লাইফস্টাইল

চায়ের পরিচিতি ও উপকারিতা এবং অপকারিতা

চায়ের পরিচিতি

চা বহু শতাব্দী ধরে সবার প্রিয় পানীয়। সাধারণত অনেকের চা ছাড়া দিন শুরু হয় না। চায়ের উপকারিতার কারণে আয়ুর্বেদে ওষুধ হিসেবেও এটি ব্যবহার করা হয়। কিন্তু এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। চা পান করার আগে, আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনার এই অভ্যাসটি আপনার জন্য উপকারী নাকি ক্ষতিকারক। আসুন এ সম্পর্কে আরও বিশদে জেনে নেওয়া যাক চা কীভাবে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী এবং ক্ষতিকারক।

চা কি?
চায়ের বোটানিক্যাল নাম Camellia sinensis এবং এটি Theaceae পরিবারের অন্তর্গত।

চা মূলত তেতো, গরম প্রকৃতির এবং শক্তিবর্ধক। চা আসলে একটি পানীয় যাতে ট্যানিন এবং ক্যাফেইন থাকে যা শরীরকে শক্তি জোগাতে সাহায্য করে। অতএব, চা পান করা প্রায়শই ক্লান্ত হয়ে পড়লে আবার উজ্জীবিত হওয়ার অনুভূতি দেয়। কিন্তু অত্যধিক চা পান করা শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে যদি তা নেশা বা আসক্তিতে পরিণত হয়।

চা এর প্রাকৃতিক আকার ৯-১৫ মিটার উঁচু, ছোট-পাতা, চিরহরিৎ ঝোপ। চা উৎপাদনের জন্য নির্দিষ্ট সময় পর পর গাছ কাটা হয়, যার কারণে এই গাছটি প্রায় ৬০-১৫০ সেন্টিমিটার আকারে থাকে। চা পাতার জন্য দুটি পাতা এবং এর সামনের অংশের একটি কুঁড়ি ব্যবহার করা হয়।

এর পাতাগুলি সরল, ৩-৬ সেমি ব্যাস, মসৃণ, নীচের অংশে কিছুটা পিউবেসেন্ট এবং খুব সূক্ষ্ম ছিদ্রযুক্ত। এর ফুলগুলি সাদা রঙের, সুগন্ধি, একক বা ২-৪ টি একসাথে, গোলাকার। এর ফল ত্রিভুজাকার, যার ব্যাস ৮ সেমি, প্রায় গোলাকার, মসৃণ, বাদামী রঙের, শক্ত বীজের খোসার মতো, চকচকে দুটি বীজ।

চায়ের আদি নিবাস চীন, জাপান, মালায়া, শ্রীলঙ্কা এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। ১৭ শতকে ইংল্যান্ডের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বাংলাদেশে চায়ের প্রচার করেছিল।

এই কোম্পানি বিভিন্ন জায়গায় এর চাষ শুরু করে এবং এর উৎপাদন বাড়ায়। তারপর থেকে চা এর উৎপাদন ধীরে ধীরে অগ্রসর হয় এবং উন্নত হয়। এখন চা হয়ে উঠেছে একক সেরা প্রিয় পানীয়, সমস্ত পানীয়ের সর্বজনীন সম্রাজ্ঞী।

চায়ের উপকারিতা

চা শুধু শক্তি জোগাতে কাজ করে না। এর ঔষধি গুণাগুণ অগণিত, যার কারণে আয়ুর্বেদে অনেক রোগের চিকিৎসা হিসেবে চা ব্যবহার করা হয়। চা পাতা ক্ষুধা বৃদ্ধিকারী, হজমকারী এবং শক্তিবর্ধক। এছাড়া হার্টের ব্যথা, চোখের ব্যথা, হেমোরয়েড বা পাইলসের ব্যথা ও ফোলাভাব কমাতে চা সহায়ক।

আসুন বিস্তারিত জেনে নেই কোন কোন রোগে এবং কিভাবে চা ব্যবহার করা হয়?

মাথাব্যথাঃ কাজের চাপের কারণে প্রায়ই মাথাব্যথা হয়। মাথাব্যথা দূর করতে চা খুবই উপকারী। চা পাতার ক্বাথ তৈরি করে ৫-১৫ মিলি পরিমাণে পান করলে মাথাব্যথা উপশম হয়।

কনজেক্টিভাইটিসের জন্যঃ শীত মৌসুমের বিদায় ও গ্রীষ্মের আগমনের সময় মানুষের চোখের রোগ দেখা দেয়। চোখ লাল হয়ে যায় এবং ব্যাথা শুরু হয়। চায়ের ক্বাথ তৈরি করে ১-২ ফোঁটা চোখে ঢাললে ২-৩ দিনে চোখের এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

গলার সংক্রমণেঃ পেটের কারণে বা অতিরিক্ত গরম খাবার খাওয়ার কারণেও গলায় ক্ষতের মতো হয়ে যায়, যার কারণে ব্যথা শুরু হয়। দিনে ২-৩ বার চায়ের ক্বাথ দিয়ে গার্গল করলে গলায় ঘা বা ফোলাভাব থেকে আরাম পাওয়া যায়।

কোরিজা থেকে মুক্তি পেতেঃ ঋতু পরিবর্তনের সময় শিশুরা সর্দি ও ফ্লুতে আক্রান্ত হয়। চা খেলে ঠান্ডা ও ফ্লু থেকে দারুণ উপশম পাওয়া যায়। বনফসা, লিকোরিস এবং চা এর ক্বাথ (১৫-২০ মিলি) তৈরি করে পান করলে ঠান্ডায় উপকার পাওয়া যায়।

পেটের ব্যথায়ঃ পুদিনা ও আকরকরা মিশিয়ে চায়ের ক্বাথ রান্না করে ১৫-২০ মিলি পরিমাণে পান করলে পেটে গ্যাসের কারণে হওয়া ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

মূত্রনালীর রোগেঃ প্রস্রাবের রোগে প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া, ব্যথা, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া বা প্রস্রাবের পরিমাণ কম হওয়ার মতো অনেক সমস্যা হয়। চা পাতার ক্বাথ তৈরি করে ১০-১৫ মিলি পরিমাণে খেলে জ্বর, মাংসপেশির শিথিলতা ও মূত্র রোগে উপকার পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ প্রস্রাবে ইনফেকশনের লক্ষণ, কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার, পিত্তথলির পাথর হওয়ার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

যৌন শক্তি বাড়ায়ঃ সহবাসের ইচ্ছা কমে গেলে চায়ের সাথে দারুচিনি ও দুধ মিশিয়ে রান্না করে ১৫-২০ মিলি পান করলে যৌন শক্তি বৃদ্ধি পায়। যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে চায়ের উপকারিতা অসংখ্য।

বার্নের জন্যঃ আগুন, গরম পানি, গরম তেল ইত্যাদিতে শরীরের কোনো অংশ পুড়ে গেলে চা মিশ্রিত ফুটন্ত পানি বা ক্বাথ ঠাণ্ডা করার পর একটি কাপড়ের ফালা ভিজিয়ে সেই জায়গায় রেখে দিন এবং একই ক্বাথ বারবার লাগান। অল্প অল্প করে লাগালে ত্বকে ফোস্কা পড়ে না এবং ত্বকে দাগ পড়ে না।

প্রদাহেঃ আঘাতের কারণে যদি ফুলে যায় তবে চা পিষে আক্রান্ত স্থানে লাগালে ফোলা কমে যায়।

গ্র্যান্ডুলার ফোলাতেঃ চা পাতা রান্না এবং পিষে সেবন করলে গ্রন্থি বা গ্রন্থির ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করে।

মজবুত ও চকচকে চুলের জন্যঃ চুল ঝলমলে করতে এবং মজবুত রাখতে চা ব্যবহার উপকারী, কারণ গবেষণা অনুযায়ী চা চুলের টনিক হিসেবে কাজ করে।

আরো পড়ুনঃ ত্বকের জন্য চা গাছের তেলের উপকারিতা ও ব্যবহার

রোদে পোড়া দাগের চিকিৎসায়ঃ চায়ের ব্যবহার রোদে পোড়া প্রদাহের উপর ভাল কাজ করে কারণ একটি গবেষণা অনুসারে, চা রোদে পোড়া প্রদাহ দূর করে ত্বকের খারাপ হওয়া রোধ করতে সাহায্য করে।

ব্রণ থেকে মুক্তি পেতেঃ ব্রণের সমস্যা দূর করতে চায়ের ব্যবহার উপকারী, কারণ চায়ে প্রদাহ কমানোর গুণ রয়েছে, যা ব্রণের সমস্যা কমাতে সাহায্য করে।

সুস্থ হার্টের জন্যঃ চা হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে, কারণ চায়ে পাওয়া বিশেষ উপাদান হার্ট সংক্রান্ত সমস্যা থেকে রক্ষা করে।

মস্তিষ্ক ভালো রাখতেঃ একটি গবেষণা অনুসারে, চা তে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়, যা মস্তিষ্কের জন্য উপকারী।

পাচনতন্ত্রকে শক্তিশালী করতেঃ গ্রিন টি ব্যবহার সঠিক হজম শক্তি বজায় রাখতে সাহায্য করে, তাই গ্রিন টি ব্যবহার করতে পারলে হজম শক্তির উন্নতি ঘটবে।

কিভাবে চা ব্যবহার করা উচিত?

রোগের জন্য চা খাওয়া ও ব্যবহারের পদ্ধতি আগেই বলা হয়েছে। আপনি যদি কোনো বিশেষ রোগের চিকিৎসার জন্য চা ব্যবহার করেন, তাহলে অবশ্যই একজন আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ১০-১৫ মিলি চায়ের ক্বাথ সেবন করা যেতে পারে।

কালো চায়ের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

বুকের দুধ খাওয়ানো মহিলাদের খুব বেশি চা খাওয়া উচিত নয়। বেশি পরিমাণে চা খাওয়ার কারণে শিশুরা বেশি ঘুমাতে শুরু করে। এর অত্যধিক সেবনে অম্বল বা এসিডিটি, অনিদ্রা এবং ক্ষুধামন্দার মতো উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (16 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button