প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে ৬ টি টিপস এবং ৩টি সহজ ফেসপ্যাক।

গর্ভাবস্থা মহিলাদের জন্য পরিবর্তনের সময় হিসাবে বিবেচিত হয়। কারণ হল, এই সময়ে গর্ভবতীরা বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণভাবে অনেক শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের সম্মুখীন হয়

এই পরিবর্তন গুলোর মধ্যে একটি হল চোখের নিচে কালো দাগের সমস্যা। এটি নারীর সৌন্দর্যকেও প্রভাবিত করে, তাই এটি গর্ভবতী মহিলাদের একটু অস্থির করে তুলতে পারে। এই অস্বস্তি কমানোর লক্ষ্যে, এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় চোখের নিচে কালো দাগের বা ডার্ক সার্কেলের কারণ এবং চিকিত্সা সম্পর্কিত তথ্য দিচ্ছি।

প্রথমে ডার্ক সার্কেল সম্পর্কে একটু জেনে নিই।

চোখের নিচে কালো দাগ বা ডার্ক সার্কেল কী?

চোখের নিচের অংশের রং ত্বকের রঙের চেয়ে গাঢ় হয়ে গেলে তাকে ডার্ক সার্কেল বলে। দুই ধরনের ডার্ক সার্কেল আছে, যেগুলো চোখের নিচের অংশের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রথমটি হল পেরিওরবিটাল ডার্ক সার্কেল। এতে পেরিফেরাল অর্থাৎ চোখের পাতার ঠিক নিচের অংশটি কালচে দেখাতে শুরু করে।

দ্বিতীয়টি হল ইনফ্রারবিটাল ডার্ক সার্কেল, যার মধ্যে চোখের গভীরের নিচের অংশে ডার্ক সার্কেল দেখা যায়। এর অর্থ এটি চোখের পাতার নীচে নয়, এটির সামনের অংশে।

পরবর্তী অংশে, আমরা এখন গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল হওয়া সম্পর্কে কথা বলব।

গর্ভাবস্থায় কি ডার্ক সার্কেল হতে পারে?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেলের সমস্যা হতে পারে। এর পিছনে অনেক কারণ বা শর্ত দায়ী, যা আমরা এই পোস্টে বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করব।

এর পরে, এখন আমরা গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেলের কারণগুলো জানার চেষ্টা করব।

গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল হওয়ার কারণ?

ডার্ক সার্কেলের প্রধান কারণ চোখের নিচের ত্বকে পিগমেন্টেশন (অস্বাভাবিক রঙ) বলে মনে করা হয়। গর্ভাবস্থায় মেলানিন পিগমেন্ট ত্বকে অতিরিক্ত পরিমাণে জমতে শুরু করে, যার কারণে চোখের নিচে কালো দাগ তৈরি হয়। এটি ছাড়াও, গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল হওয়ার আরও অনেক কারণ আছে, যা নিম্নরূপ:

হরমোনের পরিবর্তন – গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন ডার্ক সার্কেলের সমস্যার প্রধান কারণ হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণে, চোখের নীচের পৃষ্ঠে ছোট রক্ত ​​কণিকার সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং চোখের নীচের ত্বক খুব পাতলা এবং সংবেদনশীল হওয়ায় সেই অংশটি আরও গাঢ় দেখায়, যাকে বলা হয় ডার্ক সার্কেল।

ঘুমের অভাব – ঘুমের অভাব বা অপর্যাপ্ত ঘুমও চোখের নিচে কালো দাগের অন্যতম কারণ হতে পারে। একটি গবেষণা পত্রে বলা হয়েছে যে, গর্ভাবস্থায় ঘুমের অভাবে চোখের নিচের অংশ অন্ধকার এবং ফোলাভাব দেখাতে পারে। এই ক্ষেত্রে, চোখের নীচের অংশ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উত্থিত এবং গাঢ় দেখা যায়।

দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকা – দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকার ফলেও চোখের নিচে কালো দাগের সমস্যা হতে পারে। আসলে, মেলানিন পিগমেন্টের ত্বকের রঙে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সূর্যের সংস্পর্শে আসার কারণে, এই মেলানিন বাড়তে শুরু করে, যার কারণে সূর্যের আলোতে বেশি থাকলে ডার্ক সার্কেল হতে শুরু করে।

পানির অভাব – চোখের নিচের টিস্যুতে পানি না থাকার কারণেও ডার্ক সার্কেল হয়। ডার্ক সার্কেল সম্পর্কিত একটি গবেষণা অনুসারে, চোখের নীচের ত্বকে উপস্থিত টিস্যুগুলোর ডিহাইড্রেশনও ডার্ক সার্কেলের কারণ হতে পারে। এইসকল টিস্যুতে পানির অভাব কিছু গুরুতর রোগের কারণেও হতে পারে।

আসুন এবার দেখে নেওয়া যাক ডার্ক সার্কেল প্রতিরোধে ঘরোয়া কিছু উপায়।

গর্ভাবস্থায় চোখের নিচের কালো দাগ সারাতে টিপস

নিচে আমরা কিছু সহজ প্রতিকারের কথা বলব, যেগুলো মেনে চললে গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেলের সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি পাওয়া যাবে।

ভিটামিন সি – আক্রান্ত ত্বকে ভিটামিন সি যুক্ত ক্রিম, লোশন বা ফল ব্যবহার করলে ডার্ক সার্কেলের সমস্যা কিছুটা কমে। এটি রক্তের চলাচল দ্রুত করে চোখের নিচের ত্বকের রঙ হালকা করতে পারে। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায় ভিটামিন সি যুক্ত খাবার ত্বককে স্বাস্থ্যকর করে এবং মেলানিন পিগমেন্টের পরিমাণ কমাতে সাহায্য করতে পারে।

সয়াবিন – ডার্ক সার্কেলের ওপর সয়াবিনের পেস্ট লাগালে এই সমস্যা কমে যায়। অসম ত্বকের চিকিত্সা সংক্রান্ত একটি গবেষণায় এটি নিশ্চিত করা হয়েছে। গবেষণা অনুসারে, সয়াবিনের নির্যাস ত্বকে বর্ধিত মেলানিন (ত্বক কালো করে এমন রঞ্জক) কমাতে পারে।

হলুদ – হলুদের উপকারিতার মধ্যে রয়েছে ত্বকের রং উজ্জ্বল করা। হাইপার পিগমেন্টেশন কমানোর প্রতিকার সম্পর্কিত NCBI-এর একটি গবেষণায় এর উল্লেখ পাওয়া গেছে। গবেষণায় বলা হয়েছে যে, হলুদের নির্যাস ত্বকের সূক্ষ্ম রেখা, বলিরেখা এবং অস্বাভাবিক বর্ণের চেহারা উজ্জ্বল করতে সহায়ক।

গ্রিন টি – গ্রিনটির নির্যাস ত্বকের অসম বর্ণকে উজ্জ্বল করতে সহায়ক। এছাড়াও, এটি ত্বকে অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাব প্রতিরোধেও সহায়ক। এই ভিত্তিতে, গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেলের উপর গ্রিনটি এর নির্যাস প্রয়োগ করা উপকারী বলে মনে করা হয়।

বাদাম তেল – ডার্ক সার্কেলে বাদামের তেল লাগালেও অনেকাংশে উপশম পাওয়া যায়। নয়াদিল্লির হামদর্দ ইউনিভার্সিটির ইঁদুরের ওপর করা একটি গবেষণা থেকে এটি স্পষ্ট। এতে বলা হয়েছে যে, বাদাম তেল ব্যবহার করে অতিবেগুনী রশ্মির কারণে ত্বকের ক্ষতি নিরাময় করতে পারে। এই ভিত্তিতে বলা হয় যে, বাদাম এর তেল দীর্ঘক্ষণ সূর্যের সংস্পর্শে থাকার কারণে ডার্ক সার্কেল কমাতে উপকারী।

অলিভ অয়েল অলিভ অয়েলে ত্বকের রং উজ্জ্বল করার গুণ রয়েছে। এটি ত্বকের দাগ দূর করার জন্য উপকারী বলে বিবেচিত।

এখন আমরা ডার্ক সার্কেলের জন্য দরকারী ফেসপ্যাক সম্পর্কে বলব।

আরও পড়ুনঃ

গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল কমাতে ঘরে তৈরি সহজ 3 টি ফেসপ্যাক

এখানে আমরা ডার্ক সার্কেল প্রতিরোধে ব্যবহৃত তিনটি ফেসপ্যাক সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি, যা নিম্নরূপ:

  1. হলুদ এবং মধু ফেস প্যাক

উপাদানঃ এক চা চামচ হলুদ গুঁড়া, এক চামচ মধু।

ব্যবহারঃ প্রথমে একটি পাত্রে হলুদ ও মধু দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। পেস্ট তৈরি হয়ে গেলে মুখে লাগান। পেস্ট লাগানোর পর এভাবে প্রায় ১৫-২০ মিনিট রেখে দিন। ফেসপ্যাক শুকিয়ে গেলে মুখ ধুয়ে তোয়ালে দিয়ে শুকিয়ে নিন। এরপর মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগান।

এটা কিভাবে উপকারী?

আমরা ইতিমধ্যে উল্লেখ করেছি যে, হলুদের নির্যাস ত্বকের সূক্ষ্ম রেখা, বলিরেখা এবং অস্বাভাবিক বর্ণের চেহারা উজ্জ্বল করতে সহায়ক। এছাড়াও, এই প্যাকে ব্যবহৃত মধু সরাসরি ডার্ক সার্কেলের জন্য দরকারী বলে বিবেচিত হয়। এই ভিত্তিতে বলা হয়, হলুদ এবং মধু দিয়ে তৈরি এই মাস্কটি ডার্ক সার্কেলের জন্য উপকারী।

  1. পেঁপে এবং অ্যালোভেরা ফেস প্যাক

উপাদানঃ খোসা সহ পেঁপের দুই থেকে তিনটি ছোট টুকরা।
এক চামচ অ্যালোভেরা জেল।
এক চামচ মধু।

ব্যবহারঃ একটি ব্লেন্ডারে সমস্ত উপাদান রাখুন এবং ভালভাবে মেশান। এবার তৈরি করা পেস্ট মুখে লাগান। এই পেস্টটি মুখে প্রায় ১৫-২০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। তারপর পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

পেঁপে ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এটা বিশ্বাস করা হয় যে, পেঁপেতে উপস্থিত ভিটামিন এ ত্বককে পুনরুজ্জীবিত করতে কাজ করতে পারে। এছাড়াও, এর খোসায় উপস্থিত উপাদান ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করতে পারে।

এই প্যাকে উপস্থিত অ্যালোভেরা ত্বককে উজ্জ্বল করতে পরিচিত। এটি সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করতে পারে। এই কারণে পেঁপে এবং অ্যালোভেরার এই ফেসপ্যাকটি ডার্ক সার্কেলের জন্য উপকারী।

  1. শসা এবং লেবুর ফেসপ্যাক

উপাদানঃ একটি শসা ছোট ছোট টুকরো করে কাটা।
এক চা চামচ লেবুর রস।

ব্যবহারঃ প্রথমে শসার টুকরোগুলো মিক্সারে দিয়ে ভালো করে পিষে নিন। এরপর একটি সুতির কাপড়ে গ্রেট করা শসা রেখে রস বের করে নিন। তারপর শসার রসে এক চামচ লেবুর রস মেশান। এবার এক টুকরো তুলো শসা ও লেবুর রসের মিশ্রণে ডুবিয়ে চোখের নিচে লাগান। এর পরে, প্রায় 15-20 মিনিটের জন্য এভাবে রেখে দিন। সময় হয়ে গেলে, পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

এটা কিভাবে উপকারী?

শসা সম্পর্কিত একটি গবেষণা অনুসারে, এটি ত্বককে পুষ্ট করতে পারে এবং ত্বকের প্রদাহ কমাতে পারে। এছাড়াও, এটি সরাসরি ত্বককে হাইড্রেট করতে পারে এবং ডার্ক সার্কেল থেকে মুক্তি দিতে পারে। এছাড়াও, শসাতে উপস্থিত ভিটামিন কে ডার্ক সার্কেল কমাতে সহায়ক। আবার, লেবুর রস ত্বকের অমসৃণ বর্ণের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এই ভিত্তিতে, শসা এবং লেবুর রস থেকে তৈরি এই ফেসপ্যাকটি ডার্ক সার্কেল থেকে মুক্তি দিতে পারে।

ফেসপ্যাক এর পরে, আমরা গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল প্রতিরোধের কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস বলছি।

গর্ভাবস্থায় চোখের নিচের কালো দাগ কি প্রতিরোধ করা যায়?

হ্যাঁ, কিছু টিপস অবলম্বন করে গর্ভাবস্থায় ডার্ক সার্কেল প্রতিরোধ করা যায়। এর মধ্যে কয়েকটি টিপস নিম্নরূপ:

  • গর্ভাবস্থায় নিয়মিত ব্যায়াম করা।
  • সঠিক সময়ে ঘুমানো এবং পর্যাপ্ত ঘুম যাওয়া।
  • মানসিক চাপ নেওয়া যাবে না।
  • ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে প্রচুর পানি পান করুন।
  • একটি তোয়ালে বা অন্য কোনো কাপড় ভিজিয়ে চোখের ওপর কিছুক্ষণ রেখে বিশ্রাম দিন।
  • ঠাণ্ডা শসা বা লেবুর টুকরোগুলো ঘুমানোর আগে কিছুক্ষণ চোখে রেখে দিন।
  • বেশিক্ষণ রোদে থাকবেন না।
  • পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার খান।

ডার্ক সার্কেলের জন্য কখন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে?

সাধারণ পরিস্থিতিতে, ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণ করার পরেও, এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যে ডার্ক সার্কেলের উপর কোন প্রভাব না পরলে, ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে অ্যালার্জি বা কোনো ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ডার্ক সার্কেলের সমস্যা হতে পারে। এ ধরনের সমস্যা হলে দেরি না করে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করা উচিত।

এখন আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে, ডার্ক সার্কেল একটি সাধারণ সমস্যা, যা থেকে মুক্তি পেতে কিছু প্রতিরোধমূলক পদ্ধতি এবং ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণ করা যেতে পারে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে উপরে দেওয়া তথ্য অনুসারে সঠিক চিকিৎসা নেওয়া প্রয়োজন। এতে করে ডার্ক সার্কেল অনেকাংশে কমানো যায়।

গর্ভাবস্থা এবং নবজাতক সম্পর্কিত এই ধরনের আরও বিষয়ের জন্য আমাদের অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে থাকুন।

গর্ভাবস্থায় পিত্তথলির পাথরঃ কারণ, চিকিৎসা ও জটিলতা

গর্ভাবস্থায় শ্বাসকষ্ট (শ্বাসকষ্ট) কারণ ও মুক্তির উপায়

2.5/5 - (2 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button