প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় সবুজ মটর খাওয়ার ৭টি উপকারিতা

গর্ভাবস্থায়, একজন মহিলার শরীরে অনেক পরিবর্তন হয় এবং ভ্রূণের বিকাশের প্রক্রিয়া চলতে থাকে। এমন সময় পুষ্টিগুণে ভরপুর খাবার থাকাটা খুবই জরুরি। এই সময়ে, খাবারের আইটেম পছন্দ নিয়ে বিভ্রান্তি হতে পারে, যার মধ্যে একটি নাম মটর। এটা একটা বড় প্রশ্ন হতে পারে যে গর্ভাবস্থায় মটরশুটি খাবেন কি না? যদি তাই হয়, তাহলে এর সঠিক ডোজ এবং ব্যবহারের পদ্ধতি কী হওয়া উচিত? এই পোস্টে আপনি মটর সম্পর্কিত এমন অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে পারবেন । তাই দেরি না করে পড়ুন গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খাওয়া সংক্রান্ত এই লেখাটি।

প্রথমেই জেনে নিন গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খাওয়া নিরাপদ কি না?

গর্ভাবস্থায় মটর খাওয়া কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় পরিমিত পরিমাণে মটর খাওয়া নিরাপদ। গর্ভাবস্থায়, একজন মহিলার শরীরের অনেক পুষ্টির প্রয়োজন এবং তার মধ্যে একটি হল জিঙ্ক। মটরশুঁটিতে জিঙ্ক থাকে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে, সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে এবং সঠিক শারীরিক বিকাশে সাহায্য করতে পারে। শুধু তাই নয়, এটি অকাল প্রসবের ঝুঁকিও কমাতে পারে অর্থাৎ অকাল প্রসব। জিঙ্ক ছাড়াও, মটর ফোলেটের একটি ভাল উৎস, যা গর্ভাবস্থায় জন্মগত ত্রুটির ঝুঁকি থেকে ভ্রূণকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এই সবের পাশাপাশি, প্রোটিন এবং ক্যালসিয়ামের মতো আরও অনেক পুষ্টিও এতে উপস্থিত রয়েছে, যা সম্পর্কে আপনি আরও জানতে পারবেন।

গর্ভাবস্থায় মটরশুটি খাওয়ার সুষম পরিমাণ কী হওয়া উচিত, এই তথ্য নীচে দেওয়া হল।

গর্ভাবস্থায় কত পরিমাণে মটর খাওয়া নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় গর্ভবতীরা সারাদিনে আধা কাপ মটরশুঁটি খেতে পারেন। যাইহোক, সবার গর্ভধারণ একই হয় না। এমতাবস্থায় মটরশুটির পরিমাণ কম-বেশি হতে পারে, তাই আমরা মনে করি গর্ভবতীর এ বিষয়ে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

আরও জেনে নিন গর্ভাবস্থার কোন ত্রৈমাসিকে মটর খাওয়া উপকারী হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মটর খাওয়ার সেরা সময় কখন?

আমরা উল্লেখ করেছি যে গর্ভাবস্থায় মটর খাওয়া যেতে পারে। এটি ফোলেট, ফাইবার, প্রোটিন এবং আয়রনের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে সমৃদ্ধ, যা গর্ভবতীদের স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদানে কাজ করবে। একই সময়ে, কোন ত্রৈমাসিকে এটি খাওয়া ভাল তা নিয়ে কোনও বৈজ্ঞানিক গবেষণা নেই। এই পরিস্থিতিতে, গর্ভবতী মহিলাদের এই বিষয়ে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

গর্ভাবস্থায় মটরশুটি কীভাবে গর্ভবতী এবং ভ্রূণের জন্য উপকারী তা সম্পর্কে এই বিভাগে জানুন।

গর্ভাবস্থায় মটরশুটির স্বাস্থ্য উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খেলে কী কী উপকার পাওয়া যায়, আমরা নিচে এই তথ্যগুলো দিচ্ছি-

ফলিক অ্যাসিড (ফোলেট) – গর্ভাবস্থার আগে এবং গর্ভাবস্থায়, ফলিক অ্যাসিড অর্থাৎ ভিটামিন বি 11 একজন মহিলার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আসলে, গর্ভাবস্থার প্রথম মাস থেকেই ভ্রূণের মেরুদন্ড এবং মস্তিষ্কে নিউরাল টিউব বাড়তে শুরু করে। এই ক্ষেত্রে, ফলিক অ্যাসিড শিশুকে নিউরাল টিউব ত্রুটির ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এখানে মটরের ভূমিকা দেখা যায়, কারণ এটি ফোলেটের ভালো উৎস।

গর্ভকালীন ডায়াবেটিস – গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে ভিটামিন, মিনারেল, ফাইবার এবং স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ সুষম খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে গর্ভাবস্থায় গর্ভকালীন ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যায়। মটরও এই সুষম খাদ্যের অন্তর্ভুক্ত। এমন পরিস্থিতিতে, অন্যান্য পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবারের সাথে ডাল খাওয়া গর্ভবতী মহিলাদের জন্য উপকারী।

প্রোটিন – গর্ভাবস্থায় একজন মহিলারও প্রোটিন প্রয়োজন। প্রোটিন ভ্রূণের বিকাশে সাহায্য করতে পারে। তার প্রোটিন খাওয়ার রুটিন পরিবর্তন করে, গর্ভবতী মহিলারা প্রোটিনের বিভিন্ন উত্স বেছে নিতে পারেন। সেই উত্সগুলির মধ্যে একটি হল মটর।

ফাইবার – গর্ভাবস্থায় ফাইবার গর্ভবতী এবং ভ্রূণ উভয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। গর্ভাবস্থায় ফাইবার খাওয়া হজমের জন্য উপকারী হতে পারে। শুধু তাই নয়, গর্ভাবস্থায় বাচ্চার ওজন বাড়াতে এটি সহায়ক। এছাড়াও ফাইবার রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ, হার্টের সমস্যা প্রতিরোধ এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও সহায়ক। এর সাথে, এটি শিশুর অ্যালার্জির ঝুঁকি রোধ করতেও সাহায্য করে।

আয়রন – গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য আয়রন একটি অপরিহার্য পুষ্টি উপাদান। এছাড়াও, আয়রনের ঘাটতি গর্ভাবস্থায় রক্তাল্পতা হতে পারে। এ অবস্থায় আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া জরুরি হয়ে পড়ে। গর্ভবতী মহিলারা আয়রন সরবরাহের জন্য খাবারে মটর অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

ক্যালসিয়াম – মটরে ক্যালসিয়াম থাকে এবং এর ব্যবহার গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে প্রি-এক্লাম্পসিয়া (হঠাৎ উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা) হওয়ার ঝুঁকি কমায়।

জিঙ্ক – মটরশুটিতেও জিঙ্ক থাকে। যেমনটি আমরা উপরে উল্লেখ করেছি, গর্ভাবস্থায় জিঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ভ্রূণের পূর্ণ বিকাশে সহায়ক হতে পারে। এছাড়াও, জিঙ্ক গ্রহণ অকাল জন্মের ঝুঁকিও কমাতে পারে।

সবকিছুরই উপকারিতা এবং অপকারিতা উভয়ই আছে। ঠিক একইভাবে গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খাওয়ার উপকারিতা থাকলে তার কিছু অপকারিতাও রয়েছে। আমরা নিবন্ধের এই অংশে সেই অসুবিধাগুলির কিছু সম্পর্কে তথ্য দেব।

গর্ভাবস্থায় সবুজ মটর খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

নিচে পড়ুন গর্ভাবস্থায় মটরশুটির কিছু অসুবিধা।

উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি – এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে মটরগুলিতে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে। গর্ভাবস্থায় পটাসিয়ামের উচ্চ গ্রহণ গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং গুরুতর প্রিক্ল্যাম্পসিয়াও ঘটাতে পারে।

পুষ্টির অভাব – আমরা উপরে উল্লিখিত হিসাবে, মটর ফাইবার সমৃদ্ধ এবং গর্ভাবস্থায় উচ্চ পরিমাণে ফাইবার গ্রহণ করা কিছু গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি যেমন আয়রন, জিঙ্ক এবং ক্যালসিয়াম এর শোষণে বাধা দিতে পারে।

পেটের সমস্যা – মটর অতিরিক্ত সেবনে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হতে পারে। এতে উপস্থিত ফাইবার পেটে ব্যথা এবং গ্যাসের মতো সমস্যা তৈরি করতে পারে।

এলার্জি – যদি কোনও মহিলার নির্দিষ্ট কিছু খাবার খাওয়ার কারণে এলার্জির সমস্যা হয়ে থাকে, তবে গর্ভাবস্থায় মটর খাওয়ার আগে তাকে অবশ্যই একবার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। মটর সেবনে এলার্জির সমস্যা হতে পারে। বর্তমানে, এই সম্পর্কে কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই, তবে সতর্কতা হিসাবে এই জিনিসটির যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

সুতরাং, প্রথমে কয়েকটি মটর খাওয়ার চেষ্টা করুন। আপনি যদি পেটে কোনো ধরনের সমস্যা বা গ্যাস অনুভব না করেন, তবে আপনার খাদ্যতালিকায় মটর যোগ করুন এবং এর পরিমাণ বাড়ান।

জেনে নিন গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খাওয়া সংক্রান্ত কিছু সতর্কতা।

মটর খাওয়ার সময় যেসব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে

গর্ভাবস্থায় মটরশুঁটি খাওয়ার সময় নীচে দেওয়া সতর্কতাগুলি যত্ন নিন।

  • মটর কেনার সময় খেয়াল রাখবেন মটরের ত্বক যেন সতেজ ও মসৃণ হয়।
  • মটরশুটিতে যেন কোনো দাগ না থাকে।
  • কখনও কখনও মটরগুলিতে পোকামাকড় থাকতে পারে, তাই স্কিনগুলি সরানোর সময় সতর্ক থাকুন।
  • মটর চামড়া থেকে মুছে ফেলার পরে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন।
  • মটর কাঁচা খাওয়ার আগে একবার ভালো করে ধুয়ে নিন।

এবার জেনে নিন কীভাবে গর্ভবতী মটরশুঁটি খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যায়।

কিভাবে আপনি আপনার খাদ্যতালিকায় মটর অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন?

নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় মটর অন্তর্ভুক্ত করার জন্য কিছু পদ্ধতি শেয়ার করছি।

  • সালাদের সঙ্গে ডাল কাঁচা খাওয়া যায়।
  • মটর খাবার হিসেবে খাওয়া যেতে পারে।
  • মাতর পরাঠা বানিয়ে খাওয়া যায়।
  • মটর স্যুপ খাওয়া যেতে পারে।
  • মটর সিদ্ধ করেও খাওয়া যায়।
  • মটরশুটি সবজি হিসেবে খেতে পারেন।

এই নিবন্ধটি পড়ার পরে, আপনি গর্ভাবস্থায় মটরশুটি খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে অনেক তথ্য পেয়েছেন। এছাড়াও মনে রাখবেন যে কোনও কিছুর অতিরিক্ত সেবন ক্ষতিকারক হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে, গর্ভবতীরা এটি সুষম পরিমাণে গ্রহণ করা ভাল।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (17 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button