স্বাস্থ্য

ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম: আপনি যদি স্থূলতায় ভুগে থাকেন। অনেক দিন ধরে ওজন কমানোর চেষ্টা করেও ওজন কমছে না, তাহলে আজ আমরা আপনাদের জানাচ্ছি আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করে ওজন কমানোর সহজ উপায়। অনেক গবেষণায় এটা উঠে এসেছে যে আপেল সিডার ভিনেগার ওজন কমাতে খুবই সহায়ক। এছাড়াও আপেল সিডার ভিনেগার আপনার স্বাস্থ্যের আরও অনেক উপকার করে। তাই আপনি যদি ওজন কমানোর পরিকল্পনা করে থাকেন, তাহলে আজ থেকেই আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করা শুরু করুন। জেনে নিন এর উপকারিতা এবং কীভাবে ব্যবহার করবেন।

দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করে

আপেল সিডার ভিনেগার অর্থাৎ আপেল ভিনেগার, যে কোনো উপায়ে এটিকে আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করুন। এটি আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে। এটি আপেল থেকে তৈরি করা হয় এবং আপেলে এমন অনেক গুণ রয়েছে, যা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। আপেল ভিনেগারে অন্যান্য ভিনেগারের তুলনায় বেশি ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। এর ফলে শরীর পরিপূর্ণ পুষ্টি পায়। আপনি এটি সালাদ হিসাবে বা পানীয়তে মিশিয়ে পান করতে পারেন। অনেক সময় মানুষ অনেক খাবারে এটি ব্যবহার করে থাকে। এর নিয়মিত ব্যবহার আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

শরীরের চর্বি কমায়

শরীরে মেদ বাড়তে শুরু করলেই স্থূলতাও বাড়তে থাকে। এমন অবস্থায় আপেল সিডার ভিনেগার শরীর থেকে অতিরিক্ত চর্বি গলিয়ে কমাতে কাজ করে। অনেক গবেষণায় দেখা গেছে আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহারে শরীরে চর্বির পরিমাণ কমে যায়।

দীর্ঘ সময়ের ক্ষুধা নিবারণ করে

আপেল সিডার ভিনেগার আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য ক্ষুধার্ত করে না। আপেল সিডার ভিনেগারে উপস্থিত অ্যাসিটিক অ্যাসিড ক্ষুধা নিবারণ করে। এইভাবে আপনি অতিরিক্ত খাওয়া এড়িয়ে চলুন। খাবার বেশি খেলে ওজন বাড়বে। এমন পরিস্থিতিতে ওজন কমানোর জন্য আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহার করা উচিৎ।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখে

আপেল সিডার ভিনেগার রক্তে শর্করার মাত্রাও কমায়। শরীরে রক্তে শর্করার মাত্রা বেশি থাকায় ওজন বেড়ে যায়, এমন অবস্থায় আপেল সিডার ভিনেগার সুগার কমায়। ইনসুলিন হরমোন আমাদের শরীরে চর্বি জমা করতে কাজ করে এবং অ্যাপেল সিডার ভিনেগার ইনসুলিন ট্যাপ করতে সাহায্য করে। যা আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

image

স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিশেষজ্ঞ নিখিল ভাতসের মতে, আপেল সিডার ভিনেগার ওজন কমাতে খুবই ভালো। ওজন কমানোর মতো এর অনেক উপকারিতা রয়েছে, ইস্ট ইনফেকশন, খুশকি, ইউটিআই, আর্থ্রাইটিসের মতো সমস্যায় এটি খুবই সহায়ক। ওজন কমানোর পাশাপাশি আপেল সিডার ভিনেগার আপনার অ্যাসিডিটি, অ্যাসিডের প্রতিফলন কমাতেও সাহায্য করে।

হাঁটু বা জয়েন্টের ব্যথায়ও এটি খুবই উপকারী। এর ফলে আমাদের শরীরের পিএইচ লেভেল ঠিক থাকে। এটি ক্র্যাম্প এবং ব্যথার সমস্যায় উপশম দেয়, এটি ছাড়াও এটি হজম সিস্টেমের জন্যও খুব ভাল। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে আপেল সিডার ভিনেগার পান করুন। আপনাকে 2 চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার নিতে হবে, এতে অর্ধেক লেবুর রস, 1 চা চামচ মধু এবং আধা চা চামচ গোলাপী লবণ যাকে রক সল্ট বলা হয়। এক গ্লাস পানিতে এই জিনিসগুলো মিক্স করে পান করুন। আপনি একই ভাবে রাতের খাবারের আগে একবার পান করতে পারেন। এটি আপনাকে ওজন কমাতে অনেক সাহায্য করবে।

দ্রস্টব্য: এই ধরনের কোনো চিকিৎসা/ঔষধ/খাদ্য অনুসরণ করার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

5/5 - (7 votes)

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button