প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়ার নিয়ম এবং উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় পদার্পণ করার সাথে সাথেই সবাই পরামর্শ দেওয়া শুরু করে। কেউ বলে এটা করো, কেউ বলে ওটা করো। সেই সঙ্গে কেউ কেউ কী কী খাওয়া-দাওয়া বর্জন করতে হবে তার একটা তালিকাও তৈরি করেন। মূলত, এই সবের উদ্দেশ্য হল আপনার এবং অনাগত শিশুর ভাল স্বাস্থ্য। কিছু লোক গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়ার পরামর্শ দেয়, কিন্তু সত্যিই কি গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়া উচিত? এই সন্দেহ দূর করার জন্য, এই পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়ার নিয়ম এবং উপকারিতা সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

গর্ভাবস্থায় জাফরান কি নিরাপদ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়া নিরাপদ, যদি এটি সঠিক পরিমাণে খাওয়া হয়। অতিরিক্ত যেকোন কিছু ব্যবহার করলে খারাপ প্রভাব পড়ে। জাফরানের ক্ষেত্রেও ঠিক তাই। তাই জাফরান ব্যবহার করতে হলে এর সুষম পরিমাণের দিকে মনোযোগ দিতে হবে।

গর্ভাবস্থায় কতটা জাফরান ব্যবহার করা নিরাপদ?

গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে, প্রতিদিন 20-30 মিলিগ্রাম জাফরান ব্যবহার করা যেতে পারে, কারণ এই সময়ে গর্ভপাতের ঝুঁকি কম থাকে। ডাক্তাররা প্রথম ত্রৈমাসিকে জাফরান ব্যবহার করতে নিষেধ করেন, কারণ এই সময়ে জাফরান ব্যবহার করা জরায়ু সংকোচন এবং গর্ভপাতের ঝুঁকি বাড়ায়।

আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে গর্ভাবস্থায় কতটা জাফরান খাওয়া উচিত। এখন আপনি জানেন কখন এটি খেতে হবে।

গর্ভাবস্থায় জাফরান কখন খাবেন?

এই প্রশ্নটিও অনেক নারীর মনে বারবার আসে যে কোন মাস থেকে জাফরান খাওয়া শুরু করা যায়? আমরা কি এটি শুরু থেকে খেতে পারি নাকি একটি নির্দিষ্ট মাস থেকে খাওয়া শুরু করা উচিত? এখানে আমরা বলে রাখি যে গর্ভাবস্থায় জাফরান গ্রহণের জন্য আপনার তাড়াহুড়ো করা উচিত নয়। আপনি যদি শুরুতে জাফরান খাওয়া শুরু করেন, তাহলে জরায়ুতে সংকোচন শুরু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, যার ফলে গর্ভপাত হতে পারে। আয়ুর্বেদের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক থেকে জাফরান ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনি গর্ভাবস্থার পঞ্চম মাস থেকে জাফরান খাওয়া শুরু করতে পারেন, তবে নিজে থেকে জাফরান সেবন করবেন না, প্রথমে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ।

আসুন এখন জেনে নিই গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়ার উপকারিতা কি কি।

গর্ভাবস্থায় জাফরানের উপকারিতা

আমরা যেমন বলেছি, পরিমাণ ও সঠিক সময়ের কথা মাথায় রেখে যদি জাফরান গর্ভাবস্থায় ব্যবহার করা হয়, তাহলে এর অনেক অলৌকিক উপকার হতে পারে। তাই, নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়ার উপকারিতাগুলি বলছি:

মেজাজ পরিবর্তনে উপকারী: গর্ভাবস্থায় অনেক হরমোনের পরিবর্তন হয়, যার কারণে গর্ভবতীর অনেক ধরনের মেজাজ পরিবর্তন হয়। মাঝে মাঝে অকারণে রাগ, খিটখিটে এবং কান্নাকাটি হওয়া স্বাভাবিক। এমন পরিস্থিতিতে, জাফরান খাওয়ার মাধ্যমে বিষণ্নতা কাটিয়ে উঠতে পারে, যা একজন ব্যক্তিকে ভাল অনুভব করে। তাই, পরের বার যখন আপনি মানসিক চাপ অনুভব করবেন, তখন এমন কিছু খান যাতে জাফরান থাকে। এতে আপনার ভালো লাগবে।

উচ্চ রক্তচাপ উপশম করে: গর্ভাবস্থায় একজন মহিলার উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা থাকে, অন্যদিকে জাফরানের বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা উচ্চ রক্তচাপ উপশম করতে সাহায্য করে। জাফরানে রয়েছে পটাসিয়াম এবং ক্রোসেটিন, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

সকালের অসুস্থতা থেকে মুক্তি: বেশিরভাগ মহিলারা গর্ভাবস্থায় মর্নিং সিকনেসে ভোগেন। বমি বমি ভাব, বমি, সকালে ঘুম থেকে উঠার সময় অলস বোধ করার মতো অনেক সমস্যা গর্ভাবস্থায় সাধারণ। জাফরান এই সমস্যাগুলি থেকে মুক্তি পেতে খুব সহায়ক।

ক্র্যাম্প উপশম করে: আপনার শিশুর বিকাশের সাথে সাথে আপনার পেশীগুলি গর্ভাবস্থায় প্রসারিত হবে, যা পেটে খিঁচুনি এবং ব্যথার জন্য স্বাভাবিক। জাফরানের অ্যান্টি-স্পাসমোডিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা পেশীগুলির জন্য উপকারী। তারা ক্র্যাম্প থেকে ত্রাণ প্রদান করে।

হার্ট সংক্রান্ত সমস্যা প্রতিরোধ করে: গর্ভাবস্থায় কিছু না কিছু খাওয়ার ইচ্ছা থাকা স্বাভাবিক। অবশ্য এই সময়ে আপনাকে বেশি ক্যালরি নিতে হবে, কিন্তু একই সঙ্গে হার্ট সংক্রান্ত কোনো সমস্যা যাতে না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। এই ক্ষেত্রে, জাফরান আপনাকে সাহায্য করতে পারে। জাফরানে রয়েছে ক্রোসেটিন, পটাসিয়াম এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য, যা কোলেস্টেরলের মাত্রা ভারসাম্য রাখে এবং হার্টের সমস্যার ঝুঁকি কমায়।

শরীরে আয়রনের পরিমাণ বাড়ায়: বেশিরভাগ মহিলাই গর্ভাবস্থায় রক্তস্বল্পতার অভিযোগ করেন। তাই গর্ভবতী মহিলাদের আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। জাফরানে রয়েছে আয়রন, যা হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ আয়রন যুক্ত খাবার এর তালিকা, ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার গুলো কি কি

গর্ভাবস্থায় চুল পড়া রোধ করে: হরমোনের পরিবর্তনের কারণে গর্ভাবস্থায় চুল পড়া হয়। জাফরান এবং লিকোরিস পিষে তৈরি করা পেস্ট, দুধের সাথে মিশিয়ে চুলে লাগালে চুল পড়া কমে যায়।

ভালো ঘুম: গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যায় সব নারীই ভুগে থাকেন। এমন অবস্থায় রাতে ঘুমানোর সময় জাফরান দুধ পান করলে আপনার ঘুম ভালো হবে এবং আপনি শান্তিতে ঘুমাতে পারবেন।

ত্বকের সমস্যার চিকিৎসা করে: গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের কারণে ত্বকের সমস্যা যেমন ব্রণ হওয়া স্বাভাবিক। এমন পরিস্থিতিতে জাফরানের ব্যবহার এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।

এলার্জি থেকে রক্ষা করে: গর্ভাবস্থায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় এলার্জি ও সংক্রমণ তাড়াতাড়ি ধরা পড়ে। এক্ষেত্রে জাফরান আপনাকে অ্যালার্জি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। জাফরান দুধ অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করবে।

শিশুর নড়াচড়ায় সহায়ক: আয়ুর্বেদে বলা হয়েছে জাফরান শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায়। আপনি যখন গর্ভাবস্থায় জাফরান ব্যবহার করেন, তখন এটি শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায় এবং শিশু ভিতরে নড়াচড়া শুরু করে। গর্ভবতী শিশুর নড়াচড়া অনুভব করা সত্যিই উত্তেজনাপূর্ণ।

দাঁতের সংবেদনশীলতা দূর করে: গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের কারণে দাঁত সংক্রান্ত সমস্যা হতেই থাকে। জাফরান পিষে, দাঁত ও মাড়িতে মালিশ করতে পারেন।

উপকারিতার পরে, আসুন এর অপকারিতাগুলো দেখি।

গর্ভাবস্থায় জাফরানের অপকারিতা

জাফরান একটি প্রাকৃতিক ওষুধ, কিন্তু এর মানে এই নয় যে এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। জাফরানের অতিরিক্ত ব্যবহার গর্ভবতীর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। নীচে আমরা জাফরানের অপকারিতা সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি:

গর্ভপাতের ঝুঁকি: গর্ভাবস্থায় জাফরান জরায়ু সংকোচন শুরু করার ঝুঁকি বাড়াতে পারে, যা গর্ভপাতেরও কারণ হতে পারে। আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের মতে, জাফরান শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায় এবং গর্ভপাত হতে পারে । তাই সবসময় চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই জাফরান ব্যবহার করুন।

অতি সংবেদনশীলতা: কিছু মহিলা জাফরান খাওয়ার পরে নার্ভাসনেস, বমি বমি ভাব, শুষ্ক মুখ এবং মাথাব্যথা অনুভব করতে পারে। এক্ষেত্রে জাফরান ব্যবহার না করাই ভালো।

বমি: অনেক সময় গর্ভাবস্থায় জাফরান ব্যবহার করলে বমি হতে পারে। যদি তাই হয়, একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি ছাড়াও, যদি জাফরান খাওয়ার পরে নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি পরিলক্ষিত হয়, তাহলে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।

  • মল বা প্রস্রাবে রক্ত
  • চোখের পাতা, ঠোঁট ও নাক থেকে রক্তপাত
  • শরীরের অসাড়তা
  • চোখের সামনে অন্ধকার
  • মাথা ঘোরা
  • শরীরে হলুদ ভাব

এগুলি ছিল জাফরানের কিছু অপকারিতা, যা উপেক্ষা করা উচিত নয়। এবার জেনে নিন, গর্ভাবস্থায় নিরাপদে জাফরান খাওয়ার উপায়।

গর্ভাবস্থায় নিরাপদে জাফরান খাওয়ার নিয়ম

আপনি যদি গর্ভাবস্থায় প্রথমবার জাফরান গ্রহণের কথা ভাবছেন, তবে এটি গ্রহণ করার বিষয়ে আপনার মনে অনেক প্রশ্ন থাকবে। নীচে আমরা আপনাকে এই সম্পর্কিত কিছু টিপস দিচ্ছি:

দুধের সাথে নিন: গর্ভাবস্থায়, শিশুর বিকাশের জন্য আপনার বেশি ক্যালসিয়াম প্রয়োজন। আপনার 5ম মাস শুরু হওয়ার সাথে সাথে আপনি এক গ্লাস দুধে কিছু জাফরান স্ট্র্যান্ড যোগ করতে পারেন। বাদামের সাথে জাফরান পিষে পেস্ট তৈরি করে দুধের সাথে মিশিয়ে পান করতে পারেন।

ভাত বা স্যুপের সাথে জাফরান: যে কোনও খাবার সাজাতে উপরে কয়েকটি জাফরান ছিটিয়ে দেওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া যে কোনো স্যুপে দুই থেকে তিনটি জাফরানও পান করা যেতে পারে।

জাফরান ভিজিয়ে রাখা: জাফরান গুলোকে দুধে বা পানিতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ভিজিয়ে রাখতে পারেন। এতে পানি বা দুধে জাফরানের রঙ ও গন্ধ আসবে। তারপরে আপনি এই জলটি আপনার থালায় একসাথে খেতে পারেন, আপনি এভাবে দুধ পান করতে পারেন।

গার্নিশিং করে: আপনি যদি সালাদ বানাচ্ছেন, তাহলে জাফরান হাত দিয়ে ভেঙে সালাদ সাজাতে পারেন।

দ্রষ্টব্য: জাফরান খাওয়ার অন্যান্য নিরাপদ উপায় জানতে আপনি একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

জাফরান সংরক্ষণের টিপস

নীচে আমরা আপনাকে এমন কিছু টিপস দিচ্ছি, যার সাহায্যে আপনি জাফরানকে দীর্ঘ সময়ের জন্য সুরক্ষিত রাখতে পারবেন, জেনে নিন এই পদ্ধতিগুলি:

১. জাফরান কেনার পরে, এটি একটি শীতল এবং অন্ধকার জায়গায় একটি বায়ুরোধী পাত্রে রাখুন। এটি জাফরানকে ছয় মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে দেয় এবং এর সুগন্ধ ও স্বাদ ধরে রাখে।

২. আপনি ফুয়েল পেপারে জাফরান মুড়ে ফ্রিজে বায়ুরোধী পাত্রে সংরক্ষণ করতে পারেন। জাফরান ভালোভাবে সংরক্ষণ করলে তিন বছর নষ্ট হবে না। সময়ের সাথে সাথে এর স্বাদ কিছুটা বিবর্ণ হতে পারে তবে এর বৈশিষ্ট্যগুলি থাকবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়া কি আমার শিশুর গায়ের রং ফর্সা করতে পারে?

না। এটা এমন নয়। গর্ভাবস্থায় জাফরান খেলে ফর্সা বাচ্চার জন্ম হবে, এটা সম্পূর্ণ মিথ। এর কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই। একটি শিশুর গাত্রবর্ণ তার জিনের উপর নির্ভর করে, যা সম্পূর্ণ জেনেটিক। শিশুর গায়ের রং কোনো খাবার বা পানীয় দ্বারা প্রভাবিত হয় না।

আসল এবং নকল জাফরানের মধ্যে পার্থক্য কী?

জাফরান একটি দামি ওষুধ, যার কারণে আপনি বাজারে নকল জাফরানও পেতে পারেন। এমন পরিস্থিতিতে কেউ কেউ আসল জাফরান আর নকল জাফরানের পার্থক্য করতে পারছেন না। নীচে আমরা আপনাকে আসল এবং নকল জাফরানের মধ্যে পার্থক্য জানতে কিছু টিপস বলছি:

* সত্যিকারের জাফরান হল লাল এবং কমলার মিশ্রণ, এর কোণ কমলা রঙের। জাফরানের রং সম্পূর্ণ লাল হলে বুঝবেন এটি ভেজাল।

* জাফরানের স্বাদ নিন, যদি এটি মিষ্টি হয় তবে এটি নকল, কারণ আসল জাফরানে তিক্ততা রয়েছে।

* মনে রাখবেন জাফরানে সাদা এবং হলুদ তন্তু নেই। যদি তাই হয়, তাহলে হয়তো জাফরান ফুলের অন্য কোনো অংশ এতে যোগ করা হয়েছে।

* এছাড়া পানিতে রেখে আসল ও নকল জাফরান শনাক্ত করা যায়। জলে কিছু জাফরান স্ট্র্যান্ড রাখুন। জাফরান অবিলম্বে বিবর্ণ হতে শুরু করলে, এটি নকল হতে পারে।

এই পোস্ট থেকে বোঝা যায় যে গর্ভাবস্থায় জাফরান খাওয়া নিরাপদ, তবে এর অতিরিক্ত পরিমাণ ক্ষতিকারক হতে পারে। এছাড়াও, সবার গর্ভধারণ এক রকম হয় না, তাই ডাক্তারের পরামর্শের পরেই এটি সেবন করা উচিত। এছাড়াও, সমস্ত পরিচিত গর্ভবতী মহিলাদের সাথে এই লেখাটি শেয়ার করতে ভুলবেন না।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button