প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া কি নিরাপদ? Ajwain in Pregnancy

গর্ভাবস্থায় এমন কিছু খাবার আছে, যেগুলোর নাম শুনলেই গর্ভবতীরা বিভ্রান্ত হতে পারেন যে সে খাবারগুলো তাদের জন্য নিরাপদ কি না। এর মধ্যে একটি নাম আজওয়াইন। হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া নিয়ে গর্ভবতী মহিলার মনে অনেক প্রশ্ন জাগতে পারে। এই কারণেই আমরা গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া সংক্রান্ত তথ্য দিচ্ছি। এই পোস্টে গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার উপকারিতা এবং গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

প্রথমে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া নিরাপদ কি না।

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় ডাক্তারের পরামর্শে Ajwain খাওয়া যেতে পারে। এর পেছনের কারণ হলো, এ সংক্রান্ত গবেষণায় দুই ধরনের মতামত পাওয়া গেছে। আসলে, একটি গবেষণায় গর্ভাবস্থায় সেলারি খাওয়ার কথা বলা হয়েছে। একই সময়ে, NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, আজওয়াইনে গর্ভপাতের প্রভাব রয়েছে, যা গর্ভপাতের ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে, যদি কোন গর্ভবতী মহিলা এটি খাওয়ার কথা ভাবছেন, তবে তাকে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

আরও জেনে নিন, গর্ভাবস্থায় কতটা অজওয়াইন খাওয়া উচিত।

গর্ভাবস্থায় কতটা অজওয়াইন খাওয়া উচিত?

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার উপকারিতা এবং অপকারিতা উভয়ই আছে। অতএব, এটি শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে খাওয়া উচিত। একই সময়ে, গর্ভাবস্থায় কতটা আজওয়াইন খাওয়া উচিত সে সম্পর্কিত সঠিক বৈজ্ঞানিক প্রমাণের অভাব রয়েছে। অতএব, গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়ার আগে, আপনার স্বাস্থ্য অনুযায়ী সঠিক পরিমাণ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

এখন আমরা নীচে গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার উপকারিতাগুলি বলছি।

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার উপকারিতা

ডাক্তারি পরামর্শে আজওয়াইন সেবন করলে নিম্নলিখিত উপকার পাওয়া যায়:

হজমের জন্যঃ গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের কারণে, হজম ধীর হতে পারে। এছাড়াও, এর কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা শুরু হতে পারে। একটি মেডিকেল গবেষণা অনুসারে, আজওয়াইন খাওয়া পিত্ত অ্যাসিড এবং হজমকারী এনজাইমের ক্রিয়াকলাপ বাড়াতে সহায়তা করে। এটি খাবারের হজমে সহায়তা করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য থেকেও ত্রাণ দেয়।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার

হাঁপানির ঝুঁকি প্রতিরোধঃ গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার উপকারিতার মধ্যে রয়েছে হাঁপানির ঝুঁকি কমানো। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় বলা হয়েছে যে আজওয়াইনের অ্যান্টি-অ্যাস্থমাটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা হাঁপানির ঝুঁকি কমাতে পারে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতেঃ আজওয়াইন খাওয়া গর্ভাবস্থায় রক্তচাপকে ভারসাম্যে রাখতে সাহায্য করে। NCBI-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, আজওয়াইনে থাইমল নামে একটি যৌগ পাওয়া যায়, যা ক্রমবর্ধমান রক্তচাপ কমাতে কাজ করতে পারে। ভারসাম্যপূর্ণ রক্তচাপ হৃদপিণ্ডের সাথে সম্পর্কিত ঝুঁকি উপসাগরে রাখতেও সাহায্য করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ, গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট (শ্বাসকষ্ট) কারণ ও মুক্তির উপায়

কোলেস্টেরলের জন্যঃ আজওয়াইন কোলেস্টেরল বৃদ্ধি রোধ করতে সাহায্য করে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা দেখায় যে আজওয়াইনের অ্যান্টিহাইপারলিপিডেমিক প্রভাব রয়েছে, যা শরীরের মোট কোলেস্টেরল, এলডিএল (খারাপ কোলেস্টেরল) এবং মোট লিপিড মাত্রা কমাতে কাজ করতে পারে। এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা ভারসাম্য রাখতে সাহায্য করে।

কাশি উপশমঃ গর্ভাবস্থায় কাশির সমস্যা থাকলে সেলারি খাওয়া উপকারী প্রমাণিত হতে পারে। একটি মেডিকেল গবেষণা অনুসারে, আজওয়াইনে অ্যান্টিটিউসিভ প্রভাব পাওয়া যায়, যা কাশির সমস্যা কমাতে কাজ করতে পারে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় সর্দি কাশির ঘরোয়া উপায় ও প্রতিকার

ভাইরাল সংক্রমণ প্রতিরোধঃ গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া ভাইরাল সংক্রমণ এড়াতে সাহায্য করে। এ বিষয়ে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় বলা হয়েছে, আজওয়াইনে অ্যালকোহলযুক্ত নির্যাসের অ্যান্টিভাইরাল কার্যকলাপ রয়েছে। গবেষণায় এটি হেপাটাইটিস সি ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে (যা হেপাটাইটিস সি সৃষ্টি করে)।

বমি ও বমি বমি ভাব থেকে মুক্তিঃ গর্ভাবস্থায় মহিলাদের বমি ও বমি বমি ভাবের সমস্যা হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে আজওয়াইন এই দুটি সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কিছুটা হলেও সহায়ক। আসলে, একটি গবেষণায় স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে আজওয়াইন সেবন গ্যাসের ঝুঁকি কমানোর পাশাপাশি বমি ও বমি বমি ভাবের সমস্যায় উপশম দিতে পারে।

নিচে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার কুফলগুলো।

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার অপকারিতা

যেমনটি আমরা উপরে উল্লেখ করেছি যে গর্ভাবস্থায়, আজওয়াইন শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে খাওয়া উচিত, কারণ কখনও কখনও এর সেবন কিছু ক্ষতিও করতে পারে। গর্ভাবস্থায় আজওয়াইনের কিছু অপকারিতা নিম্নরূপ :

গর্ভপাতের ঝুঁকি : গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া গর্ভপাতের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, আজওয়াইনে গর্ভপাতের প্রভাব পাওয়া যায়, যা গর্ভপাত ঘটাতে পারে।

পেটের সমস্যা : অতিরিক্ত পরিমাণে আজওয়াইন খেলে পেট সংক্রান্ত কিছু সমস্যা হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায় এবং অতিরিক্ত ফাইবার গ্যাস, পেট ফাঁপা এবং পেটে ব্যথার কারণ হতে পারে।

নিম্ন রক্তচাপের কারণ : আমরা উপরে উল্লেখ করেছি, আজওয়াইনে থাইমল নামে একটি যৌগ পাওয়া যায়, যা ক্রমবর্ধমান রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। অন্যদিকে, যেসব গর্ভবতী মহিলার রক্তচাপ এমনিতেই কম, তারা যদি বেশি আজওয়াইন খান, তাহলে তাদের রক্তচাপ আরও কমে যেতে পারে।

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত সতর্কতা জানতে স্ক্রোল করুন।

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত সতর্কতা

গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়ার আগে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। এটি আজওয়াইনের ক্ষতি এড়াতে সাহায্য করে। আমরা নীচে এই সতর্কতা সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছি:

  1. শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন সেবন করুন।
  2. বিশেষজ্ঞের দ্বারা নির্ধারিত পরিমাণের বেশি গ্রহণ করবেন না।
  3. আজওয়াইন থেকে এলার্জি থাকলে গর্ভাবস্থায় এর ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।
  4. শুধুমাত্র ভালো মানের ক্যারাম বীজ ব্যবহার করুন।

গর্ভাবস্থায় কীভাবে আজওয়াইন সেবন করবেন তা নিচে জেনে নিন।

গর্ভাবস্থার ডায়েটে কীভাবে আজওয়াইন অন্তর্ভুক্ত করবেন?

যদি কেউ গর্ভাবস্থায় খাদ্যতালিকায় আজওয়াইন অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে চিন্তিত থাকেন, তাহলে তাদের জন্য খাদ্যতালিকায় আজওয়াইন অন্তর্ভুক্ত করার উপায় নিচে দেওয়া হল:

১. আজওয়াইন ও গুড় একসঙ্গে খাওয়া যেতে পারে।

২. আজওয়াইন পানি বানিয়ে খাওয়া যায়। এ জন্য এক গ্লাস পানিতে আজওয়াইনের বীজ সারারাত ভিজিয়ে রাখুন এবং পরদিন সকালে পানি ফিল্টার করে রেখে দিন। এ ছাড়া আজওয়াইনের বীজ পানিতে সিদ্ধ করেও আজওয়াইনের পানি তৈরি করা যায়।

৩. এটি মসুর ডাল এবং সবজিতে টেম্পারিংয়ের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

৪. আজওয়াইন (ভুনা) হলুদ দুধের সাথে মিশিয়েও খাওয়া যেতে পারে।

তো বন্ধুরা, এই ছিল গর্ভাবস্থায় সেলারি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা। একই সাথে, মনে রাখবেন যে গর্ভাবস্থায় যে কোন খাবার শুধুমাত্র সঠিক পরামর্শে গ্রহণ করা উচিত, অন্যথায় এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সামনে আসতে পারে। অতএব, আজওয়াইনের উপকারিতা পেতে, শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে এটি গ্রহণ করুন। ডাক্তারের পরামর্শে এটি গ্রহণ করলে উপরে উল্লিখিত অপকারিতা গুলো এড়ানো যায়।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button