প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ

গর্ভাবস্থায় প্রত্যেক নারীই অনেক শারীরিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। এর মধ্যে কিছু পরিবর্তন গর্ভবতীর জন্যও সমস্যা নিয়ে আসে। কখনও বমি বমি ভাব, বমি, কখনও উচ্চ বা নিম্ন রক্তচাপ। এই সমস্যাগুলো যদি বুদ্ধিমানের সাথে মোকাবিলা করা হয়, তাহলে তা মা এবং শিশু উভয়ের জন্যই ভালো। এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ সম্পর্কে কথা বলব। আমরা জানব গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ কখন কমে যায়, এর ধরন, এর কারণ ও লক্ষণ এবং কীভাবে এটি এড়ানো যায়।

নিম্ন রক্তচাপ কী

আপনি গর্ভবতী হন বা না হন উভয় ক্ষেত্রেই রক্তচাপের স্বাভাবিক মাত্রা হল 120/80 mmHg ( রক্তচাপের একক)। গর্ভাবস্থায় 100/60 mmHg এর কম মাত্রাকে নিম্ন রক্তচাপ বলা হয়। নিম্ন রক্তচাপকে হাইপোটেনশনও বলা হয়।

গর্ভাবস্থায় স্বাভাবিক রক্তচাপ একটি লক্ষণ যে মা এবং শিশুর সুস্থতা রয়েছে এবং শিশুর ভাল বিকাশ হচ্ছে। সেই সঙ্গে রক্তচাপ কম বা বেশি হলে নানা শারীরিক সমস্যাও হতে পারে। তাই আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখা জরুরি।

কখন একজন গর্ভবতী মহিলার নিম্ন রক্তচাপ হতে পারে?

গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে অর্থাৎ প্রথম তিন মাসে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা বেশি দেখা যায়। গর্ভবতীর রক্তচাপ নিয়মিত পরীক্ষা করা প্রয়োজন, যাতে সময়মতো চিকিৎসা করা যায় এবং অনাগত শিশুর কোনো ক্ষতি না হয়।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের ধরন

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ কখনও কখনও অস্থায়ী হতে পারে। নীচে আমরা এই নিম্ন রক্তচাপ সম্পর্কে বলছিঃ

শারীরিক অবস্থান পরিবর্তনের কারণে নিম্ন রক্তচাপঃ আপনি যখন দীর্ঘক্ষণ বসে থাকেন বা শুয়ে থাকেন এবং হঠাৎ উঠে দাঁড়ান, তখন এটি নিম্ন রক্তচাপের কারণ হতে পারে। কারণ হঠাৎ দাঁড়িয়ে থাকলে মস্তিষ্ক ও হৃদপিণ্ডে রক্ত ​​পৌঁছাতে কিছুটা সময় লাগে, যার কারণে রক্তচাপ কমে যায়।

মেরুদণ্ডের হাইপোটেনশনঃ একজন গর্ভবতী মহিলা যখন সাপোর্ট নিয়ে বসে বা শুয়ে থাকে, তখন ভেনা কাভা এবং মহাধমনীর মতো প্রধান রক্তনালীতে চাপ পড়ে। চাপের কারণে পায়ের ধমনীতে রক্ত ​​চলাচল কমে যায়। এর ফলে রক্তচাপ কমে যেতে পারে। এটি ক্রমবর্ধমান জরায়ুর কারণে হয়, যা বেশিরভাগই দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকের কাছাকাছি ঘটে।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের ধরনগুলো জানার পর আসুন নিম্ন রক্তচাপের কারণগুলো জেনে নেই।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণ

গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন বেশি হয়, যার কারণে রক্তচাপের মাত্রা ওঠানামা করে। এই মুহূর্তে আমরা নীচে গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কিছু সাধারণ কারণ বলতে যাচ্ছিঃ

প্রথম ত্রৈমাসিকে নিম্ন রক্তচাপের পিছনে প্রধান কারণ হরমোনের পরিবর্তন হতে পারে, যা রক্তনালীগুলোর প্রসারণ ঘটায়।

গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে বমির কারণে অনেক সময় শরীরে পানির অভাব হয়, যার কারণে রক্তচাপ কমে যেতে পারে।

জরায়ুর প্রসারণ রক্তনালীতে চাপ দেয়, যা হাইপোটেনশন হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় রক্তাল্পতা এবং হাইপোগ্লাইসেমিয়া (অবস্থা যা রক্তে শর্করার মাত্রা কম করে) নিম্ন রক্তচাপের প্রভাবকে আরও খারাপ করতে পারে।

আপনার যদি হার্ট-সম্পর্কিত সমস্যা থাকে তবে এটি আপনার রক্তচাপের মাত্রা হ্রাস করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের লক্ষণ ও উপসর্গ

অনেক সময় গর্ভাবস্থায় লো ব্লাড প্রেশার খুব একটা সমস্যা সৃষ্টি করে না, কিন্তু এই সমস্যা যদি থেকে যায়, তাহলে সময়মতো সঠিক চিকিৎসা করা জরুরি। উপসর্গ সম্পর্কে কথা বললে, যে মহিলারা আগে কখনও নিম্ন রক্তচাপ অনুভব করেননি তাদের এটি সনাক্ত করা কঠিন হতে পারে। নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কিছু সাধারণ লক্ষণ বলছিঃ

  • মাথা ঘোরা
  • বমি বমি ভাব
  • ঝাপসা দৃষ্টি
  • ঘন ঘন তৃষ্ণা
  • শ্বাস নিতে সমস্যা হচ্ছে
  • সারাদিন ক্লান্ত বোধ করা
  • ঠান্ডা বা ফ্যাকাশে ত্বক
  • দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় হঠাৎ মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া বা চোখ অন্ধকার হয়ে যাওয়া

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ পরীক্ষা

রক্তচাপের মাত্রা পরীক্ষা করা সহজ। রক্তচাপ পরিমাপ করতে একটি স্পাইগমোম্যানোমিটার (রক্তচাপ মেশিন) ব্যবহার করা হয়।

রক্তচাপ পরীক্ষা করার জন্য প্রথমে একটি রাবার ব্যান্ড মহিলার হাতের চারপাশে মোড়ানো হয়।
এর পরে, পাম্পিং ধীরে ধীরে ব্র্যাচিয়াল ধমনীতে চাপ দেয়।
এই চাপ স্ফিগমোম্যানোমিটারে দেখা যায়।
তারপর রাবার ব্যান্ডটি চাপ কমিয়ে চাপ কমানো হয় এবং ধমনীতে স্থাপিত স্টেথোস্কোপের মাধ্যমে স্ট্র্যাপের চাপে প্রথম টোকা দেওয়ার শব্দ শোনা যায়। একে সিস্টোলিক চাপ বলে।

গর্ভবতী মহিলাদের নিম্ন রক্তচাপের ঝুঁকি

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের ঝুঁকি উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকির মতো বেশি নয়। সেই সঙ্গে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা যদি চলতেই থাকে, তাহলে কিছু ঝুঁকির মুখে পড়তে হতে পারে। নীচে আমরা এই ঝুঁকি সম্পর্কে কথা বলছিঃ

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের কারণে মাথা ঘোরা তে পারে, যার কারণে মহিলা অজ্ঞান হয়ে পড়ে যেতে পারেন।

এমতাবস্থায় নারী ও অনাগত শিশুর আঘাতের আশঙ্কা থাকে।

রক্তচাপ খুব দ্রুত কমে গেলে শরীরে অক্সিজেন সরবরাহ কমে যেতে পারে, যা শিশুর হৃৎপিণ্ড ও মস্তিষ্কের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ কীভাবে চিকিত্সা করবেন?

ডাক্তাররা গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয় না যদি না অবস্থা গুরুতর হয়। গর্ভাবস্থায় বিপির ওষুধ খাওয়া মা ও শিশুর জন্য ক্ষতিকর।

নিম্ন রক্তচাপ থেকে মুক্তি পেতে, সঠিক রুটিন এবং সঠিক ডায়েট অনুসরণ করা আরও গুরুত্বপূর্ণ।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের ঘরোয়া প্রতিকার

কোনো সন্দেহ নেই যে কোনো ধরনের শারীরিক সমস্যা শুরু হলেই প্রথমে অনেকেই ঘরোয়া প্রতিকারের দিকে ঝুঁকছেন। নিম্ন রক্তচাপের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তাই, নীচে আমরা আপনাকে গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য গৃহীত ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বলছি। আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরে এই জিনিসগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

লবণ পানিঃ বেশির ভাগ চিকিৎসকই বিপি কমে গেলে লবণ ও চিনির পানি পান করার পরামর্শ দেন। যেহেতু লবণে সোডিয়াম রয়েছে, যা রক্তচাপ বাড়াতে সাহায্য করে, তবে আপনার এটি খুব বেশি খাওয়া উচিৎ নয়। এটি স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। রক্তচাপ কম থাকলে এক গ্লাস পানিতে আধা চা চামচ লবণ ও চিনি মিশিয়ে পান করতে পারেন। যেহেতু লবণ পানি পান করলে রক্তচাপ বাড়তে পারে, তাই উচ্চ রক্তচাপে এটি খাওয়া নিষিদ্ধ।

মারমালেডঃ প্রতিদিন আমলকি বা আপেলের মোরব্বা খেলে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

খেজুরঃ প্রতি রাতে এক গ্লাস দুধে দুই থেকে তিনটি খেজুর সিদ্ধ করে পান করুন। এর মাধ্যমে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা কিছুটা হলেও উপশম করা যায়।

কফিঃ কফি নিম্ন রক্তচাপে উপকার করতে পারে, তবে মনে রাখবেন আপনি এটি খুব বেশি গ্রহণ করবেন না। গর্ভাবস্থায় এক থেকে দুই কাপ কফি পান করলে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা এড়ানো যায়। কফি পান করলে রক্তচাপ বাড়ে।

তরল গ্রহণ করুনঃ আপনার যদি নিম্ন রক্তচাপ থাকে তবে আপনার আরও বেশি করে তরল পান করা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি চাইলে সামান্য লবণ মিশিয়েও ফলের রস পান করতে পারেন।

বিটের রসঃ এই সময় এক সপ্তাহ প্রতিদিন এক কাপ বিটরুটের রস পান করুন। এটি নিম্ন রক্তচাপ উন্নত করবে।

আদাঃ এক টুকরো আদার উপর লেবুর রস ও রক সল্ট লাগিয়ে অল্প পরিমাণে খাওয়ার আগে খান। নিম্ন রক্তচাপ এই ঘরোয়া প্রতিকার দ্বারা উপশম করা যেতে পারে।

মনে রাখবেন যে আপনি শুধুমাত্র এই প্রতিকারগুলোর উপর নির্ভর করবেন না। আপনি যদি মনে করেন যে এই সমস্যা বাড়ছে, তাহলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে দেরি করবেন না।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপের জন্য স্ব-যত্ন

রক্তচাপের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হলে নিজের যত্ন নিতে হবে। একটু যত্ন এবং এড়িয়ে চললে আপনি এই সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ নিয়ে নিজের যত্ন নেওয়ার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস দিচ্ছিঃ

খাবারের যত্ন নিনঃ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে সঠিক খাওয়া প্রয়োজন। সবুজ শাক-সবজি ও ফলমূল খান এবং বেশি করে পানি পান করুন। এক্ষেত্রে আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকবে।

বিশ্রামঃ গর্ভাবস্থায় বিশ্রাম অপরিহার্য। এটি রক্তচাপের মতো সমস্যাকে দূরে রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও, আপনি যদি বিছানায় শুয়ে থাকেন তবে উঠতে তাড়াহুড়ো করবেন না। তাড়াহুড়ো করে উঠলে মাথা ঘোরাতে পারে। তাই ধীরে ধীরে বিছানা ছেড়ে উঠুন।

আরামদায়ক পোশাক পরুনঃ নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা এড়াতে গর্ভবতীকে ঢিলেঢালা ও আরামদায়ক পোশাক পরতে হবে। এতে করে গর্ভবতী ক্লান্ত হবে না এবং মাথা ঘোরা সমস্যাও থাকবে না।

পর্যাপ্ত পানি পান করুনঃ বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে নিজেকে হাইড্রেট করতে ভুলবেন না। প্রতিদিন 3 লিটার পানি পান করতে ভুলবেন না। বাসা থেকে বের হলে সাথে পানি নিয়ে যান।

গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ কি আমার শিশুর উপর প্রভাব ফেলবে?

আমরা উপরে উল্লেখ করেছি, গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ মাথা ঘোরা এবং অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে অসচেতনতার কারণে গর্ভপাত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়, যা শিশুর ক্ষতি করতে পারে। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ শিশুর রক্ত ​​সরবরাহে বাধা সৃষ্টি করতে পারে, যা শিশুর স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলে।

আমি কখন একজন ডাক্তার দেখাতে হবে?

যেমনটি আমরা উপরে বলেছি, গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ থাকলে অনেক সমস্যা হতে পারে, যেমন মাথাব্যথা, মাথা ঘোরা, দৃষ্টি ঝাপসা, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি। আপনি যদি এই লক্ষণগুলোর মধ্যে কোনটি অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে দেরি করবেন না। যেহেতু গর্ভাবস্থা একটি সূক্ষ্ম সময়, তাই যেকোনো ধরনের ঝুঁকি নেওয়া শিশু এবং মা উভয়েরই ক্ষতি করতে পারে।

অবশ্যই, কিছু মহিলার গর্ভাবস্থায় রক্তচাপের সমস্যা হতে পারে, তবে এর মানে এই নয় যে এটি নিরাময় করা যাবে না। গর্ভাবস্থায় সঠিক রুটিন এবং সুষম খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে শুধু রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় না, কেউ যদি এতে ভুগে থাকেন তবে তা নিরাময়ও করা যায়। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায় নিয়মিত ডাক্তারের দ্বারা আপনার চেকআপ করাতে ভুলবেন না।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button