প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

গর্ভাবস্থায় মহিলাদের বিভিন্ন সতর্কতা প্রয়োজন। সেটা তাদের দৈনন্দিন রুটিনের সাথে সম্পর্কিত হোক বা তাদের খাবারের সাথে। মায়ের বোঝাপড়া দিয়েই মা ও শিশুকে নিরাপদ রাখা যায়। আজকে আমরা এমন খাবারের কথা বলছি, যেগুলো সীমিত পরিমাণে খাওয়া হলে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য উপকারী হবে। এখানে আমরা মাখনের কথা বলছি। গর্ভাবস্থায় মাখান খাওয়ার উপকারিতা এবং অপকারিতাগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত বলব। মাখন লোটাস সিড বা গর্গন নাট নামেও পরিচিত।

আসুন প্রথমে জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়া ঠিক হবে কি না।

গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়া কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়া নিরাপদ, কারণ মাখনে এমন অনেক উপকারী পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা গর্ভাবস্থার অনেক সমস্যার সমাধান করতে পারে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রকাশ করা হয়েছে যে ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, ফ্যাট এবং আয়রনের মতো পুষ্টি উপাদান মায়ের স্বাস্থ্য এবং শিশুর বিকাশে সহায়ক।

আসুন এখন মাখনের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

মাখনের পুষ্টিগুণ

আমরা এই সারণীতে মাখনে উপস্থিত পুষ্টি এবং তাদের পরিমাণ সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করেছি :

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম পরিমাণ
পানি14.16 গ্রাম
শক্তি332 কিলোক্যালরি
প্রোটিন15.41 গ্রাম
লিপিড (চর্বি)1.97 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট64.47 গ্রাম

খনিজ

ক্যালসিয়াম163 মিলিগ্রাম
আয়রন3.53 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম210 মিলিগ্রাম
ফসফরাস626 মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম1368 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম5 মিলিগ্রাম

ভিটামিন

  • ভিটামিন সি, মোট অ্যাসকরবিক অ্যাসিড 0.0 মিলিগ্রাম
  • থায়ামিন 0.640mg
  • রিবোফ্লাভিন 0.150 মিলিগ্রাম
  • নিয়াসিন 1.600mg
  • ভিটামিন বি 6 0.629 মিলিগ্রাম
  • ফোলেট, ডিএফই 104μg
  • ভিটামিন বি 12 0.00μg
  • ভিটামিন এ, রাই 3μg
  • ভিটামিন এ, আইইউ 50IU
  • ভিটামিন ই (আলফা-টোকোফেরল) 9.10 মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন ডি (D2+D3) 0.0μg
  • ভিটামিন ডি 0IU
  • লিপিড
  • ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট স্যাচুরেটেড 0.330 গ্রাম
  • ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট মনোস্যাচুরেটেড 0.388 গ্রাম
  • ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট পলিআনস্যাচুরেটেড 1.166 গ্রাম
  • কোলেস্টেরল 0 গ্রাম

মাখনের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানার পর, জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় মাখনের কী কী উপকারিতা রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার উপকারিতা

এখানে আমরা গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার কী কী উপকারিতা রয়েছে তা বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করছি।

অনিদ্রায় উপকারী: গর্ভাবস্থায় মাখন খেলে অনিদ্রার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিডনি ও হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য মাখনে যেমন উপকারী গুণাগুণ পাওয়া যায়, তেমনি মাখন সেবনে অস্থিরতা, নার্ভাসনেস এবং অনিদ্রার সমস্যা দূর হয়।

নিউরাল টিউব ত্রুটির বিরুদ্ধে সুরক্ষা: নিউরাল টিউব ত্রুটি শিশুর মস্তিষ্ক এবং মেরুদন্ডে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। ফোলেট (ফলিক অ্যাসিডের একটি রূপ) মাখনে পাওয়া যায় এবং এর সেবন অনাগত শিশুকে গর্ভাবস্থায় নিউরাল টিউব ত্রুটি থেকে রক্ষা করতে পারে।

আয়রন সমৃদ্ধ: শিশু যখন গর্ভে বড় হয়, তখন তার বিকাশের জন্য আয়রনের প্রয়োজন হয়। মাখনে প্রচুর আয়রন পাওয়া যায়, যা গর্ভের শিশুর বিকাশে সহায়ক হতে পারে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে: মাখন খেলে গর্ভাবস্থায় হঠাৎ করে রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি কমে। মাখনে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ পাওয়া যায়। চিকিৎসকরা বলেন যে গর্ভাবস্থায় হঠাৎ রক্তচাপ বেড়ে যাওয়া ক্যালসিয়াম সরবরাহের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ, উচ্চ রক্তচাপ কি এবং কমানোর উপায়

গর্ভের শিশুর হাড়ের জন্য: গর্ভস্থ শিশুর হাড়ের মজবুত ও দাঁতের বিকাশের জন্য ভিটামিন ডি গ্রহণ করা প্রয়োজন, যা মাখনে পাওয়া যায়।

সুগার নিয়ন্ত্রণে: গর্ভাবস্থায় সুগার নিয়ন্ত্রণে মাখনের উপকারিতা দেখা যায়। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় কম চিনিযুক্ত খাবার খাওয়া উচিত এবং মাখনে চিনির পরিমাণ পাওয়া যায় না বলে বলা হয়েছে।

রক্তস্বল্পতার ঝুঁকি রোধ করে: মাখন সেবন গর্ভাবস্থায় শরীরে লোহিত রক্ত ​​কণিকার অভাব হতে দেয় না, কারণ মাখন সেবনে আয়রন সরবরাহ হয়। একটি বৈজ্ঞানিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বলা হয়েছে যে আয়রনের সরবরাহ গর্ভবতী মায়ের শরীরে লোহিত রক্তকণিকার মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখে।

শিশুর অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের বিকাশে সহায়ক: গর্ভাবস্থায় মাখন খেলে গর্ভবতী নারীর শরীরে ভিটামিন এ পাওয়া যায়। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ গ্রহণ করা শিশুর চোখ, কান এবং মেরুদন্ডের বিকাশে সহায়তা করে।

ভালো স্বাস্থ্যের জন্য: চিকিৎসকরা বলেন যে মাখনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলি ভাল স্বাস্থ্যের জন্য কার্যকর। তাই গর্ভাবস্থায় মায়ের সুস্বাস্থ্যের জন্য মাখন সেবন উপকারী।

ব্রণ ও বলিরেখা কমাতে: মাখনে পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়। পটাসিয়ামের অত্যধিক গ্রহণ একটি অ্যান্টি এজিং হিসাবে কাজ করে।

আসুন এখন জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়।

গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার অপকারিতা

গর্ভাবস্থায় মাখন খাওয়ার ফলে নিম্নলিখিত সমস্যা হতে পারে:

১. মাখনে প্রচুর পটাশিয়াম পাওয়া যায়। যদি গর্ভাবস্থায় অত্যধিক পরিমাণে পটাসিয়াম গ্রহণ করা হয়, তবে এটি এথেরোস্ক্লেরোটিক (একটি অবস্থা যেখানে ধমনী সরু হয়ে যায়) এবং কিডনির ক্ষতি হতে পারে।

২. এটি শরীরে অত্যধিক পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট সরবরাহ করবে, যা ওজন বাড়াতে পারে।

৩. মাখনে প্রচুর ফসফরাস পাওয়া যায় এবং গর্ভাবস্থায় অতিরিক্ত ফসফরাস কিডনি ও লিভারের ক্ষতি করতে পারে।

মাখনের অপকারিতা বিবেচনা করে, পরবর্তী অংশে, আপনাকে প্রতিদিন খাওয়ার পরিমাণ সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হচ্ছে।

দিনে কত পরিমাণ মাখন খাওয়া ঠিক?

মাখন শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে খাওয়া উচিত। আপনি দিনে 2 থেকে 3 মুঠো মাখন খেতে পারেন, যা প্রায় 25 গ্রাম পর্যন্ত হতে পারে।

দ্রষ্টব্য – উপরোক্ত প্রদত্ত মাখনের পরিমাণ সম্পর্কে এখনও কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় নি। প্রথমে অল্প পরিমাণে খাওয়ার চেষ্টা করুন। এটি সেবনের কারণে কোনো সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন। ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরেই এটি খাওয়া ভাল।

চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় কিভাবে মাখন খাওয়া যায়।

গর্ভাবস্থায় কিভাবে মাখন খাবেন?

মাখন গর্ভাবস্থায় নিম্নলিখিত উপায়ে খাওয়া যেতে পারে:

  • মাখন ভাজার পর তাতে লবণ ছিটিয়ে সন্ধ্যায় চায়ের সঙ্গে খেতে পারেন।
  • মাখন ময়দা দিয়ে তৈরি চাপাতি খেতে পারেন।
  • বরফি তৈরির উপকরণে মাখনও যোগ করা যেতে পারে।
  • মাখন গর্ভাবস্থায় দুধে ফুটিয়ে সেবন করা যায়।

পরবর্তী অংশে, আপনাকে গর্ভাবস্থার উপযোগী মাখন থেকে তৈরি রেসিপি সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হচ্ছে।

প্রেগন্যান্সি ফ্রেন্ডলি মাখনের রেসিপি

এখানে কিছু রেসিপি রয়েছে যা গর্ভাবস্থায় খাওয়া যেতে পারে:

মাখনের ক্ষির

উপাদান :
১ লিটার দুধ
চিনি 2 টেবিল চামচ
১ চা চামচ ঘি
মাখন ১ কাপ
7-8টি বাদাম
7-8 কাজুবাদাম
চিরনজি ২ চা চামচ
তিন চিমটি এলাচ গুঁড়া

রেসিপি: প্রথমে বাদাম ও কাজু কেটে প্লেটে রাখুন। এবার গ্রাইন্ডারে মাখন রেখে মোটা করে পিষে নিন। এবার একটি প্যানে ঘি দিয়ে গরম করার জন্য গ্যাসে রাখুন। এরপর ঘিতে মাখন ভাজুন। হাল্কা বাদামী রঙের হয়ে এলে মাখন প্লেটে তুলে নিন।

তারপর একটি পাত্রে দুধ ঢেলে গরম করার জন্য রাখুন। এর মধ্যে মাখনও দিন। দুধ ফুটে উঠলে আঁচ কমিয়ে দিন এবং মাখনগুলি সম্পূর্ণ গলে যাওয়া পর্যন্ত দুধ রান্না হতে দিন। এবার এর উপরে বাদাম, চিরনজি, কাজুবাদাম ও চিনি দিন।

এখন ক্ষীরকে প্রায় 10 মিনিট ফুটতে দিন এবং এর মধ্যে প্যানটি নাড়তে থাকুন, যাতে ক্ষীর নীচে লেগে না যায়। এবার গ্যাস বন্ধ করে ক্ষীরে এলাচ গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার নামিয়ে ঠান্ডা করে পরিবেশন করুন।

মাখন তরকারি

উপাদান :
1 কাপ ভাজা মাখন
1 কাপ সবুজ মটর
1 টি পেঁয়াজ কাটা
1 কাপ টমেটো কাটা
লাল মরিচের গুঁড়া (স্বাদ অনুযায়ী)
ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ
১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়া
১ চা চামচ গরম মসলা
১/২ চা চামচ জিরা
2 টেবিল চামচ তেল
লবন
সস (স্বাদ অনুযায়ী)
রসুনের 3 কোয়া
1 ছোট বাটি ধনে পাতা কুচি করা
পেস্টের জন্য:
1 টি বড় পেঁয়াজ
রসুনের 5 কোয়া
5 টি লবঙ্গ
1 ছোট টুকরা আদা
পপি বীজ 1 চা চামচ
5 টি কাজুবাদাম

একটি মিক্সারে এই সব পিষে একটি পেস্ট তৈরি করুন এবং একটি পাত্রে রাখুন।

রেসিপি: একটি প্যানে তেল গরম করুন। এবার পেঁয়াজের টুকরো দিন এবং হালকা বাদামী হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। এবার মিহি করে কাটা আদা, রসুনের টুকরো এবং সস দিন।

এবার রান্নার গন্ধ না আসা পর্যন্ত ভাজুন। এবার এতে পেস্ট যোগ করুন এবং ভালো করে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি সিদ্ধ হয়ে গেলে ওপরে ভাজা মাখন দিন। নাও, তোমার মাখনের তরকারি রেডি।

চাপাতি দিয়ে পরিবেশন করুন এবং সেবন করুন।

গর্ভাবস্থায় মাখন কতটা সেবন করতে হবে এবং কীভাবে সেবন করতে হবে সে সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হয়েছে। যদি আপনার ঘরেও সামান্য কিলকারির অনুরণন থাকে, তবে মা এবং অনাগত শিশুর ভাল স্বাস্থ্যের জন্য আপনি একজন গর্ভবতী মহিলাকে মাখন খাওয়াতে পারেন। খাওয়ার পরিমাণ যেন বেশি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (15 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button