প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার কারণ ও চিকিৎসা

গর্ভাবস্থা একজন মহিলার জীবনের সবচেয়ে সুখী সময়। এই সময়ে একজন গর্ভবতী মহিলা বিভিন্ন ধরনের শারীরিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়, যা বিভিন্ন উপসর্গের সাথে তার উপস্থিতি অনুভব করে। মাথাব্যথাও এমনই একটি উপসর্গ, যা এই সময়ে বিভিন্ন কারণে হতে পারে এবং একজন মহিলা তার গর্ভাবস্থায় এর মুখোমুখি হতে পারেন। গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যা স্বাভাবিক থেকে গুরুতর পর্যন্ত হতে পারে, যা চিকিৎসা করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। এই পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার কারণ, লক্ষণ, মুক্তি পাওয়ার উপায় এবং সঠিক প্রতিকারগুলি ব্যাখ্যা করব।

Contents

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা হওয়া কি স্বাভাবিক?

হ্যাঁ, গর্ভবতী মহিলার গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা হওয়া স্বাভাবিক। গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের পরিচালিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় এই তথ্য দেওয়া হয়েছে। যাইহোক, এই বৈজ্ঞানিক গবেষণায় আরও বলা হয়েছে যে গর্ভাবস্থায় এবং প্রসবের পরে মাথাব্যথার লক্ষণগুলি 39 শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে। একই সঙ্গে আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে হরমোনের পরিবর্তনের কারণেও মাথাব্যথার সমস্যা হতে পারে। মাথা ব্যাথা বেশি হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

এই অংশে, আমরা সেই কারণগুলি সম্পর্কে বলছি যা মাথাব্যথার কারণ হতে পারে।

কেন গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা হয়?

প্রথম ত্রৈমাসিক: গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকে রক্ত ​​​​প্রবাহ এবং হরমোনের পরিবর্তন মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। এছাড়াও, চাপ, ক্লান্তি, সাইনাস এবং চোখের স্ট্রেনও মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। এই পরিবর্তনগুলি দ্বিতীয় বা তৃতীয় ত্রৈমাসিকের মধ্যে চলতে পারে।

দ্বিতীয় ট্রাইমিস্টার: গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকেও মাথাব্যথার সমস্যা দেখা দিতে পারে। ঘাড়ের স্নায়ুতে ত্রুটির কারণে এটি ঘটতে পারে, তবে এটি হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম।

তৃতীয় ত্রৈমাসিক: তৃতীয় ত্রৈমাসিকেও, একজন গর্ভবতী মহিলার মাথাব্যথা হতে পারে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দাবি করা হয়েছে যে মাথাব্যথা সমস্যা স্বাভাবিক গর্ভাবস্থার তৃতীয় ত্রৈমাসিকের একটি সাধারণ উপসর্গ।

আসুন এখন জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার লক্ষণগুলি কী কী।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার লক্ষণ

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার কিছু লক্ষণ নিম্নরূপ হতে পারে:

  • চোখ লাল হওয়া ও জ্বালাপোড়া
  • ভারী মাথা
  • বমি বমি ভাব
  • উজ্জ্বল আলো দেখে চোখের ব্যথা
  • বমি
  • কখনও কখনও মাথা ঘোরা মাথাব্যথার উপসর্গও হতে পারে।

বিঃদ্রঃ- মাথা ব্যাথার সাথে অন্য কোন উপসর্গ দেখা দিলে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

এই অংশে, আপনাকে গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন ধরণের মাথাব্যথা সম্পর্কে বলা হচ্ছে।

গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন ধরনের মাথাব্যথা

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা প্রাথমিক, দ্বিতীয় এবং চূড়ান্ত পর্যায়ে বিভক্ত। আপাতত, আমরা আপনাকে এর বিভিন্ন প্রকার সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছি –

মাইগ্রেন: গর্ভাবস্থায় মাইগ্রেন একটি সাধারণ ধরনের মাথাব্যথা। এটি একটি বেদনাদায়ক মাথাব্যথা, সাধারণত মাথার একপাশে অনুভূত হয়। মানসিক চাপ, কম ঘুম এবং উজ্জ্বল আলোর কারণেও এই মাইগ্রেন হতে পারে। এটি কখনও কখনও বমি বমি ভাব, বমি এবং উজ্জ্বল আলোর কারণে সমস্যা সৃষ্টি করে। মাইগ্রেনে আক্রান্ত মহিলারা প্রিজম আকারে আলোর ঝলকানি দেখেন এবং তাদের হাতে ও পায়ে ঝাঁকুনিও হতে পারে।

টেনশন-টাইপ মাথাব্যথা: গর্ভাবস্থায় ‘টেনশন-টাইপ হেডেক’ টেনশনের কারণে হওয়া মাথাব্যথা হিসাবে বোঝা যায়। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুযায়ী, গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার 26 শতাংশ ক্ষেত্রে টেনশন টাইপ মাথাব্যথা দেখা যায়। এর প্রধান কারণ হতে পারে মানসিক চাপ এবং পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব। এর প্রধান উপসর্গ হল মাথার দুই পাশে ব্যথা, সাধারণত মাথার সামনের অংশে। আলোও জড়িত হতে পারে।

ক্লাস্টার মাথাব্যথা: এটি একটি গুরুতর মাথাব্যথা অবস্থা। মাইগ্রেনের বিপরীতে, এটি হরমোনের পরিবর্তন, মাসিক, গর্ভনিরোধক ওষুধের ব্যবহার এবং গর্ভাবস্থার সাথে যুক্ত হতে পারে। ক্লাস্টার মাথাব্যথার অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে ধূমপান, অ্যালকোহল সেবন এবং উজ্জ্বল আলো। সাধারণত এই মাথাব্যথার রোগীকে ঘুম থেকে জাগিয়ে তোলে। এছাড়াও এটি একই সাইটে বারবার ঘটে। ঠান্ডা আবহাওয়ায় এই সমস্যাটি আরও কার্যকর হতে পারে।

সাইনাসের মাথাব্যথা: গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে সাইনাসের মাথা ব্যথার সমস্যা দেখা যায়। সাইনাস মাথাব্যথার সমস্যার প্রধান কারণ হিসেবে ধরা হয় নাক বন্ধ হওয়া এবং নাক দিয়ে পানি পড়া। গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে সাইনাসের মাথাব্যথা সাধারণ হতে পারে। ঠান্ডা আবহাওয়ায় এই সমস্যা বেশি কার্যকর হতে পারে।

প্রি-এক্লাম্পসিয়া: গর্ভাবস্থায় রক্তচাপ বেড়ে গেলে মহিলাদের প্রি-এক্লাম্পসিয়া হতে পারে। এটি মাথাব্যথার কারণও হতে পারে।

আসুন এখন নিবন্ধের এই অংশে জেনে নেওয়া যাক কীভাবে গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার চিকিত্সা করা যায়।

গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যায় ভুগছেন এমন মহিলাদের মাথাব্যথা নিম্নরূপ চিকিত্সা করা যেতে পারে-

নো-ড্রাগ থেরাপি – গর্ভাবস্থায় মাইগ্রেনের মতো মাথাব্যথার সমস্যা নিরাময়ের জন্য নো-ড্রাগ থেরাপি গ্রহণ করা যেতে পারে। এর মধ্যে ম্যাসেজ, প্রচুর ঘুম, আইসপ্যাক এবং বায়োফিডব্যাক পদ্ধতি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। আমরা এখানে এই সমস্ত সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে বলছি:

ম্যাসেজ – আপনি গর্ভাবস্থায় একজন মহিলাকে ম্যাসেজ থেরাপি দিতে পারেন। মাথাব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শে বিশেষজ্ঞের হাতে ম্যাসাজ করা যেতে পারে।

পর্যাপ্ত ঘুম – গর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় ঘুমের মাধ্যমে মাথাব্যথার সমস্যাও নিরাময় করা যায়।

আইসপ্যাক- গর্ভাবস্থায় আইসপ্যাক দিয়েও মাথাব্যথার চিকিৎসা করা যায়। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে যে ক্যারোটিড ধমনীতে (ঘাড়ের ধমনী) একটি বরফের প্যাক স্থাপন করা মাইগ্রেন কমাতে পারে।

বায়োফিডব্যাক – বায়োফিডব্যাক এমন একটি প্রক্রিয়া যা শরীরের বিভিন্ন গতিবিধি পরিমাপ করে। তারপর তাদের নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আপনাকে তথ্য দেওয়া হবে। বায়োফিডব্যাক নিম্নলিখিত শারীরিক কার্যকলাপ সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে :

  • রক্তচাপ
  • মস্তিষ্কের তরঙ্গ (EEG)
  • শ্বাস
  • হৃদ কম্পন
  • মাংসপেশীর টান
  • ত্বকের তাপমাত্রা

বায়োফিডব্যাকে এই শারীরবৃত্তীয় অবস্থার উন্নতি করার পরে, বিশেষ করে মাইগ্রেনের সমস্যাগুলি উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করা যেতে পারে।

প্রফিল্যাকটিক – গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যা নিরাময়ের জন্য প্রফিল্যাকটিক ওষুধ গ্রহণ করা যেতে পারে। বিশেষত, এটি টেনশন টাইপ এবং ক্লাস্টার হেড এর উপর কার্যকর প্রভাব দেখাতে পারে । নিজে কোনো ওষুধ খাবেন না, প্রথমে চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন।

আকুপাংচার – গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা নিরাময়ের জন্য আকুপাংচার চিকিৎসা নেওয়া যেতে পারে। মনে রাখবেন যে এটি ডাক্তারের পরামর্শে এবং শুধুমাত্র একজন আকুপাংচারিস্টের হাতে করা উচিত।

আকুপ্রেসার – গর্ভাবস্থায় আকুপ্রেসার চিকিত্সাও একটি উপকারী বিকল্প হতে পারে, কারণ এটি গর্ভাবস্থায় ঘটতে থাকা ক্লান্তি, ক্র্যাম্প এবং পিঠে ব্যথা সহ মাথাব্যথা কমাতে পারে।

পরবর্তী বিভাগে, ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমে কীভাবে গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা নিরাময় করা যায় তা জানুন।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার ঘরোয়া প্রতিকার নিম্নরূপ:

ম্যাসাজের মাধ্যমে: উপরে উল্লিখিত হিসাবে, গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা নিরাময়ে ম্যাসেজ ব্যবহার করা যেতে পারে। আপনি যদি গর্ভাবস্থায় মাইগ্রেনে ভুগছেন, তাহলে ম্যাসাজ করলে উপশম পাওয়া যায়। ডাক্তারের পরামর্শে এবং শুধুমাত্র একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তির হাতে ম্যাসাজ করুন।

যোগব্যায়ামের মাধ্যমে: যোগব্যায়াম স্বাস্থ্য সম্পর্কিত অনেক সমস্যার সমাধান করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে যোগব্যায়াম হতে পারে একটি কার্যকরী বিকল্প। গর্ভাবস্থায় যোগব্যায়াম করার জন্য আপনাকে অবশ্যই একজন যোগ বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিতে হবে।

পানি পান: শরীরে পানির অভাব হলে মাথাব্যথা হতে পারে। গর্ভাবস্থায় 8-10 গ্লাস জল পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

ইনহেল স্টিম: গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা কমানোর জন্য স্টিমিং একটি বিকল্প হতে পারে। এজন্য একটি পাত্রে পানি গরম করে তোয়ালে দিয়ে মাথা ঢেকে গরম পানির বাষ্প নিঃশ্বাস নিন। এই প্রক্রিয়া কয়েক মিনিটের জন্য অব্যাহত রাখা যেতে পারে। সাইনোসাইটিস এবং অ্যালার্জির রোগীরা এর থেকে বেশি উপকৃত হতে পারেন।

দ্রষ্টব্য – গর্ভাবস্থায় এই প্রতিকারটি শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে করুন।

গোসল করুন: গর্ভাবস্থায় সামান্য মাথাব্যথা উপশমের জন্য একটি উষ্ণ গোসল করা যেতে পারে। মনে রাখবেন এই সময়ে বাথরুমে সতর্ক থাকুন।

আদা খাওয়া: আদা একটি আয়ুর্বেদিক ওষুধ, যা গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে ব্যবহার করা যেতে পারে। বিশেষ করে, মাইগ্রেনের জন্য আদার চিকিৎসা উপকারী হতে পারে।

ল্যাভেন্ডার তেল: অ্যারোমা থেরাপি মাথাব্যথা নিরাময়ের একটি কার্যকর বিকল্প হতে পারে। এর জন্য ল্যাভেন্ডার এসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে। ল্যাভেন্ডার তেল মাইগ্রেন কমাতে পারে। উপরন্তু, ল্যাভেন্ডার তেল গর্ভাবস্থায় চাপ এবং উদ্বেগ (মাথাব্যথার কারণ) উপশম করতে ক্রিম হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

তুলসীর তেল: গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা দূর করতে তুলসীর তেল ব্যবহার করা যেতে পারে। এর কয়েক ফোঁটা মাথায় লাগিয়ে হালকা ম্যাসাজ করা যেতে পারে। এটি পেশী ব্যথা উপসাগরে রাখতে সাহায্য করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা প্রতিরোধের উপায়গুলি এই অংশে জেনে নেওয়া যাক।

কিভাবে গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা প্রতিরোধ যায়?

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা নিম্নলিখিত উপায়ে এড়ানো যায় :

  • এলার্জি এবং কিছু খাবার যেমন মাংস এবং প্যাকেজড পনির সহ মাথাব্যথার ঝুঁকির কারণগুলি এড়িয়ে চলুন।
  • ধূমপান এবং অ্যালকোহল থেকে দূরে থাকুন।
  • স্বাস্থ্যকর খাবার এবং তরল খান।
  • গর্ভাবস্থায় চিন্তা ও চাপমুক্ত থাকার চেষ্টা করুন। নিজেকে যতটা সম্ভব খুশি রাখুন।
  • মাইগ্রেনের মাথাব্যথার ক্ষেত্রে কোলাহলপূর্ণ জায়গায় যাওয়া এড়িয়ে চলুন।

এর পরে, আমরা বলছি গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা হলে কোন পর্যায়ে ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত।

গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার জন্য কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে?

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার লক্ষণগুলি স্বাভাবিক হতে পারে, তবে কিছু পরিস্থিতিতে গর্ভবতীকে ডাক্তারের কাছে যেতে হতে পারে।

  • মাথা ব্যথার সঙ্গে পাঁজরের নিচে ব্যথা থাকলে
  • মাথাব্যথার সময় অম্বল অনুভূতি
  • মুখ, হাত বা পা হঠাৎ ফুলে যাওয়া
  • দৃষ্টিশক্তির সমস্যা হচ্ছে
  • যদি গর্ভাবস্থার 20 তম সপ্তাহের পরে মাথাব্যথা হয়।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার ওষুধ খাওয়া কি ঠিক?

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার ওষুধ গ্রহণ করা এড়িয়ে চলুন, কারণ এটি মা এবং ভ্রূণের স্বাস্থ্যের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। প্যারাসিটামল গর্ভাবস্থায় নিরাপদ এবং ডাক্তারের পরামর্শে নিরাপদে নেওয়া যেতে পারে।

মাথাব্যথা কি গর্ভাবস্থায় স্থায়ী হতে পারে?

হ্যাঁ, বিভিন্ন কারণে প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে মাথাব্যথা চলতে পারে। আমরা উপরের অংশে এই বিষয়টি বিস্তারিতভাবে ব্যাখ্যা করেছি।

মাথাব্যথা কি গর্ভপাতের লক্ষণ?

না, মাথাব্যথার কারণে গর্ভপাত হয় না, তবে এই বিষয়ে ডাক্তারের কাছ থেকে সঠিক তথ্য নেওয়াই ভালো।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা শিশুর লিঙ্গ সম্পর্কে কিছু বলতে পারে?

না, গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার কারণে শিশুর লিঙ্গ সম্পর্কে কোনো তথ্য দেওয়া যাবে না। আমরা আপনাকে কোনো প্রতিষ্ঠানে লিঙ্গ পরীক্ষার জন্য না যাওয়ার পরামর্শ দেই, কারণ প্রি-বার্থ লিঙ্গ স্ক্রীনিং পরীক্ষা একটি আইনি অপরাধ।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথা এবং প্রিক্ল্যাম্পসিয়া কি সংযুক্ত?

হ্যাঁ, মাথাব্যথাকে প্রিক্ল্যাম্পসিয়ার লক্ষণ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। প্রিক্ল্যাম্পসিয়া হল গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপের ব্যাধি, যা মা এবং ভ্রূণের জন্য গুরুতর অবস্থার কারণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় মাথাব্যথার সমস্যা থেকে কীভাবে মাকে নিরাপদ রাখা যায় তা আপনি এই পোস্টের মাধ্যমে শিখেছেন। উপরে উল্লিখিত পদ্ধতিগুলি অবলম্বন করে আপনি ঘরে বসে গর্ভাবস্থায় সাধারণ মাথাব্যথার চিকিত্সা করতে পারেন, তবে অবিরাম বা গুরুতর অবস্থার ক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। আমরা আশা করি যে গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত এই তথ্যগুলি আপনার জন্য উপকারী প্রমাণিত হবে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (8 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button