প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়ার ৫টি উপকারিতা

কিসমিস স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এতে উপস্থিত প্রাকৃতিক মিষ্টির কারণে কেউ কেউ এটিকে চিনির বিকল্প হিসেবেও ব্যবহার করেন। এখন প্রশ্ন উঠেছে গর্ভাবস্থায় কিসমিস এবং শুকনো আঙুর খাওয়া উচিৎ কি না। এই পোস্টি আপনাকে এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করবে। কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুর উভয়ই আঙ্গুর থেকে তৈরি। অতএব, এই দুটির পুষ্টি প্রায় একই।

কিসমিস ছোট আঙ্গুর থেকে এবং শুকনো আঙ্গুর বড় আঙ্গুর থেকে তৈরি করা হয়। কিসমিসে ছোট ছোট বীজ থাকে, যা খাওয়ার আগে মুছে ফেলা হয়। এই পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়া কতটা নিরাপদ এবং গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়ার উপকারিতা এবং সেই সাথে গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে তথ্য দেব।

গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়া কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় কিসমিস বা শুকনো আঙ্গুর খাওয়া নিরাপদ। কিসমিস গর্ভাবস্থায় মিষ্টির পুষ্টিকর বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এর সেবন গর্ভাবস্থার অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। আমরা নীচে এটি সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে বলছি।

গর্ভাবস্থায় কতটা কিসমিস খাওয়া নিরাপদ?

গর্ভবতীরা জলখাবার হিসাবে 30 গ্রাম পর্যন্ত শুকনো ফল খেতে পারেন। এই শুকনো ফলের মধ্যে কিসমিস এবং শুকনো ফলও রয়েছে। তাই বলা যেতে পারে ৩০ গ্রাম কিসমিস বা শুকনো আঙুর খাওয়া নিরাপদ। তবে, প্রতিটি গর্ভবতীর স্বাস্থ্যের অবস্থা আলাদা। তাই, একজন গর্ভবতীকে কিসমিস বা শুকনো আঙ্গুরের সঠিক পরিমাণ জানতে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

গর্ভাবস্থায় শুকনো আঙ্গুর খাওয়ার সেরা সময় কখন?

গর্ভাবস্থায় কখন এটি খাওয়া উচিৎ সে সম্পর্কে কোনও দৃঢ় বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। সাধারণ বিশ্বাস হল গর্ভাবস্থার শুরু থেকেই এটি খাওয়া যেতে পারে। গর্ভাবস্থার সময় বাড়ার সাথে সাথে এটি খাওয়ার পরিমাণ হ্রাস করা উচিৎ। গর্ভাবস্থায় কিসমিসের ব্যবহার শিশুর বিকাশে সহায়ক। তবুও, গর্ভধারণের পরে, এটি খাওয়ার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরামর্শ দেওয়া হবে।

কিসমিসের পুষ্টিগুণ

কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুরে প্রায় একই রকম পুষ্টি পাওয়া যায়, যা আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয়। প্রতি 100 গ্রাম কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুরে পাওয়া পুষ্টির মান নিম্নরূপঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
পানি16.57 গ্রাম
শক্তি296 কিলোক্যালরি
প্রোটিন2.52 গ্রাম
চর্বি0.54 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট78.47 গ্রাম
ফাইবার6.8 গ্রাম
ভিটামিন সি5.4 মিলিগ্রাম
থায়ামিন0.114 মিলিগ্রাম
রিবোফ্লাভিন0.182 মিলিগ্রাম
নিয়াসিন1.114 মিগ্রা
ভিটামিন বি-60.188
ফোলেট3 µg
পটাসিয়াম825 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম28 মিলিগ্রাম
ক্যালসিয়াম28 মিলিগ্রাম
আয়রন2.59 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম30 মিলিগ্রাম
ফসফরাস75 মিলিগ্রাম
জিঙ্ক0.18 মিলিগ্রাম

গর্ভাবস্থায় কিসমিসের স্বাস্থ্য উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়া গর্ভবতী এবং গর্ভস্থ শিশুর জন্য অনেক স্বাস্থ্য উপকারী। উভয়ের মধ্যে একই পুষ্টিগুণ পাওয়া যায়, তাই উভয়ের উপকারিতাও একই।

অ্যানিমিয়া থেকে মুক্তিঃ গর্ভাবস্থায় শরীরে আয়রনের অভাবের কারণে অ্যানিমিয়ার সমস্যা হতে পারে । এমন অবস্থায় শরীরে আয়রন সরবরাহ করা প্রয়োজন। আয়রন লোহিত রক্ত ​​কণিকা বাড়াতে কাজ করে, ফলে রক্তশূন্যতার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুর উভয়েই আয়রন পাওয়া যায়। তাই গর্ভাবস্থায় কিসমিস বা শুকনো আঙ্গুরকে উপকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পানঃ গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। এছাড়াও, গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের অন্যান্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে কম শারীরিক পরিশ্রম, কম ফাইবার এবং তরল গ্রহণ। শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফাইবার সরবরাহ করে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিসমিস এবং শুকনো আঙুরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়, যার কারণে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা কিছুটা হলেও সেরে যায়।

জন্মগত ত্রুটি প্রতিরোধেঃ অনেক শিশুর গর্ভে সমস্যা হতে থাকে। এরকম একটি সমস্যা হল নিউরাল টিউব ডিফেক্ট (নার্ভ টিউব ডিফেক্ট) । পর্যাপ্ত ফোলেট অর্থাৎ ফলিক অ্যাসিড খাওয়ার মাধ্যমে এটি প্রতিরোধ করা যেতে পারে। এই সমস্যা থেকে শিশুকে রক্ষা করতে কিসমিস এবং শুকনো আঙুরও খাওয়া যেতে পারে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়। এছাড়াও, ফলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবারও সাধারণ মানুষের জন্য উপকারী।

হাড়ের জন্যঃ গর্ভাবস্থায় ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেলে হাড় মজবুত হয়। ক্যালসিয়াম গর্ভবতীর হাড় মজবুত করলেও ভ্রূণের হাড় গঠনে সাহায্য করে। এটি হাড়ের ঘনত্ব বজায় রাখতে সাহায্য করে। কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুরে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। তাই বলা যায়, কিসমিস বা শুকনো আঙুর শক্ত হাড়ের জন্য উপকারী।

শরীরে শক্তি জোগাতেঃ কিসমিস এবং শুকনো আঙুরও শক্তির ভালো উৎস হিসেবে বিবেচিত হয়, যা গর্ভাবস্থায় শরীরে শক্তি জোগাতে পারে। এর সাহায্যে গর্ভাবস্থায় দুর্বলতা দূর করা যায়।

গর্ভাবস্থায় কিসমিস খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

কিসমিস বা শুকনো আঙুর সেবন গর্ভবতীর জন্য উপকারী হতে পারে। একইভাবে, কখনও কখনও এর সেবন কিছু ক্ষতিও করতে পারে। যা নিম্নরূপঃ

বেশি পরিমাণে কিসমিস খেলে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে যায়। কারণ কিসমিসকে উচ্চ গ্লাইসেমিক সূচকযুক্ত খাবারের মধ্যে গণ্য করা হয়। এর অত্যধিক সেবন গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ঝুঁকির দিকে নিয়ে যেতে পারে।

কিসমিস এবং শুকনো আঙ্গুরে ক্যালরির পরিমাণ বেশি থাকায় গর্ভবতীর ওজন বাড়তে পারে। তারপর আপনি প্রসবের পরে ওজন কমানোর জন্য কঠিন অধ্যয়ন করতে পারেন।

আমরা উপরে উল্লেখ করেছি যে প্রচুর পরিমাণে কিসমিস খাওয়া গর্ভবতী মহিলার ডায়াবেটিস হতে পারে। শুধু তাই নয়, এর থেকে জন্ম নেওয়া শিশুরও স্থূলতা এবং টাইপ 2 ডায়াবেটিস সমস্যা থাকতে পারে।

গর্ভাবস্থায় আমি কীভাবে আমার ডায়েটে শুকনো আঙ্গুর অন্তর্ভুক্ত করতে পারি?

গর্ভাবস্থায় কিশমিশ নানাভাবে খাওয়া যেতে পারে। এগুলোর প্রধান পদ্ধতিগুলো নিচে বর্ণনা করা হলোঃ

এক মুঠো কিসমিস ঠাণ্ডা পানিতে প্রায় এক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। পানি ফিল্টার করার পর গরম দুধে কিসমিস মিশিয়ে খেতে পারেন।

কিসমিস, বাদাম এবং শুকনো এপ্রিকট মিক্স ড্রাই ফ্রুট হিসেবে খাওয়া যেতে পারে।

কিসমিস সাধারণ উপায়েও খাওয়া যেতে পারে।

কিসমিস পুডিং এর সাথে মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে।

খিরের সঙ্গেও খাওয়া যায়।

ঠিক তেমনি কিসমিসও নানাভাবে খাওয়া যায়। একইভাবে, শুকনো আঙ্গুরও খাবারে বিভিন্নভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

শুকনো আঙুরের বীজ ফেলে দিয়ে খাওয়া যায়।

শুকনো আঙুর ভিজিয়ে রেখে এর বীজ বের করে দুধে মিশিয়ে খাওয়া যায়।

শুকনো আঙুর সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে মধু দিয়ে খেতে পারেন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্যঃ

কিসমিস পানিতে ভিজিয়ে খেতে পারি?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় কিসমিস পানিতে ভিজিয়ে খাওয়া ভালো।

আমি কি গর্ভাবস্থায় দুধের সাথে শুকনো আঙ্গুর (কিসমিস) খেতে পারি?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় দুধের সঙ্গে শুকনো আঙুর খাওয়া যেতে পারে। তবুও এইভাবে কিসমিস খাওয়ার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

এই পোস্টি পড়ে এটি স্পষ্ট হয়ে গেছে যে কিসমিস খাওয়া গর্ভবতী মহিলাদের জন্য উপকারী। এর সেবন শুধু গর্ভবতী নয়, অনাগত শিশুরও অনেক সমস্যা থেকে দূরে রাখতে পারে। আপনি যদি গর্ভবতী হন তবে আপনি ডায়েটে কিসমিস অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন তবে তার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

এছাড়াও আপনি এই পোস্টি আপনার পরিচিত অন্যান্য গর্ভবতী মহিলাদের সাথে ভাগ করতে পারেন৷ আমরা আশা করি যে আমাদের পোস্টে দেওয়া তথ্য আপনার জন্য দরকারী উপকারী হবে। আপনি যদি এই বিষয়ে অন্য কিছু জিজ্ঞাসা করতে চান তবে আপনি নীচে দেওয়া মন্তব্য বক্সের সাহায্যে আমাদের জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বৈজ্ঞানিক প্রমাণ সহ সাড়া দেব।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button