প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়া উচিত কি না

গরমে তরমুজ খেতে সবাই পছন্দ করে। এর কারণ হলো এতে পানির পরিমাণ বেশি। শুধু তাই নয়, পানি ছাড়াও এতে এমন অনেক পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয়। এখন প্রশ্ন হল, গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়া কি যুক্তিযুক্ত? এই সন্দেহ অনেক গর্ভবতী মহিলাদের মনে দেখা দেয়। এই সন্দেহ দূর করার জন্য আমরা গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার উপকারিতা এবং অপকারিতা উভয় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিচ্ছি। এই তথ্যের মাধ্যমে, আপনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়া উচিত কি না।

আসুন, প্রথমেই আমরা গর্ভাবস্থায় তরমুজ নিয়ে উদ্ভূত এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাই।

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়া উচিত কি না

তরমুজে প্রোটিন এবং চর্বি সহ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান রয়েছে যেমন:- আয়রন, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন এ, যা গর্ভাবস্থায় নারীর পাশাপাশি ভ্রূণের বিকাশে সহায়ক। একই সময়ে, ডায়েটিশিয়ানরা গর্ভবতী মহিলাদেরকে তাদের খাদ্যতালিকায় তরমুজ অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দেন যাতে কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবার এর সাথে ভিটামিন A সরবরাহ করা যায়। এই কারণে, তরমুজ যদি সুষম পরিমাণে খাওয়া হয় তবে এটি গর্ভাবস্থায় উপকারী প্রমাণিত হবে।

আমরা এখন গর্ভাবস্থায় তরমুজ গ্রহণের পরিমাণ সম্পর্কে তথ্য পেয়েছি।

গর্ভাবস্থায় আমি দিনে কতটা তরমুজ খেতে পারি?

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার পরিমাণ সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে, ডায়েটিশিয়ানরা স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থার জন্য প্রতিদিন প্রায় আধা কাপ তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দেন। একই সময়ে, এর অত্যধিক সেবনের কারণে কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও দেখা দিতে পারে, যা আমরা আপনাকে আরও বলব। তাই খেয়াল রাখতে হবে দিনে আধা কাপের বেশি তরমুজ যেন না খাওয়া হয়।

তরমুজের পরিমাণ এবং এটি কতটা নিরাপদ তা জানার পরে, এখন আসুন এটিকে ত্রৈমাসিকভাবে নেওয়ার সঠিক সময় সম্পর্কেও বলি।

গর্ভাবস্থার কোন ত্রৈমাসিকে আমার তরমুজ খাওয়া উচিত?

গর্ভাবস্থা এমন একটি সূক্ষ্ম সময় যখন এটি শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট ত্রৈমাসিকে নির্দিষ্ট খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, যেমন কিছু বিশেষ ক্ষেত্রে, প্রথম বা দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে উপকারী প্রমাণিত খাবারগুলি তৃতীয় ত্রৈমাসিকে ক্ষতিকারক ফলাফল দেখাতে পারে। যদি আপনার মনেও তরমুজ নিয়ে তেমনই কিছু সন্দেহ থাকে, তাহলে আপনাকে বলে রাখি যে নির্দিষ্ট ত্রৈমাসিকে তরমুজ সম্পর্কে কোথাও উল্লেখ নেই। একই সাথে, আমরা ইতিমধ্যে নিবন্ধে আপনাকে বলেছি যে তরমুজে এমন অনেক পুষ্টি পাওয়া যায়, যা গর্ভাবস্থায় মহিলা এবং ভ্রূণের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই অর্থে, গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়া উপকারী প্রমাণিত হতে পারে, তবে এটি খাওয়ার আগে এটি সম্পর্কে একবার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

তরমুজ সম্পর্কে এত কিছু জানার পর চলুন এবার দেখে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা গুলো কি কি?

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার উপকারিতা

অম্বল থেকে মুক্তি: বেশিরভাগ মহিলারা গর্ভাবস্থায় অম্বল হওয়ার অভিযোগ করেন। আসলে, বদহজমের কারণে এই সময়ে মহিলাদের মধ্যে অ্যাসিডিটির সমস্যা দেখা দেয়, যার কারণে অনেক সময় মহিলাদের বুকে জ্বালাপোড়াও হতে হয়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে তরমুজ খাওয়া উপকারী প্রমাণিত হয়েছে। পাকস্থলীতে উৎপন্ন অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা তরমুজের রয়েছে, যা অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি দিতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে বলা যেতে পারে যে তরমুজ সেবন গর্ভাবস্থায় বুকের সমস্যা দূর করতেও সহায়ক হতে পারে।

ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করে: গর্ভাবস্থায় প্রায় ৮০ শতাংশ নারীর হাত-পা ফুলে যাওয়ার সমস্যা থাকে। ডাক্তারি ভাষায় এটাকে শোথ সমস্যা বলা হয়। এই সমস্যায় তরমুজের ব্যবহার উপকারী ফল দেখাতে পারে। আসলে, তরমুজে প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা গর্ভাবস্থায় হাতের ফোলা কমাতে সাহায্য করতে পারে। তরমুজে পাওয়া লাইকোপিনের কারণে প্রদাহরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

সকালের অসুস্থতা থেকে মুক্তি পান: গর্ভাবস্থার প্রথম পর্যায়ে বেশিরভাগ মহিলাকে মর্নিং সিকনেসের সমস্যায় পড়তে হয়। এই সমস্যায় প্রধানত বমি বমি ভাব এবং বমির সমস্যা দেখা দেয়। এমন পরিস্থিতিতে, উপশমের জন্য বেশি করে পানি পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে তরমুজে ৯২ শতাংশ পানি থাকার কারণে ডিহাইড্রেশনের সমস্যাসহ মর্নিং সিকনেসেও উপকারী বলে বিবেচিত হয়। এই কারণে, এটা বললে ভুল হবে না যে তরমুজ খাওয়ার ফলে আপনি মর্নিং সিকনেসের সমস্যা থেকেও মুক্তি পেতে পারেন।

ডিহাইড্রেশন: বমি, ডায়রিয়ার মতো অনেক অবস্থার কারণে, মহিলাদের প্রায়ই গর্ভাবস্থায় ডিহাইড্রেশনের সম্মুখীন হতে হয়। এই সমস্যা এড়াতে একমাত্র বিকল্প হল প্রতিদিন বেশি বেশি তরল খাওয়া, যাতে শরীরে প্রয়োজনীয় পরিমাণ পানি থাকে। তরমুজে প্রচুর পরিমাণে পানি থাকে, তাই তরমুজ খাওয়া পানিশূন্যতার ঝুঁকি দূরে রাখতেও সহায়ক।

পেশীর খিঁচুনি কমায়: গর্ভাবস্থায় একজন মহিলার শরীরে অনেক পরিবর্তন হয়। এই পরিবর্তনগুলির কারণে, গর্ভাবস্থায় পেশী ক্র্যাম্পের সমস্যাও দেখা যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন বি এবং ভিটামিন সি যুক্ত খাবার এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে কার্যকরী। এই সব পুষ্টি উপাদান তরমুজে রয়েছে। এই কারণে, পেশী ক্র্যাম্পের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে তরমুজ একটি দুর্দান্ত বিকল্প।

ত্বকের টোন বজায় রাখে: গর্ভাবস্থায় দৃশ্যমান পরিবর্তনগুলির মধ্যে একটি হল গর্ভবতীর ত্বকের স্বরে পার্থক্য, যা হাইপারপিগমেন্টেশন (ত্বকের কালো হওয়া) কারণে হয়। ত্বকে দৃশ্যমান এই পরিবর্তন নিয়ন্ত্রণে তরমুজ খাওয়াও উপকারী। আসলে তরমুজে ভিটামিন সি থাকে। এটি হাইপারপিগমেন্টেশনের বিরুদ্ধে ইতিবাচক প্রভাব প্রদর্শন করে ত্বকের বর্ণের উন্নতি হিসাবে কাজ করে। এই কারণে, তরমুজ খাওয়া গর্ভাবস্থায় ত্বকের স্বর পরিবর্তন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়: শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখতেও তরমুজ উপকারী। তরমুজে পাওয়া একটি বিশেষ উপাদান লাইকোপেনের উপর পরীক্ষামূলক এবং প্রাণী বিজ্ঞান দ্বারা পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এই উপাদানটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে উন্নত করে এইচআইভির মতো গুরুতর রোগের বিরুদ্ধে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য উপশম করে: এনসিবিআই (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তরমুজ সম্পর্কিত একটি গবেষণা উল্লেখ করেছে যে প্রচুর পরিমাণে পানি এবং ফাইবার উপলব্ধ থাকার কারণে এটি হজম প্রক্রিয়ায় সহযোগিতামূলক লক্ষণগুলি প্রদর্শন করে। একই সময়ে, কোষ্ঠকাঠিন্য হজম সংক্রান্ত একটি সমস্যা, যেখানে ডাক্তাররা ফাইবার-সমৃদ্ধ খাবার এবং বেশি পানি খাওয়ার পরামর্শ দেন। আঁশের পাশাপাশি তরমুজেও প্রচুর পরিমাণে পানি পাওয়া যায়।

মূত্রনালীর সংক্রমণে উপকারী: হরমোনের পরিবর্তনের সাথে সাথে কিছু নারীর মানসিক, শারীরিক এবং মূত্রনালীর অবস্থার পরিবর্তন হয়। এই কারণে, গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের অভিযোগ হয়ে ওঠে। এই ধরনের মহিলাদের জন্য তরমুজ একটি দুর্দান্ত ওষুধ হিসাবে কার্যকর। বিশেষজ্ঞদের মতে, তরমুজ কিডনির কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। এটি মূত্রনালীর সংক্রমণ কমাতেও সহায়ক। একই সময়ে, এটি মূত্রনালীর সংক্রমণ উপশম করতেও সহায়ক।

ভ্রূণের হাড় গঠনে সহায়ক: ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফসফরাস ভ্রূণের হাড়ের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অন্যদিকে, তরমুজে এই তিনটি উপাদান ভালো পরিমাণে থাকে। এই কারণে তরমুজ খাওয়া মায়ের পাশাপাশি শিশুর হাড়ের বিকাশে ইতিবাচক প্রভাব রাখে।

চলুন এবার জেনে নিই তরমুজের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে।

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার কি কোন অপকারিতা আছে?

তরমুজের কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানা নেই, তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সেবন নিম্নলিখিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে।

তরমুজ একটি উচ্চ গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (উচ্চ চিনির সামগ্রী) সহ একটি ফল, তাই এর অতিরিক্ত গর্ভাবস্থায় চিনির সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

নিয়াসিনের উপস্থিতির কারণে, অতিরিক্ত মাত্রার কারণে মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব এবং কিছু লিভারের সমস্যা হতে পারে।

একই সময়ে, এতে উপস্থিত উচ্চ পরিমাণে ভিটামিন সি পেটে ব্যথা এবং ক্র্যাম্পের সাথে কিছু লিভারের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

তরমুজ খাওয়ার সময় কী কী খেয়াল রাখতে হবে?

তরমুজ খাওয়ার সময় প্রধানত এই বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে।

কাটা তরমুজ দ্রুত নষ্ট হয়ে যেতে পারে, তাই খাওয়ার জন্য শুধুমাত্র তাজা কাটা তরমুজ ব্যবহার করুন। তরমুজ কাটার আগে ভালো করে ধুয়ে নিন, কারণ তরমুজ না ধুলে এতে থাকা কীটনাশক আপনার ক্ষতি করতে পারে।
খাওয়ার জন্য সবসময় পাকা এবং গাঢ় লাল রঙের তরমুজ বেছে নিন।

তরমুজ খাওয়ার সময়, প্রতিদিন এর সুষম পরিমাণে বিশেষ যত্ন নিন।

মৌসুমি ফল শরীরের জন্য বেশি উপকারী। গ্রীষ্মের মৌসুমে তরমুজের জন্ম হয় এবং এই মৌসুমে তা খেলে শরীরের উপকার হয়।

আর্টিকেলের পরবর্তী অংশে আমরা এখন তরমুজ খাওয়ার কিছু সহজ উপায় সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি।

গর্ভাবস্থায় তরমুজ উপভোগ করার সেরা উপায়

এভাবে সহজেই খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যায় তরমুজ।

  • তরমুজ কেটে সরাসরি খাওয়া যায়।
  • ফলের চাটেও ব্যবহার করতে পারেন।
  • তরমুজের রস বের করার পর পান করতে পারেন।
  • আপনি চাইলে স্মুদি বানিয়েও ব্যবহার করতে পারেন।

গর্ভাবস্থায় তরমুজ খাওয়ার কী কী উপকারিতা রয়েছে এই নিবন্ধটির মাধ্যমে আপনি নিশ্চয়ই ভালোভাবে জেনে গেছেন। এমন পরিস্থিতিতে এটিকে আপনার খাদ্যতালিকায় স্থান দিয়ে আপনি গর্ভাবস্থায় অনেক সমস্যাকে নিজের থেকে দূরে রাখতে সফল হতে পারেন। ডায়েটে তরমুজ অন্তর্ভুক্ত করার কিছু সহজ উপায়ও নিবন্ধে দেওয়া হয়েছে, যা আপনাকে এই কাজে সাহায্য করবে। তাহলে, আজ থেকে আপনার খাদ্যতালিকায় তরমুজ অন্তর্ভুক্ত করুন এবং এর উপকারিতার মাধ্যমে একটি সুস্থ গর্ভধারণ উপভোগ করুন। গর্ভাবস্থায় খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত আরও তথ্যের জন্য আপনি আমাদের অন্যান্য নিবন্ধগুলি পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button