স্কিন কেয়ার

ব্রাউন সুগার ফেসিয়াল: ত্বক উজ্জ্বল এবং পরিষ্কার করুন ঘরে বসেই

যারা রূপপচর্চা করতে পছন্দ করে তারা প্রায়ই তাদের মুখ পরিষ্কার করতে এবং উজ্জ্বলতা আনতে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। কখনো ফেসিয়াল করায়, কখনো ব্লিচ করায়, কিন্তু পার্লারে গিয়ে দামি ফেসিয়াল করানো প্রতিবারই সম্ভব হয় না।

এমন পরিস্থিতিতে, রান্নাঘরে রাখা উপাদানগুলি প্রায়শই দেখা যায় এবং তখন আপনার মনে পড়ে যে এই জিনিসগুলি দিয়ে আপনি আপনার মুখের ফেসিয়াল করতে পারেন। আজকে আমরা এমন কিছু টিপস দিবো যাতে আপনি সহজেই বাড়িতে ব্রাউন সুগার দিয়ে ফেসিয়াল করতে পারেন।

স্ক্রীনিং

প্রথমেই আসি স্ক্রীনিং সম্পর্কে,

হ্যাঁ, খাওয়া ছাড়াও মুখে ব্রাউন সুগার ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে ব্রাউন সুগার ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে। এর পাশাপাশি এতে রয়েছে গ্লাইকোলিক অ্যাসিড, যা আপনার ত্বককে আরও তরুণ দেখায়। ব্রাউন সুগার আপনার ত্বককে কোমল করে। তাই এ বার ঘরেই করুন ব্রাউন সুগার ফেসিয়াল। তো চলুন জেনে নিই কিভাবে ফেসিয়াল করবেন।

ব্রাউন সুগার ফেসিয়াল ঘরোয়া টিপস

ব্রাউন সুগারের সাথে ক্লিনজার মেশানঃ আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী ফেসিয়াল ক্লিনজার ব্যবহার করতে পারেন। ব্রাউন সুগারের সাথে একটি ক্লিনজার এবং সামান্য গরম জল যোগ করুন। তারপরে এটি আপনার মুখে ভালভাবে লাগান। ক্লিনজারটি ব্রাউন সুগারের সাথে ব্যবহার করা হয় কারণ এটি আপনার মুখে ব্রাউন সুগার এর বৈশিষ্ট্য ধরে রাখবে এবং আপনার মুখও পরিষ্কার রাখবে।

এর পাশাপাশি আপনি চাইলে বাইরে থেকে না কিনে ঘরে বসেও তৈরি করতে পারেন ক্লিনজার। এটি তৈরি করাও খুব সহজ। চলুন শিখে নেই ঘরে বসেই কীভাবে তৈরি করবেন এই ফেসিয়াল ক্লিনজার।

বাড়িতে সহজ ফেসিয়ালঃ প্রথমে আপনার ত্বক ম্যাসাজ করে নিন এর পর আপনার হাতে এক চামচ ব্রাউন সুগার নিন। এবার আঙুলের সাহায্যে মুখে ব্রাউন সুগার লাগান। একটি বৃত্তাকার গতিতে আপনার আঙ্গুলগুলি সরান এবং তারপর সারা মুখে ব্রাউন সুগার লাগান। তবে মনে রাখবেন এটি আপনার ঠোঁটে এবং চোখে লাগাবেন না। ম্যাসাজ করার সময়, আপনার মুখ উপরের দিকে করুন, নীচের দিকে টানবেন না। মুখ টিপবেন না।

পানি ব্যবহার করুনঃ চিনি শুকিয়ে গেলে গরম পানি ব্যবহার করতে পারেন। চিনিকে তার তরল আকারে ফিরিয়ে আনতে পানি ব্যবহার করুন। যাইহোক, খুব বেশি পানি ব্যবহার করবেন না কারণ এর ফলে ব্রাউন সুগার দ্রবীভূত হবে। একবার আপনি আপনার মুখে বাদামী চিনি ভালভাবে প্রয়োগ করার পরে, এটি প্রায় 15-20 মিনিটের জন্য ত্বকে শোষিত হতে দিন।

মুখ ধৌত করুনঃ এবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধোয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় কারণ এটি আপনার ছিদ্রগুলিকে আটকে রাখে এবং মুখের আর্দ্রতা বন্ধ করতে সহায়তা করে। আপনি চাইলে ঠান্ডা পানির পরিবর্তে হালকা গরম পানি দিয়েও মুখ ধুতে পারেন। তবে গরম পানি একেবারেই ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ গরম পানি আর্দ্রতা দূর করে এবং এটি আপনার ত্বককে শুষ্ক করে দেয়।

তোয়ালে দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুনঃ এর পরে, আপনার মুখে একটি পরিষ্কার শুকনো তোয়ালে চাপুন। মুখে তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখলে আপনার মুখে জ্বালাপোড়া হবে না এবং আপনার ত্বকও কোমল হবে। তাই তোয়ালে মুখে না ঘষে শুকিয়ে নিন।

ময়েশ্চারাইজার প্রয়োগ করুনঃ এবার সবশেষে মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগান। আপনার মুখ এবং ঘাড়ে ময়েশ্চারাইজার লাগান এবং তারপরে এটি ভালভাবে ম্যাসাজ করুন। এখন আপনার ব্রাউন সুগার ফেসিয়াল করুন। এই ফেসিয়ালটির ফলে আপনার মুখকে পরিষ্কার এবং উজ্জ্বল দেখাবে।

আরেো পড়ুনঃ স্থায়ীভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়, মুখ ফর্সা ও সুন্দর করার উপায়

ব্রাউন সুগার, মধু এবং লেবু দিয়ে ফেসিয়াল করুন

ব্রাউন সুগারের সঙ্গে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করতে পারেন। এই তিনটি জিনিস ভালো করে মিশিয়ে নিন এবং মনে রাখবেন এই মিশ্রণটি যেন ঘন হয় যাতে আপনি সহজেই মুখে লাগাতে পারেন। তো চলুন জেনে নিই কিভাবে ফেসিয়াল করবেন।

প্রথমে ক্লিনজার দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

এরপর ব্রাউন সুগার, মধু ও লেবুর রসের মিশ্রণ মুখে লাগান। আপনার ঠোঁট এবং চোখে এটি প্রয়োগ করা থেকে এড়িয়ে চলুন।

আপনি এটি আপনার মুখে ভালভাবে প্রয়োগ করার পরে, এটি প্রায় 10 মিনিট সময় নিয়ে শুকিয়ে নিন।

প্রায় 10 মিনিট পরে এবং ভালভাবে শুকানোর পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এর পরে, একটি তোয়ালে দিয়ে আপনার মুখ মুছুন এবং তারপরে ময়েশ্চারাইজার লাগান।

এসব বিষয়ে বিশেষ যত্ন নিন

ফেসিয়ালের পর মুখ মোছার জন্য তোয়ালে মুখে ঘষবেন না। এটি আপনার ত্বকে জ্বালাপোড়া করতে পারে।

ব্রাউন সুগার দিয়ে মুখে ম্যাসাজ করার পর বেশি ঘোরাফেরা করবেন না কারণ এতে ব্রাউন সুগার কমে যেতে পারে এবং আপনার মুখের পুরো ফেসিয়ালটি নষ্ট হয়ে যাবে।

গরম পানি দিয়ে মুখ ধুবেন না। এতে আপনার মুখের আর্দ্রতা হ্রাস পাবে।

ফেসিয়াল করার পর সবসময় মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগাতে ভুলবেন না।

বাদামী চিনি

মুখ ব্রাউন সুগার দিয়ে এক্সফোলিয়েট করে এর পাশাপাশি এটি নতুন কোষ বৃদ্ধিতে উৎসাহিত করে।

এটি আপনার ত্বককে হাইড্রেট করে এবং আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে। মুখ ছাড়াও পা, কাঁধ এবং পিঠেও ব্রাউন সুগার ব্যবহার করতে পারেন।

ব্রাউন সুগার ত্বককে মসৃণ করে তোলে এবং মুখের দাগ দূর করতেও সাহায্য করে।

ব্রাউন সুগারে উপস্থিত গ্লাইকোলিক অ্যাসিড ত্বক ফর্সা করতে সাহায্য করে।

আশা করি আপনি আমাদের এই পোস্টটি পছন্দ করেছেন। আমাদের পরামর্শ অনুযায়ী ফেসিয়াল করে আপনি কতটুকু উপকার পেয়েছেন তা অনুগ্রহ করে নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (18 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button