স্কিন কেয়ার

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার সহজ উপায়

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার সহজ উপায় জানতে পারবেন আজকের পোস্টে। যদি আপনিও আমার মত উজ্জ্বল ত্বক চান, তাহলে অ্যালোভেরা জেল এবং লেবুর রস মিশিয়ে তৈরি এই সহজ মুখ মাস্কটি ব্যবহার করে দেখুন।

এবার ব্রণ দূর করতে অ্যালোভেরার চেষ্টা করুন। লেবুর রস আপনার কনুই পরিষ্কার করে এবং আপনাকে ফর্সা করে তোলে।

যদি আপনি কোন প্রাকৃতিক ত্বকের যত্নের পণ্যের নাম দেন যা অ্যালোভেরা জেলের চেয়ে ভালো, তাহলে আমি আমার নাম পরিবর্তন করতে পারি। এটি ব্যবহার করতে ভুলবেন না কারণ এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অ্যালোভেরা জেল ত্বককে হাইড্রেটিং, ব্রণ দূর করে বলিরেখা থেকে দূরে রাখে। চুল পুষ্ট করতে পারে, ক্ষত সারাতে পারে এবং ফুসকুড়ি দূর করতে পারে। এটি আপনার ত্বকের যত্ন নিয়ে আপনার ভাঙ্গা হৃদয়কে আবার সুখী হওয়ার সুযোগ দিতে পারে।

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা কিভাবে করবেন

আমি আমার কৈশোর বয়স থেকে এই বিশ্বাস করেছি। আমার মনে আছে যখন আম্মু আমাদের বাড়ির বাগান থেকে অ্যালোভেরার পাতা তোলেন এবং আমার ব্রণ এবং ব্রণগুলিতে তাজা জেল লাগান।

ত্বকের যত্নে এলোভেরা
ত্বকের যত্নে এলোভেরা

এখন প্রায় 20 বছর বয়সে, আমি আমার বিস্তৃত সিরামগুলি ব্র্যান্ডেড অ্যালোভেরা জেল দিয়ে প্রতিস্থাপন করেছি। এটি ত্বককে পুষ্টি দেয় এবং উজ্জ্বল করে। কিন্তু আজ আমি এই বিস্ময়কর উপাদানটির প্রশংসা করিনি, বরং আমি এর সাথে কিছু পরীক্ষা -নিরীক্ষাও করেছি।

যখন আমার ত্বক শুষ্ক এবং নিস্তেজ হয়ে যাচ্ছিল, এই অ্যালোভেরা জেল ফেস মাস্ক আমাকে বাঁচিয়েছিল। তখনই আমি সত্যিই এই উদ্ভিদটির প্রেমে পড়েছিলাম এবং এর সীমাহীন গুণ আবিষ্কার করেছি।

অ্যালোভেরা জেলের সাথে লেবুর রসের সংমিশ্রণ আশ্চর্যজনক ফলাফল দেয়। 20 বছর বয়সে, আমার তৈলাক্ত ত্বক ব্রণ থেকে মুক্তি পেয়েছে। এটি তৈলাক্ত ত্বক থেকে মিশ্র ত্বকে পরিবর্তিত হয়েছে। এক্সফোলিয়েন্টস যা আমার ত্বককে উজ্জ্বল করে। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আমি এই দুটি উপাদান দিয়ে আমার ত্বককে চাঙ্গা করব।

এখন যেহেতু অ্যালোভেরা জেল অ্যামিনো অ্যাসিড সমৃদ্ধ। তাই এটি ত্বকে পুষ্টি যোগায় এবং কোলাজেন গঠনেও সাহায্য করে। এতে পানির পরিমাণ বেশি থাকায় এটি আপনার ত্বককে হাইড্রেটেড রাখে। যা আমাদের ত্বকের অত্যন্ত প্রয়োজন।

অন্যদিকে ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ লেবু ত্বকে উজ্জ্বলতা দেয়। এটি সাইট্রিক এসিড বৃদ্ধি করে যা ত্বকের মৃত কোষ অপসারণ করে ত্বকের নতুন কোষ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

কিভাবে মাস্ক বানাবেন?

আমি অ্যালোভেরা জেলের পাতা থেকে টাটকা জেল বের করে ব্লেন্ডারে পিষে নিয়ে একটি মাঝারি আকারের লেবু নিয়ে এই মিশ্রণে এর রস যোগ করলাম। এবার এই মিশ্রণটি একটি পাত্রে বের করে ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করুন।

মনে রাখবেন, আপনি যদি তাজা অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করেন তবে এর ধারাবাহিকতা কিছুটা পাতলা হবে। যদি আপনি রেডিমেড অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করেন, তাহলে গাড় হওয়ায় দুই চা চামচ যথেষ্ট হবে।

কিভাবে লাগাবেন?

প্রতি রাতে আমি আমার মুখ পরিষ্কার করতাম এবং এটি একটি পাতলা লেয়ার ফেস-মাস্ক হিসাবে প্রয়োগ করতাম। যা প্রায় 15 মিনিটের জন্য মুখে রাখতে হবে। তারপরে আমি আমার মুখটি জল দিয়ে ধুয়ে ময়েশ্চারাইজ করতাম।

ফলাফল কেমন ছিল?

এই মাস্কটি প্রয়োগ করার পর প্রথম সকালে, আমি আমার মুখের উপর এর উজ্জ্বলতা এবং মসৃণতার ফলাফল দেখেছি। আমার পরিবারের সদস্যরা আমাকে বলেছিল যে আমার ত্বক আগের চেয়ে নরম এবং আমার হোয়াইটহেডগুলিও দৃশ্যমান নয়।

কিন্তু আমি এক সপ্তাহ পর এর আসল যাদু দেখলাম। এতক্ষণে আমার মুখের উজ্জ্বলতা স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। এটি প্রয়োগ করার পর শুধু আমার ত্বক নরম হয়ে যায়নি, বরং আমার ছিদ্রও আগের চেয়ে ছোট হয়ে গেছে। এর জন্য, আমি 100 এর মধ্যে 100 লেবুকে দেব। এই কারণে এটা সম্ভব হয়েছিল।

মাসের শেষের দিকে, আমার ডার্ক সার্কেল হালকা হতে শুরু করেছে এবং আমি এত অল্প সময়ে আমার মুখের ত্বকের পরিবর্তন স্পষ্টভাবে দেখতে পাচ্ছিলাম।

সতর্কতা প্রয়োজন

লেবুর রস সবার ত্বকের জন্য তৈরি করা হয় না। যদি আপনার শুষ্ক এবং সংবেদনশীল ত্বক থাকে, তাহলে আমি বলতে চাই যে আপনার লেবু বেছে নেওয়া উচিত নয়। পরিবর্তে, একটি মৃদু উপাদান নির্বাচন করুন।

দুধ এবং দইতে পাওয়া ল্যাকটিক অ্যাসিড আপনাকে ঠিক একই ফলাফল দিতে পারে। এটি আপনার ত্বককে পুষ্টি দিতে পারে এবং উজ্জ্বল করে তুলতে পারে।

তাই বন্ধুরা, দেখুন কিভাবে আমি অ্যালোভেরা এবং লেবু একসাথে মিশিয়ে আমার ত্বককে নিশ্ছিদ্র করে তুলেছি। আপনাকে অবশ্যই এটি ব্যবহার করতে হবে এবং মন্তব্য বিভাগে আমাকে লিখুন এবং বলুন এর ফলাফল আপনার মুখে কেমন আছে।

4.7/5 - (27 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button