হেয়ার স্টাইল

চিরতরে চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

মেয়ে বা ছেলে, পুরুষ বা মহিলা, সবাই স্মার্ট দেখতে চায় এবং এর জন্য আপনার চুলের স্টাইল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমান জীবনযাত্রায় চুল পড়া একটি সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সবাই চুলের সমস্যার সমাধান চায় এবং এর জন্য চুলের চিকিৎসা থেকে শুরু করে ঘরোয়া প্রতিকারের চেষ্টা করে।

চুল পড়া রোধে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়ার পরও ঝরে পড়া চুল রোধ পারছেন না অনেকেই। আজ আমরা আপনাদের বলব কেন চুল পড়ে। এছাড়াও, আপনি চুল পড়া রোধ করার কিছু সহজ উপায় জানবেন। আপনি যদি সময়মতো সেগুলো ট্রাই করেন, তাহলে আশা করি আপনি আপনার ‘স্মার্টনেস’ আরও বাড়াতে পারবেন।

চুল পড়া কি?

চুল পড়াকে অ্যালোপেসিয়াও বলা হয়। নারী-পুরুষ উভয়েরই চুল পড়ে তবে পুরুষদের ক্ষেত্রে এর প্রভাব বেশি দেখা যায় এবং এই সমস্যা টাক হয়ে যায়। মাথা থেকে পুরো শরীরে চুল পড়তে পারে, তবে সাধারণত একজন মহিলা বা পুরুষ যখন তার মাথার চুল দ্রুত পড়তে শুরু করে তখন এটিকে গুরুত্ব সহকারে নেয়।

যদিও 40 বছর বয়সের পরে চুল পড়া একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া, কিন্তু অল্প বয়সে অর্থাৎ 40-এর আগে চুল দ্রুত পড়ে গেলে আপনাকে সতর্ক হতে হবে। আপনার যদি ঘন চুল থাকে তবে দিনে 50 থেকে 100 চুল পড়া স্বাভাবিক, কারণ নতুন চুল পুরানো চুলের বদলে নেয়। কিন্তু এটা সবসময় হয় না।

অনেক সময় চুল পড়ে যায়, কিন্তু নতুন চুল তার জায়গা নেয় না। অনেকের ক্ষেত্রে এটি ধীরে ধীরে ঘটে, তাই তারা দেরিতে জানতে পারে। অনেকের চুল দ্রুত পড়ে যায় এবং কয়েক মাসের মধ্যেই মাথার ত্বক দেখা যায়। এমন পরিস্থিতিতে চুল পড়ার কারণ জানার আগেই বেশিরভাগ মানুষই এর সমস্ত প্রতিকার শুরু করে দেন।

চুল পড়ার কারণ

চুল পড়ার কারণগুলি আপনার শরীর এবং মনের স্বাস্থ্যের সাথে সম্পর্কিত৷ যদি আপনার চুল দ্রুত পড়ে যায় তবে আপনি নিজেই চুল পড়ার কারণটি মূল্যায়ন করতে পারেন৷

চুল পড়ার প্রধান কারণ হল জেনেটিক্স। অর্থাৎ, যদি আপনার পরিবারে টাক পড়ার ইতিহাস থাকে, তবে এটিও আপনার মাথার ত্বকের চুল পড়ার একটি কারণ। আপনি এটাকে এভাবেও বুঝতে পারবেন যে আপনার বাবা বা মায়ের পরিবারের বেশির ভাগ লোকের যদি অকালে চুল পড়ে থাকে, তাহলে আপনার চুলও এর কারণে পড়ে যাচ্ছে।

অনেক সময় চুলের বৃদ্ধি কিছু সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যায় এবং এর কারণেও চুল পড়ে। এটি সাধারণত কিছু গুরুতর অসুস্থতা বা অস্ত্রোপচারের পরে ঘটে। এমতাবস্থায় রোগী সুস্থ হওয়ার পর তার চুলের বৃদ্ধিও বেগ পেতে থাকে।
চুল পড়ার সমস্যা মহিলাদের মধ্যে গর্ভাবস্থায়, প্রসবের সময় এবং তার পরে কিছু সময়ের জন্য এবং এমনকি মেনোপজের পরেও দেখা যায়।

থাইরয়েড বা মাথার ত্বকে সংক্রমণের কারণেও চুল পড়ে।

এছাড়াও যারা ক্যান্সার, বিপি, হৃদরোগ, বিষণ্নতা এবং আর্থ্রাইটিসের ওষুধ খান তাদের মধ্যেও চুল পড়ার সমস্যা দেখা যায়।

জানলে অবাক হবেন যে অনেক সময় ‘ইমোশনাল শক’ পাওয়ার পরেও চুল পড়া শুরু হয়। যেমন পরিবারের কাছের কেউ মারা গেলে।

জীবনযাত্রার পরিবর্তনে ডায়েটও চুল পড়ার কারণ। খাবারে প্রোটিন, আয়রন ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের অভাব থাকলে চুল পড়া ও চুল পাতলা হওয়ার সমস্যাও দেখা যায়।

চুল পড়ার চিকিৎসা

অনেকেই চুল পড়াকে গুরুত্বের সাথে নেন না এবং চুল পড়া শুরু হলে দু-চারটি প্রতিকার চেষ্টা করেই বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু মাত্র কয়েকদিন কোনো চিকিৎসাই কাজ করে না। এটি বিভিন্ন স্তরে করা হয়। সবার আগে আপনার চুলের ধরন জানা জরুরী । আমরা যা বলতে যাচ্ছি তা আপনার চুল পড়া বন্ধ করতে খুব কার্যকর হবে।

খুব দ্রুত চুল পড়লে চিকিৎসা নেওয়া যেতে পারে। এটি অ্যালোপ্যাথি থেকে হোমিওপ্যাথি আকারে বিদ্যমান। হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা দীর্ঘকাল স্থায়ী হয়। আমরা আপনাকে এমন দুটি ওষুধের কথা বলছি, যা সারা বিশ্বে চুল পড়া নিরাময়ে ব্যবহৃত হচ্ছে। আপনি ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরেও সেগুলি নিতে পারেন।

চুল পড়া বন্ধ করার ঔষুধ

মিনোক্সিডিল (মিনোক্সিডিল): এন্ড্রোজেনেটিক অ্যালোপেসিয়া পুরুষ ও মহিলাদের চুল পড়ার অন্যতম প্রধান কারণ। এটি একটি জেনেটিক ধরনের চুল পড়া যার পারিবারিক ইতিহাস রয়েছে। এই কারণে, পুরুষদের মধ্যে, চুল পড়া শুরু হয় 20 বছরের কম বয়সে। এমনকি মহিলাদের ক্ষেত্রে 40 বছর বয়স পর্যন্ত চুল পড়া শুরু হয়।

এ অবস্থায় মিনোক্সিডিল নামক ওষুধ দেওয়া হয়। বিশেষ বিষয় হল এই ওষুধটি উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসায়ও ব্যবহৃত হয়। কিন্তু এই ওষুধটি ব্যবহার করার পর যদি আপনি চোখে জ্বালাপোড়া, চুলকানি , ফুসকুড়ি, মাথাব্যথা বা মুখ ফুলে যাওয়া ইত্যাদি অনুভব করেন, তাহলে ওষুধটি বন্ধ করুন। গর্ভবতী মহিলাদেরও এটি গ্রহণ করা উচিত নয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ ব্যবহার করবেন না।

ফিনাস্টারিড: বিশ্বব্যাপী, এই ওষুধটি পুরুষদের টাকের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হচ্ছে। এই ওষুধটি সম্পর্কে কিছু গবেষণাও করা হয়েছে, যেখানে এটি প্রকাশ করা হয়েছে যে ফিনাস্টারাইড গ্রহণকারী কিছু লোকের চুল পুনরায় বৃদ্ধি পায়। তবে বিশেষ বিষয় হল ফিনাস্টেরাইড চুল বা মাথার ত্বকে প্রভাব ফেলে না।

এই ওষুধটি DHT অর্থাৎ শুষ্ক হাইড্রোটেস্টোস্টেরন নামক হরমোনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এই হরমোন বৃদ্ধির কারণে পুরুষদের চুলের গোড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং চুল ভেঙ্গে যেতে থাকে। DHT-এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, চুল ভাঙা কম হয় এবং তাদের বৃদ্ধি শুরু হয়। তবে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া এই ওষুধটি ব্যবহার করবেন না।

চুল পড়া বন্ধ করার চিকিৎসা

যাদের চুল সম্পূর্ণ বা মাথার কিছু অংশ হারিয়ে গেছে তাদেরও আবার চুল গজাতে পারে। এটি চুল প্রতিস্থাপনের আকারে বিভিন্ন উপায়ে পাওয়া যায়। তাহলে আসুন তাদেরও জেনে নেওয়া যাক।

স্টেম সেল থেরাপি: মাথার ত্বকে অবস্থিত ফলিকল থেকে মানুষের চুলের বৃদ্ধি শুরু হয়। যখন এই ফলিকলগুলি মৃত হয়ে যায়, তারা নতুন চুল গজাতে দেয় না। এই ফলিকলগুলি স্টেম সেল থেরাপিতে উদ্দীপিত হয়। এটি নতুন ফলিকল তৈরি করে এবং চুলের বৃদ্ধি শুরু করে। এই থেরাপি তিন থেকে চার মাসের মধ্যে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে এবং অন্যান্য থেরাপির চেয়ে বেশি কার্যকর ও নিরাপদ। এটি পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়।

নিবিড় চুলের রুট থেরাপি: এই থেরাপিতে প্রথমেই খুঁজে পাওয়া যায় কী কারণে চুল পড়ে। এরপর চুলের প্রয়োজনীয় পুষ্টি ওষুধ আকারে সরাসরি চুলের গোড়ায় প্রবেশ করানো হয়। এর জন্য মাইক্রোইনজেকশন ব্যবহার করা হয় এবং এতে কোনো ব্যথা হয় না। এই চিকিৎসার দুই থেকে তিন মাস পর নতুন চুল গজাতে শুরু করে।

লেজার হেয়ার ট্রিটমেন্ট: জেনেটিক কারণে চুল পড়ার ক্ষেত্রে এই চিকিৎসাটি বেশি ব্যবহৃত হয়। এই চিকিৎসা মাথার ত্বকে রক্ত ​​​​সঞ্চালনকে ত্বরান্বিত করে এবং চুলের ফলিকলের বিপাক বৃদ্ধি করে। এর পর চুলের বৃদ্ধি শুরু হয়। সাধারণত মাথার একটি নির্দিষ্ট অংশে চুল পড়ার জন্য এই চিকিৎসা নেওয়া হয়।

চুল প্রতিস্থাপন: যাদের চুল পড়ে গেছে বা দ্রুত চুল পড়ায় সমস্যায় পড়েছেন তারা প্রায়ই চুল প্রতিস্থাপন করেন। গত কয়েক বছরে, এটি টাকের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় চিকিৎসা হয়ে উঠেছে। মাথার ত্বক কমানো চুল প্রতিস্থাপনের প্রাচীনতম পদ্ধতি। যাদের মাথার পিছনে বা পাশে সূক্ষ্ম চুল আছে এবং মাঝখানে চুল নেই, এই চিকিৎসাটি ব্যবহার করা হয়।

এতে যেখানে লোম নেই, সেখানে স্ক্যাল্প সরিয়ে মাথার তালু বা ত্বকে লাগানো হয়, যেখানে চুলের বৃদ্ধি হয়। এটি চুল প্রতিস্থাপনের প্রাচীনতম পদ্ধতিগুলির মধ্যে একটি। সময়ের সাথে সাথে চুল প্রতিস্থাপনের আরও পদ্ধতি এসেছে। আপনার কোন চিকিৎসার প্রয়োজন হবে তা ডাক্তারই নির্ধারণ করবেন।

চুল পড়া বন্ধ করার ঘরোয়া উপায়

চুল পড়া বন্ধ করতে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে অনেক ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আমরা আপনাকে এমন কিছু প্রতিকার বলতে যাচ্ছি, যেগুলি লাভজনক এবং চেষ্টা করা সহজ।

আমলকিঃ আমলকি চুলের বৃদ্ধি ও সৌন্দর্য বাড়াতে ঐতিহ্যবাহী হেয়ার টনিক হিসেবে কাজ করে। এর ফল থেকে প্রাপ্ত তেল চুলকে মজবুত করে এবং তাদের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করে।

ব্যবহারের নিয়ম

  • আমলকি টুকরো করে কেটে রোদে শুকিয়ে নিন।
  • ভালো করে শুকিয়ে গেলে নারকেল তেলে কিছু টুকরো দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন।
  • এই তেল ঠান্ডা হয়ে গেলে চুলে লাগিয়ে রাখুন।
  • এটি চুল পাকা রোধ করতেও কাজ করে।

এছাড়াও রাতে পানিতে আমলকির শুকনো টুকরো ভিজিয়ে রাখতে পারেন। পরদিন সকালে চুলের গোড়ায় এর পানি লাগান। এটি চুলেও পুষ্টি যোগায়।

আরো পড়ুনঃ আমলকির উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম

মেথিঃ শীতকালে মেথি শাক অবশ্যই খেয়ে থাকবেন। এই গাছের বীজ হলুদ এবং বাদামী মিশ্রিত হয়। এগুলো চুল পড়া বন্ধ করতে ব্যবহার করা হয়।

ব্যবহারের নিয়ম

  • এক বা দুই চামচ মেথি দানা সারারাত ভিজিয়ে রাখুন।
  • সকালে পিষে চুলের গোড়ায় লাগান।
  • এক ঘণ্টা পর চুল ধুয়ে ফেলুন।
  • সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার লাগালে চুল পড়া বন্ধ হয়।

আরো পড়ুনঃ মেথির উপকারিতা ও অপকারিতা

তেল মালিশঃ ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে এর ম্যাসাজ বা ম্যাসাজ খুবই জরুরি। আমাদের চুল এবং মাথার ত্বকেও অনুরূপ কিছু প্রয়োজন। তেল দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করলে শুধু মাথার ত্বকে আর্দ্রতা পাওয়া যায় না, চুলের গোড়াও মজবুত হয়। এতে রক্ত ​​সঞ্চালন ও চুলের বৃদ্ধি বাড়ে। এতে খুশকি থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।

ব্যবহারের নিয়ম

  • সরিষা, নারকেল এবং জলপাই তেল সাধারণত চুল এবং মাথার ত্বকের ম্যাসেজের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • গ্রীষ্মে, স্বাভাবিক তাপমাত্রায় তেল লাগান এবং নারকেল তেল দিয়ে মালিশকে অগ্রাধিকার দিন।
  • গরমে সরিষা ও অলিভ অয়েল সামান্য গরম করে ব্যবহার করুন।
  • মনে রাখবেন, হালকা হাতে তেল মালিশ করুন। চুল টানবেন না। এটি তাদের ভেঙ্গে ফেলবে।

মহিলাদের সপ্তাহে প্রায় দুই দিন মাথায় মালিশ করা উচিত। পুরুষরা সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন হালকা তেল দিয়ে ম্যাসাজ করতে পারেন।

পেঁয়াজের রসঃ মাথার ত্বকে কাঁচা পেঁয়াজের রস ব্যবহার চুলের পুনরাগমনে উপকারী। পেঁয়াজের রসের ব্যবহার অ্যালোপেসিয়া এরিয়াটাতে (চুল পড়া অবস্থায়) উপকারী হতে পারে। [ 4 ]

ব্যবহারের নিয়ম

  • পেঁয়াজ খোসা ছাড়ার পর মিক্সারে পিষে নিন।
  • এবার মিশ্রণটি চালুনি দিয়ে আলাদা করে নিন।
  • এই মিশ্রণটি তুলোর সাহায্যে চুলের গোড়ায় লাগান।
  • খুশকির সমস্যা থাকলে পেঁয়াজের রসের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে লাগালে উপকার পাওয়া যাবে।

আপনি সপ্তাহে প্রায় দুই দিন এটি চেষ্টা করতে পারেন। বাকি মিশ্রণটি একটি কাচের শিশিতে ভরে ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন।

শিকাকাইঃ প্রাচীনকাল থেকেই চুলের যত্নে শিকাকাই ঐতিহ্যগতভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি আয়ুর্বেদিক ঔষধি গাছগুলির মধ্যে একটি। এটি প্রস্তুত করতে, গাছের মটরশুটি, পাতা এবং বাকল শুকিয়ে তারপর এর গুঁড়া বা পেস্ট তৈরি করা হয়। এটি একটি ভাল ক্লিনজার হিসাবে বিবেচিত হয়। এটি স্বাভাবিকভাবেই কম পিএইচ, এবং চুল থেকে তেল বের করে না।

ব্যবহারের নিয়ম

  • শিকাকাই তেল, শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার আকারে চুলে প্রয়োগ করা হয়।
  • আমলা ও রিঠার সাথে মিশিয়েও ব্যবহার করা হয়।
  • শিকাকাই পাউডার যেকোনো চুলের তেল, দই বা ডিমের সঙ্গে মিশিয়ে চুলে লাগাতে পারেন।

চুল পড়া রোধে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় – (How to Prevent Hair Fall)

সঠিক ডায়েট

যেকোন শারীরিক সমস্যার ভালো চিকিৎসার জন্য সঠিক ডায়েট সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং চুল পড়ার ক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য।

শাকসবজি এবং সালাদ: আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাক-সবজি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। সপ্তাহে তিন দিনের বেশি খাবারে সালাদ যোগ করুন।

আজওয়াইন এবং তুলসি: একই সাথে, আজওয়াইন এবং তুলসিকে খাবারের একটি অংশ করুন। তুলসী চা পান করতে পারেন। এই দুটি জিনিসই আপনার পেটের জন্য উপকারী, যা আপনার স্বাস্থ্যকর চুলের সাথেও সম্পর্কিত।

আরো পড়ুনঃ তুলসী পাতার উপকারিতা

প্রোটিন: খাদ্যতালিকায় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। প্রোটিন ডিম, মাছ ও মুরগি থেকে পাবেন। আপনি যদি নিরামিষভোজী হন, তাহলে চিনাবাদাম, কম চর্বিযুক্ত দুগ্ধজাত পণ্য, লেবু এবং সবুজ মটর ব্যবহার বাড়ান।

ভিটামিন: ভালো চুলের বৃদ্ধির জন্য ভিটামিন এ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পালং শাক এবং মিষ্টি আলু এর দুর্দান্ত উৎস। এগুলো সবজি হিসেবে খেতে পারেন। চিকিৎসকদের মতে, ভিটামিন এ, বি, সি, ডি আয়রন এবং জিঙ্ক চুলের ভালো বৃদ্ধি ও মজবুত করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার পর আপনি মাল্টিভিটামিন ক্যাপসুল খেয়ে তাদের ঘাটতি পূরণ করতে পারেন।

সকালে উষ্ণ রোদঃ সকালে হালকা গরম রোদে কিছুক্ষণ বসুন। চুল ভেজা থাকলে আঁচড়াবেন না, সকালের রোদে শুকিয়ে নিন। এটি চুলে ভিটামিন ডি দেবে।

চিকিৎসা এড়িয়ে চলুনঃ মেশিনে চুল কুঁচকানো বা সোজা করা ছোট করুন বা বন্ধ করুন। এ কারণে চুল দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ভাঙতে শুরু করে। চুলের রঙের মতো যেকোনো ধরনের রাসায়নিক চিকিৎসা এড়িয়ে চলুন। আপনি যদি চুলে রঙ করতে চান তবে এমন রঙ চয়ন করুন যাতে অ্যামোনিয়া ব্যবহার করা হয় না।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন

আমরা কি জেনেটিক চুল পড়া রোধ করতে পারি?

জেনেটিক কারণে চুল পড়া বন্ধ করা যাবে না। হ্যাঁ, বিভিন্ন প্রতিকার অবলম্বন করে এই প্রক্রিয়াটিকে ধীর করা যেতে পারে। ওষুধ সেবনের মাধ্যমে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমানো যায়, কিন্তু হরমোন বৃদ্ধির কারণে যেসব লোমকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের জন্য কিছুই করা যায় না।

প্রতিদিনের চুল পড়া কি বিপদের লক্ষণ?

চুল পড়া এবং নতুন চুল প্রতিস্থাপন একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। যদি আপনার মাথায় এক লাখ চুল থাকে এবং তার মধ্যে প্রতিদিন 50 থেকে 100 চুল পড়ে, তাহলে এটাই স্বাভাবিক। হ্যাঁ, যদি চুল বেশি পরিমাণে পড়ে এবং খুব দ্রুত এবং সেই সংখ্যায় নতুন চুল না আসে, তবে আপনার সতর্ক হওয়া উচিত।

তেল লাগালে কি চুল পড়া কমে?

এটা নির্ভর করে চুল পড়ার কারণ কি। চুল পড়ার কারণ যদি মানসিক চাপ, হরমোনের পরিবর্তন বা জেনেটিক্স হয়, তাহলে তেল লাগালে সামান্যই উপকার পাওয়া যাবে। তবে হ্যাঁ, তেলের আর্দ্রতা চুল এবং মাথার ত্বককে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। সময় সময় চুলে তেল মালিশ করা প্রয়োজন।

চুল গজানোর পর কি আবার পড়ে যেতে পারে?

অনেক ক্ষেত্রে কয়েক মাস পর এমনটা দেখা গেছে। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে কিছু সময় পর স্থায়ী টাক পড়ে।

উপসংহার

চুল পড়া যে কারোরই হতে পারে। কখনো এই সমস্যায় পড়লে চুল পড়ার কারণটা আগে জেনে নেওয়া ভালো। অধিকাংশ মানুষ এর তলানিতে যায় না। তারা সোজা চিকিৎসা নিতে শুরু করে এবং শেষ পর্যন্ত চুল পড়ে যায়। সঠিক বুঝে সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা নিলে চুল পড়া রোধ করা যায়, যদি কারণটি জেনেটিক না হয়।

5/5 - (19 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button