প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় সর্দি কাশি দূর করার ঘরোয়া উপায় ও প্রতিকার

গর্ভাবস্থায় একজন মহিলার সর্দি এবং ফ্লুর সমস্যা হওয়া সাধারণ ব্যাপার। গর্ভাবস্থায় একজন মহিলা খুব সংবেদনশীল হয়ে পড়ে, যার কারণে সর্দি, কাশি এবং সর্দির মতো সমস্যা বেড়ে যায়। এই সমস্যাটি ছোটখাটো মনে হলেও সঠিক সময়ে নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে তা আরও বাড়তে পারে। এটি মা এবং অনাগত শিশু উভয়ের জন্যই অস্বস্তির কারণ। এছাড়াও, গর্ভবতীকে কোন ওষুধ খাওয়ার আগে ডাক্তারের কাছে পরীক্ষা করানো উচিৎ।

এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির মতো সমস্যাগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। এই পোস্টে, আমরা জানব গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির কারণ কী, এর ঘরোয়া প্রতিকার কী এবং কীভাবে প্রতিরোধ করা যায়। আপনি এই পোস্টে এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পাবেন।

গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির কারণ

একটি ঠান্ডা উপরের শ্বাসযন্ত্রের সিস্টেমের একটি সাধারণ সংক্রমণ। অনেকে বিশ্বাস করেন যে ঠাণ্ডার সংস্পর্শে আসা বা ঠাণ্ডায় গরম কাপড় না পরার ফলে সর্দি হয়, তবে অন্যান্য কারণও রয়েছে। সর্দি-কাশির জন্য অনেক ধরনের ভাইরাস দায়ী। গর্ভাবস্থায় সর্বোচ্চ তিন সপ্তাহ পর্যন্ত গর্ভবতীর মধ্যে এর লক্ষণ দেখা যায়। আসুন, জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির কারণ কীঃ

হিউম্যান রাইনো ভাইরাসঃ এরকম অনেক ভাইরাস আছে, যেগুলো সর্দি-কাশির কারণ হতে পারে। এগুলো সাধারণত ব্যক্তির নাকে পাওয়া যায়। এই ভাইরাসগুলো দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে, কিন্তু কোনো গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি করে না।

করোনা ভাইরাসঃ মাত্র ছয় ধরনের ভাইরাস মানুষকে প্রভাবিত করে, অন্যান্য ভাইরাস বেশির ভাগই প্রাণীদের মধ্যে পাওয়া যায়।

হিউম্যান প্যারাইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস (এইচপিভি), অ্যাডেনোভাইরাস এবং রেসপিরেটরি সিনসিটিয়াল ভাইরাস (আরএসভি): এই ভাইরাসটি হালকা সংক্রমণ ঘটাতে পারে। এটি বেশিরভাগই দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস প্রাথমিকভাবে টাইপ N1H1, যা সোয়াইন ফ্লু ঘটায়।

গর্ভাবস্থায় ঠান্ডা লক্ষণ

সর্দি-কাশির লক্ষণ চিনতে বেশি সময় লাগে না। সামান্য ঠাণ্ডা হলেই এর উপসর্গ দেখা দেয়, যা কয়েকদিন ধরে থাকে। আপাতত, আমরা নীচে গর্ভাবস্থায় সর্দি এবং ফ্লুর কিছু সাধারণ লক্ষণ তালিকাভুক্ত করছিঃ

  • একটানা হাঁচি
  • ক্লান্তি আনুভব করা
  • হালকা জ্বর অনুভব করা (তাপমাত্রা 100 ডিগ্রি ফারেনহাইটের কম)
  • কফ কাশি
  • গলা ব্যথা আনুভব করা
  • নাক বন্ধ
  • মাথাব্যথা

গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির ঘরোয়া প্রতিকার

সর্দি, কাশি, সর্দি-কাশির মতো সমস্যায় বেশির ভাগ মানুষই প্রথমে ঘরোয়া প্রতিকার নিতে পছন্দ করেন। এমন অনেক গুণাগুণসম্পন্ন জিনিস আপনি ঘরে পাবেন, যা এই রোগে অনেক উপকারী। নীচে আমরা আপনাকে গর্ভাবস্থায় সর্দি এবং শুকনো কাশি থেকে মুক্তি পেতে কিছু ঘরোয়া প্রতিকারের কথা বলছিঃ

বেশি বেশি তরল গ্রহণ করুনঃ আপনার ক্ষুধা ঠাণ্ডা দ্বারা প্রভাবিত হয়। আপনার শরীরে পুষ্টি ও পানির কোনো ঘাটতি নেই, সে জন্য বেশি বেশি করে তরল গ্রহণ করুন। আপনি তাজা ফলের রস, স্যুপ এবং ঝোল পান করতে পারেন। তরল কফ নিষ্কাশন সাহায্য করবে। দিনে আট থেকে দশ গ্লাস পানি পান করতে হবে।

পুষ্টিকর জিনিস খানঃ গর্ভাবস্থায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায়, যার কারণে সর্দি-কাশি শুরু হয়। তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে পুষ্টিকর জিনিস খেতে হবে। আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাকসবজি, টমেটো, পালং শাক এবং ফল অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করুন, যাতে আপনি প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পান এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে, যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। যা-ই হোক, খাওয়া-দাওয়া একেবারেই বন্ধ করবেন না। দিনে তিনবার না খেয়ে ছয়বার খান।

বিশ্রামঃ ঠান্ডা-সর্দির সময় সর্বোচ্চ বিশ্রাম নেওয়া প্রয়োজন। আপনি যত বেশি ঘুমাবেন, তত বেশি বিশ্রাম নিবেন, তত তাড়াতাড়ি আপনি এই রোগ থেকে মুক্তি পাবেন। বিছানা বিশ্রামের কারণে, এই সংক্রমণ পরিবারের অন্য সদস্যদের মধ্যে ছড়ায় না।

মাথা উঁচু করে রাখুনঃ শোয়ার সময় মাথা উঁচু করে রাখুন। এ জন্য মাথার নিচে বালিশ রাখতে পারেন। এতে আপনার শ্বাস নেওয়া সহজ হবে।

উষ্ণ সংকোচন করুনঃ ঠান্ডার কারণে আপনার নাক বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এতে মাথাব্যথার মতো সমস্যা হয়। এমন অবস্থায় আপনার মাথা গরম কাপড় দিয়ে কম্প্রেস করা উচিৎ। আপনি স্বস্তি পাবেন।

এটি অনুভব করুনঃ সর্দির কারণে নাক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়। এই ক্ষেত্রে, আপনি এটি গরম পানি দিয়ে অনুভব করুন। আপনি বন্ধ নাক থেকে আরাম পাবেন এবং আপনি সঠিকভাবে শ্বাস নিতে সক্ষম হবে। আপনি গরম পানিতে ইউক্যালিপটাস তেলের কয়েক ফোঁটা রাখুন এবং একটি তোয়ালে দিয়ে আপনার মাথা ঢেকে রাখুন যাতে বাষ্প বেরিয়ে না যায়। তারপর বাষ্পের উপর মুখ নিয়ে গভীর শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করুন। এই সময় চোখ বন্ধ রাখুন।

লেবুর রস এবং মধুঃ এটি গলা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে একটি দুর্দান্ত প্রতিকার। এর জন্য এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে এক চামচ মধু ও সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে ধীরে ধীরে পান করুন।

তাজা রসুন খানঃ রসুনের অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্য, যা ভাইরাস দূর করতে সাহায্য করে। প্রতিদিন এক কোয়া রসুন খেতে পারেন।

শুষ্ক কাশি এবং স্বাভাবিক কাশির মধ্যে পার্থক্য কী?

শুষ্ক কাশি এবং সাধারণ কাশির মধ্যে একমাত্র পার্থক্য হল শুকনো কাশিতে শ্লেষ্মা থাকে না এবং সাধারণ কাশিতে কফ থাকে না। নাক ও গলায় সংক্রমণের কারণে শুকনো কাশি হতে পারে। আপনার যখন শুকনো কাশি হয়, তখন আপনি অনুভব করতে পারেন যে আপনার গলায় কিছু আটকে আছে। একই সময়ে, একটি সাধারণ কাশিতে, ফুসফুসে শ্লেষ্মা জমে যা কাশির সময় মুখ থেকে বেরিয়ে আসে।

গর্ভাবস্থায় শুকনো কাশির কারণ

গর্ভাবস্থায় শুকনো কাশি অনেক কারণে হতে পারে। নীচে আমরা এই কারণগুলো বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করতে যাচ্ছিঃ

অ্যালার্জিঃ গর্ভবতী মহিলাদের যে কোনও খাবারে অ্যালার্জি রয়েছে, তাদের এটি খাওয়ার কারণে শুকনো কাশি হতে পারে। গর্ভবতী মহিলার অ্যালার্জিযুক্ত কিছু খাওয়ার সাথে সাথে তার শ্বাস নিতে সমস্যা হবে এবং কাশি শুরু হবে।

হাঁপানিঃ গর্ভবতী ব্যক্তির হাঁপানি থাকলে কাশির সমস্যা হতে পারে।

ব্রঙ্কোস্পাজমঃ যেসব মহিলার আগে থেকেই ব্রঙ্কাইটিসের সমস্যা রয়েছে তাদেরও গর্ভাবস্থায় শুষ্ক কাশি হতে পারে। ব্রঙ্কোস্পাজম পোকামাকড়ের কামড় বা খাদ্যদ্রব্যের অ্যালার্জির কারণেও হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় রাইনাইটিসঃ এটি একটি সমস্যা যা শুধুমাত্র গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে ঘটে, যার কারণে তাদের কাশি শুরু হয়। গর্ভাবস্থায় ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা বেড়ে যায়, যার কারণে অনেক সময় নাকের মিউকাস মেমব্রেন ফুলে যায়। এর ফলে গলা ব্যথা এবং শুকনো কাশি হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় শুকনো কাশির ঘরোয়া প্রতিকার

কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে আপনি গর্ভাবস্থায় শুকনো কাশি থেকে মুক্তি পেতে পারেন। জেনে নিন গর্ভাবস্থায় শুষ্ক কাশির ঘরোয়া প্রতিকার কীঃ

পর্যাপ্ত ঘুমঃ ভালো ঘুম অনেক রোগের নিরাময়। আপনার যদি শুকনো কাশি থাকে, যতটা সম্ভব বিশ্রাম নিন এবং পর্যাপ্ত ঘুমান।

লেবুঃ লেবুর উপর সামান্য কালো গোলমরিচের গুঁড়া চাটলে শুষ্ক কাশি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আদাঃ খাবারের সাথে এক বা দুই টুকরো আদা খাওয়া আপনার জন্য উপকারী।

তুলসী ও মধুঃ তুলসী পাতা পিষে তাতে মধু মিশিয়ে এই পেস্টটি খান। শুকনো কাশি থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন এটি খান।

পেঁয়াজ ও মধুঃ পেঁয়াজের রসে কিছু মধু মিশিয়ে খান। শুষ্ক কাশি থেকে মুক্তি পাবেন।

কমলার রসঃ কমলার রস শুকনো কাশি দূর করতেও সাহায্য করে। এতে রয়েছে ভিটামিন সি, যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

লেবু ও উষ্ণ পানিঃ শুকনো কাশি থেকে উপশম না হলে অর্ধেক লেবু ছেঁকে হালকা গরম পানি পান করতে পারেন। এটি আপনাকে স্বস্তি দেবে।

গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশির ওষুধ

যদিও গর্ভাবস্থায় ঠাণ্ডা ও ফ্লুর জন্য ডাক্তাররা বেশিরভাগ ওষুধ দেন না, তবে সমস্যা আরও বেড়ে গেলে কিছু ওষুধ দেওয়া যেতে পারে। এছাড়াও মনে রাখবেন যে গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে কোনও ওষুধ বা সিরাপ দেওয়া উচিৎ নয়। এটি গর্ভপাত এবং জন্মগত অসঙ্গতির ঝুঁকি বাড়ায়। আসুন কিছু ওষুধ সম্পর্কে জানিঃ

  • অ্যাসিটামিনোফেন, এই ওষুধটি ঠান্ডাজনিত জ্বরে দেওয়া যেতে পারে।
  • সিউডোফেড্রিন।
  • লরাটাডিন।
  • মেন্থল বা নন-মেনথল কাশির সিরাপ।

এছাড়াও, ডাক্তার Vicks VapoRub প্রয়োগ করার এবং নুন দিয়ে হালকা গরম পানিতে গার্গল করার পরামর্শ দিতে পারেন।

দ্রষ্টব্যঃ মনে রাখবেন যে গর্ভাবস্থায় প্রতিটি মহিলার অবস্থান আলাদা হতে পারে। অতএব, আপনার নিজের থেকে কোনও ওষুধ খাওয়া উচিৎ নয়। সর্বদা ডাক্তারের পরামর্শের পরেই ওষুধ খান।

গর্ভাবস্থায় সর্দি-কাশি প্রতিরোধ

গর্ভাবস্থায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হওয়ার কারণে ভাইরাস দ্রুত ধরে নেয় এবং সর্দি-কাশি হয়। এমন পরিস্থিতিতে শুরু থেকেই কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে এড়ানো যায়। নীচে আমরা গর্ভাবস্থায় সর্দি এবং কাশি প্রতিরোধের কিছু টিপস দিচ্ছিঃ

পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুনঃ রাইনোভাইরাস বাতাসের মাধ্যমে কাশি ও সর্দি ছড়ানোর জন্য দায়ী। এটি যাতে ছড়িয়ে না পড়ে সে জন্য আপনাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিতে হবে। যেকোনো কিছু খাওয়ার আগে ও পরে অবশ্যই ভালো করে হাত ধুয়ে নিতে হবে।

ফ্লু ভ্যাকসিনেশনঃ আপনি ফ্লু এবং সর্দি-কাশির বিরুদ্ধেও টিকা নিতে পারেন। ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন এখন নিয়মিতভাবে মহিলাদের দেওয়া হয়। এটি মহিলা এবং শিশুকে 6 মাস পর্যন্ত সুস্থ রাখে।

হ্যান্ড স্যানিটাইজারঃ বাইরে যাওয়ার সময় সবসময় হ্যান্ড স্যানিটাইজার সঙ্গে রাখুন। আপনি কোথাও হাত ধোয়ার সুযোগ নাও পেতে পারেন, হ্যান্ড স্যানিটাইজার আপনার জন্য উপকারী। এতে উপস্থিত অ্যালকোহল সর্দি-কাশির ভাইরাস ছড়াতে বাধা দেয়।

আমি কখন ডাক্তার দেখাতে হবে?

যদিও ঘরোয়া উপায়ে হালকা সর্দি সেরে যায়, কিন্তু গর্ভাবস্থায় কোনো ধরনের ঝুঁকি নেওয়া ঠিক নয়, তাই এই সমস্যা আরও বাড়তে অপেক্ষা করবেন না। আপনার যদি মনে হয় যে আপনার ক্ষুধা কমে যাচ্ছে, এর কারণে আপনি ঠিকমতো ঘুমাতে পারছেন না এবং এই সমস্যা টানা কয়েকদিন থেকে যায়, তাহলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে দেরি করবেন না।

এ ছাড়া সর্দি-কাশিতে শরীরের তাপমাত্রা ১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইট অর্থাৎ ১০০-এর বেশি হতে শুরু করলে দ্রুত চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। এ ছাড়া কাশির সময় বুকে ব্যথা বা বর্ণহীন কফ হলে অবশ্যই চিকিৎসকের কাছে যাবেন। এই ক্ষেত্রে, ডাক্তার আপনাকে অ্যান্টিবায়োটিক দিতে পারেন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্যঃ

গর্ভাবস্থায় শুকনো কাশি কি শিশুকে প্রভাবিত করবে?

না, শুকনো কাশি অনাগত শিশুকে প্রভাবিত করে না। এটি শুধুমাত্র অনাক্রম্যতা দুর্বল করে, যা শুধুমাত্র মাকে প্রভাবিত করে। প্লাসেন্টা শিশুর সম্পূর্ণ সুরক্ষা প্রদান করে, কিন্তু সঠিক সময়ে চিকিৎসা না করলে তা শিশুর বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। সতর্কতা হিসাবে, নিয়মিত আপনার চেক-আপ করাতে থাকুন এবং শিশুর বিকাশের দিকে নজর রাখুন।

গর্ভাবস্থায় সাধারণ কাশি এবং সর্দির ওষুধ খাওয়া কি নিরাপদ?

ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া নিজে থেকে কোনো ওষুধ খাবেন না। কোনো কাশি/ঠাণ্ডা ওষুধ খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন। ডিকনজেস্ট্যান্টে এমন উপাদান থাকতে পারে যা গর্ভাবস্থায় ক্ষতি করতে পারে। কিছু ওষুধে অ্যালকোহলও থাকে, যা শিশুর ক্ষতি করতে পারে।

এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় কাশি এবং সর্দি সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করি এই তথ্যটি আপনাকে আপনার সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে। গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত এই ধরনের আরও তথ্যের জন্য পড়তে থাকুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (14 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button