হেয়ার স্টাইল

শুষ্ক চুলের যত্ন নেয়ার সঠিক নিয়ম

আপনি যখন আপনার চুল স্পর্শ করেন তখন কি আপনি শুষ্ক, ক্ষতিগ্রস্ত এবং প্রাণহীন বোধ করেন? যদি তাই হয়, তাহলে আপনার চুলের বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হবে। শুষ্ক চুলের জন্য বিশেষ হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করার আগে আপনার চুলের শুষ্কতার পেছনের কারণ কী তা জেনে নেওয়া জরুরি। একবার আপনি আপনার শুষ্ক চুলের কারণ জানতে পারলে সঠিক উপায়ে শুষ্ক চুলের যত্ন নেয়া আপনার জন্য সহজ হবে।

শুষ্ক চুল কি?

শুষ্ক চুল দেখা দেয় যখন আপনার চুল পর্যাপ্ত আর্দ্রতা না পায়। চুল তার সকল পুষ্টি গুণ হারায় এবং ঝরঝরে হয়ে প্রাণহীন দেখায়। শুষ্ক চুল যেকোন বয়সের পুরুষ এবং মহিলাদের ঘটতে পারে, তবে এটি সাধারণত তখনই ঘটে যখন বার্ধক্য শুরু হয়।

আপনার চুলে তিনটি স্তর আছে। সুস্থ চুলের বাইরের স্তরে প্রাকৃতিক তেল থাকে যা ভেতরের স্তরকে রক্ষা করে। এটি চুলেকে চকচকে করে এবং আপনার চুলকে সুন্দর দেখায়। আপনার চুল শুকিয়ে গেলে, বাইরের স্তর ভেঙ্গে যায় এবং আপনার চুলকে প্রাণহীন এবং অস্বাস্থ্যকর দেখায়।

শুষ্ক চুলের লক্ষণ

শুষ্ক চুল স্পঞ্জের মতো জল শুষে নেয়, এতে কোনো জল থাকে না।
স্পর্শ করলে রুক্ষ অনুভুত হয় এবং অনেক ভেঙে যায়।
যদি আপনার চুল একটি নির্দিষ্ট স্টাইল বা রঙ ধরে না রাখে তবে এটি শুষ্ক চুলের একটি বৈশিষ্ট্য হতে পারে।
কিছু ক্ষেত্রে, শুষ্ক চুলও প্রচুর খুশকির কারণ হতে পারে।
শীতকালে শুষ্ক চুল আরও প্রাণহীন ও শুষ্ক হয়ে যায়।

শুষ্ক চুলের কারণ

আপনার মাথার ত্বকে পর্যাপ্ত তেল তৈরি না হলে আপনার চুল শুকিয়ে যায়। প্রতিটি সুস্থ চুলের একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর থাকে যাকে কিউটিকল বলা হয় । এটি কিউটিকল যা আপনার চুলকে সূর্যের ক্ষতি থেকে রক্ষা করে। যখন আপনার চুল স্বাস্থ্যকর হয়, তখন কিউটিকল স্তর টানটান থাকে এবং এটি যথেষ্ট আর্দ্রতা ধরে রাখে। কিন্তু যখন কিউটিকল স্তর আপনার চুল থেকে দূরে সরে যায়, তখন এটি আর আর্দ্রতা ধরে রাখতে পারে না।

শুষ্ক চুলের প্রধান কিছু কারণ হলঃ

  • বার্ধক্য
  • খুব ঠান্ডা বা গরম আবহাওয়া
  • ক্লোরিনযুক্ত জলে সাঁতার কাটা
  • খুব দ্রুত চুল ধোয়া
  • কঠোর শ্যাম্পু
  • ঘন ঘন ঘা শুকানো, সোজা করা বা কোঁকড়ানো
  • চুলে রং করা বা কেমিক্যাল ট্রিটমেন্ট নেওয়া
  • ধূমপান

শুষ্ক চুলের চিকিৎসা

শুষ্ক চুল ঠিক করতে, কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাথায় রাখুনঃ

নিয়মিত চুল ছাঁটাঃ আপনার চুল ছাঁটা শুষ্ক চুল ঠিক করার একটি সহজ এবং কার্যকর উপায়। আপনার চুলকে সুন্দর দেখাতে এবং একই সাথে এতে আর্দ্রতা ধরে রাখতে, নিয়মিত বিরতিতে চুল কাটা গুরুত্বপূর্ণ। এটি বিভক্ত প্রান্তগুলিও সরিয়ে দেয় এবং আপনার ক্ষতিগ্রস্থ এবং শুষ্ক চুল মেরামত করে।

সিল্কের বিছানার চাদর এবং বালিশের কভারঃ আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন যে আপনার বিছানার চাদর আপনার শুষ্ক চুলের অন্যতম কারণ হতে পারে? অনেক গবেষণায় দেখা গেছে সুতির বিছানার চাদর এবং বালিশের কভার আপনার চুল থেকে আর্দ্রতা বের করে এবং আপনার চুলকে শুষ্ক ও প্রাণহীন করে।

আপনার সিল্কের বালিশের কভারে ঘুমানো উচিৎ। এটি আপনার চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনে। আপনি যদি সুতির কাপড় ছাড়া সিল্কের বিছানার চাদর বা বালিশের কভারে ঘুমাতে না পারেন তবে আপনি আপনার চুলে হালকাভাবে সিল্কের স্কার্ফ বেঁধে ঘুমাতে পারেন।

ডিপ কন্ডিশনারঃ প্রোটিন, ময়েশ্চারাইজিং তেল এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের মতো কন্ডিশনার উপাদান সহ পণ্য ব্যবহার করা শুরু করুন। এটি আপনার চুলে তেলের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনবে। এর সাহায্যে চুলের সিবামও ঠিক থাকবে এবং আপনার চুল সামলানো যাবে। ডিপ কন্ডিশনার বেশি ঘনীভূত হয় এবং চুলে বেশিক্ষণ থাকে।

গ্রেট স্ট্রং ডায়েটঃ শুষ্ক চুলের চিকিৎসার জন্য, আপনার ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার খাদ্যতালিকায় মাশরুম, সয়া, টক দই এবং দুধের মতো খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন। বায়োটিন-সমৃদ্ধ এবং টক জিনিস যেমন হ্যাজেলনাট এবং ডিম, লাল মরিচ, স্যামনও আপনার চুলকে রক্ষা করে। ব্রকলি, টমেটো, মটরশুটি, নীল বেরি এবং আখরোট খাওয়া শুষ্ক চুলকে পুনরুজ্জীবিত করে।

শুষ্ক চুলের যত্ন নেয়ার ঘরোয়া উপায়

গরম তেল ব্যবহারঃ নারিকেল তেল চুলের জন্য একটি দুর্দান্ত ইমোলিয়েন্ট হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি করার জন্য, আপনাকে নারিকেল তেল গরম করতে হবে এবং আপনার মাথার ত্বকে কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করতে হবে। এটি শুষ্ক চুলের চিকিৎসার একটি দুর্দান্ত এবং কার্যকর উপায়।

আপনি চাইলে আরগান তেল, পেপারমিন্ট তেল এবং ল্যাভেন্ডার তেলও ব্যবহার করতে পারেন। আপনি নারকেল তেলের মতো ক্যারিয়ার তেলের সাথে একটি অপরিহার্য তেল মেশাতে পারেন। এটি একটি সুগন্ধি হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। যখনই আপনার চুল শুকিয়ে গেছে মনে হবে আপনি এটি স্প্রে করতে পারেন।

ব্যবহারঃ প্রথমে আপনার পছন্দের নারিকেল তেল বা তেল গরম করুন। আপনি চাইলে এতে কিছু এসেনশিয়াল অয়েলও যোগ করতে পারেন। এবার তুলোর সাহায্যে মাথার ত্বকে ভালো করে লাগান। হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন। আপনি চাইলে মাথার ত্বকে এবং চুলে সারারাত তেল রেখে দিতে পারেন। পরদিন আপনার চুল কোমল শ্যাম্পুর সঙ্গে ধোয়া উপযুক্ত।

ডিমের মাস্কঃ হেয়ার মাস্কগুলি প্রাকৃতিক তেল এবং উপাদান দিয়ে সমৃদ্ধ হয় যা শুষ্ক চুলে আশ্চর্যজনকভাবে কাজ করে। এবং যখন ডিম দিয়ে তৈরি হেয়ার মাস্কের কথা আসে, এটি আপনার শুষ্ক চুলে জাদুর মতো কাজ করে। এটি আপনার চুলকে পুষ্ট করার পাশাপাশি সতেজ করে। ভিটামিন এ এবং ভিটামিন ই সহ বায়োটিন এবং ফোলেট সমৃদ্ধ ডিম চুল নরম করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি আপনার চুল লম্বা করতেও সাহায্য করে।

ব্যবহারঃ একটি প্যানে 2টি ডিম ফেটে নিন।
এবার এতে ১ চা চামচ ভিনেগার, ১ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ অলিভ অয়েল মেশান।
এছাড়াও এতে ২ চা চামচ লেবুর রস যোগ করুন।

এই উপাদানগুলো মিশিয়ে একটি ভালো মিশ্রণ তৈরি করুন।
এটি আপনার চুলে লাগান এবং প্রায় আধা ঘন্টা রেখে দিন।
পরে সাধারণ পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

মাখনঃ আমরা সকলেই জানি যে মাখনে এত বেশি আর্দ্রতা রয়েছে যে এটি যেকোনো কিছুকে নরম এবং মসৃণ করে তুলতে পারে। এই প্রসঙ্গে, শুষ্ক চুলের চিকিৎসায় মাখন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এটি প্রয়োগ করার সঠিক উপায় সম্পর্কে জানা প্রয়োজন।

ব্যবহারঃ চুল ভেজা। এবার তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন।
ভেজা চুলের প্রান্তে মাখন লাগান।
চুলগুলোকে বড় ভাগে ভাগ করুন এবং মাখন ভালো করে ম্যাসাজ করুন।
আপনার চুল মাখন দিয়ে যেন আর্দ্র করা হয় তা নিশ্চিত করুন।

এটি চুলে 20 থেকে 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
এবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।
খেয়াল রাখবেন মাথার ত্বকে যেন মাখন না লাগে।

কলাঃ এতক্ষণে আমরা সবাই জানি যে কলায় অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তারা আপনার শুষ্ক চুলকে আর্দ্রতা এনে নরম করতে কাজ করে। এটি ব্যবহারে চুল সুস্থ থাকে এবং ঝরঝরে ভাবও কমে যায়। অনেক সময় শুষ্ক চুলে খুশকি হয়, যা কলা ব্যবহারে কমে যায়। আপনার চুল হয়ে ওঠে চকচকে এবং সুন্দর।

ব্যবহারঃ একটি পাত্রে একটি ছোট কলা নিন এবং কাঁটাচামচের সাহায্যে এটি ভালভাবে ম্যাশ করুন।
এবার এতে ২ বা ৩ চামচ মধু এবং একই পরিমাণ দুধ ও অলিভ অয়েল মেশান।
একটি ডিম ফাটিয়ে মেশান।

সব উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
চুলে সমানভাবে লাগান।
আধা ঘণ্টা চুলে লাগিয়ে রাখুন।
তারপর সাধারণ জল দিয়ে পরিষ্কার করুন এবং একটি হালকা শ্যাম্পু করুন।

শুষ্ক চুলের সমাধান

চুলের শুষ্কতা এড়াতে আপনাকে কিছু প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। এইগুলি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলি হলো:

প্রতিদিন চুল ধুবেন নাঃ প্রতিদিন আপনার চুল ধোয়া এড়িয়ে চলুন। কঠোর শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না কারণ তারা আপনার মাথার ত্বক থেকে প্রাকৃতিক তেল বের করে দেয় এবং আপনার চুলকে শুষ্ক করে তোলে। তাই আপনার চুলকে শুষ্ক হওয়া থেকে বাঁচাতে আপনার হালকা শ্যাম্পু ব্যবহার করা উচিৎ, তাও প্রতিদিন নয়।

তোয়ালে দিয়ে চুল মোড়াবেন নাঃ আপনার চুল তোয়ালে দিয়ে বেঁধে রাখার চেয়ে বাতাসে শুকিয়ে যাওয়া ভালো। আপনি যদি ভেজা চুলে ঘুমাতে চান, তাহলে সিল্ক বা সাটিন বালিশের কভার ব্যবহার করুন, যা আপনার চুলের সমস্ত আর্দ্রতা বের করতে পারবে না।

ঠান্ডা জল দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুনঃ গরম পানি দিয়ে চুল ধুলে মাথার ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। তাই, খুব ঠান্ডা আবহাওয়া হলেও শেষবারের মতো ঠান্ডা জল দিয়ে চুল ধোয়ার চেষ্টা করুন।

শক্তিশালী সূর্যালোক এবং দূষণ থেকে দূরে থাকুনঃ অতিবেগুনী রশ্মি এবং দূষণ আপনার চুলের উপর একই প্রভাব ফেলে যেমন তারা আপনার ত্বকে করে। আপনার চুলকে দোপাট্টা বা টুপি দিয়ে রক্ষা করার চেষ্টা করুন যাতে আপনার চুল থেকে প্রাকৃতিক তেল বেরিয়ে না যায়।

হিট স্টাইলিং পণ্য এড়িয়ে চলুনঃ আমরা সকলেই আমাদের চুলের স্টাইল করতে পছন্দ করি, তবে হিট স্টাইলিং পণ্য যেমন স্ট্রেটেনিং, কার্লিং, পার্মিং এবং অ্যালকোহল ভিত্তিক পণ্য ব্যবহারে চুল শুষ্ক হয়ে যেতে পারে।

রঙিন রাসায়নিকঃ কালারিং এজেন্টের রাসায়নিক আপনার চুল থেকে প্রাকৃতিক তেল শোষণ করে। নিয়মিত রং ব্যবহারে কিছুদিন পর আপনার চুল শুষ্ক ও ঝরঝরে হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে কয়েকদিন শ্যাম্পু থেকে দূরে থাকতে হবে এবং রং করার পর কন্ডিশনার লাগাতে হবে ।

উপসংহার

জীবনধারা পরিবর্তন করে এবং বিশেষভাবে চুলের যত্ন নেওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার শুষ্ক চুলের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে পারবেন। আপনার ডায়েটে কিছু খাবার অন্তর্ভুক্ত করে, আপনি আপনার চুলের শুষ্কতা দূর করে উজ্জ্বলতা এবং স্বাস্থ্য ফিরে পেতে পারেন। কিছু বিশেষ ঘরোয়া প্রতিকার যা এই পোস্টে আলোচনা করা হয়েছে, আপনার খুব কাজে লাগবে এবং আপনার শুষ্ক ও প্রাণহীন চুলকে পুনরুজ্জীবিত করতে কাজ করবে।

5/5 - (25 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button