবের সময় মহিলা কতটা ব্যথা অনুভব করবেন তা তার শারীরিক এবং মানসিক ক্ষমতার উপর নির্ভর করে।

আমরা আশা করি এই পোস্টে নরমাল ডেলিভারি হওয়ার উপায় পড়ার পর আপনি স্বাভাবিক প্রসবের গুরুত্ব বুঝতে পেরেছেন। যাই হোক না কেন, সি-সেকশনের চেয়ে নরমাল ডেলিভারি ভালো এবং চিকিৎসকরা এটি নিশ্চিত করেন। তাই, আপনিও যদি গর্ভবতী হন, তাহলে এই সমস্ত টিপস অনুসরণ করুন, যা স্বাভাবিক প্রসবের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত এই ধরনের আরও তথ্যের জন্য, আপনি আমাদের অন্যান্য নিবন্ধগুলি পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (15 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button