প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট (শ্বাসকষ্ট) কারণ ও মুক্তির উপায়

গর্ভাবস্থায় নারীরা অনেক শারীরিক জটিলতার মধ্য দিয়ে যায়। গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট এমনই একটি সমস্যা, যেকোন গর্ভবতী মহিলা এর মুখোমুখি হতে পারেন। যদিও গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট একটি সাধারণ সমস্যা, তবে এটি কখনও কখনও গুরুতর রোগের লক্ষণ হতে পারে। তাই এ বিষয়ে নারীদের পূর্ণ সচেতন হওয়া প্রয়োজন। তাইতো আজকের পোস্টে গর্ভাবস্থায় মহিলাদের শ্বাসকষ্টের কারণগুলি এবং এটি থেকে মুক্তি পেতে সবচেয়ে সঠিক ঘরোয়া উপায়গুলো জানুন৷

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট হওয়া কি স্বাভাবিক?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট একটি সাধারণ সমস্যা। প্রায় 75 শতাংশ মহিলা গর্ভাবস্থায় এই সমস্যার মধ্য দিয়ে যান, তবে গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা তৃতীয় ত্রৈমাসিকে বেশি থাকে।

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট কি গুরুতর সমস্যার লক্ষণ?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের সমস্যাটিকে স্বাভাবিকভাবে নেওয়া যায় না। এই সময়, শ্বাসকষ্টের কারণও গুরুতর হতে পারে। নিচে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের কিছু গুরুতর কারণ:

হাঁপানি : গর্ভাবস্থায় হাঁপানি একটি সাধারণ সমস্যা। প্রায় 45% এরও বেশি মহিলার উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। গর্ভাবস্থায় হাঁপানির জন্য যে কোনো অসাবধানতা মা ও শিশু উভয়ের জন্য মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনতে পারে।

এনিমিয়া : রক্তাল্পতা হল আয়রন এবং ফোলেটের মতো পুষ্টির অভাবের কারণে লোহিত রক্তকণিকার উৎপাদনে বাধা বা হ্রাস। গর্ভাবস্থায় প্রতি ছয়জনের মধ্যে একজন মহিলার রক্তস্বল্পতা হতে পারে। এর অন্যতম লক্ষণ হল শ্বাসকষ্ট। গর্ভাবস্থায় রক্তস্বল্পতার লক্ষণ দেখা গেলে এর চিকিৎসায় গাফিলতি করবেন না।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় এনিমিয়া বা রক্তশূন্যতার কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা

নিচে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের কারণগুলো।

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের কারণ কী?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট স্বাভাবিক বলে বিবেচিত হতে পারে না। এই ঘটনার পিছনে অনেকগুলি গুরুতর কারণ থাকতে পারে, যা আমরা নীচে আলোচনা করব। গর্ভাবস্থার প্রথম থেকে তৃতীয় ত্রৈমাসিকে শ্বাসকষ্টের বিভিন্ন কারণ সম্পর্কে জানুন:

প্রথম ত্রৈমাসিকে শ্বাসকষ্টের কারণ

এই সময়কালে গর্ভবতী মহিলার শরীরে হরমোনের পরিবর্তন সহ অনেক পরিবর্তন দেখা যায়। হরমোনের পরিবর্তনের কারণে শ্বাসকষ্ট বা শ্বাসকষ্ট হতে পারে। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরন হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধির ফলে উপরের শ্বাসনালীতে কৈশিক কোষে তরল জমা হয়, অত্যধিক রক্তপাত হয় এবং মিউকোসাল ফুলে যায়, যা শ্বাস নিতে কষ্ট করে। এটি বেদনাদায়ক হতে পারে।

একজন গর্ভবতী মহিলার ওজন বাড়তে পারে। ওজন বৃদ্ধির ফলে গলার নরম টিস্যুতে চর্বি জমা হতে পারে, যা ফ্যারিনেক্স (মুখের পিছনে গলার অংশ এবং অনুনাসিক গহ্বর) জ্বালাতন করতে পারে, যার ফলে শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

গর্ভবতী মহিলারা স্বাভাবিক মহিলাদের চেয়ে বেশি নাক ডাকতে পারেন। অনুনাসিক প্যাসেজে বাধার কারণে এটি ঘটে। এই অবস্থায়, গর্ভবতী মহিলার শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে শ্বাসকষ্টের কারণ

এই সময়েও ওজন বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকে, যা গলবিল সংকোচনের কারণ হতে পারে এবং ফলস্বরূপ একজন গর্ভবতী মহিলার শ্বাসকষ্টের সমস্যা হতে পারে।

দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে নাক ডাকাও শ্বাসকষ্টের কারণ হতে পারে। স্লিপ অ্যাপনিয়ার কারণেও এটি হতে পারে। অতএব, এই উপসর্গটি গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত।

তৃতীয় ত্রৈমাসিকে শ্বাসকষ্টের কারণ

প্রথম এবং দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকের মতো, তৃতীয় ত্রৈমাসিকে নাকের ছিদ্রে বাধার কারণে শ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে।

এই সময়ে, রাইনাইটিস গর্ভবতী মহিলাদের শ্বাসকষ্টের কারণ হতে পারে। গবেষণা অনুসারে, 42 শতাংশ নারী এই সমস্যার সাথে লড়াই করে।

এই সময়ে, একজন গর্ভবতী মহিলার মায়েদের রক্তের পরিমাণ 40 থেকে 50 শতাংশ বৃদ্ধি পায়। রক্তের এই বর্ধিত মাত্রা উপরের শ্বাসনালীকে প্রভাবিত করে, যা মহিলার শ্বাসকষ্টের কারণ হতে পারে।

গর্ভে ক্রমবর্ধমান ভ্রূণ এবং জরায়ুর প্রসারণ ডায়াফ্রামকে ধাক্কা দেয়, ফুসফুসের জন্য স্থান সীমিত করে এবং তাদের প্রসারিত করা কঠিন করে তোলে। এ কারণেও একজন গর্ভবতী মহিলার শ্বাসকষ্টের সমস্যা হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের কারণগুলির পরে, গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট কমানোর উপায়গুলি জেনে নিন।

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট কীভাবে কমানো যায়?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট নিম্নোক্ত পদ্ধতির মাধ্যমে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ করা যায়। এখানে আমরা শুধুমাত্র সাধারণ প্রতিকার দিচ্ছি, তবে সঠিক চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন। নিচে জেনে নিন কিভাবে শ্বাসকষ্টের সমস্যা কাটিয়ে উঠবেন:

শারীরিক ভঙ্গি : গর্ভাবস্থায়, আপনার শরীরের অঙ্গবিন্যাসে মনোযোগ দিন। বসার সময়, আপনার বুক উপরে এবং কাঁধ পিছনে রাখুন। এতে করে বুক আরও বেশি জায়গা পাবে। গর্ভাবস্থায় শরীরের ভঙ্গি সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে ভুলবেন না।

ঘুমের ভঙ্গি : আমরা উপরে উল্লেখ করেছি যে গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের ক্রমবর্ধমান আকার ডায়াফ্রামের পাশাপাশি বুকের জায়গা সীমিত করে, যার কারণে একজন মহিলার শ্বাসকষ্ট হয়। এই সময়ে, ঘুমানোর সোজা অবস্থান আপনাকে সাহায্য করতে পারে। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, এই পর্যায়টি ফুসফুসে পূর্ণ স্থান দেয় এবং ফুসফুসের ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। সোজা অবস্থানের জন্য, মহিলাদের তাদের পিঠের পিছনে দুই বা তিনটি বালিশ রেখে ঘুমানো উচিত।

নিজেকে বিশ্রাম দিন : কোনো কাজ করার সময় যদি আপনার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়, তাহলে কাজ বন্ধ করে বিশ্রাম দিন। গর্ভাবস্থায় ভারী কাজ না করার চেষ্টা করুন।

শ্বাস- প্রশ্বাসের ব্যায়াম : গর্ভাবস্থার অগ্রগতির সাথে সাথে ভ্রূণের আকারও বৃদ্ধি পায়, যার কারণে ফুসফুসের সাথে ডায়াফ্রাম শ্বাস নেওয়ার প্রক্রিয়ার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা পায় না। আপনি গর্ভাবস্থায় শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করতে পারেন যাতে শ্বাস-প্রশ্বাসের প্রক্রিয়া আরামদায়ক হয়। শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম গর্ভবতী মহিলাদের শ্বাসকষ্টের সমস্যাকে উন্নত করে এবং ভ্রূণ ও মায়ের স্বাস্থ্যের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। নিচে জেনে নিন কিভাবে শ্বাস প্রশ্বাসের ব্যায়াম করবেন:

  • আরামদায়ক অবস্থানে বসুন বা আপনার পিঠের পিছনে কিছু বালিশ দিয়ে শুয়ে পড়ুন।
  • এবার নাক দিয়ে গভীর শ্বাস নিন এবং মুখ দিয়ে ছাড়ুন।
  • এই প্রক্রিয়াটি প্রতিদিন কিছু সময়ের জন্য করুন।

দ্রষ্টব্য: গর্ভাবস্থায় শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

অ্যারোবিক ব্যায়াম : গর্ভাবস্থায় চিকিৎসকের পরামর্শে অ্যারোবিক ব্যায়াম করলে শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। অ্যারোবিক ব্যায়াম আপনার ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়ায় এবং কার্যকারিতা উন্নত করে।

স্পিরোমিটার: এটি এমন এক ধরনের যন্ত্র, যার মাধ্যমে শ্বাসকষ্টের সমস্যা কিছুটা হলেও ঠিক করা যায়। মনে রাখবেন যে এটি শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে করা উচিত।

অন্যান্য শারীরিক ক্রিয়াকলাপ : শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি পেতে আপনি কিছু অন্যান্য শারীরিক কার্যকলাপ করতে পারেন, যার মধ্যে রয়েছে হাঁটা, শরীর প্রসারিত করা বা হাইড্রোথেরাপি (পানিতে ব্যায়াম) ইত্যাদি।

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা জানার পর জেনে নিন আরও কিছু টিপস।

কিভাবে আপনি গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট প্রতিরোধ করতে পারেন?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট এড়াতে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা যেতে পারে। এগুলি হল কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস, যেগুলি যে কোনও গর্ভবতী মহিলা ডাক্তারের পরামর্শে অনুসরণ করতে পারেন:

ডাক্তারের পরামর্শে আয়রনসমৃদ্ধ খাবার যেমন পালং শাক এবং মটরশুটি খান। এই খাবারগুলি শরীরে আয়রন পূরণ করবে এবং রক্তাল্পতার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করবে।

উচ্চ চর্বিযুক্ত খাবার গ্রহণ করবেন না, কারণ গলা এবং বুকে অতিরিক্ত চর্বি শ্বাসকষ্টের কারণ হতে পারে।

এমন ব্যায়াম এড়িয়ে চলুন যা আপনাকে শ্বাসকষ্টের প্রবণ করে তোলে।

ভিটামিন-সি-সমৃদ্ধ খাবার চিকিৎসকের পরামর্শে খাওয়া যেতে পারে, কারণ ভিটামিন-সি শরীরে আয়রনের সরবরাহ বাড়ায়।

বেশি বেশি করে পানি খেতে হবে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় পালং শাক খাওয়ার ৫টি উপকারিতা, গর্ভাবস্থায় সবুজ মটর খাওয়ার ৭টি উপকারিতা

কখন ডাক্তার দেখাবেন?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট একটি সাধারণ সমস্যা, তবে যদি অবস্থা গুরুতর হয়ে ওঠে বা অন্যান্য রোগের লক্ষণ দেখা দেয় তবে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। জেনে নিন, গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট হলে কোন পরিস্থিতিতে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত:

হঠাৎ শ্বাসকষ্ট

দীর্ঘস্থায়ী শ্বাসকষ্ট কারণ এটি অ্যাজমা এবং এনিমিয়ার লক্ষণও হতে পারে।

আপনি এই অবস্থার জন্য ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন, কারণ এই সমস্যাগুলি শ্বাসকষ্টের সময় দেখা দিতে পারে :

  1. শ্বাস নিতে হলে বেশি জোর দিতে হয়
  2. শ্বাসকষ্টের সমস্যা যা আপনাকে রাতে ঘুম থেকে জাগিয়ে তোলে
  3. যখন গলায় সংকোচন হয়

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট কতক্ষণ স্থায়ী হবে?

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট কতক্ষণ স্থায়ী হবে তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। যতদূর অনুমান করা যায়, একটি সুস্থ গর্ভাবস্থায় এই সমস্যাটি প্রসবের কয়েক দিন পরে চলে যেতে পারে। এ বিষয়ে শুধু সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকই সঠিকভাবে বলতে পারবেন।

শ্বাসকষ্ট কি গর্ভের শিশুর ক্ষতি করে?

যদি শ্বাসকষ্টের কারণ হাঁপানি এবং রক্তশূন্যতার মতো গুরুতর সমস্যা হয়, তবে এটি অনাগত শিশুর উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

শ্বাসকষ্ট কি প্রাথমিক গর্ভাবস্থার লক্ষণ হতে পারে?

হ্যাঁ, শ্বাসকষ্ট গর্ভাবস্থার অন্যান্য লক্ষণগুলির সাথে প্রারম্ভিক গর্ভাবস্থার লক্ষণও হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় যেসব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে তা মেনে চললে আপনি গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। মনে রাখবেন যে শ্বাসকষ্টের কারণ যদি হাঁপানি বা এনিমিয়ার মতো গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা হয় তবে আপনার এটি পরীক্ষা করে চিকিত্সা করতে দ্বিধা করা উচিত নয়। আশা করি গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট সম্পর্কিত এই তথ্য এবং এর সমাধানগুলি আপনার জন্য সহায়ক হবে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button