প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথরঃ কারণ, চিকিৎসা ও জটিলতা

পরিবর্তিত জীবনধারার কারণে মানুষ অজান্তে অনেক রোগের শিকার হয়। এই সমস্যাগুলোর মধ্যে একটি হল গল স্টোন, যাকে পিত্তথলি বলা হয়। এই সমস্যাটি সব বয়সের মানুষের মধ্যেই দেখা যায় এবং বয়স বাড়ার সাথে সাথে এর ঝুঁকিও বাড়ে, কিন্তু আপনি কি জানেন গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথরের কী প্রভাব পড়তে পারে? গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথরের কারণ ও লক্ষণগুলো জানতে আমাদের এই পোস্টটি পড়তে পারেন। এর পাশাপাশি, আমরা এখানে এটি প্রতিরোধ করার ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কেও আলোচনা করব। এই সম্পর্কে জানতে, অবশ্যই শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

প্রথম অংশে, আমরা পিত্তপাথর কি তা বলব।

পিত্তপাথর কি?

এটি এক ধরনের কঠিন পদার্থ, যা পাচক রসের সাথে পিত্তথলিতে জমা হয়। এর আকার বালির দানা থেকে শুরু করে গল্ফ বল পর্যন্ত হতে পারে। লিভারের নিচের ছোট থলির মতো অঙ্গটিকে গল ব্লাডার বা পিত্তথলি বলে। গলব্লাডারে যে তরল থাকে সেটি পিত্তরস (পাচন রস) নামে পরিচিত। এই তরলটি ক্ষুদ্র অন্ত্র থেকে বেরিয়ে যায় এবং নির্দিষ্ট কিছু পদার্থের উপস্থিতিতে পিত্তথলিতে একটি শক্ত পদার্থে পরিণত হয়। একটি গবেষণা অনুসারে, পিত্তথলির পাথরের গঠন ভিন্ন। সবচেয়ে সাধারণ তিনটি গঠন হল কোলেস্টেরল গলস্টোন, কালো পিগমেন্ট গলস্টোন এবং ব্রাউন পিগমেন্ট গলস্টোন। দেখা গেছে যে, 90% পিত্তপাথর হল কোলেস্টেরল পিত্তপাথর।

আসুন এখন জেনে নিই কিভাবে গর্ভাবস্থা পিত্তথলির কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে।

গর্ভাবস্থা কীভাবে পিত্তথলির কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে?

গর্ভাবস্থায়, শরীরে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়, যার কারণে গল ব্লাডারে উপস্থিত হজম রসে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বেড়ে যায়। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায় শরীরে প্রোজেস্টেরনের উচ্চ মাত্রার কারণে গলব্লাডারের সংকোচন ক্ষমতা প্রভাবিত হতে পারে। এই কারণেই গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

এখন জানবেন কেন গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর হয়।

গর্ভাবস্থায় পিত্তে পাথর হওয়ার কারণ সমূহ-

সাধারণত পিত্তথলির সমস্যা পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের বেশি হয়। গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির রোগের অনেক কারণ থাকতে পারে, যা প্রায় সাধারণ ব্যক্তির মতোই।

  • গর্ভাবস্থায় ইস্ট্রোজেনের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে।
  • গলব্লাডারের হজম রস সম্পূর্ণরূপে খালি করার অক্ষমতা।
  • অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা।

পিত্তপাথর হওয়ার অন্যান্য কারণগুলো নিম্নরূপ-

  • অস্থিমজ্জার কারণে।
  • ডায়াবেটিসের থাকলে।
  • লিভার সিরোসিস এবং পিত্তথলির সংক্রমণ।
  • কোনো রোগের কারণে অনেক বেশি লোহিত রক্তকণিকা ধ্বংস হয়ে যাওয়া।
  • খুব কম-ক্যালোরিযুক্ত খাবার খেয়ে দ্রুত ওজন হ্রাস করলে।
  • দীর্ঘ সময় ধরে শিরার মাধ্যমে পুষ্টি গ্রহণ করা।
  • শ্বাস নিয়ন্ত্রণের বড়ি সেবন।

আসুন এবার জেনে নেই পিত্তথলির পাথর হওয়ার লক্ষণগুলো।

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর হওয়ার লক্ষণ

পিত্তপাথর অধিকাংশ ক্ষেত্রে কোনো উপসর্গ সৃষ্টি করে না। এটি সনাক্ত করার জন্য নিয়মিত এক্স-রে বা অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতির প্রয়োজন হতে পারে।

পাথরের আকার বড় হলে, নিম্নলিখিত লক্ষণগুলো দেখা যায়, যা গর্ভবতী মহিলাদের এবং অন্যান্য রোগীদের মধ্যে একই রকম:

১. পেটের উপরে বা মাঝখানে ব্যথা। এটি কমপক্ষে 30 মিনিটের জন্য ঘটে। এই ব্যথা বা ক্র্যাম্পিং কম বা বেশি অনুভূত হতে পারে।
২. জ্বর হতে পারে।
৩. ত্বক এবং চোখের সাদা অংশ হলুদ হয়ে যাওয়া (জন্ডিস)।
৪. মলের রঙ পরিবর্তন হবে (কাদামাটির রঙের)।
৫. বমি বমি ভাব এবং বমি হতে পারে।

এখন আমরা গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর পরীক্ষা সম্পর্কে বলব।

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর পরীক্ষা

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর নিম্নলিখিত উপায়ে পরীক্ষা করা যেতে পারে –

পেটের আল্ট্রাসাউন্ড – এটি এক ধরণের ইমেজিং পরীক্ষা, যার মাধ্যমে ছোট পিত্ত পাথর সনাক্ত করা যায়।

সিটি স্ক্যান – এটিও এক ধরনের ইমেজিং পরীক্ষা, যেখানে এক্স-রে ব্যবহার করে কম্পিউটার স্ক্রিনে পেটের ভেতরের অংশের ছবি দেখা যায়। পিত্তথলির কারণে সংক্রমণ এবং ক্ষতি সম্পর্কে তথ্য এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পাওয়া যায়।

এন্ডোস্কোপিক রেট্রোগ্রেড – পিত্ত নালীতে বাধা সৃষ্টিকারী পাথর সনাক্ত করতে এই ধরনের পরীক্ষা করা হয়। এই পরিক্ষার পিত্তথলির পাথরও অপসারণ করা যেতে পারে। এই পরীক্ষাটি গর্ভাবস্থায় নিরাপদ বলে মনে করা হয়।

গলব্লাডার রেডিওনিউক্লাইড স্ক্যান – এই পরীক্ষায়, পিত্তথলির কার্যকলাপ একটি তেজস্ক্রিয় পদ্ধতি দ্বারা পরীক্ষা করা হয়। এছাড়াও, এই স্ক্রীনিং পদ্ধতিটি পিত্তথলিতে ব্লকেজ, প্রদাহ এবং সংক্রমণ পরীক্ষা করতেও সাহায্য করতে পারে। তবে মনে রাখবেন যে, কিছু ক্ষেত্রে এই পরীক্ষাটি গর্ভবতীকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। তাই এই পরীক্ষা করার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন।

এন্ডোস্কোপিক আল্ট্রাসাউন্ড – এটি এক ধরনের ইমেজিং পরীক্ষা। এর মাধ্যমে পরিপাকতন্ত্রের ভিতরে এবং আশেপাশের অঙ্গগুলি দেখা যায়। এই পরীক্ষাটি গর্ভাবস্থায় নিরাপদ বলে বিবেচিত।

প্যানক্রিটোগ্রাফি – এটিও এক ধরণের ইমেজিং পরীক্ষা। এতে চুম্বকের সাহায্যে পিত্ত ও অগ্ন্যাশয়ের সমস্যা দেখা হয়। এটি গর্ভাবস্থায় নিরাপদ বলে বিবেচিত।

পারকিউটেনিয়াস ট্রান্সহেপ্যাটিক কোল্যাঞ্জিওগ্রাম – এটি পিত্ত নালীগুলোর এক্স-রে নিতে ব্যবহার করা হয়। যদিও এই পরীক্ষাটি গর্ভাবস্থায় কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করা হয়, তবে কিছু বিশেষ পরিস্থিতিতে পাথরের তীব্রতা বিবেচনা করে ডাক্তার এই পরীক্ষার পরামর্শ দিতে পারেন।

পিত্তথলির পাথর নির্ণয়ের জন্য আরো কিছু ​​পরীক্ষা –

  • বিলিরুবিন (রক্তে একটি হলুদ রঙের পদার্থ) টেস্ট।
  • লিভার ফাংশন পরীক্ষা।
  • সম্পূর্ণ ব্লাড কাউন্ট পরীক্ষা।
  • অগ্ন্যাশয় এনজাইম টেস্ট।

পিত্তথলির পাথর পরীক্ষা করার পরে, আমরা এই সময়ে তৈরি জটিলতা সম্পর্কে জানব।

পিত্তথলির পাথর এবং গর্ভাবস্থার জটিলতা

এখানে আমরা গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর এবং জটিলতার কথা উল্লেখ করছি –

  • দুর্ঘটনাজনিত গর্ভপাতের ঝুঁকি।
  • ভ্রূণে অস্বাভাবিকতা।
  • অকাল প্রসব।
  • শিশু এবং মা উভয়ের জন্য মৃত্যুর ঝুঁকি।
  • কোলেসিস্টাইটিস (পিত্তথলির প্রদাহ)।
  • পিত্ত নালীতে বাধার কারণে সংক্রমণ এবং জন্ডিস হতে পারে।
  • প্যানক্রিয়াটাইটিস (তলপেটের পিছনের অংশের প্রদাহ)।
  • গলব্লাডার ক্যান্সার।

এখন আমরা জানবো গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথরের চিকিৎসা সম্পর্কে।

আরো পড়ুন- গর্ভাবস্থায় বিষন্নতা কি?জেনে নিন কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলি পাথরের চিকিত্সা

অস্ত্রোপাচার সাধারণত পিত্তথলির পাথর অপসারণের জন্য করা হয়, যা গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে সম্পূর্ণ নিরাপদ। কখনও কখনও ডাক্তাররা এর জন্য নন-সার্জিক্যাল চিকিত্সাও ব্যবহার করেন, যা শুধুমাত্র কোলেস্টেরল পাথরের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। নিম্মে পিত্তথলির পাথরের জন্য ব্যবহৃত অস্ত্রোপচার এবং নন-সার্জিক্যাল চিকিত্সাগুলি বিস্তারিতভাবে বুঝনো হল-

সার্জারি –

অস্ত্রোপাচারের মাধ্যমে পিত্তথলির পাথর অপসারণের প্রক্রিয়াকে বলা হয় কোলেসিস্টেক্টমি। এটি দুটি উপায়ে করা যেতে পারে।

১. ল্যাপারোস্কোপিক কোলেসিস্টেক্টমি – এটি এমন একটি পদ্ধতি যেখানে ল্যাপারোস্কোপি নামের একটি চিকিৎসা পদ্ধতি পিত্তথলির পাথর অপসারণ করতে ব্যবহৃত হয়। প্রায় সব সার্জন ল্যাপারোস্কোপিক সার্জারির সাথে কোলেসিস্টেক্টমি করেন। এই পদ্ধতির পরে, রোগী একই দিনে বাড়ি ফিরতে সক্ষম হয় এবং অবিলম্বে শারীরিক কার্যকলাপ করতে পারেন।
২. ওপেন কোলেসিস্টেক্টমি – যখন গলব্লাডারে গুরুতর প্রদাহ বা সংক্রমণ হয় তখন এই সার্জারী করতে হয়। এই অস্ত্রোপাচারের পরে, রোগীকে প্রায় এক সপ্তাহ হাসপাতালে থাকতে হয়। এছাড়াও রোগীর শারীরিক কার্যকলাপ করতেও এক মাস সময় লাগতে পারে।

নন-সার্জিক্যাল চিকিৎসা –

ডাক্তাররা শুধুমাত্র পিত্তথলিতে কোলেস্টেরল পাথরের ক্ষেত্রেই অস্ত্রোপাচার না করার পরামর্শ দেন। অস্ত্রোপাচার বহির্ভূত চিকিত্সায়, পিত্তথলির কারণে সৃষ্ট চুলকানি দূর করতে নিম্নলিখিত পদ্ধতিগুলো ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

পাথর দ্বারা সৃষ্ট চুলকানি কমাতে, ডাক্তাররা Ursodeoxycholic acid বা Ursodiol এর মতো ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন।
সেই সঙ্গে পাথরের কারণে চুলকানি রোধে গরম বা ঠান্ডা পানিও ব্যবহার করা যেতে পারে। শুধু জেনে রাখুন যে, অতিরিক্ত গরম পানি অনাগত শিশুর ক্ষতি করতে পারে।

এরপরে আমরা গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর দূর করার ঘরোয়া প্রতিকার বলছি।

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর দূর করার ঘরোয়া প্রতিকার

পিত্তথলির পাথর দূর করতে ঘরোয়া উপায়ও অবলম্বন করা যেতে পারে। নীচে আমরা এমন কিছু প্রতিকারের কথা উল্লেখ করছি, যার মাধ্যমে পাথর দূর করা যায়, তবে তার আগে আমরা এটি পরিষ্কার করতে চাই যে, প্রবন্ধে উল্লেখিত প্রতিকারগুলো কোনওভাবেই রোগের নিরাময় নয়। এগুলো কেবল সমস্যাটি কমাতে সহায়তা করতে পারে।

  1. হলুদ

উপাদানঃ হলুদ – আধা চা চামচ
মধু – আধা চা চামচ

ব্যবহারবিধিঃ প্রথমে মধু ও হলুদ ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর সেই মিশ্রণটি খেয়ে নিন।
দিনে একবার এই মিশ্রণটি খেতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

পিত্তথলির পাথর কমাতে হলুদ ব্যবহার করা যেতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, NCBI-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, হলুদ পিত্তথলির পাথর কমাতে খুব সহায়ক প্রমাণিত হয়। অন্য একটি গবেষণায় হলুদে পাওয়া কার্কিউমিনকে পিত্তথলির পাথরের বিকাশ রোধে সহায়ক বলে বিবেচিত হয়েছে। একই সময়ে, গর্ভাবস্থায় মধু এবং হলুদ উভয়ই ব্যবহার করা যেতে পারে। এর ভিত্তিতে, এটা অনুমান করা যেতে পারে যে, হলুদ এবং মধুর মিশ্রণ পিত্তথলির পাথর উপশমে কিছুটা হলেও উপকারী হতে পারে।

  1. ভিটামিন-সি

উপাদানঃ একটি ভিটামিন-সি ক্যাপসুল

ব্যবহারবিধিঃ ভিটামিন-সি ক্যাপসুল পানির সাথে খেতে পারেন। চিকিৎসকের পরামর্শে প্রতিদিন একটি করে ভিটামিন-সি ক্যাপসুল খেতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

পিত্তথলির পাথর কমাতে পরিপূরক হিসেবে ভিটামিন-সি ব্যবহার করা যেতে পারে। NCBI-এর সাইটে প্রকাশিত এক গবেষণায় এই তথ্য পাওয়া গেছে যে, ভিটামিন-সি কোলেস্টেরলের ক্রিয়া বাড়াতে সাহায্য করে পিত্তথলিতে পাথরের বিকাশ বন্ধ করতে পারে। ভিটামিন-সি ক্যাপসুল ব্যবহার করার আগে গর্ভবতী মহিলাদের অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

  1. নাশপাতির রস

উপাদানঃ নাশপাতি রস – আধা গ্লাস
গরম জল – আধা গ্লাস
মধু- দুই চামচ

ব্যবহারবিধিঃ কুসুম গরম পানিতে নাশপাতির রস ও মধু মিশিয়ে নিন। এবার চুমুক দেওয়ার সময় এই রস পান করুন। এই জুস দিনে তিনবার খাওয়া যেতে পারে।

এটা কিভাবে উপকারী?

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর থেকে মুক্তি পেতে ডায়েটে নাশপাতির রসও অন্তর্ভুক্ত করা যায়। আসলে, নাশপাতি রস খুব কার্যকর। এই রসের একটি প্রদাহ বিরোধী প্রভাব আছে, যা প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে। শুধু তাই নয়, এটি পিত্তথলির সমস্যা নিরাময়েও সাহায্য করতে পারে।

  1. গ্রিন টি

উপাদানঃ গ্রিন টি ব্যাগ – এক থেকে দুটি
গরম পানি – এক কাপ
মধু – এক থেকে দুই ফোঁটা
লেবু – এক থেকে দুই ফোঁটা

ব্যবহারবিধিঃ প্রথমে গ্রিন টি ব্যাগ পানিতে ৫ থেকে ১০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। তারপর কাপে ছেকে নিন। এবার এতে মধু ও লেবুর রস মেশান। দিনে একবার বা দুবার এই চা উপভোগ করুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

NCBI সাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, সবুজ চায়ে ক্যাটেচিন নামক একটি যৌগ উপস্থিত রয়েছে, যা পিত্তথলির পাথরের বিকাশ প্রতিরোধে সহায়ক। গর্ভাবস্থায় গ্রিন টি খাওয়ার আগে, একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, কারণ এটি বিপাকের উপরও প্রভাব ফেলতে পারে।

  1. ইসাবগুল

উপাদানঃ ইসবগুল গুঁড়া- এক চা চামচ
জল – একটি গ্লাস

ব্যবহারবিধিঃ প্রথমে এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ ইসবগুল মিশিয়ে সেবন করুন।
এটি প্রতিদিন বা প্রতিরাতে ঘুমানোর আগে সেবন করুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর থেকে মুক্তি পেতে ইসবগুলের ব্যবহার উপকারী। এ সংক্রান্ত গবেষণায় বলা হয়েছে যে, ইসবগুলে ফাইবার পাওয়া যায়, যা পিত্তথলির পাথর কমাতে সহায়ক। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় ইসবগুল খাওয়া যেতে পারে, তবে এটি গ্রহণ করার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা ভাল।

  1. লেবুর রস

উপাদানঃ লেবুর রস – এক চা চামচ
উষ্ণ জল – একটি গ্লাস

ব্যবহারবিধিঃ এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। আপনি এটি দিনে তিন থেকে চারবার খেতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

পিত্তপাথর থেকে মুক্তি পেতে লেবু জল উপকারী। এই সম্পর্কিত একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে, লেবুতে পিত্তথলির পাথর দ্রবীভূত করার ক্ষমতা রয়েছে। একই সময়ে, লেবু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ । আমরা প্রবন্ধে উল্লেখ করেছি যে, ভিটামিন-সি কোলেস্টেরলের বিপাক বৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে। এটি পিত্তথলিতে পাথরের বিকাশ বন্ধ করতে পারে। একই সময়ে, গর্ভাবস্থায় লেবু খাওয়া নিরাপদ এবং উপকারী।

এরপর আমরা গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর প্রতিরোধের উপায় বলছি।

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর প্রতিরোধের উপায়

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলিতে পাথরের ঝুঁকি কমাতে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া অপরিহার্য। এর পাশাপাশি প্রতিদিনের শারীরিক পরিশ্রমও প্রয়োজন, যার ফলে ওজনে ভারসাম্য বজায় থাকে। পরবর্তীতে আমরা আরো কিছু বিষয় উল্লেখ করছি, যার মাধ্যমে গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথর প্রতিরোধ করা যায়।

১. ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খান। যেমন- ফল, সবজি, মটরশুটি, মটর, বাদামী চাল, ওটস এবং গম।
২. পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট এবং চিনি খাওয়া কমিয়ে দিন।
৩. জলপাই তেল এবং মাছের তেল খেতে পারেন।
৪. অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন(যেমন – ডেজার্ট এবং ভাজা খাবার)।
৫. এছাড়াও, কারো ডায়াবেটিস থাকলে তার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

আসুন এখন জেনে নিই পিত্তথলির সমস্যায় কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে।

পিত্তথলির সমস্যায় কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে?

যদি পিত্তথলির উপসর্গ দেখা না যায়, তাহলে চিকিৎসার বিশেষ প্রয়োজন নেই। তবে পিত্তপাথর হওয়ার লক্ষণগুলো গুরুতর ভাবে দেখা দিলে দেরি না করে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত। নিচে আমরা এমন কিছু লক্ষণ উল্লেখ করছি, যেগুলো দেখা দিলে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

  • উপরের পেটে ব্যথা।
  • ত্বকের হলুদ ভাব বা চোখের সাদা অংশ হলুদ হওয়া।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

পিত্তথলির পাথর কি শিশুর ক্ষতি করতে পারে বা প্রসবকে জটিল করতে পারে?

না, পিত্তথলির পাথর শিশুর ক্ষতি করতে পারে না বা প্রসবকে জটিল করতে পারে না।

প্রসবের পরপরই পিত্তথলিতে পাথর হওয়া কি সাধারণ?

হ্যাঁ, প্রসবের পর প্রথম বছরে পিত্তথলিতে পাথর হওয়ার সম্ভাবনা থাকে


গর্ভাবস্থায় ছোট ছোট জিনিসের যত্ন নেওয়া জরুরি। এই সময়ে, মহিলাদের অনেক সমস্যা হয। কারণ এই সময়ে, তাদের শরীরের হরমোনের পরিবর্তন হয়। গল স্টোন বা পিত্তপাথরও তার মধ্যে একটি, তাই আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই। সঠিক সময়ে শনাক্ত করা গেলে তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। আমরা আশা করি যে, এই পোস্টে দেওয়া তথ্য অবশ্যই আপনাকে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে।

আরও পড়ুনঃ

গর্ভাবস্থায় প্রোটিনের গুরুত্ব, উপকারিতা এবং অভাবের লক্ষন

গর্ভাবস্থায় এনিমিয়া বা রক্তশূন্যতার কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা

3.7/5 - (4 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button