প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হলে করণীয় কি

গর্ভাবস্থায় একজন নারী কে শারীরিক এবং মানসিক উভয় পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। এই সময়ে, গর্ভবতী মহিলার বিশেষ যত্ন প্রয়োজন। গর্ভবতী মহিলার পরিপাকতন্ত্র এই ৯ মাসে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয়। এর কারণে কেউ কেউ কোষ্ঠকাঠিন্য বা ডায়রিয়ার অভিযোগ করেন। এইসব সমস্যা ভ্রূণের গঠনের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া কিভাবে প্রতিরোধ করা যায় সে বিষয়ে কথা বলব।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হওয়া কি স্বাভাবিক?
হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হওয়াটা সাধারণ হিসেবে ধরা হয়। উদাহরণস্বরূপ, খাবার, আবহাওয়া এবং স্থান পরিবর্তনের কারণে সাধারণ মানুষ ডায়রিয়ার অভিযোগ করে। একইভাবে, প্রায় এক-তৃতীয়াংশ গর্ভবতী মহিলাদের খাবার, আবহাওয়া এবং হরমোনের পরিবর্তনের কারণে ডায়রিয়া হয়।

গর্ভাবস্থার কোন ত্রৈমাসিকে সবচেয়ে বেশি ডায়রিয়া হয়?
এটি সম্ভবত প্রথম এবং দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ঘটতে পারে। প্রথম ত্রৈমাসিকে হরমোনের পরিবর্তন এবং খাদ্যাভ্যাসের কারণে ডায়রিয়া হয়। আবার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে, তবে মাথাব্যথা এবং জ্বর হলে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের কাছে পরীক্ষা করা উচিত। যদি তৃতীয় ত্রৈমাসিকে ডায়রিয়া হয়, তবে আপনার দেরি না করে ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত, কারণ এটি প্রি-ম্যাচিউর ডেলিভারির লক্ষণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার কারণ

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার অনেক কারণ থাকতে পারে, যেমন:

দূষিত খাবার: ভ্রমণের সময় দূষিত খাবার ও পানি খেলে বা দীর্ঘ সময় খোলা রাখলে হজমের অনেক রোগের পাশাপাশি ডায়রিয়ার সমস্যা হতে পারে।
হাইপারথাইরয়েডিজম: থাইরয়েড হরমোনের উচ্চ মাত্রাকে হাইপারথাইরয়েডিজম বলে। গর্ভাবস্থায় হাইপারথাইরয়েডিজমের ক্ষেত্রে, পরিপাকতন্ত্র প্রভাবিত হয় এবং ডায়রিয়া শুরু হয়।

প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন -লিপিডের গ্রুপগুলোকে প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন বলা হয়। এই লিপিড গুলো জরায়ুর পেশীগুলিকে উদ্দীপিত করতে পারে, যা ডায়রিয়া ঘটায়।
এছাড়াও ডায়রিয়ার কিছু সাধারণ কারণ রয়েছে, যা নিম্নরূপ :

  • ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে ডায়রিয়া হয়।
  • খাদ্যে বিষক্রিয়া থাকলে ডায়রিয়া সহ অনেক হজমের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
  • সিলিয়াক ডিজিজ (একটি গুরুতর অন্ত্রের রোগ) এবং ক্রোনস ডিজিজ (অন্ত্রের প্রদাহ) কারণেও ডায়রিয়া হয়।

ডায়রিয়ার কারণগুলি জানার পর, এখন আসুন গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার লক্ষণগুলো দেখে নেওয়া যাক।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার লক্ষণ

সাধারণ মানুষের মধ্যে ডায়রিয়ার যে লক্ষণ দেখা যায়, প্রায় একই উপসর্গ গর্ভাবস্থায় দেখা যায়। এই বিশেষ লক্ষণগুলির মধ্যে কয়েকটি নিম্নরূপ :

  • ঘন ঘন বাথরুম ব্যবহার করা।
  • বেশিক্ষণ মল ধরে রাখতে না পারা এবং নিয়ন্ত্রণে না থাকা।
  • বমি বমি ভাব, অস্থিরতা এবং বমি হওয়া।
  • পেটে ব্যথাও এর অন্যতম লক্ষণ হতে পারে। মনে রাখবেন গর্ভাবস্থায় আরও অনেক কারণে পেটে ব্যথা হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার সমস্যা চিকিৎসার মাধ্যমে নিরাময় করা যায়, যেমন:

অ্যান্টিবায়োটিক: অ্যান্টিবায়োটিক ক্রোনস (অন্ত্রের প্রদাহ) এর মতো সমস্যা থেকে দ্রুত মুক্তি পেতে কার্যকর। আপনি গর্ভাবস্থায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করে ডায়রিয়ার সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারেন। মনে রাখবেন যে গর্ভাবস্থায় যে কোনও ওষুধ খাওয়ার আগে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা প্রয়োজন।
ওআরএস এবং ইলেক্ট্রোলাইটস: ডায়রিয়া হলে ডিহাইড্রেশন হতে পারে। ডিহাইড্রেশন এবং ডায়রিয়া প্রতিরোধে, আপনাকে প্রতি দুই ঘন্টা অন্তর ওআরএস এবং ইলেক্ট্রোলাইট সাপ্লিমেন্ট নিতে হবে।
ডায়রিয়া সাধারণত এক বা দুই দিনের মধ্যে ভালো হয়ে যায়। এর পরেও যদি কোন উপশম না হয় তবে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের কাছে পরীক্ষা করা উচিত।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার জন্য ৫ টি ঘরোয়া প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হলে ঘরে থাকা কিছু উপাদান ব্যবহার করে আপনি এই সমস্যাটি সমাধান করতে পারেন।

১. পানি পান করতে থাকুন: পানি শরীরকে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে। এ কারণে পানি যথেষ্ট পরিমাণে পান করলে ডায়রিয়ার সময় শরীরে পানির অভাব পূরণ হয়।

২. লেবুপানি পান: ডায়রিয়ার সময় এক গ্লাস পানিতে লেবুপানি ও এক চিমটি লবণ মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়। লেবু পানি শুধু বদহজমের সমস্যাই দূর করে না, পাচনতন্ত্রকেও উন্নত করে।
৩. ফাইবার সমৃদ্ধ ফল খাওয়া: ফাইবার পেতে পেয়ারা ফল খেতে পারেন। পেয়ারাতে ডায়েটারি ফাইবার পাওয়া যায়, যা ডায়রিয়া, আমাশয়, পেটে ব্যথা এবং বদহজমের মতো পেট সংক্রান্ত অনেক সমস্যা দূর করতে সহায়ক।
৪. কলা খাওয়া: ডায়রিয়ায় কলা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এটি পটাসিয়াম সমৃদ্ধ, যা ডায়রিয়ার কারণে শরীরে পটাসিয়ামের পরিমাণ হ্রাস করতে সাহায্য করে। একটি গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া নিরাপদ বলে মনে করা হয় এবং ৯৫.৪ শতাংশ মহিলা কলা খেতে পছন্দ করেন।
৫. দই খাওয়া: গর্ভাবস্থার ডায়রিয়া সারাতে প্রোবায়োটিক যুক্ত খাবার খাওয়া যায়। এক্ষেত্রে দই খেতে পারেন। দই ভালো প্রোবায়োটিক খাবার হিসেবে পরিচিত।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার প্রতিকার

এই সহজ উপায়গুলি অনুসরণ করে আপনি ডায়রিয়ার সমস্যা এড়াতে পারেন। যেমন:

খাবারের প্রতি মনোযোগ দিন: পরিষ্কার ও পুষ্টিকর খাবার খেলে ডায়রিয়ার সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারেন।
দূষিত স্থানের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন: দূষিত স্থানে যাওয়ার ফলে সংক্রমণ হতে পারে এবং ডায়রিয়া শুরু হতে পারে। তাই সবসময় পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে।

সিদ্ধ পানি পান করুন- পানিতে উপস্থিত অনেক ধরনের ব্যাকটেরিয়া ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। ফুটন্ত পানি এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলে এবং অনেক রোগের ঝুঁকি দূর করে।
দুগ্ধজাত দ্রব্য: ডায়রিয়ার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত দুধ এবং দই ব্যতীত অন্য কোনও দুধের পণ্য খাওয়া এড়িয়ে চলুন। দই খেলে সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত।
মসলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন: ডায়রিয়া হলে খুব চর্বিযুক্ত, তৈলাক্ত এবং মশলাদার খাবার খাওয়া উচিত নয়।
নির্দিষ্ট ধরণের শাকসবজি: ডায়রিয়ায় নির্দিষ্ট ধরণের সবজি যেমন ব্রোকলি, ক্যাপসিকাম, মটরশুটি, মটরশুটি, ছোলা, ভুট্টা এবং শাক খাবেন না। কয়েক দিনের জন্য আয়রনযুক্ত ট্যাবলেট খাবেন না।

আমি কি গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়ার ওষুধ খেতে পারি?
ডায়রিয়ার সময় অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ করলে অন্ত্রের প্রদাহের মতো সমস্যা থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়া যায়। এর পাশাপাশি ডায়রিয়ার সমস্যাও চলে যায়, তবে কোনো ধরনের ওষুধ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

এখন আমরা বলছি কোন অবস্থায় অবিলম্বে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হলে কখন ডাক্তার দেখাবেন?
গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হলে, নিম্মক্ত পরিস্থিতিগুলো দেখা দিলে অবিলম্বে একজন ডাক্তার দিয়ে পরীক্ষা করা উচিত:

  • বেশি হলুদ হয়ে প্রস্রাব (প্রস্রাব) আসতে থাকলে।
  • আপনি আরো তৃষ্ণার্ত বোধ করলে।
  • আপনি যদি প্রচুর পানি পান করেন এবং তারপরেও প্রস্রাব কমে গেলে।
  • আপনার খুব জ্বর এবং মাথাব্যথা দেখা দিলে।
  • ঘন ঘন মাথা ঘোরা এবং দুর্বলতার অনুভূতি হলে।
  • আপনার মুখ শুকনো অথবা বেশি আঠালো হলে।
  • মলত্যাগের সময় রক্ত ​​(দাগ) এবং শ্লেষ্মা বেরিয়ে আসলে।

এছাড়াও, ডায়রিয়ার অবস্থা আরও গুরুতর হয়ে ওঠে যখন:

  • ভ্রূণের নড়াচড়া কমতে থাকে।
  • পেটে ঘন ঘন সংকোচনের অনুভূতি।
  • জরায়ু থেকে রক্ত ​​বা শ্লেষ্মা জাতীয় কিছু নিঃসরণ হতে শুরু করলে।
  • পেটে খিঁচুনি, ব্যথা বা চাপ বেশি অনুভূতি হলে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া কি শিশুর ক্ষতি করে?

গর্ভাবস্থায় সঠিক সময়ে চিকিৎসা গ্রহণ করা হলে ভ্রূণের ওপর তেমন প্রভাব পড়ে না। তবে চিকিৎসায় ত্রুটি বা কোনো অসাবধানতা থাকলে শিশুর জন্ম ওজন কম, অকাল জন্ম এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া কি গর্ভপাতের লক্ষণ?

না, গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হওয়া গর্ভপাতের লক্ষণ নয়, কারণ কখনও কখনও সংক্রমণ এবং হরমোনের পরিবর্তনও ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া হওয়া স্বাভাবিক।

গর্ভাবস্থায় সবুজ মল অনুভব করা কি স্বাভাবিক?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় সবুজ মল হওয়া স্বাভাবিক। এটি তিনটি কারণে ঘটতে পারে। প্রথমত, ক্লোরোফিল ধারণ করে সেসব খাবার খাওয়া। এই সবুজ খাবার খাওয়ার ফলেও মল সবুজ হয়ে যেতে পারে। যেমন পালং শাক এবং ব্রকলি। আরেকটি কারণ হল আমাদের গল ব্লাডারে সঞ্চিত সবুজ বা হলুদ রাসায়নিক, যা হজমে সাহায্য করে। একই সময়ে, তৃতীয় কারণ হল সালমোনেলা (টাইফয়েড জ্বর) এর মতো একটি সংক্রমণ, যা গুরুতর পরিণতি হতে পারে এবং ডায়রিয়ার গুরুতর পর্যায়ে ঘটে।

ভ্রমণকারীর ডায়রিয়া কি?

ভ্রমণের সময় খারাপ খাদ্যাভ্যাস এবং ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট ডায়রিয়ার সমস্যাকে ভ্রমণকারীর ডায়রিয়া বলা হয়। প্রায় 30 থেকে 70 শতাংশ যাত্রীর মধ্যে এই সমস্যা দেখা দিতে পারে।


অতএব, গর্ভাবস্থায় ডায়রিয়া সাধারণ, তবে এটি সময়মতো চিকিত্সা করাও গুরুত্বপূর্ণ। এটির সময়মত চিকিত্সা গর্ভবতী মহিলা এবং ভ্রূণ উভয়ের জন্যই উপকারী। এর পাশাপাশি, নিয়মিত সুষম খাবারের জন্য একটি ভাল রুটিন অনুসরণ করাও গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুনঃ

গর্ভাবস্থায় ইউরিন ইনফেকশন (ইউটিআই) – কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা,

গর্ভাবস্থায় বমি এবং বমি বমি ভাব (সকালের অসুস্থতা)

4.9/5 - (103 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button