প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা ও নিয়ম

গর্ভাবস্থার সময় মহিলাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গর্ভাবস্থায়, ডাক্তাররা গর্ভবতী মহিলাকে ভাল খেতে এবং বিশ্রাম নিতে বলেন। এছাড়াও গর্ভাবস্থায় ফল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। মহিলাদের প্রায়ই সেই জিনিসগুলি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, যা তাদের এবং তাদের শিশু উভয়েরই উপকার করে। এবং এই খাবারগুলোর মধ্যে কলাও রয়েছে। কলা পটাসিয়াম সমৃদ্ধ, যা মা এবং শিশু উভয়ের জন্যই উপকারী বলে মনে করা হয়।

আজকে আমরা আবার একটি পুষ্টিকর জিনিস নিয়ে এসেছি, যার নাম কলা। গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া কতটা উপকারী এবং কতটা ক্ষতিকর সে সম্পর্কে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য জানা জরুরি। কলার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে বলতে গেলে এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, সোডিয়াম, জিঙ্ক, ফাইবার, পানি, প্রোটিন, শক্তি, কার্বোহাইড্রেট, চিনি, ভিটামিন বি১২, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি, ভিটামিন সি। গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া উচিৎ কি না, এমন প্রশ্ন আসা স্বাভাবিক। আজকের পোস্টটি এই বিষয়ে। আজ এই পোস্টের মাধ্যমে আমরা আপনাদের জানাবো গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া কতটা উপকারী এবং কতটা ক্ষতিকর। এর সাথে, আপনি এটি খাওয়ার সময় কী কী সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে সে সম্পর্কেও জানতে পারবেন।

কলা পটাশিয়ামের ভালো উৎস। কলায় রয়েছে ভিটামিন বি৬, ভিটামিন-সি এবং ফাইবার। গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা বেশির ভাগ নারীরই থাকে। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার জন্য ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে হবে, যা কলা সমৃদ্ধ। এর পাশাপাশি কলায় ভিটামিন বি৬ থাকে, যা গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায়ে বমি বমি ভাব সৃষ্টি করতে পারে। এবং বমির সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার উপকারিতা

মহিলারা যদি গর্ভাবস্থায় কলা খান, তাহলে তাদের নানাভাবে উপকার হয়। এই উপকারিতাগুলো নিম্নরূপঃ

জন্মগত ত্রুটি এবং অকাল প্রসব প্রতিরোধঃ গর্ভাবস্থায়, ফলিক অ্যাসিড ভ্রূণের মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের বিকাশের জন্য অপরিহার্য। এর ঘাটতির কারণে শিশুর জন্মগত ত্রুটি এবং অকাল প্রসবের ঝুঁকি থাকে।

হজম উন্নতিঃ ডায়েটারি ফাইবার সমৃদ্ধ কলা হজমশক্তির উন্নতি ঘটায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে শরীর থেকে টক্সিন বের করে দেয়। খাওয়ার পর একটি কলা খেলে পেট পরিষ্কার থাকে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ কলা ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ যা একটি চমৎকার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সংক্রমণ থেকে দূরে রাখে।

তাৎক্ষণিক শক্তি প্রদান করেঃ কলা শক্তি পাওয়ার জন্য সবচেয়ে ভালো উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়। এটি খুব দ্রুত শরীরে শক্তি যোগায়। কলায় রয়েছে গ্লুকোজ , ফ্রুক্টোজ এবং সুক্রোজ, যা তাৎক্ষণিক শক্তি প্রদানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
সুতরাং, গর্ভাবস্থায় মা এবং শিশু উভয়কে সুস্থ রাখতে অনেক পুষ্টিসমৃদ্ধ কলা উপকারী। আপনিও যদি গর্ভবতী হন তবে অবশ্যই আপনার ডায়েটে কলা অন্তর্ভুক্ত করুন।

মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যাঃ আপনি প্রায়শই দেখেছেন যে মহিলারা গর্ভাবস্থায় মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যায় পড়েন। কলা নারীদের এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করতে পারে। কলা প্রভাবে শীতল হয়। অন্যদিকে, মহিলারা যদি এটি সেবন করেন তবে মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যাতেও উপকার পাওয়া যায়।

পায়ে ক্র্যাম্পের সমস্যাঃ গর্ভবতী মহিলারা প্রায়শই তাদের ক্রমবর্ধমান ওজনের কারণে তাদের পায়ে ক্র্যাম্পের সম্মুখীন হন। এই ক্ষেত্রে, এটি ঠান্ডা দূর করতে কার্যকর হতে পারে। কলার অভ্যন্তরে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায় যা শুধু পায়ের মাংসপেশিই মজবুত করে না স্নায়ুকেও শক্তিশালী করে।

সকালের অসুস্থতা প্রতিরোধঃ মর্নিং সিকনেস সারাতেও কলা একটি চমৎকার বিকল্প। উল্লেখ্য, গর্ভাবস্থায় নারীরা যদি মর্নিং সিকনেসের সম্মুখীন হন, তাহলে তাদের দিনে এক বা দুটি কলা খাওয়া উচিৎ, এটি করলে মর্নিং সিকনেসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য কলা খুবই উপকারী। গর্ভাবস্থায় মহিলাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হওয়া উচিৎ। এমন পরিস্থিতিতে, কলা খাওয়ার মাধ্যমে, তারা শুধুমাত্র রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে না, তবে কলার ভিতরে পাওয়া ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সিও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে।

রক্তাল্পতা থেকে রক্ষা করেঃ গর্ভাবস্থায় রক্তশূন্যতার সমস্যা মা ও শিশু উভয়ের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এমন অবস্থায় শরীরে রক্তের অভাব যেন না হয়। শরীরে আয়রনের অভাবের কারণে রক্তাল্পতার মুখোমুখি হতে পারে। কলার ভেতরে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়, যা শুধু রক্তের অভাবই পূরণ করে না রক্তশূন্যতা প্রতিরোধেও উপকারী।

শক্তি যোগাতে খুব সহায়কঃ গর্ভবতী মহিলারা যদি কলা খান তবে কলার ভিতরে যে ভিটামিন, আয়রন এবং ক্যালসিয়াম পাওয়া যায় তা মহিলাদের শক্তি যোগাতে খুব সহায়ক। একইসঙ্গে মহিলারাও এটি খেলে প্রচুর শক্তি পান।

কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দেয়ঃ গর্ভবতী মহিলারাও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে কলা খেতে পারেন। যে কলার ভিতরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়, যা শুধু হজমই উন্নত করে না কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতেও বেশ উপকারী।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধঃ কলা ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা অ্যাসকরবিক অ্যাসিড নামেও পরিচিত, যা ভাল হাড়ের বৃদ্ধি, টিস্যু এবং পেশীগুলির মেরামত এবং ভাল ত্বক বজায় রাখতে সহায়তা করে। এছাড়াও, ভিটামিন সি একটি দুর্দান্ত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা গর্ভবতী মহিলা এবং অনাগত শিশুকে গর্ভাবস্থায় সমস্ত ধরণের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। তাই একজন গর্ভবতী মহিলাকে অবশ্যই গর্ভাবস্থায় তার খাদ্যতালিকায় এটি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করেঃ গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ বৃদ্ধি বা কমার সমস্যা গর্ভবতী মহিলার পাশাপাশি গর্ভস্থ শিশুর স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে। এবং কলা খাওয়া শরীরের রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধঃ কলায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়, যা অনাগত শিশুর সাথে গর্ভবতী মহিলার হাড়ের মজবুত ও বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়। এবং প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম গ্রহণ শিশুর শারীরিক বিকাশে আরও ভালোভাবে সাহায্য করে।

ফাইবার সমৃদ্ধঃ কিছু গর্ভবতী মহিলা গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের খুব সমস্যায় পড়েন, তাই কলায় উপস্থিত ফাইবার গর্ভবতী মহিলার এই সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে। এর পাশাপাশি, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যার কারণে, একজন মহিলার অর্শ্বরোগের সমস্যাও হতে পারে, তাই কলা খেলে অন্ত্রের পেশীগুলি শিথিল হয়, যা এই সমস্যা থেকে মুক্তির পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দেয়।

বমি থেকে মুক্তি দেয়ঃ কলা ভিটামিন B6 সমৃদ্ধ এবং ভিটামিন B6 বমি, বমিভাব, সকালের অসুস্থতা ইত্যাদি থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে। আর গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে মর্নিং সিকনেস খুব বেশি হয়, তাই এর থেকে মুক্তি পেতে কলা খাওয়া গর্ভবতী মহিলার এই সমস্যা কমাতে সাহায্য করে।

ক্ষুধা বাড়ায়ঃ কিছু গর্ভবতী মহিলা গর্ভাবস্থায় ক্ষুধা হ্রাসের কারণে সমস্যায় পড়েন, তাই তাদের কলা খাওয়া উচিৎ, যা ক্ষুধা বাড়াতে এবং ভাল হজমে সহায়তা করতে পারে। কারণ গর্ভাবস্থায় খাবার ও পানীয়ের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অসাবধানতা গর্ভবতী নারী ও শিশু উভয়ের ওপরই খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে।

ফোলেট সমৃদ্ধঃ শরীরে ফোলেটের পরিমাণ অনাগত শিশুর মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডের বিকাশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর গর্ভবতী মহিলা যদি কলা খান তবে তা শরীরে প্রচুর পরিমাণে ফোলেট রাখতে সাহায্য করে, যা শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশের উন্নতি করে এবং জন্মের সময় শিশুকে রোগ থেকে নিরাপদ রাখতেও সাহায্য করে।

গর্ভের শিশুর স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশ ঘটায়

ভিটামিন B6 অনাগত শিশুর স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশের জন্য অপরিহার্য, এবং কলায় এটি প্রচুর পরিমাণে থাকে। গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে নিয়মিত কলা খাওয়া শিশুর মস্তিষ্ক ও স্নায়ুর বিকাশের জন্য উপকারী।

তাই এই হল কিছু উপকারিতা যা আপনি গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী মহিলা এবং গর্ভস্থ শিশুর জন্য কলা খেলে পাবেন। এছাড়াও, তাজা কলা সবসময় খাওয়া উচিৎ, যদি বাসি কলা বা কলায় কোন দাগ থাকে, অর্থাৎ কলা যদি বেশি পেকে যায় তবে তা খাওয়া উচিৎ নয়। এছাড়াও, আপনার যদি কলায় অ্যালার্জি থাকে তবে এটি খাওয়া উচিৎ নয়। এবং একবার আপনাকে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে, কতটা কলা খাওয়া উচিৎ, কারণ গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া গর্ভবতী মহিলার গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের সমস্যায় পড়তে পারে।

সতর্কতা

গর্ভবতী মহিলারা যদি তাদের খাদ্যতালিকায় কলা যোগ করে থাকেন, তাহলে তাদের সেই সময় কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এই সতর্কতাগুলি নিম্নরূপঃ

  • অতিরিক্ত পাকা বা কালশিটে কলা খাওয়া এড়িয়ে চলুন।
  • শুধুমাত্র তাজা কলা খান।
  • জৈব কলা চয়ন করুন।

গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়ার অপকারিতা

গর্ভাবস্থায় কলা খাওয়া নিরাপদ। কিন্তু অতিরিক্ত খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

গর্ভবতী মহিলারা যদি বেশি পরিমাণে কলা খান তাহলে তারা অ্যালার্জির সম্মুখীন হতে পারে।

এছাড়া কলার অভ্যন্তরে ল্যাটেক্স নামে একটি উপাদান রয়েছে যা অ্যালার্জির কারণ হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে, গর্ভবতী মহিলাদের জন্য অতিরিক্ত সেবন এড়িয়ে চলুন।

দ্রষ্টব্যঃ উপরে উল্লিখিত পয়েন্টগুলি দেখায় যে অতিরিক্ত কলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু মহিলারা যদি সীমিত পরিমাণে কলা খান, তবে তা স্বাস্থ্যের অনেক সমস্যা থেকে দূরে রাখতে উপকারী। আমরা গর্ভবতী মহিলাদের তাদের ডায়েটে কিছু যোগ করার আগে একবার বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দিই।

5/5 - (35 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button