হেয়ার স্টাইল

উকুন দূর করার উপায় যা চুলকে সুস্থ রাখবে

উকুন এক ধরনের পরজীবী যা মানুষের মাথায় উৎপন্ন হয়। সাধারণত এটি শুধু চুলে দেখা যায় তবে কিছু লোক এটি শরীরে পরা কাপড়ের ঘামের জায়গায়ও পায়। শরীরের রক্ত ​​পান করাই তাদের কাজ। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাবে এমনটা হয়।

উকুন কি বা কাকে বলে?

উকুন সাধারণত চুলে পাওয়া যায়। এদের দেহ লম্বা, ডানাবিহীন ও খাটো, এদের অ্যান্টেনার চারটি অংশ, মাথা ছোট এবং মুখ ছিদ্রযুক্ত। তারা মুখ দিয়ে চামড়া ছিদ্র করে রক্ত ​​পান করে এবং রক্ত ​​পান করলে সেই স্থানে চুলকানি শুরু হয়। তারা শরীরে ছিদ্র করার সময় একটি অচেতন পদার্থ (শূন্য সংবেদন) ছেড়ে দেয়, যার কারণে তারা কামড়ালে ব্যথা অনুভূত হয় না। লম্বা চুলের লোকেদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাবের কারণে এটি বেশি হয়।

একটি প্রাপ্তবয়স্ক উকুনের জীবনকাল পুষ্টিকর ত্বকে 30 দিন। এই সময়ে স্ত্রী উকুন প্রায় 90টি ডিম পাড়ে এবং 7-10 দিনের মধ্যে এই ডিমগুলি থেকে উকুন বেরিয়ে আসে এবং পরবর্তী 10 দিনের মধ্যে এটি প্রাপ্তবয়স্ক উকুনে পরিণত হয়। একইভাবে এই প্রক্রিয়া চলতে থাকে।

আরও পড়ুনঃ চুল পড়া বন্ধের ঘরোয়া উপায়

উকুন হওয়ার কারণ

উকুন দূর করার উপায় গুলো চেষ্টা করার আগে আপনার মাথা উকুন কেন হচ্ছে তা জানা জরুরি।

জীবনযাত্রায় ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতার অভাবের কারণেই উকুন হয়। যে সমস্ত লোকেরা শারীরিক পরিচ্ছন্নতার যত্ন নেয় না যেমন অনেক দিন ধরে গোসল না করা, চুল না ধোয়া, দূষিত খাবার খাওয়া, নোংরা জায়গায় বসে থাকা এবং উকুনে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে বসা বা কাপড়, তোয়ালে ইত্যাদি ভাগ করে নেওয়ার কারণে চুলে উকুন হয়।

উকুন হওয়া কোনও রোগের লক্ষণ নয়, তবে খুশকি এবং তৈলাক্ত ত্বকের মানুষের মধ্যে এটি সহজে বৃদ্ধি পায়। চুল পরিষ্কার না করার কারণে চুল ময়লা ও আঠালো হয়ে যায়। এ ছাড়া উকুন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে বসলে বা ঘুমালে উকুন হয়।

কিন্তু এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে উকুন দূর করার ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করা ভালো , এতে চুলের ক্ষতি হয় না এবং উকুনও দূর হয়।

আরও পড়ুনঃ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ানোর উপায়

উকুন হওয়ার লক্ষণ

মাথায় চুলকানি এর প্রধান লক্ষণ- যাদের মাথায় উকুন হয়েছে তাদের চুলের সংস্পর্শে আসে উকুন। উকুন অসংখ্য ডিম পাড়ে, যেগুলোকে ‘নিট’ বলা হয়, ডিম ফোটার পর তৃতীয় দিনে এরা ‘নিট’-এ বিভক্ত হয়ে মাথার ত্বকে প্রবেশ করে রক্ত ​​পান করে, যার কারণে মাথায় অতিরিক্ত চুলকানি হয়।

উকুন হাঁটলে বা হামাগুড়ি দেওয়ার কারণে মাথায় অস্বস্তির অনুভূতি হয়।

উকুন ডিম অর্থাৎ ‘নিট’ চুলে আটকে থাকে, যা সাদা রঙের খুব ছোট আকারে চুলে দেখা যায়। ঘরোয়া প্রতিকারের সাহায্যে উকুন ও নিটের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

উকুন দূর করার উপায়

উকুন এবং নিট না হওয়ার জন্য, একজন ব্যক্তির তার জীবনযাত্রায় কিছু বিষয়ের যত্ন নেওয়া উচিৎ, যেমন শারীরিক পরিচ্ছন্নতা এবং চুলের পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নেওয়া। প্রতিদিন গোসল করা উচিৎ এবং পরিষ্কার কাপড় পরিধান করা উচিৎ।

অতিরিক্ত ঘাম এবং নোংরা কাপড়ের কারণে কাপড়ে উকুন হতে পারে। এর সাথে, উকুন রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে বসে থাকা এবং ঘুমানো উচিত নয় এবং তাদের কাপড় বা তোয়ালে ব্যবহার করা উচিত নয়।

উকুন হলে চুলে তেল লাগালে উপকার পাওয়া যায়। নারকেল তেল এবং অলিভ অয়েল উকুন মারার ক্ষমতা রাখে। চুলে তেল লাগালে উকুনের দম বন্ধ হয়ে যায় এবং তারা মারা যায়।

কিন্তু তেল লাগালে শুধুমাত্র উকুন ধ্বংস হয়, উকুন এর ডিম (নিট) নষ্ট হয় না। উকুন দূর করতে মাথায় তেল দিয়ে অন্তত ৮-৯ ঘণ্টা রাখতে হবে এবং তারপর চুল ধুয়ে চিরুনি দিয়ে উকুন দূর করতে হবে।

উকুন শিশুদের চুলের সবচেয়ে সাধারণ সমস্যা। উকুন দূর করার এই ঘরোয়া উপায়গুলো তাদের এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে খুব কার্যকর ।

চিরুনি ব্যবহার করুনঃ ভেজা চুলে সূক্ষ্ম দাঁতের চিরুনি দিয়ে উপর থেকে নিচ পর্যন্ত চুল আঁচড়ান, দিনে দুবার এভাবে করলে ধীরে ধীরে উকুন দূর হবে। এই পদ্ধতিটি চুলের উকুন অপসারণের জন্য সবচেয়ে সাধারণ ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি।

চা গাছের তেলঃ প্রাকৃতিক উদ্ভিদ থেকে তৈরি তেল ব্যবহার করেও উকুন ধ্বংস করা যায়। উদাহরণস্বরূপ, চা গাছের তেল বা মৌরি তেল। চুলে লাগিয়ে ৭-৮ ঘণ্টা রেখে দিন, তারপর চুল ধুয়ে আঁচড়ান। চুলের উকুন দূর করতে ঘরোয়া উপায়ে টিট্রি অয়েল এবং মৌরি তেল ব্যবহার করা হয়।

আরো পড়ুনঃ ত্বকের জন্য চা গাছের তেলের উপকারিতা ও ব্যবহার

ক্যাস্টর অয়েলঃ মাথায় ক্যাস্টর অয়েল লাগিয়ে সারারাত রেখে দিন এবং সকালে চুল ধোয়ার পর সূক্ষ্ম দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ে ফেলুন। এর ব্যবহারে উকুন ও ডিম চুলে জন্মাতে পারে না।

পেট্রোলিয়াম জেলির ব্যবহারঃ চুলে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে ৪-৫ ঘণ্টা রেখে তারপর চুল ধুয়ে আঁচড়ান ।

নিমের ব্যবহারঃ নিম পাতার পেস্ট তৈরি করে চুলে লাগান এবং শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। এ কারণে উকুন মারা যায়।

আরো পড়ুনঃ নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা, রূপচর্চায় নিম তেলের উপকারিতা

আদার পেস্ট ব্যবহার করুনঃ দুই চা চামচ লেবুর রসে এক চা চামচ আদার পেস্ট মিশিয়ে মাথার ত্বকে 20 মিনিট রেখে শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুবার এই প্রক্রিয়া করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ আদার উপকারিতা ও অপকারিতা, লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা, তুলসী পাতার উপকারিতা

তুলসীর ব্যবহারঃ তুলসী পাতার পেস্ট তৈরি করে মাথার ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট শুকাতে দিন। শুকিয়ে গেলে মাথা ধুয়ে নিন এবং ঘুমানোর আগেও বালিশের নিচে কিছু পাতা রাখুন। উকুন নিরাময়ের ওষুধ হিসেবে তুলসি ব্যবহার করা হয়।

রসুন এবং লেবুর পেস্ট ব্যবহার করুনঃ রসুনের পেস্টের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে চুলে লাগান এবং এক ঘণ্টা পর চুল ধুয়ে ফেলুন যাতে সহজেই উকুন মারা যায়। রসুন উকুনের ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

আরো পড়ুনঃ রসুনের উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম, কাঁচা ও ভাঁজা রসুন

লবণ এবং ভিনেগার সলিউশনঃ লবণ ও ভিনেগারের দ্রবণ তৈরি করে মাথায় লাগিয়ে দুই ঘণ্টা রেখে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। তিন দিনের মধ্যে উকুন ধ্বংস হয়ে যাবে।

অলিভ অয়েল এবং বেকিং সোডাঃ অলিভ অয়েলে বেকিং সোডা মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে সারারাত রেখে দিন। সকালে চুল ভালো করে ধুয়ে আঁচড়ান। অলিভ অয়েল এবং বেকিং সোডা বহু শতাব্দী ধরে উকুনের প্রতিকার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করুনঃ নারকেল তেল এবং আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে চুলে লাগান। কয়েক ঘণ্টা পর চুল ধুয়ে আঁচড়ান। নারকেল তেল চুলের জন্য ভালো, তবে উকুন মারার প্রতিকার হিসেবে তেলে অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে চুলে লাগালে সহজেই উকুন দূর হয়।

আরও পড়ুন: শুষ্ক চুলের যত্ন নেয়ার সঠিক নিয়ম, ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

সাদা ভিনেগার ব্যবহার করুনঃ আপনার চুলে সাদা ভিনেগার ভালো করে লাগান এবং তোয়ালে দিয়ে ঢেকে রাখুন ৩-৪ ঘণ্টা । এরপর চুল ধুয়ে চিরুনি দিলে সব উকুন আপনাআপনি বেরিয়ে আসে। উকুন নিরাময়ে সাদা ভিনেগার ব্যবহার করা হয়।

ক্যারামের ব্যবহারঃ 10 গ্রাম ক্যারাম বীজ ভালো করে পিষে তাতে অর্ধেক লেবুর রস ছেঁকে নিন। ফিটকিরির গুঁড়া ও বাটার মিল্ক ঘষে চুলে লাগালে খুশকির উপশম হয় এবং নিট ও উকুন মেরে ফেলে।

আরও পড়ুনঃ খুশকি দূর করার ৫টি ঘরোয়া উপায়, খুশকি দূর করার উপায় প্রাকৃতিকভাবে

কখন একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করবেন?

উকুন হলে ডাক্তারের কাছে যাওয়ার দরকার নেই, তবে ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধির যত্ন নেওয়া উচিত। এর পাশাপাশি ঘরোয়া উপায়ে বা মেডিকেটেড তেল ও শ্যাম্পু এবং জীবনযাত্রার পরিবর্তনে উকুন থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button