স্কিন কেয়ার

ত্বকের এলার্জি দূর করার উপায়

ত্বক আমাদের শরীরের সবচেয়ে বাইরের আবরণ। এটি আমাদের সৌন্দর্য প্রতিফলিত করে। লোকেরা প্রায়শই ত্বকের এলার্জিকে হালকাভাবে নেয় এবং এমনকি যখন এলার্জি তীব্র হয়, তারা ডাক্তারের কাছে না গিয়ে ঘরোয়া প্রতিকারের চেষ্টা করে। এ কারণে অনেক সময় এলার্জি স্থায়ী ক্ষত সৃষ্টি করে, যা আমাদের ব্যক্তিতে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। ত্বকের এলার্জিকে গুরুত্ব সহকারে নেওয়া দরকার। আজ আমরা এই পোস্টে এই বিষয়ে কথা বলছি।

ত্বকের এলার্জি কি

ত্বকের এলার্জি সম্পর্কে আমরা সবাই শুনেছি, কিন্তু আপনি কি জানেন যে এটি হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে। অনেক কারণেই আমাদের ত্বকে এলার্জি হতে পারে এবং এটি শরীরের যে কোনো অংশে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। স্কিন এলার্জি হল সেই অবস্থা যখন আমাদের ত্বক খিটখিটে হয়ে যায়। এটি আমাদের ইমিউন সিস্টেমের প্রতিক্রিয়ার কারণে ঘটে। ইমিউন সিস্টেম সিগন্যাল দেয় যে আমাদের ত্বক এমন কিছুর সংস্পর্শে আছে যা ত্বকের জন্য ক্ষতিকারক। ফলস্বরূপ, আমরা ত্বকে চুলকানি, ফুসকুড়ি, জ্বালা ইত্যাদি অনুভব করতে শুরু করি। অনেক সময় এর কারণে ত্বকে দাগ, আমবাত এমনকি ফোলাভাবও দেখা দেয়।

ত্বকের এলার্জির ধরন

অনেক ধরনের ত্বকের এলার্জি আছে। এর মধ্যে কিছু খুবই সাধারণ যা যে কারো জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাদের সম্পর্কে জানা আমাদের সকলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

একজিমাঃ একজিমা একটি সাধারণ শব্দ যা বিভিন্ন অবস্থার জন্য ব্যবহৃত হয়। এতে ত্বক ফুলে যায়, ত্বক লাল হয়ে যায় এবং খসখসে ও চুলকায় । একজিমা একটি খুব সাধারণ ত্বকের এলার্জি। অ্যাটোপিক একজিমা তার সবচেয়ে সাধারণ রূপগুলির মধ্যে একটি। এটি প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে শিশুদের প্রভাবিত করতে পারে, তবে এটি সংক্রামক নয় অর্থাৎ একটি থেকে অন্যটিতে ছড়িয়ে পড়ে না।

গ্রানুলোমা অ্যানুলারেঃ গ্রানুলোমা অ্যানুলার এক ধরণের দীর্ঘস্থায়ী ত্বকের অ্যালার্জি। এর মধ্যে, ত্বকে লাল ফুসকুড়ি (প্যাপুলস) সহ বৃত্তাকার আকৃতির ফুসকুড়ি দেখা যায়। এটি শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের অর্থাৎ অল্প বয়স্কদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। মেয়েদের মধ্যে এই অ্যালার্জি বেশি। এই অ্যালার্জিতে হাতে-পায়ে ছোট ছোট গোলাকার ফুসকুড়ি হয় এবং চুলকায়। কেন এটি ঘটে সে সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানা যায়নি, তবে এটি সহজেই চিকিৎসা করা যেতে পারে।

লাইকেন প্লানাসঃ এটি 30 থেকে 70 বছর বয়সী তরুণ এবং বৃদ্ধদের মধ্যে একটি সাধারণ ত্বকের অ্যালার্জি। এতে ত্বকে চকচকে দাগ পড়ে। এই অ্যালার্জি শরীরের যে কোনও অংশের ত্বকে ঘটতে পারে, তবে সাধারণত কব্জি, গোড়ালি, পায়ের নীচে, পিঠ এবং ঘাড়ে ঘটে। কিছু লোকের মাথার ত্বকে, মুখের ত্বকে এবং নখের ভিতরেও এই অ্যালার্জি থাকে। এটি জেনেটিক কারণে বেশি হয়। চিকিৎসকরাও এই অ্যালার্জির চিকিৎসার আগে রোগীর স্বাস্থ্যের ইতিহাস এবং পরিবারের সদস্যদের তথ্য নিয়ে তারপর চিকিৎসা শুরু করেন।

আমবাত এবং এনজিওডিমাঃ আমবাত একটি খুব সাধারণ ত্বকের অ্যালার্জি। এর মধ্যে, ত্বকে একটি লাল উত্থিত ফুসকুড়ি দেখা দেয়, যা খুব চুলকায়। এগুলি শরীরের যে কোনও জায়গায় উপস্থিত হয়। এগুলি খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কয়েক দিনের মধ্যে ভাল হয়ে যায়। আমবাত এলার্জি অনেক মানুষের মধ্যে খুব দীর্ঘস্থায়ী হয়।

আমবাতের মতো, অ্যাঞ্জিওডিমাও এক ধরনের ত্বকের অ্যালার্জি। এতে ত্বকে প্রদাহ হয়, যার প্রভাব ত্বকের গভীরে পড়ে। সাধারণত চুলকানি হয় না, তবে মুখে, চোখের পাতা, ঠোঁট, হাত, পায়ে ফোলাভাব থাকে। এটি সাধারণত আমবাত বরাবর ঘটে। যে কোনো কারণে আমবাত হতে পারে। অনেক সময় খাবারের গোলযোগ, কোনো ওষুধে অ্যালার্জির কারণেও এটি হয়ে থাকে। অনেকের দীর্ঘ সময় ধরে প্রচণ্ড ঠান্ডা, তাপ বা সূর্যের আলোর সংস্পর্শে থেকেও আমবাত হয়।

ত্বকের এলার্জির লক্ষণ

সাধারণত ত্বকের এলার্জির লক্ষণগুলো হালকা হয়। যখন প্রথমবার এলার্জি হয়, তখন এর লক্ষণগুলোও খুব হালকা হয়। কিন্তু বারবার এলার্জি হলে অনেক সময় লক্ষণগুলো মারাত্মক রূপ নেয়। তখন চিকিৎসাই একমাত্র পথ বাকি। ত্বকের এলার্জির কিছু সাধারণ লক্ষণ নিম্নরূপঃ

ত্বকের এলার্জির সাধারণ লক্ষণঃ

  • আমবাত (ত্বকের উপর চুলকানির লাল দাগ)
  • চামড়া
  • লাল ফুসকুড়ি
  • ত্বকের লাল হওয়া
  • ত্বকের প্রদাহ
  • এক্সফোলিয়েশন
  • ত্বকে ফাটল
  • ত্বকের বিস্ফোরণ বা পিণ্ড

ত্বকের এলার্জির কারণ

কি কারণে ত্বকে এলার্জি হয় তা একটি বড় বিষয়, তবে কিছু কারণ রয়েছে যার কারণে লোকেদের সাধারণত ত্বকে এলার্জি হয়। ত্বকের এলার্জি সাধারণত গহনা এবং পারফিউমে ব্যবহৃত ধাতুর কারণে হয় যা পোশাক বা ত্বকে প্রয়োগ করা হয়।

অনেকেরই নিকেল এবং সোনার গহনার প্রতি এলার্জি রয়েছে। গরমে ঘামের কারণে গহনা ত্বকের সংস্পর্শে এলে প্রায়ই ত্বকে এলার্জি হয়।

সুগন্ধি (Myroxylon pereira) পারফিউম এবং স্কিন লোশনগুলিতে যোগ করা অনেক লোকের ত্বকে এলার্জির কারণ হয়।

থিমেরোসল হল একটি এন্টিসেপটিক এবং কিছু টিকা সুরক্ষার জন্যও ব্যবহৃত হয়। এটির সংস্পর্শে আসার কারণে ত্বকের এলার্জি হতে পারে।

নিওমাইসিন সালফেট হল একটি অ্যান্টিবায়োটিক যা প্রাথমিক চিকিৎসার ক্রিম, মলম, ডিওডোরেন্ট, সাবান, পশুখাদ্যে ব্যবহৃত হয়। এটি ত্বকে এলার্জির কারণ হয়।

খাবার, প্রসাধনী পণ্য, কীটনাশক, অ্যান্টিসেপটিক্স, সাবান, পারফিউম এবং ডেন্টাল পণ্যগুলিতে পাওয়া সুগন্ধগুলিও অনেক লোকের ত্বকে এলার্জি সৃষ্টি করে।

চুলের রং তৈরিতে ব্যবহৃত কোবাল্ট ক্লোরাইড এবং শ্যাম্পু, নেইল পেইন্ট, সানস্ক্রিন ইত্যাদি সংরক্ষণে ব্যবহৃত “কোয়াটারনিয়াম 15” নামক পদার্থের কারণেও ত্বকের এলার্জি হয়।

এ ছাড়া পরাগ কণা, ধুলোবালি, কোনো পোকামাকড়ের কামড়, কোনো ওষুধের কারণে, নির্দিষ্ট ধরনের উদ্ভিদের সংস্পর্শে আসা, অনেক সময় সৌন্দর্য পণ্য, পোষা প্রাণী থেকেও ত্বকে এলার্জি হয়।

ত্বকের এলার্জি পরীক্ষা

স্কিন টেস্ট শিশু থেকে প্রাপ্তবয়স্কদের প্রতিটি বয়সের জন্য নিরাপদ। যাইহোক, কিছু পরিস্থিতিতে ত্বক পরীক্ষা করা হয় না। মনে রাখবেন আপনি নিজে থেকে কোন পরীক্ষা করার চেষ্টা করবেন না। প্রথমে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। আমরা এমন কিছু ত্বকের পরীক্ষার কথা বলছি, যেগুলো সাধারণত করা হয়ে থাকে।

স্কিন প্রিক টেস্টিংঃ এটি ত্বকের এলার্জির জন্য সবচেয়ে সাধারণ পরীক্ষা। এই পরীক্ষাটি পিছনে বা পাশে করা হয়, তবে যদি পিছনে বা পাশে এলার্জি খুব বেশি বেড়ে যায় তবে এই পরীক্ষা করা হয় না। এই পরীক্ষায়, কিছু তরল বাহুতে বা পিঠে রাখা হয়। ওই তরলে এলার্জি সৃষ্টিকারী রাসায়নিক থাকে।

আপনার যদি সেই রাসায়নিকের প্রতি এলার্জি থাকে, তবে এর প্রভাব কিছুক্ষণের মধ্যেই ত্বকে দেখা দিতে শুরু করে। ত্বক লাল হয়ে যায় এবং অনেকের চুলকানিও শুরু হয়। যদিও এই পরীক্ষার ফলাফল অনেক ধরনের ওষুধের দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে, তাই ডাক্তাররা আগে থেকেই রোগীর কাছ থেকে সম্পূর্ণ ইতিহাস জেনে নেন।

রক্ত ​​পরীক্ষাঃ যাদের স্কিন প্রিক টেস্ট নেই, তাদের রক্ত ​​পরীক্ষা করে এলার্জি পরীক্ষা করা হয়। অনেক রোগীর ক্ষেত্রে স্কিন প্রিক টেস্ট এবং রক্ত ​​পরীক্ষা উভয়ই করা হয়। এই পরীক্ষায়, রক্তের নমুনা ল্যাবে পাঠানো হয় এবং সেখানে এলার্জি-প্রচারকারী রাসায়নিক রক্তে মেশানো হয়। তারপর রক্ত ​​যে অ্যান্টিবডি তৈরি করে তা দেখে তারা ফলাফল বের করে।

প্যাচ পরীক্ষাঃ একজিমা এলার্জি শনাক্ত করতে এই পরীক্ষা করা হয় । এতে ত্বকে একটি রাসায়নিক প্রয়োগ করা হয়, যা এলার্জি সৃষ্টি করে। এটি ঢেকে রাখা হয় এবং তিন থেকে চার দিনের জন্য রেখে দেওয়া হয়। এর পরে প্রাপ্ত ফলাফল পরীক্ষা করা হয়।

তবে এই জিনিসটি মাথায় রাখুন
কখনও কখনও সঠিকভাবে ত্বকের এলার্জি নির্ণয়ের জন্য আরও পরীক্ষার প্রয়োজন হয়। কোনো পরীক্ষায় এলার্জি ধরা পড়লে, এলার্জি কতটা গুরুতর তা জানা যায় না। কখনও কখনও পরীক্ষা নেগেটিভ আসে, কিন্তু রোগীর এলার্জি হয়, কারণ রোগী তার ইতিহাস লুকিয়ে রাখে এবং এমন কিছু ওষুধ সেবন করে, যা এলার্জি শনাক্ত করতে দেয় না। এমন পরিস্থিতিতে, আপনার ডাক্তারের কাছ থেকে কিছু লুকাবেন না তা গুরুত্বপূর্ণ।

ত্বকের এলার্জির চিকিৎসা

এলার্জি দেখে চিকিৎসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যাদের ত্বক শুষ্ক তাদেরও ভালো ময়েশ্চারাইজার প্রয়োজন।

একজিমা বা ছত্রাকঃ এলার্জির মাত্রা অনুযায়ী ওষুধ দেওয়া হয়। বেশিরভাগ ত্বক বিশেষজ্ঞরা এই ধরনের এলার্জির জন্য ক্রিম প্রয়োগ করার পরামর্শ দেন। এটি সরাসরি ত্বকে প্রয়োগ করা হয়। এর সাথে মুখে কিছু ট্যাবলেটও দেওয়া হয়, যা এলার্জি থেকে উপশম দেয়।

ছত্রাক সংক্রমণঃ দাদ বা অন্যান্য ছত্রাক সংক্রমণের জন্য অ্যান্টিফাঙ্গাল চিকিৎসা করা হয়। এটি শ্যাম্পু এবং ক্রিম প্রয়োগের জন্যও দেওয়া হয়। সংক্রমণ গুরুতর হলে কিছু ট্যাবলেট দেওয়া হয়। উদাহরণস্বরূপ, Terbinafine এবং Lamisil সাধারণত ব্যবহৃত হয়।

পোকামাকড়ের কামড়ঃ কখনও কখনও এই পরিস্থিতিতেও ক্ষতস্থানে এলার্জি হয়। তারপর পোকা প্রতিরোধক ব্যবহার করা হয় এবং ক্ষত ঢেকে রাখা হয়।

ত্বকের এলার্জি দূর করার উপায়

পুরানো অভ্যাস অনুসারে, এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ত্বকের এলার্জি নিরাময়ে কাজ করে।

আপেল সিডার ভিনেগারঃ আপেল সিডার ভিনেগার দীর্ঘদিন ধরে ত্বকের এলার্জির জন্য একটি জনপ্রিয় ঘরোয়া প্রতিকার। এটি একজিমা উপশম করে এবং সংক্রমণের ঝুঁকি কমায়। একজিমা একটি সাধারণ ত্বকের এলার্জি এবং শুধুমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে 30 মিলিয়নেরও বেশি মানুষকে প্রভাবিত করে।

গরম পানিতে দুই কাপ আপেল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে গোসল করলে ত্বকে আর্দ্রতা পাওয়া যায় এবং ত্বক মসৃণ হয়। আপেল সাইডার ভিনেগার ত্বকের অ্যাসিডিটির মাত্রা ফিরিয়ে আনে। অনেকে ভিনেগার যুক্ত ক্রিমও ব্যবহার করেন, যা ত্বকের পিএইচ স্বাভাবিক করে।

এলোভেরাঃ এলোভেরা প্রায় 6000 বছর ধরে ঘরোয়া প্রতিকারে ব্যবহৃত হচ্ছে। এর পুরু পাতার ভিতরে একটি জলযুক্ত জেল রয়েছে, যা বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহৃত হয়। এটি ত্বকে প্রয়োগ করা হয়, যা ত্বককে নরম, হাইড্রেটেড করে এবং দাগ নিরাময় করে। অনেক ধরনের ফুসকুড়িতেও এটি ত্বকে লাগানোর পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

অ্যালোভেরা জেল তিন মাসের বেশি বয়সের শিশুদের ডায়াপার র‌্যাশের ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করা যায়, তবে অনেকের এতে এলার্জিও হতে পারে। কোনও প্রেসক্রিপশন চেষ্টা করার আগে আপনাকে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে। এটি প্রয়োগ করা বেশ সহজ – এলার্জিক এলাকায় অ্যালোভেরা জেল প্রয়োগ করুন। এটি বেশ দ্রুত শুকিয়ে যায়। 20 থেকে 25 মিনিট পরে, ত্বক পরিষ্কার বা ধুয়ে ফেলুন। শুরুতে দিনে দুবার লাগান। এটি ভাল ফলাফল দেয়।

বেকিং সোডাঃ বেকিং সোডা ত্বকের পিএইচ ভারসাম্যহীনতা সংশোধন করে। এটি ত্বকের এলার্জিও কমায়। এটি ব্যবহার করাও খুব সহজ। 12 চা চামচ পাতিত জল বা পাতিত জলের সাথে চার টেবিল চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই পেস্টটি এলার্জির জায়গায় লাগান। 10 মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। এর পর এলার্জির জায়গায় নারিকেল তেল লাগান। এটা অনেক স্বস্তি দেয়।

নারিকেল তেলঃ নারিকেল তেল নানাভাবে আমাদের ত্বকের জন্য উপকারী। এটি একজিমার ক্ষেত্রে দারুণ উপশম দেয়। এটি শুধু একজিমার উপসর্গই কমায় না, জ্বালাও কমায়। ত্বককে নরম করে এবং সংক্রমণের ঝুঁকিও দূর করে। কিন্তু যাদের নারিকেল থেকে এলার্জি আছে তাদের নারিকেল তেল ব্যবহার করা উচিৎ নয়। এটি প্রয়োগ করার সর্বোত্তম সময় হল রাতে, কারণ এটি ত্বকে ধীরে ধীরে শোষিত হয়।

পেপারমিন্ট অয়েলঃ পেপারমিন্ট তেল শীতল এবং আমবাতে বিশেষ উপকারী। এটি ডায়াবেটিস, লিভারের রোগ এবং কিডনি রোগের কারণে সৃষ্ট এলার্জিতেও উপকারী। এটি পেট্রোলিয়াম জেলি অর্থাৎ ভ্যাসলিনের সাথে মিশিয়ে এলার্জিযুক্ত জায়গায় প্রয়োগ করা যেতে পারে, তবে ব্যবহারের আগে, একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

ত্বকের এলার্জি নিরাময়ের 6টি উপকারী উপায়

ভালো মানের ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করুন। দিনে অন্তত দুবার এটি লাগান।

আপনি যদি ঘনঘন এলার্জিতে ভোগেন, তাহলে অবশ্যই আপনার সাথে একটি ভালো অ্যান্টি-ইচ ক্রিম রাখুন। এটি গুরুতর চুলকানির ক্ষেত্রে উপশম প্রদান করে। এছাড়াও হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করুন।

গোসলের সময় রাসায়নিক সাবান কম ব্যবহার করুন। পাশাপাশি লন্ড্রির জন্য হালকা লেদারিং ডিটারজেন্ট নিন।

খুব টাইট পোশাক পরা এড়িয়ে চলুন। এসব কারণে ফুসকুড়ি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। ঢিলেঢালা পোশাক পরুন এবং এমন কাপড় বেছে নিন যাতে বাতাস যেতে পারে। পারফিউম ব্যবহার করবেন না।

এমন জিনিস ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন, যার কারণে ত্বকে এলার্জি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। যেমন নিকেল, গহনা এবং পশমী কাপড়।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেখানেই এলার্জি আছে সেখানে আঁচড় দেবেন না। এটি শুধু প্রদাহই বাড়ায় না, ত্বকেরও ক্ষতি করে।

যদি ক্রিম কাজ না করে, এলার্জি বাড়ে, তাহলে ঘরোয়া প্রতিকার ত্যাগ করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন, কারণ সেখান থেকেই সমস্যার সম্পূর্ণ সমাধান হয়ে যাবে।

ত্বকের এলার্জির সময় কী খাবেন

কোয়ারসেটিন নামক একটি উপাদান এলার্জি কমাতে সাহায্য করে। এটি প্রধানত পেঁয়াজ, মরিচ, বেরি ইত্যাদিতে পাওয়া যায়।

কিউই ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ, যা এলার্জি সৃষ্টিকারী হিস্টামিনের বিরুদ্ধে লড়াই করে। কিউইয়ের পরিবর্তে, আপনি কমলা বা অন্যান্য ভিটামিন সমৃদ্ধ অন্যান্য সাইট্রাস ফলও খেতে পারেন।

আনারসে ব্রোমেলেন নামক এনজাইম থাকে। এর সেবন এলার্জিতেও উপশম দিতে পারে।

মধু আপনাকে অনেকাংশে এলার্জি থেকে রক্ষা করে। এটি প্রতিদিন খাওয়া উচিৎ, যদি মধু স্থানীয়ভাবে পাওয়া যায় এবং খাঁটি হয়।

ত্বকের এলার্জির জন্য ওষুধ

প্রতিটি ধরণের ত্বকের এলার্জির জন্য আলাদা আলাদা ওষুধ রয়েছে। ডাক্তার এলার্জি পরীক্ষা এবং রক্ত ​​পরীক্ষা করার পর ওষুধের কোর্স শুরু করেন। কিছু সাধারণ ওষুধও এলার্জিতে ব্যবহার করা হয়। এইগুলোঃ

  • হাইড্রোকোর্টিসোন ক্রিম
  • মলম যেমন ক্যালামাইন লোশন
  • এন্টিহিস্টামাইনস
  • বেক্লোমেথাসোন (স্টেরয়েড ক্রিম)
  • Cetirizine (অ্যান্টিহিস্টামাইন)
  • ক্রোমোলিন (মাস্ট সেল স্টেবিলাইজার)
  • সাইপ্রোহেপ্টাডিন (অ্যান্টিহিস্টামিন)
  • ডেসলোরাটাডিন (অ্যান্টিহিস্টামিন)
  • ডিফেনহাইড্রামাইন (অ্যান্টিহিস্টামাইন)
  • ডুপিলুমাব (বায়োলজিক, মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি)
  • Fluticasone propionate (স্টেরয়েড ক্রিম)
  • ফেক্সোফেনাডাইন (অ্যান্টিহিস্টামিন)
  • হাইড্রক্সিজাইন (অ্যান্টিহিস্টামাইন)
  • কেটোটিফেন (মাস্ট সেল স্টেবিলাইজার-অ্যান্টিহিস্টামিন)
  • Levocetirizine (অ্যান্টিহিস্টামাইন)
  • Loratadine (অ্যান্টিহিস্টামাইন)

অনুগ্রহ করে এগুলির যেকোনো একটি ব্যবহার করার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

ত্বকের এলার্জির জন্য ওটিসি মেডিসিন

সবার আগে ওটিসি ওষুধ কী তা জানা জরুরি। ওটিসি মানে ওভার দ্য কাউন্টার ড্রাগ। এগুলি এমন ওষুধ যা প্রেসক্রিপশন ছাড়াই মেডিকেল স্টোর বা ওষুধের দোকান থেকে কেনা যায়। তবে আমাদের পরামর্শ হলো ত্বকের এলার্জি হলে যে কোনো ওষুধ ব্যবহারের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কিছু ওটিসি ওষুধ নিম্নরূপঃ

  • হাইড্রোকোর্টিসোন ক্রিম
  • এক্সডার্ম ফ্লেয়ার কন্ট্রোল ক্রিম
  • ইকোসারিন শান্ত ইট-রিলিফ লোশন
  • মৌখিক অ্যান্টিহিস্টামাইন
  • উপসংহার: উপসংহার

ত্বকের অ্যালার্জি অনেক কারণে এবং অনেক ধরনের হয়। এর প্রাথমিক চিকিৎসা শুধুমাত্র বাড়িতে ব্যবহৃত জিনিস দিয়েই করা যেতে পারে, তবে আপনার এলার্জি যদি গুরুতর অবস্থায় পৌঁছে যায়, তাহলে চিকিৎসাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এলার্জিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (16 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button