প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া কি নিরাপদ

গর্ভাবস্থায়, ঘরের ভিতরে হোক বা বাইরে, মহিলাদের খাবার ও পানীয়ের ক্ষেত্রে খুব সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়। এই কারণেই মহিলারা প্রায়শই গর্ভাবস্থায় উপকারী সেই জিনিসগুলি খাওয়া থেকে বিরত থাকেন। এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় নারীদের এই বিভ্রান্তি দূর করার লক্ষ্যে গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার উপকারিতা বলছি। এর সাথে গর্ভাবস্থায় চিনাবাদামের ব্যবহার এবং ক্ষতি সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ও বলা হবে।

আসুন, প্রথমে গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম নিরাপদ কিনা সে সম্পর্কে তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া কি নিরাপদ?

যেসব মহিলার ওজন কম, ডাক্তাররা তাদের কিছু খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন। বাদাম (চিনাবাদাম)ও এই খাবারের অন্তর্ভুক্ত। শুধু তাই নয়, চিনাবাদামেও রয়েছে আয়রন, ক্যালসিয়াম, ফলিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন-ডি, যা গর্ভাবস্থায় অপরিহার্য।

এছাড়াও, একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া শিশুর অ্যালার্জির ঝুঁকি অনেকাংশে কমাতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া নিরাপদ। তবে চিনাবাদাম খাওয়ার আগে নিশ্চিত হওয়া উচিত যে গর্ভবতী চিনাবাদামে অ্যালার্জির অভিযোগ না করে।

পরবর্তী অংশে, আমরা গর্ভাবস্থায় সীমিত পরিমাণে চিনাবাদাম খাওয়ার বিষয়ে জানব।

গর্ভাবস্থায় কতটা চিনাবাদাম খাওয়া নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি কাটিয়ে উঠতে, চিকিৎসকরা প্রায় 28 গ্রাম চিনাবাদাম খাওয়ার পরামর্শ দেন। একই সময়ে, দুই চা চামচ পর্যন্ত পিনাট বাটার হিসাবে গ্রহণ করা যাবে। প্রতিদিন 28 গ্রাম চীনাবাদাম খাওয়া গর্ভাবস্থায় নিরাপদ। কারো যদি উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল বা অন্য কোনো রোগ থাকে, তাহলে চিনাবাদাম খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

নিরাপদ পরিমাণে চিনাবাদাম খাওয়ার পর এখন আমরা জানবো গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার সঠিক সময় সম্পর্কে।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার উপযুক্ত সময় কখন?

প্রয়োজনীয় পুষ্টি পূরণের জন্য ডাক্তার গর্ভাবস্থায় বাদাম খাওয়ার পরামর্শ দিতে পারেন। চিনাবাদাম প্রথম থেকে তৃতীয় ত্রৈমাসিকে খাওয়া যেতে পারে। গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে প্রথম এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে চিনাবাদাম খাওয়া অ্যালার্জির ঝুঁকি অনেকাংশে কমাতে পারে। গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া উপকারী, তবে প্রথম এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় এটির ব্যবহার আরও বেশি উপকারী।

চিনাবাদাম খাওয়ার সঠিক সময় জানার পর এখন আমরা চিনাবাদামের পুষ্টিগুণ নিয়ে কথা বলব।

চিনাবাদামের পুষ্টিগুণ

100 গ্রাম চীনাবাদামে উপস্থিত কিছু পুষ্টির তথ্য নিম্নরূপ :

100 গ্রাম চীনাবাদামে 6.5 গ্রাম পানি এবং 567 কিলোক্যালরি শক্তি রয়েছে।
ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, কপার, জিঙ্ক, ম্যাঙ্গানিজ, সোডিয়াম এবং সেলেনিয়াম 100 গ্রাম চীনাবাদামে খনিজ আকারে পাওয়া যায়, যার মধ্যে ম্যাগনেসিয়াম সর্বাধিক পরিমাণে থাকে।
100 গ্রাম চিনাবাদামে পাওয়া ভিটামিনের মধ্যে প্রধানত থিয়ামিন, রিবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড, ভিটামিন বি-6, ফোলেট, কোলিন, বেটেইন এবং ভিটামিন ই রয়েছে। এর মধ্যে চিনাবাদামে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে নিয়াসিন থাকে।

পাশাপাশি, 100 গ্রাম চিনাবাদামে লিপিড আকারে স্যাচুরেটেড, পলিআনস্যাচুরেটেড এবং মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যার মধ্যে সর্বোচ্চ পরিমাণ মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে।

চিনাবাদামের পুষ্টিগুণ জানার পর এখন আমরা জানবো গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার উপকারিতা।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার উপকারিতা কি?

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদামের উপকারিতা অনেক, যা সম্পর্কে আমরা পোস্টের এই অংশে বিস্তারিতভাবে জানব। এর পাশাপাশি, চিনাবাদাম কীভাবে এই সমস্যাগুলিতে উপশম দিতে কাজ করতে পারে তাও জানাবো।

রক্তস্বল্পতা উপশম করেঃ পোস্টের শুরুতে উল্লেখ করা হয়েছে, চিনাবাদামে অনেক পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। আয়রন এছাড়াও এই পুষ্টির অন্তর্ভুক্ত। বিশেষজ্ঞদের মতে, আয়রনও গর্ভাবস্থায় স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য পুষ্টি উপাদানগুলির মধ্যে একটি। কারণ এই সময়ে অনেক মহিলাই আয়রনের ঘাটতির কারণে রক্তস্বল্পতার সমস্যায় ভোগেন। তাই আয়রন সমৃদ্ধ চিনাবাদাম সেবন এই সমস্যার ঝুঁকি অনেকাংশে কমাতে সহায়ক।

হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারীঃ চিনাবাদাম খাওয়া হার্টের স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের চিনাবাদাম নিয়ে করা গবেষণা এটি নিশ্চিত করেছে। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে চিনাবাদামে উপস্থিত মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরে ট্রায়াসিলগ্লিসারল (এক ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড) এর পরিমাণ কমাতে কাজ করে। এর সাথে, এতে উপস্থিত ডায়েটারি ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম, ফোলেট, আলফা টোকোফেরল, কপার এবং আরজিনিনের মতো উপাদানগুলি হার্টের ঝুঁকি বাড়ায় এমন উপাদানগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম।

কোলন ক্যান্সারে উপকারীঃ ওয়ার্ল্ড জার্নাল অফ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজির একটি গবেষণা অনুসারে, চিনাবাদাম বা এটি থেকে তৈরি পণ্য খাওয়া কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। কারণ হল চিনাবাদামে অ্যান্টি-প্রলিফারেটিং (ক্যান্সার কোষ কমানো) প্রভাব পাওয়া যায়। এই প্রভাবের কারণে, চিনাবাদাম অন্ত্রের ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগেও কিছুটা উপশম পেতে সাহায্য করে। মনে রাখবেন ক্যান্সার একটি প্রাণঘাতী রোগ, যার চিকিৎসা নির্ভর করে শুধুমাত্র চিকিৎসকের পরামর্শের উপর। অতএব, যদি কোনও গর্ভবতী মহিলা অন্ত্রের ক্যান্সারে আক্রান্ত হন তবে চিনাবাদাম ব্যবহারের আগে অবশ্যই একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

মানসিক বিকাশে সহায়কঃ মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য চিনাবাদাম ব্যবহার করা উপকারী। গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে ওলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা মস্তিষ্কে রক্ত ​​প্রবাহকে উৎসাহিত করে। এটি মানসিক বিকাশকে উন্নীত করতে পারে।

শুধু তাই নয়, চিনাবাদামে উপস্থিত ভিটামিন-বি-৯ (ফলিক অ্যাসিড) মস্তিষ্কের বিকাশেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও, ফলিক অ্যাসিড ভ্রূণের বিকাশে একটি প্রধান ভূমিকা পালন করে। এই তিনটি তথ্যের পরিপ্রেক্ষিতে, এটি অনুমান করা যেতে পারে যে চিনাবাদাম সেবন গর্ভাবস্থায় মহিলাদের মানসিক স্বাস্থ্য বজায় রাখার পাশাপাশি ভ্রূণের বিকাশের জন্য উপকারী।

ওজন বৃদ্ধিতে সহায়কঃ শুরুতে উল্লিখিত হিসাবে, ডাক্তাররা কম ওজনের গর্ভবতী মহিলাদের ওজন বাড়ানোর জন্য খাদ্যতালিকায় বাদাম (চিনাবাদাম) এবং চিনাবাদামের মাখন খাওয়ার পরামর্শ দেন। কারণ চিনাবাদাম ক্যালোরি সমৃদ্ধ। এই কারণেই চিনাবাদামের নিয়মিত সেবন কিছু পরিমাণে ওজন বাড়ানোর প্রচেষ্টায় ইতিবাচক প্রভাব প্রদর্শন করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে সহায়কঃ কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতেও চিনাবাদাম ব্যবহার করা যেতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, চিনাবাদামে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে, যা মল ঢিলা করে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে কাজ করে। তাই, চিনাবাদাম খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের অভিযোগ অনেকাংশে ভালো হয়ে যায়।

বিষণ্নতা উপশমঃ আপনি ইতিমধ্যে জানেন যে চিনাবাদাম খাওয়া মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। এছাড়াও, চিনাবাদাম বিষণ্নতা এবং মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যাতেও উপকারী ফলাফল প্রদর্শন করে। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ট্রিপটোফ্যান রিসার্চের একটি গবেষণা থেকে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে। গবেষণায় বলা হয়েছে, চিনাবাদামে ট্রিপটোফ্যান (এক ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিড) নামক একটি বিশেষ উপাদান পাওয়া যায়। এই উপাদানটি হতাশা এবং মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যায় একটি ইতিবাচক প্রভাব প্রদর্শন করে।

প্রোটিন সমৃদ্ধঃ অন্যান্য পুষ্টির পাশাপাশি, চিনাবাদামেও প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রোটিন ভ্রূণের বিকাশে (ত্বক, হাড় এবং পেশী নির্মাণ) পাশাপাশি পেশী শক্তিশালী করতে সহায়ক। গর্ভাবস্থায় উন্নত স্বাস্থ্য বজায় রাখার পাশাপাশি চিনাবাদাম ভ্রূণের বিকাশের জন্য উপকারী।

জিঙ্কের ভালো উৎসঃ অন্যান্য পুষ্টির মতো জিঙ্কেরও গর্ভাবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। জার্নাল অফ ক্লিনিক্যাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক রিসার্চ-এর এক গবেষণায় বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এতে চিনাবাদামকে জিঙ্কের ভালো উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়। জিঙ্ক অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টির শোষণের পাশাপাশি ভিটামিন-এ এবং ভিটামিন-ডি সক্রিয় করতে সাহায্য করে। উপরন্তু, এটি ভ্রূণের বিকাশ এবং দুধ উৎপাদনকেও উন্নীত করতে পারে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করেঃ বর্ধিত রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছেন এমন ব্যক্তির জন্য চিনাবাদামও খুব উপকারী। বাদাম সম্পর্কিত একটি গবেষণা এটি নিশ্চিত করে। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে বাদাম খাওয়া সিস্টোলিক এবং ডায়াস্টোলিক উভয় রক্তচাপ কমাতে সহায়ক। গবেষণায় নেওয়া এই বাদামের মধ্যে চিনাবাদামও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তাই উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছেন এমন গর্ভবতী মহিলাদের জন্য চিনাবাদাম খাওয়া উপকারী।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করেঃ চিনাবাদাম সেবন মহিলাদের রক্তে শর্করার বৃদ্ধির ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের সমস্যায় (গর্ভাবস্থায় চিনি), ডাক্তাররা বাদাম এবং চিনাবাদামের মাখন খাওয়ার পরামর্শ দেন। এই ভিত্তিতে, এটি অনুমান করা যেতে পারে যে গর্ভাবস্থায় রক্তে শর্করার বৃদ্ধির ঝুঁকি হ্রাস করার উদ্দেশ্যে চিনাবাদামের ব্যবহার উপকারী।

পরবর্তী অংশে আমরা চিনাবাদাম খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে তথ্য দেব।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার অপকারিতা

নিচের বিষয়গুলোর মাধ্যমে আমরা চিনাবাদামের অতিরিক্ত সেবনের কিছু অপকারিতা সম্পর্কে জানবো।

১. চিনাবাদামের ছাঁচে আফলাটক্সিন নামক একটি বিষাক্ত পদার্থ পাওয়া যায়, যা লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। এই কারণেই ছাঁচযুক্ত চিনাবাদাম খাওয়া উচিত নয়।
২. আপনি জানেন যে চিনাবাদাম সেবন কিছুটা ওজন বাড়াতে কাজ করতে পারে। অতএব, অতিরিক্ত ওজনের মহিলাদের এর ব্যবহার এড়ানো উচিত।
৩. কিছু বিশেষ কীটনাশক ব্যবহার করা হয় চিনাবাদামকে দীর্ঘ সময়ের জন্য সংরক্ষণ করার জন্য, যা কিছু পরিমাণে এর দানা দ্বারা শোষিত হয়। এই কারণে, চিনাবাদাম অত্যধিক খাওয়ার কারণে কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া প্রদর্শিত হতে পারে।

প্রবন্ধের পরবর্তী অংশে আমরা চিনাবাদাম খাওয়ার সময় কিছু বিষয়ের কথা বলব।

চিনাবাদাম খাওয়ার সময় যেসব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে

নিম্নলিখিত বিষয়গুলির মাধ্যমে আমরা চিনাবাদাম খাওয়ার সময় কী কী সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে তা জানার চেষ্টা করব:

১. অতিরিক্ত ওজনের ক্ষেত্রে, চিনাবাদাম খাওয়া উচিত নয়, কারণ এটি খেলে ওজন বাড়ে।
২. বমি বা ডায়রিয়ার ক্ষেত্রে চিনাবাদাম খাওয়া উচিত নয়।
৩. কিডনিতে পাথরের সমস্যায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের চিনাবাদাম খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত।
৪. যারা রক্তে শর্করা-কমাবার ওষুধ গ্রহণ করেন তাদের চিনাবাদামের অত্যধিক ব্যবহার এড়ানো উচিত, কারণ এটি রক্তের শর্করাকে কমায়।
৫. একবারে বেশি চিনাবাদাম খাবেন না। এছাড়াও, লবণ-সমৃদ্ধ চিনাবাদামের ব্যবহারও কমিয়ে আনতে হবে।

এবার আমরা গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার কিছু সহজ উপায় সম্পর্কে তথ্য দেব।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার উপায়

নিম্নলিখিত বিষয়গুলির মাধ্যমে, আমরা গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়ার কিছু সহজ উপায় জানতে পারি, যা নিম্নরূপ:

  • শুকনো ভুনা চিনাবাদাম স্ন্যাকস হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • চিনাবাদাম লবণাক্ত পানিতে খোসা দিয়ে সিদ্ধ করে খাবারেও ব্যবহার করা যায়।
  • ভাজা চিনাবাদাম যাতে সুষম পরিমাণে লবণ থাকে তাও ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার একটি সহজ বিকল্প হতে পারে।
  • চিনাবাদামের চাটনি বানিয়েও ব্যবহার করা যায়।
  • যেকোনো সিরিয়ালে চিনাবাদাম যোগ করে এটি ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

আমি কি গর্ভাবস্থায় কাঁচা চিনাবাদাম খেতে পারি?

কাঁচা চিনাবাদামে ছত্রাকের প্রবণতা বেশি। উপরে উল্লেখ করা হয়েছে যে ছত্রাকযুক্ত চিনাবাদাম খাওয়া লিভার ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। তাই গর্ভাবস্থায় কাঁচা চিনাবাদাম না খাওয়াই ভালো।

গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খেলে কি শিশু বুদ্ধিমান হয়?

চিনাবাদামে ওমেগা-৩ এবং ওমেগা-৬ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা শিশুর মানসিক বিকাশে সহায়ক। তাই গর্ভাবস্থায় চিনাবাদাম খাওয়া শিশুকে বুদ্ধিমান করে তুলতে পারে।

চিনাবাদামের উপকারিতা এবং এতে উপস্থিত পুষ্টিগুণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানার পর এখন নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন এটি গর্ভাবস্থায় কতটা উপকারী। এর সাথে, আপনি এটির ব্যবহার, সতর্কতা এবং ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার কিছু সহজ উপায় সম্পর্কেও শিখেছেন।

তাই দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই চিনাবাদামকে আপনার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন এবং অন্যান্য গর্ভবতী মহিলাদেরও এর উপকারিতা সম্পর্কে জানান। আমরা আশা করি এই পোস্টটি একটি স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থা বজায় রাখার জন্য আপনার প্রচেষ্টায় কার্যকর প্রমাণিত হবে। আপনার চেনাশোনাতে কোনো মহিলা গর্ভবতী হলে, এই লেখাটি তার সাথে শেয়ার করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (25 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button