স্বাস্থ্য

মানসিক চাপ কমানোর উপায় এবং চাপমুক্ত থাকার জন্য করণীয়

স্ট্রেস / মানসিক চাপ কি?

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ শব্দটি আমাদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনি যদি আপনার জীবনে মানসিক চাপ অনুভব করেন তবে এটি স্বাস্থ্যকর লক্ষণ নয়। অত্যধিক চাপ মানসিক সমস্যার মূল কারণ।

আজকাল এমন একজন ব্যক্তিকে কল্পনা করা অসম্ভব যে মানসিক চাপ অনুভব করে না। এমনকি তা ব্যক্তিগত, সামাজিক বা অর্থনৈতিক সমস্যা হলেও। এই সমস্যাগুলো মোকাবেলা করার জন্য বেশিরভাগ লোককে মানসিক চাপের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। মানসিক চাপ শরীর ও মন উভয়ের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে, ফলে অনেক শারীরিক ও মানসিক রোগের জন্ম হয়।

মানসিক চাপের লক্ষণ

স্ট্রেস আপনার মনকে প্রভাবিত করে।

১. এটি আপনার জীবনে হস্তক্ষেপ করে আপনার দৈনন্দিন কাজকর্ম ব্যাহত করতে পারে।

২. কোন কিছুতে মনোযোগ দিতে না পারা, স্মৃতিশক্তি দুর্বল হওয়া, খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন এর অন্যতম প্রধান লক্ষণ।

৩. এটি বিষণ্নতা, উদ্বেগ, বাইপোলার ডিসঅর্ডার ইত্যাদির মতো অনেক গুরুতর মানসিক ব্যাধির জন্ম দেয়।

৪. বর্ধিত মানসিক প্রতিক্রিয়া – কান্নাকাটি বা সংবেদনশীল বা আক্রমণাত্মক হওয়া।

৫. আপনি যদি একটি অত্যন্ত চাপপূর্ণ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যান তবে আপনি নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন এবং কম কাজ শুরু করেন। এটি আপনার কাজের অগ্রগতিতে প্রভাব ফেলে।

৬. আপনি খুব সহজেই বিভ্রান্ত হবেন।

৭. অনুপ্রেরণা, উত্সর্গ এবং আত্মবিশ্বাসের অভাব আপনার সম্পর্ককে প্রভাবিত করতে পারে।

৮. আপনি অন্য লোকেদের থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করতে শুরু করবেন।

শুধু তাই নয়, আপনার মনের উপর অতিরিক্ত চাপের কারণে স্বাস্থ্যের সমস্যা যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, চুল পড়া, বাত, মাথাব্যথা, শ্বাসকষ্ট, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হওয়া, ত্বকের সমস্যা ইত্যাদি।

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিসের লক্ষণ, ডায়াবেটিস কমানোর উপায় ও প্রতিকার

মানসিক চাপের কারণ

স্ট্রেস আপনার জীবনকে খুব কঠিন করে তুলতে পারে পাশাপাশি স্বাস্থ্যের উপর অনেক নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। এছাড়া মানসিক চাপের অনেক কারণ আপনার জীবনের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে-

  • কাজের চাপ
  • চাকরি হারানো
  • বিবাহ বা সম্পর্কের সমস্যা
  • সাম্প্রতিক ব্রেক আপ বা ডিভোর্স
  • পরিবারে মৃত্যু
  • অধ্যয়ন, কর্মজীবন বা আর্থিক অসুবিধা
  • পারিবারিক সমস্যা

মানসিক চাপের কারণ যাই হোক না কেন, স্ট্রেসের প্রতি সবার শরীরের প্রতিক্রিয়া একই। কারণ এই শারীরবৃত্তীয় প্রতিক্রিয়া হল এই কঠিন পরিস্থিতিতে মোকাবেলা করার আপনার শরীরের উপায়। এটি শরীরের “ফাইট-অর-ফ্লাইট রেসপন্স” নামে পরিচিত। এটি একটি রাসায়নিক বিক্রিয়া যা আপনার শরীরকে একটি শারীরিক প্রতিক্রিয়ার জন্য প্রস্তুত করে কারণ এটি শরীরকে অনুভব করে যে এটি আক্রমণের মধ্যে রয়েছে। তবে এই ধরনের চাপ আমাদের পূর্বপুরুষদের প্রকৃতির বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও টিকে থাকতে সাহায্য করেছিল।

মানসিক চাপ হরমোন, শ্বাসযন্ত্র, কার্ডিওভাসকুলার এবং স্নায়ুতন্ত্রের পরিবর্তন ঘটায়। উদাহরণস্বরূপ, স্ট্রেস আপনার হৃদস্পন্দনকে ত্বরান্বিত করতে পারে, আপনার শ্বাস-প্রশ্বাসের হার বাড়াতে পারে এবং ঘামের কারণ হতে পারে।

কিভাবে মানসিক চাপ/ স্ট্রেস নির্ণয় করা হয়?

থেরাপিস্টরা সাধারণত রোগীর উপসর্গ এবং জীবনের ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে মানসিক চাপ নির্ণয় করতে পারেন।

এই রোগ নির্ণয় জটিল। এটা অনেক কারণের উপর নির্ভর করে। এই রোগ নির্ণয়ের জন্য বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করা হয়, তবে চাপ নির্ণয় করার এবং এর প্রভাবগুলি বুঝার সবচেয়ে সরাসরি উপায় হল চাপ-ভিত্তিক, মুখোমুখি কথা বলা বা প্রশ্নের উত্তর দেওয়া।

মানসিক চাপ কমানোর উপায়, চিকিৎসা এবং ব্যবস্থাপনা-

মানসিক চাপ
মানসিক চাপ কমানোর উপায়

চিকিৎসার মধ্যে রয়েছে স্ব-সহায়তা, স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট এবং ওষুধ।

স্ব-সহায়তা

কিছু প্রতিকার আপনি নিজেই করতে পারেন (স্ব-সহায়তা)। মানসিক চাপের অনুভূতি কমাতে আপনি নিম্নলিখিত ব্যবস্থাগুলি চেষ্টা করতে পারেন। মনে রাখবেন যে প্রতিটি প্রতিকার প্রতিটি ব্যক্তির জন্য সমানভাবে কার্যকর নয়। আপনাকে নিজের জন্য সবচেয়ে কার্যকর সমাধান খুঁজে বের করতে হবে –

ব্যায়াম করা – এটা গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে আপনার মানসিক এবং শারীরিক অবস্থা যাই হোক না কেন, ব্যায়াম আপনার উপকারে আসবে।

অ্যালকোহল, ওষুধ এবং ক্যাফেইন গ্রহণ কমানো – এই পদার্থগুলি স্ট্রেস প্রতিরোধে সহায়তা করে না। তাই তাদের সেবন কমিয়ে দিন বা সম্ভব হলে করবেন না।

আরো পড়ুনঃ কফির উপকারিতা ও অপকারিতা, গ্রিন টি এর উপকারিতা ও অপকারিতা, কোন গ্রিন টি ভালো

সঠিক পুষ্টি – প্রচুর ফল এবং সবজি সহ একটি স্বাস্থ্যকর, সুষম খাদ্য স্ট্রেসের সময়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। একটি খারাপ ডায়েট মানসিক চাপ বাড়াবে।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলিকে অগ্রাধিকার দিন – আপনার রুটিনের গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো চিহ্নিত করতে কিছু সময় ব্যয় করুন। তারপর সেই প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো করার দিকে মনোনিবেশ করুন।

নিজের জন্য সময় নিন – Take some time every day for yourself.

শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম এবং শিথিলকরণ করুন – ধ্যান এবং যোগব্যায়াম চাপ উপশম করতে সাহায্য করতে পারে। যদি সঠিক কৌশলের সাথে অনুশীলন করা হয়, তবে মন শান্ত হবে।

কথোপকথন করুন – পরিবার, বন্ধুদের সাথে আপনার চিন্তাভাবনা এবং উদ্বেগ সম্পর্কে কথা বলা আপনাকে মানসিক চাপ কমাতে সহায়তা করবে। আপনি আরও দেখতে পাবেন যে আপনার সমস্যাগুলি সমাধান করার একটি খুব সহজ উপায় ছিল, যা আপনি কখনও ভাবেননি।

আপনার স্ট্রেসের কারণ সন্ধান করুন (যে কাজগুলি আপনাকে স্ট্রেস থেকে মুক্তি দেয়) – বেশিরভাগ মানুষ নিম্নলিখিত কাজ করে স্বস্তি খুঁজে পান। যেমন –

  • বই পড়া
  • ড্রাইভে যাওয়া
  • প্রিয় সঙ্গীত শোনা
  • বন্ধুর সাথে সময় কাটানো
  • জিমে যাওয়া

মানসিক চাপ যদি আপনার দৈনন্দিন জীবনকে প্রভাবিত করে, তাহলে আপনাকে একজন ডাক্তারের সাহায্য নেওয়া উচিত।

স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট

স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্ট্রেস উপশম করা হয়। স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট আপনাকে সাহায্য করতে পারে-

  • স্ট্রেসের উৎস অপসারণ বা প্রতিস্থাপন করতে।
  • আপনার চাপের কারণ পরিবর্তন করা
  • আপনার শরীরের উপর চাপ এর প্রভাব হ্রাসকরা।
  • বিকল্প উপায়ে সমস্যা মোকাবেলা করতে শেখা।

ওষুধ –

রোগীর বিষণ্নতা বা উদ্বেগের মতো অবস্থা না থাকলে ডাক্তাররা স্ট্রেস মোকাবেলায় ওষুধ লিখে দেন না। এসব ক্ষেত্রে স্ট্রেস নয়, মানসিক রোগের চিকিৎসা করেন চিকিৎসকরা। এই ধরনের ক্ষেত্রে, একটি এন্টিডিপ্রেসেন্ট গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া যেতে পারে।

জীবনে চাপের পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার জন্য সবসময় মানসিক ও শারীরিকভাবে নিজেকে প্রস্তুত করা উচিত।

মানসিক চাপের কারণে কি ক্ষতি হয়?

প্রত্যেকের জীবনে সবসময় কিছু চাপ থাকে এবং এটি স্বাভাবিক। তবে হালকা উত্তেজনা ভালো হতে পারে। কারণ এটি একটি চ্যালেঞ্জ হতে পারে যা আমাদের সতর্ক, অনুপ্রাণিত এবং বিপদ থেকে বাঁচতে প্রস্তুত রাখে। কিন্তু অত্যধিক মানসিক চাপ আমাদের অসুস্থ করে তুলতে পারে এবং এটি নির্দিষ্ট লক্ষণ বা রোগের কারণ হতে পারে।

আপনি যদি ক্রমাগত চাপের মধ্যে থাকেন তবে আপনি খারাপ শারীরিক লক্ষণগুলো অনুভব করতে পারেন, যেমন মাথাব্যথা, পেট খারড়া, উচ্চ রক্তচাপ, বুকে ব্যথা, যৌন স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব এবং ঘুমের ব্যাঘাত।

স্ট্রেস মানসিক সমস্যা, বিষণ্নতা, প্যানিক অ্যাটাক এবং উদ্বেগের কারণ হতে পারে।

স্ট্রেস নিজেই একমাত্র সমস্যা নয়, এর চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হল আপনি স্ট্রেসের প্রতি কেমন প্রতিক্রিয়া দেখান।উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি ধূমপান করেন, মাদক গ্রহণ করেন, অত্যধিক খাবার খান, প্রচুর খরচ করেন বা অনিরাপদ যৌন মিলন করেন, তাহলে এই সবগুলি আরও সমস্যা হতে পারে।

আপনি যদি মনে করেন যে আপনি যেভাবে জীবনের চাপগুলি পরিচালনা করেন তা আপনার শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলছে, আপনার ডাক্তারের সাথে দ্রুত যোগাযোগ করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (7 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button