প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়া কি নিরাপদ? Beetroot During Pregnancy

গর্ভাবস্থায় সঠিক খাদ্য গ্রহণ করা জরুরি এতে কোনো সন্দেহ নেই। একটি পুষ্টিকর খাবার শুধুমাত্র গর্ভবতীর স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো নয়, শিশুর বিকাশেও এর বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। এই কারণেই গর্ভবতী মহিলাদের প্রচুর পরিমাণে সবুজ শাকসবজি এবং ফল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে এমন কিছু জিনিস রয়েছে যেগুলো গর্ভাবস্থায় খাওয়া উচিত কি না তা নিয়েও দ্বিধা রয়েছে। এর মধ্যে একটি হল বিটরুট।

বিটরুট পুষ্টিকর উপাদানে ভরপুর হলেও গর্ভাবস্থায় বিটরুট নিরাপদ কিনা তা নিয়ে অনেক নারীর মনেই প্রশ্ন থেকে যায়। আপনি যদি গর্ভবতী হন এবং বিটরুট সম্পর্কে বিভ্রান্ত হন, তাহলে এই পোস্টে আপনি গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ উত্তর পাবেন।

আমি কি গর্ভাবস্থায় বিটরুট খেতে পারি?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় বিটরুট খেতে পারেন, তবে চিকিৎসকের পরামর্শে ও সীমিত পরিমাণে খাবেন। সপ্তাহে মাত্র এক কাপ বিটরুট খাওয়া নিরাপদ বলে মনে করা হয়। আপনি এটি রান্না করে বা রসের আকারে খেতে পারেন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া এটি সেবন করবেন না, কারণ ডাক্তার আপনার শরীরের অবস্থা দেখে এটি খাওয়া বা না খাওয়ার পরামর্শ দেবেন।

গর্ভাবস্থায় বিটরুট এবং এর রসের উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় যদি বিটরুট সীমিত পরিমাণে এবং বুদ্ধিমানের সাথে সেবন করা হয়, তাহলে এর অনেক উপকার হতে পারে। নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়ার উপকারিতাগুলি বলছিঃ

জন্মগত ত্রুটির ঝুঁকি কমায়ঃ বিটরুটে প্রচুর পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড রয়েছে, যা অনাগত শিশুর বিকাশের জন্য অপরিহার্য। ফলিক অ্যাসিড শিশুর মধ্যে স্পাইনা বিফিডার মতো ত্রুটি হওয়ার ঝুঁকি কমায় এবং মস্তিষ্কের বিকাশের জন্যও অপরিহার্য।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানঃ গর্ভবতী মহিলাদের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আরও অনাক্রম্যতা প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে বিটরুট গর্ভবতীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা অনাক্রম্যতা বজায় রাখার জন্য অপরিহার্য।

অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধ করেঃ গর্ভবতী মহিলারা অস্টিওপোরোসিসে আক্রান্ত হন। একই সময়ে, বিটরুটে রয়েছে সিলিকা, যা শরীরকে ক্যালসিয়াম ব্যবহার করতে সক্ষম করে। এটি দাঁত ও হাড়ের দুর্বলতা রোধ করে এবং অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি কমায়।

বিপাক নিয়ন্ত্রণঃ বিটরুট পটাশিয়ামের একটি চমৎকার উৎস। এর সেবন ইলেক্ট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং গর্ভাবস্থায় বিপাককে অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়াও, এটি গর্ভবতী মহিলাদের রক্তচাপের মাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

জয়েন্টে ব্যথা এবং ফোলা প্রতিরোধ করেঃ বিটরুটে রয়েছে বেটালাইন, যা অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি হিসেবে কাজ করে। গর্ভাবস্থায় বীটরুট খাওয়া জয়েন্টের ব্যথা এবং ফোলা কমাতে পারে।

ন্যাচারাল ব্লাড পিউরিফায়ারঃ বিটরুটের রয়েছে রক্ত ​​বিশুদ্ধ করার ক্ষমতা। এটি ভ্রূণের রোগ এবং সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধ করে। একই সময়ে, বীটের রস খাওয়া আপনার শারীরিক শক্তি বৃদ্ধি করে এবং জন্মদানে সহায়তা করে।

রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করেঃ বিটরুটে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকায় এটি রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়ায়। অতএব, গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়া রক্তাল্পতার ঝুঁকি কমায়।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করুনঃ বিটরুটে কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে, যা গর্ভাবস্থায় রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

ভ্রূণের বিকাশে সহায়তাঃ বিটরুটে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ এবং ভিটামিন-ই রয়েছে। গর্ভাবস্থায় বিটের রস পান করা ভ্রূণের বিকাশে সাহায্য করে।

হজমের উন্নতি করেঃ গর্ভাবস্থায় ফাইবার সমৃদ্ধ বিটরুট খাওয়া আপনার হজমশক্তি উন্নত করে, আপনার পেটকে সুস্থ রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

100 গ্রাম কাঁচা বিটরুটে পুষ্টিগুণঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
পানি87.58 গ্রাম
শক্তি43 কিলোক্যালরি
কার্বোহাইড্রেট9.56 গ্রাম
চিনি6.76 গ্রাম
প্রোটিন1.61 গ্রাম
ফাইবার2.8 গ্রাম
ফ্যাট0.17 গ্রাম

100 গ্রাম কাঁচা বিটরুটে ভিটামিনঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
থায়ামিন (ভিটামিন-বি১)0.031 মিলিগ্রাম
রিবোফ্লাভিন (ভিটামিন-বি২)0.04 মিলিগ্রাম
নিয়াসিন (ভিটামিন-বি৩)0.334 মিলিগ্রাম
পাইরিডক্সিন (ভিটামিন-বি6)0.067 মিলিগ্রাম
ফলিক অ্যাসিড (ভিটামিন-বি9)109 মাইক্রোগ্রাম
অ্যাসকরবিক অ্যাসিড (ভিটামিন-সি)4.9 মিলিগ্রাম
ভিটামিন এ33 আইইউ
আলফা-টোকোফেরল (ভিটামিন-ই)0.04 মিলিগ্রাম
ফিলোকুইনোন (ভিটামিন-কে)0.2 μg

100 গ্রাম কাঁচা বিটরুটে ইলেক্ট্রোলাইটসঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
পটাসিয়াম325 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম78 মিলিগ্রাম

100 গ্রাম কাঁচা বিটরুটে খনিজ পদার্থঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
ক্যালসিয়াম16 মাইক্রোগ্রাম
আয়রন0.80 μg
ফসফরাস40 মাইক্রোগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম23 মিলিগ্রাম
দস্তা0.35 মিলিগ্রাম

গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়ার অসুবিধা

কিছু ক্ষেত্রে, ডাক্তার গর্ভাবস্থায় বিটরুট না খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন। নিচে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় বিটরুট খেলে কী কী ক্ষতি হতে পারেঃ

বিটরুটে রয়েছে বিটেইন, যা বমি বমি ভাব, বমি, ডায়রিয়া এবং গ্যাস্ট্রাইটিস সৃষ্টি করতে পারে।
এতে প্রচুর পরিমাণে অক্সালেট উপস্থিত থাকায় কিডনিতে পাথর সৃষ্টি করতে পারে।
বিটরুটে উপস্থিত নাইট্রেট ক্লান্তি বাড়াতে পারে।
বিটরুটের অত্যধিক সেবন আপনার ভোকাল কর্ডের ক্ষতি করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় আপনার ডায়েটে বিটরুট কীভাবে অন্তর্ভুক্ত করবেন?

কেউ কেউ বীট কাঁচা খেতে পছন্দ করেন, আবার কেউ বিটের রস পান করেন। এছাড়াও, আপনি অন্যান্য উপায়েও এটি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। নীচে আমরা বিটরুটের কিছু সহজ রেসিপি বলছিঃ

বীট পাউডার

প্রস্তুতির সময়ঃ 12 ঘন্টা

উপাদানঃ

  • একটি বীট

তৈরী প্রণালীঃ বিটরুট ছোট ছোট টুকরো করে কেটে ভালো করে ধুয়ে নিন। তারপর এই টুকরোগুলো রোদে শুকিয়ে নিন। ভালো করে শুকিয়ে গেলে গ্রাইন্ডারে পিষে নিন। এর পরে, একটি বায়ুরোধী পাত্রে পাউডারটি পূরণ করুন।

আচারযুক্ত বিটরুট

আপনি এটি স্ন্যাকস, স্যান্ডউইচ বা সালাদ হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

প্রস্তুতির সময়ঃ 55 মিনিট

উপাদানঃ

  • ছয় থেকে সাতটি বিট
  • আধা কাপ চিনি
  • কাপ সাদা ভিনেগার
  • চা চামচ কালো মরিচ
  • চা চামচ লবণ
  • দুটি তেজপাতা

তৈরী প্রণালীঃ বীটের গোড়া এবং এক ইঞ্চি পর্যন্ত সবুজ অংশ তুলে নিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করুন। একটি প্যানে রাখুন এবং জল দিয়ে সিদ্ধ করুন। এটিকে ঢেকে সিদ্ধ করুন এবং 45 মিনিটের জন্য রেখে দিন। তারপর এর পানি ঝরিয়ে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে একবার ধুয়ে ফেলুন।

তারপর খোসা ছাড়িয়ে টুকরো টুকরো করে কেটে নিন। একটি পৃথক সসপ্যানে, ভিনেগার, চিনি, লবণ, মরিচ এবং তেজপাতা একত্রিত করুন। এই মিশ্রণটি সেদ্ধ করা বীটের টুকরোগুলিতে রাখুন এবং 45 মিনিটের জন্য ম্যারিনেট করুন। তারপর তেজপাতা বের করে একটি বায়ুরোধী পাত্রে রাখুন।

বীট সবুজ রেসিপি

এর বিস্ময়কর স্বাদের পাশাপাশি, বীট পাতাগুলো গর্ভবতীকেও পুষ্টি জোগায়, কারণ তারা ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ।

প্রস্তুতির সময়ঃ 20 মিনিট

উপাদানঃ

  • দুই গুচ্ছ বিট পাতা
  • এক চামচ জলপাই তেল
  • দুটি রসুনের কোয়া
  • চা চামচ লাল মরিচ ফ্লেক্স
  • কালো মরিচ গুঁড়া স্বাদ
  • লবনাক্ত
  • দুটি লেবু

তৈরী প্রণালীঃ একটি বড় পাত্রে লবণ জল সিদ্ধ করুন। এই জলে বীট পাতা দুই মিনিট রান্না করুন যতক্ষণ না তারা নরম হয়ে যায়। এবার পানি ঝরিয়ে ঠান্ডা পানিতে পাতা দিয়ে দিন। পাতা ঠাণ্ডা হয়ে গেলে পানি থেকে তুলে কেটে কেটে নিন।

এবার একটি বড় কড়াইতে অলিভ অয়েল গরম করুন। এতে রসুন ও লাল মরিচ কুচি দিন। এক মিনিট রান্না করুন এবং তারপর বিট পাতা যোগ করুন। তারপর এটি একটি প্লেটে নিয়ে লেবুর রস মিশিয়ে খান।

বীট সালাদ

বিটরুট সালাদ খুবই পুষ্টিকর এবং সুস্বাদু।

প্রস্তুতির সময়ঃ 20 মিনিট

উপাদানঃ

  • একটি বিটরুট (কুচি করা)
  • দুই টেবিল চামচ ভিনেগার
  • দুই টেবিল চামচ অলিভ অয়েল
  • 1 চা চামচ সূক্ষ্মভাবে কাটা পার্সলে (পার্সলে)
  • 1টি রসুনের কোয়া সূক্ষ্মভাবে কাটা
  • দুই চা চামচ সরিষা
  • চা চামচ লবণ
  • কালো মরিচ গুঁড়া (স্বাদ অনুযায়ী)

তৈরী প্রণালীঃ সব উপকরণ একসঙ্গে মেশান। আপনি স্বাদ অনুযায়ী জিনিস বাড়াতে বা কমাতে পারেন। নিন বিটরুট সালাদ প্রস্তুত। তাজা পরিবেশন করুন।

বীট চা

এই ক্যাফেইন-মুক্ত চা তৈরি করা সহজ এবং খুব পুষ্টিকর।

উপাদানঃ

  • এক লিটার পানি
  • চারটি বিট (খোসা ছাড়ানো এবং সূক্ষ্মভাবে কাটা)
  • কাপ মধু
  • দুটি লেবুর রস
  • কয়েক পুদিনা পাতা

তৈরী প্রণালীঃ একটি প্যানে জল ফুটিয়ে নিন। এরপর বিটরুট, মধু, লেবুর রস এবং পুদিনা পাতা মিশিয়ে এই পানি ফুটিয়ে নিন। ফুটানোর পর কিছুক্ষণ এভাবে রেখে দিন। তারপর এই পানি ফিল্টার করে এতে বরফের টুকরো যোগ করুন এবং ঠান্ডা পরিবেশন করুন।

বিটরুট পুডিং

এটি খুবই পুষ্টিকর একটি খাবার, যা সহজেই ঘরে তৈরি করা যায়।

উপাদানঃ

  • 2 কাপ গ্রেট করা বিটরুট
  • এক কাপ ফুল ফ্যাট দুধ
  • চিনি তিন টেবিল চামচ
  • ২-৩টি এলাচ গুঁড়া
  • 2 টেবিল চামচ কাটা কাজুবাদাম
  • দুই টেবিল চামচ ঘি

তৈরী প্রণালীঃ বিটরুট পুডিং বানাতে বিটরুট ভালো করে ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে কষিয়ে নিন। এবার কড়াই বা কুকারে আধা চামচ ঘি গরম করুন। গরম করার পরে, কাটা কাজু যোগ করুন এবং হালকা বাদামী হওয়া পর্যন্ত ভাজুন।

তারপর প্যানে গ্রেট করা বীট দিন এবং প্যানে নাড়াচাড়া করার সময় কম আঁচে পাঁচ থেকে ছয় মিনিট রান্না করুন।
এর পর দুধ মিশিয়ে মেশান। অল্প আঁচে রান্না করুন যতক্ষণ না এটি কিছুটা ঘন হয়।

মাঝে মাঝে কচুরি দিয়ে নাড়তে থাকুন।ঘন হয়ে গেলে প্যানে লেগে যেতে পারে, তাই ক্রমাগত নাড়তে থাকুন। ঘন হওয়ার পর এতে চিনি দিয়ে ভালো করে রান্না করুন।

তারপর বাকি ঘি, ভাজা কাজুবাদাম এবং এলাচ গুঁড়া যোগ করুন এবং একটি মই দিয়ে নাড়তে গিয়ে এক বা দুই মিনিট রান্না করুন। এবার গ্যাস বন্ধ করে দিন। নিন বিটরুট পুডিং প্রস্তুত। আপনার পছন্দ অনুযায়ী গরম বা ঠান্ডা পরিবেশন করুন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্যঃ

গর্ভাবস্থায় বিটরুটের আকাঙ্ক্ষা কি শিশুর লিঙ্গ সম্পর্কে কিছু বলে?

অনাদিকাল থেকে, এটি বিশ্বাস করা হয় যে গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়ার আকাঙ্ক্ষা বোঝায় যে গর্ভে একটি মেয়ে রয়েছে। এটি অনাগত সন্তানের লিঙ্গ অনুমান করার একটি পদ্ধতি মাত্র, যার কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়ার সেরা সময় কী?

গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে বিটরুট খাওয়ার সর্বোত্তম সময় হিসাবে বিবেচনা করা হয়, কারণ এতে ফলিক অ্যাসিড রয়েছে, যা শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশ এবং মেরুদণ্ডের জন্য প্রয়োজনীয়।

ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) অনুসারে, একজন গর্ভবতী মহিলার প্রতিদিন 400 থেকে 800 মিলিগ্রাম ফলিক অ্যাসিড প্রয়োজন, তবে আপনার স্বাস্থ্য অনুযায়ী সঠিক পরিমাণে বিটরুট সম্পর্কে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

বীটরুট এমন একটি জিনিস যা সাবধানে এবং সঠিক পরিমাণে সেবন করলে এর উপকারিতা অগণিত। আমরা আশা করি যে গর্ভাবস্থায় বিটরুট সম্পর্কিত এই পোস্টি আপনার জন্য দরকারী হবে এবং আপনি এটির সুবিধা নিতে সক্ষম হবেন। আপনার যদি এই সম্পর্কিত আরও তথ্যের প্রয়োজন হয় তবে অবশ্যই নীচের মন্তব্য বাক্সে আমাদের জিজ্ঞাসা করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button