স্কিন কেয়ার

মুখে ব্লিচ করার পর করনীয়

আপনি যদি মুখে ব্লিচ করেন, তাহলে এখানে উল্লেখিত টিপস দিয়ে ব্লিচ করার পর ত্বকের যত্ন নিলে ত্বকের উন্নতি ঘটাতে পারেন।

ব্লিচ করার পর করনীয়

মেয়েরা তাদের সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য অনেক কিছু এবং অনেক পার্লার চিকিৎসার আশ্রয় নেয়। যখনই আমরা ঘর থেকে বের হই, ধুলাবালি, সূর্যালোক এবং দূষণের কারণে ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং এই সমস্ত উপাদানগুলির ত্বকে কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও রয়েছে। রোদে বের হলে ত্বকে ট্যানিং হয় যা সহজে সারানো যায় না। ট্যানিং দূর করার সবচেয়ে ভালো উপায় হল ব্লিচিং।

মুখের ব্লিচিং একদিকে যেমন ত্বকের ট্যানিং দূর করে, অন্যদিকে ত্বকের টোনও বাড়ায়। কিন্তু কখনও কখনও ব্লিচ করার পর মুখে জ্বালাপোড়া এবং ফুসকুড়ি হওয়ার মতো প্রভাবও দেখা যায়। তাই মুখে ব্লিচ করার পর ত্বকের যত্ন নেওয়া জরুরি। এজন্য আমরা বিউটি এক্সপার্টদের কাছ থেকে আপনাদের জন্য বিশেষ কিছু টিপস সংগ্রহ করেছি। চলুন তাহলে জেনে নিই কীভাবে আপনি মুখের ত্বকের যত্ন নিতে পারেন এবং ব্লিচ করার পর আপনার সৌন্দর্য বাড়াতে পারেন।

কাঁচা দুধ এবং বরফ কিউব

মুখ ব্লিচ করার পরে, ত্বক পরিষ্কার এবং ফর্সা দেখায়, তবে কখনও কখনও হালকা জ্বালাপোড়া একটি সাধারণ বিষয়। অতএব, ব্লিচিং করার পরে, প্রথমে আপনার ত্বককে ঠান্ডা করার চেষ্টা করা উচিৎ। এ জন্য ঠাণ্ডা কাঁচা দুধ ও বরফের টুকরো ত্বকে ঘষে নিন। কাঁচা দুধ ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক ক্লিনজার হিসেবে কাজ করে এবং বরফের টুকরো মুখ ঠাণ্ডা করে।

আপনি শুধুমাত্র ঠান্ডা কাঁচা দুধ দিয়ে ত্বকের জ্বালা প্রশমিত করতে পারেন। এ জন্য একটি তুলোর বলে কাঁচা দুধ নিয়ে মুখে ঘষে নিন। ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্রক্রিয়াটি ত্বকে আরও উজ্জ্বলতা আনতে সাহায্য করে।

অবশ্যই পড়ুন: মুখে ব্লিচ করার নিয়ম এবং উপকারিতা ও অপকারিতা

অ্যালোভেরা জেল দিয়ে ম্যাসাজ করুন

মুখে ব্লিচ করার পর ত্বককে রিলাক্স করতে অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য বাজারে পাওয়া জেল থেকে জেল বের করে বা ঘরে জন্মানো অ্যালোভেরা পাতা মুখে মালিশ করতে পারেন। এটি করলে তাৎক্ষণিকভাবে মুখ ঠাণ্ডা হয়ে যায় এবং ব্লিচিংয়ের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না। কিন্তু মুখে অ্যালোভেরা ব্যবহার করার আগে প্যাচ টেস্ট করে নিন।

নারকেল দুধ বা জল ব্যবহার করুন

যদি ব্লিচিংয়ের ফলে আপনার ত্বকে হালকা জ্বালা বা ফুসকুড়ি হয়ে থাকে, তাহলে আপনি আপনার মুখে নারকেলের দুধ বা নারকেলের জল ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য একটি তুলোর প্যাডে নারকেল জল বা নারকেলের দুধ ডুবিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি করলে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। স্কিন টোনার হিসেবেও নারকেলের পানি ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া নিয়মিত নারকেলের পানি পান করলেও ত্বকে উজ্জ্বলতা আসে।

চন্দন কাঠের ফেসপ্যাক

চন্দন গ্রীষ্ম এবং বর্ষাকালে ত্বককে প্রশমিত করতে পরিচিত কারণ এতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের জ্বালা বা ফুসকুড়ি থেকে মুক্তি পেতে সহায়তা করে। যখনই আপনি মুখে ব্লিচ করবেন, তখনই মুখের উজ্জ্বলতা আনতে চন্দনের ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য চন্দনের গুঁড়ায় ঠান্ডা গোলাপ মিশিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে করে ত্বককে ব্লিচজনিত যেকোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে নিরাপদ রাখা যায়।

অবশ্যই পড়ুন: কলার খোসা দিয়ে রূপচর্চা করার উপায় এবং নিয়ম, কমলার খোসার ফেসপ্যাক বানানোর নিয়ম, এলোভেরা দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

হলুদ এবং কাঁচা দুধ

হলুদে অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বককে যেকোনো ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। ব্লিচ করার পরে মুখে হলুদ ব্যবহার করলে আপনার ত্বক খুব উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। এটি ব্যবহার করতে, চার চামচ কাঁচা দুধে এক চিমটি হলুদ মিশিয়ে মুখে লাগান। মুখে ১৫ মিনিট রাখার পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এতে করে আপনার ত্বকে যদি ব্লিচের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে থাকে, তাহলে তা নিরাময় করা যায় এবং উজ্জ্বল ত্বক পাওয়া যায়।

এই সমস্ত প্রতিকার সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই তবে সংবেদনশীল ত্বকে ব্যবহার করার আগে একটি প্যাচ পরীক্ষা করুন। আপনি যদি এই পোষ্টটি পছন্দ করেন, তাহলে এটি শেয়ার করুন এবং আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট শপ্নিকের সাথে অন্যান্য অনুরূপ পোস্ট গুলো পড়তে সংযুক্ত থাকুন।

5/5 - (12 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button