প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় কীভাবে নিজেকে পর্যাপ্ত পুষ্টি দেবেন? আপনি যদি এটি সম্পর্কে চিন্তা করেন তবে খেজুর খাওয়া আপনার জন্য উপকারী হবে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থার শেষ দিকে খেজুর খাওয়া সন্তান জন্মদানে সহায়ক। গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়া আপনাকে সম্পূর্ণ পুষ্টি দিতে কাজ করে। এটি আপনার এবং আপনার শিশুর উপকার করে। এর পাশাপাশি গর্ভাবস্থায় দেখা দেয়া এমন অনেক সমস্যাও কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে। এই পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করব।

গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়া কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়া নিরাপদ। খেজুরের উপকারিতার প্রভাব গর্ভবতী এবং ভ্রূণ উভয়ের ক্ষেত্রেই দেখা যায়। খেজুরে ফ্রুক্টোজ নামক একটি কার্বন যৌগ থাকে, যা রক্তে শর্করার মাত্রা পরিবর্তন না করে শরীরে শক্তি সরবরাহ করার পাশাপাশি প্রসব বেদনা বাড়াতে অক্সিটোসিন (এক ধরনের হরমোন) এর প্রয়োজনীয়তাও কমাতে পারে।

এবার খেজুরে পাওয়া পুষ্টিগুণ নিয়ে কথা বলা যাক।

আসুন জেনে নিই গর্ভাবস্থায় কখন খেজুর খাওয়া শুরু করবেন।

গর্ভাবস্থায় কখন খেজুর খাওয়া শুরু করবেন?

আমরা এখানে তিনটি ত্রৈমাসিকের ভিত্তিতে উত্তর দিচ্ছি, যা নিম্নরূপ –

প্রথম ত্রৈমাসিক – এটি গর্ভাবস্থার প্রথম মাস থেকে শুরু করা উচিত, কারণ গর্ভাবস্থায় মহিলাদের আরও আয়রনের প্রয়োজন হয়। এটি খেজুরের মাধ্যমে পূরণ করা যায়। আয়রনের ঘাটতি হলে অ্যানিমিয়া হতে পারে, যা ভ্রূণের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করে। শরীরে আয়রনের ঘাটতি মেটাতে আরিয়ান ট্যাবলেটের পরিবর্তে খেজুর খাওয়া ভালো বিকল্প হতে পারে। যাইহোক, এই সময়ের মধ্যে কতটা হওয়া উচিত সে সম্পর্কে আপনার ডাক্তার সঠিক তথ্য জানাতে সক্ষম হবেন।

দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক- গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে কোষ্ঠকাঠিন্য সংক্রান্ত সমস্যা দেখা দিতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে খেজুর খাওয়া আপনার জন্য উপকারী হতে পারে। আসলে, খেজুরে ফাইবার পাওয়া যায়, যা খাবার হজমের পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যায়ও কার্যকর।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার, গর্ভাবস্থায় গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা ও পেট ফাঁপা – কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার

তৃতীয় ত্রৈমাসিক- গর্ভাবস্থার তৃতীয় ত্রৈমাসিকে খেজুর খাওয়া সন্তান প্রসবের জন্য উপকারী। এই সময়ে খেজুর সেবন রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এর পাশাপাশি রক্তশূন্যতা ও বমি বমি ভাবের সমস্যাও দূর করা যায়। এটি গর্ভবতী এবং ভ্রূণের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

এরপর আমরা জানবো গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে।

গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

শরীরে শক্তি বজায় রাখা: গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়া শরীরে শক্তির মাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে, কারণ এতে ক্যালরি বেশি থাকে।

কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি: খেজুরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে, যা মলকে নরম করে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সহায়ক।

শিশুর ওজন: গর্ভাবস্থায় ফোলেটের ঘাটতি শিশুর জন্মের সময় কম ওজনের কারণ হতে পারে। খেজুরের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা এখানে দেখা যায়, কারণ এতে ফোলেটের পরিমাণ পাওয়া যায়, যা গর্ভাবস্থায় ফোলেট সরবরাহ করতে পারে।

রক্তস্বল্পতা দূর করে: খেজুর খেলে রক্তস্বল্পতা দূর করা যায়। খেজুর আয়রনের একটি ভালো উৎস, যা শরীরে লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করে। এর মাধ্যমে গর্ভাবস্থায় রক্তস্বল্পতার ঝুঁকি এড়ানো যায়।

রক্তচাপের জন্য: গর্ভাবস্থায় DASH গ্রহণের পরিকল্পনা, যার মধ্যে খেজুরও রয়েছে, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে।

ভ্রূণের হাড় গঠনে: গর্ভাবস্থার তৃতীয় ও চতুর্থ মাসে গর্ভবতীর বেশি পরিমাণে ক্যালসিয়ামের প্রয়োজন হয়। ক্যালসিয়াম ভ্রূণের হাড়ের বিকাশে একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি হিসাবে কাজ করে। এমন পরিস্থিতিতে খেজুর খেলে শরীরে ক্যালসিয়াম পূরণ হয়।

জন্মগত ত্রুটি কমানো: অনেক শিশুর মধ্যে জন্মগত ত্রুটি দেখা যায়। খেজুর এখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে ফোলেট পাওয়া যায়, যা নিউরাল টিউব ডিফেক্ট (মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডের হাড়ের সাথে যুক্ত জন্মগত ত্রুটি) সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে।

খেজুর খাওয়া প্রসবের ক্ষেত্রে কীভাবে সাহায্য করে সে সম্পর্কে আমরা আরও পড়ব।

খেজুর খাওয়া প্রসবের ক্ষেত্রে কীভাবে সাহায্য করে?

গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়া যেমন উপকারী, তেমনি গর্ভাবস্থার শেষ দিকে খেজুর সেবন প্রসবের ক্ষেত্রেও সহায়ক। উপরন্তু, এটি শ্রম বাড়ানোর জন্য অক্সিটোসিনের প্রয়োজনীয়তাও কমাতে পারে।

পরবর্তী অংশে, আমরা গর্ভাবস্থায় কীভাবে খেজুর খেতে হবে সে সম্পর্কে তথ্য দেব।

গর্ভাবস্থায় খেজুর কীভাবে খাবেন?

গর্ভবতী মহিলাদের তাদের সাথে খেজুর এবং শুকনো ফল রাখতে হবে, যাতে যখনই তারা হালকা ক্ষুধা অনুভব করে তখন তারা সেগুলি খেতে পারে। মহিলাদের জন্য খেজুর খাওয়া খুবই সহজ। আপনি নিম্নলিখিত উপায়ে গর্ভাবস্থায় আপনার ডায়েটে খেজুর অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

  • খেজুর টাটকা পাকা করে খাওয়া যায়।
  • শুকিয়েও খাওয়া যায়।
  • খেজুরও দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে স্মুদি হিসেবে নেওয়া যেতে পারে।
  • ডেজার্ট হিসেবে খেজুর নেওয়া যেতে পারে।
  • খেজুর দুধের সাথে মিশিয়ে মিল্কশেক হিসেবেও নেওয়া যেতে পারে।

গর্ভাবস্থায় খেজুরও কিছু ক্ষতি করতে পারে। আসুন জেনে নেই এই বিষয়ে।

গর্ভাবস্থায় খেজুরের অপকারিতা

গর্ভাবস্থায় খেজুর খেলে নিম্নলিখিত ধরনের নেতিবাচক প্রভাব দেখা যায়:

খেজুরে চিনি থাকে, যার কারণে এর সেবনে হাইপোগ্লাইসেমিয়া হতে পারে (রক্তে চিনির পরিমাণ বেড়ে যাওয়া)।
এর অত্যধিক ব্যবহার ওজন বাড়াতে কাজ করতে পারে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি রয়েছে।
খেজুরে রয়েছে ফাইবার। এর বেশি খেলে ডায়রিয়া হতে পারে। তাই খেজুর সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত।
গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত খেজুর খাওয়া দাঁত ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ায়।

গর্ভাবস্থায় কোন ধরনের খেজুর খাওয়া উচিত?

এখানে আমরা দুই ধরনের খেজুরের কথা উল্লেখ করছি, যা গর্ভাবস্থায় খাওয়া যায়।

মেডজুল খেজুর: মেডজুল খেজুর গর্ভাবস্থায় উপকারী। এই খেজুরে গর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় সমস্ত পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এতে চর্বি এবং সোডিয়াম কম, যা গর্ভবতী এবং ভ্রূণ উভয়ের জন্যই উপকারী।

চাইনিজ লাল খেজুর: চাইনিজ লাল খেজুরে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়, যা রক্তস্বল্পতার সমস্যা দূর করতে উপকারী। তাই গর্ভাবস্থায় এর ব্যবহার উপকারী।

দ্রষ্টব্য: গর্ভাবস্থায় মেডজুল এবং চাইনিজ রেড খেজুর খাওয়া নিরাপদ বলে কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। অতএব, এটি খাওয়ার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

এখন নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়া কতটা উপকারী। আপনি যদি এটিকে আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা করছেন, তবে একবার পুরো পোস্ট পড়ুন। এটি কীভাবে খেতে হয় তা জেনে, আপনি বিভিন্ন উপায়ে এর স্বাদের সুবিধা নিতে পারেন। এই লেখাটি আপনার জন্য দরকারী হবে আশা করি। এটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন এবং গর্ভাবস্থায় খেজুর সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (11 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button