স্বাস্থ্য

গ্রিন টি এর উপকারিতা ও অপকারিতা, কোন গ্রিন টি ভালো

বেশিরভাগ মানুষ ওজন কমানোর জন্য গ্রিন টি পান করা শুরু করেন। গ্রিন টি এর অনেক উপকারিতা মারাত্মক রোগও দূর করে। কারণ, এটি একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পুষ্টিতে ভরপুর।

গ্রিন টি দিয়ে আপনার সকাল শুরু করুন। কারণ, এটি আপনাকে শারীরিক এবং মানসিক উভয়ভাবই উপকৃত করবে।

গ্রিন টি এর প্রকারভেদ

উৎপাদন অনুযায়ী গ্রিন টি এর বিভিন্ন প্রকার রয়েছে। এগুলির প্রধান প্রকারগুলি নীচে বর্ণিত হল-

১) গয়েকুরো –
এটি সূর্যের আলোর পরিবর্তে ছায়ায় জন্মে। এই চায়ের ঝোপগুলো প্রায় ২০ দিন রিড নামক পর্দা দিয়ে আবৃত থাকে।

২) ফুকামুশি –
ফুকামুশি এর অর্থ দীর্ঘ সময় ধরে সিদ্ধ করা। এটি দীর্ঘ সময় ধরে সিদ্ধ করা হয়। এর পাতাগুলি বাষ্পের তাপে উন্মুক্ত হয়। এই কারণে, এই চায়ের স্বাদ আরও বেশি হয় এবং এর রঙ গাঢ় সবুজ হয়ে যায়।

৩) সেঞ্চা –
এই গ্রিন টি সবচেয়ে বেশি খাওয়া হয় এবং এটি সবচেয়ে পরিচিত ধরনের। এর পাতাগুলো রোদে শুকিয়ে তৈরি করা হয়।

৪) ম্যাচা – এই ধরনের গ্রিন টি পুরানো চা পাতা ব্যবহার করে তৈরি করা হয়।

৫) কিউবাসেচা –
পাতা তোলার ৭-৮ দিন আগে ঝোপগুলোকে সূর্য থেকে রক্ষা করার জন্য এটি কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়।

গ্রিন টি এর উপকারিতা green tea benefits

গ্রিন টি খেলে শরীর বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি পায়। এটি নিম্নলিখিত উপকার করে-

১) মস্তিষ্কের উন্নতি
এটি মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নীত করতে কাজ করে। এটি মনকে সতেজ করে। গ্রিন টি তে অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে, যা মস্তিষ্ক বৃদ্ধিকারী। গ্রিন টি পান করার ফলে স্থিতিশীল শক্তি বেড়ে যায়।

২) ওজন কমানোর ক্ষেত্রে
এতে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা মেটাবলিজম বাড়ায়, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, গ্রিন টি-তে উপস্থিত ক্যাটেচিন এবং ক্যাফেইন ওজন কমাতে এবং স্থূলতা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ ওজন কমানোর খাবার তালিকা, ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

৩) চুলের সমস্যা প্রতিরোধ করে
গ্রিন টি তে পাওয়া শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চুলের সমস্যা কমাতে খুবই সহায়ক। এটি চুলকে ঘন, লম্বা এবং মজবুত করে। গ্রিন টি-তে পাওয়া ভিটামিন বি এর কারণে নতুন চুল গজায় এবং খুশকি ও চুলের শুষ্কতা দূর হয়।

আরো পড়ুনঃ চুল পড়া বন্ধ ও ঘন করার উপায়, পেঁয়াজের রস চুলে দেওয়ার নিয়ম, উপকারিতা ও অপকারিতা

৪) ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে
অক্সিডেটিভ ক্যান্সার সৃষ্টি করে কিন্তু গ্রিন টি এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এই অক্সিডেটিভ ক্ষতি থেকে রক্ষা করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে গ্রিন টি পানকারীদের বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সারের ঝুঁকি কম থাকে। যেমন: প্রোস্টেট ক্যান্সার, স্তন ক্যান্সার, কোলোরেক্টাল ক্যান্সার।

৫) টাইপ ২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে
একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যে যারা গ্রিন টি খান তাদের টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি প্রায় ৪২% কম। গ্রিন টি রক্তে শর্করার মাত্রা কমিয়ে আনে, যা টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়।

৬) আলঝেইমারের রোগে
মানসিক রোগের মধ্যে আলঝেইমার অন্যতম। এতে ব্যক্তির স্মৃতিশক্তি দুর্বল হতে থাকে। এই রোগ থেকে বাঁচতে গ্রিন টি খাওয়া যায়, কারণ এটিতে পলিফেনল, এপিগ্লোকাটেচিন-3 রয়েছে, যা এই রোগে উপকারী।

৭) গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল রোগে
গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ডিজঅর্ডার অর্থাৎ পেট বা হজমের সমস্যা দূর করতে গ্রিন টি খাওয়া উচিত। গ্রিন টি-তে ক্যাটেচিন থাকে, যার কারণে এটি পেট সংক্রান্ত রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে।

৮) হাড়ের জন্য
গ্রিন টি হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কারণ, গ্রিন টিতে উপস্থিত বায়োঅ্যাকটিভ যৌগ, অস্টিওক্লাস্টিক কার্যকলাপ হ্রাস করে অস্টিওব্লাস্টিক কার্যকলাপ (হাড় গঠন) উন্নত করে।

৯) ওরাল হাইজিন
মাড়ির রোগ বা সংক্রমণ এড়াতে ওরাল হাইজিন অপরিহার্য। ওরাল হাইজিন করতে নিয়মিত গ্রিন টি খেলে মাড়ি এবং দাঁতের জন্য উপকার পাওয়া যায়।

১০) অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য
গ্রিন টি পান করলে রোগ হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এটিতে অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অনেক রোগের জন্য কার্যকর।

১১) নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ কমাতে
এতে উপস্থিত ক্যাটেচিন মুখের ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করতে পারে। গ্রিন টি নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ কমাতে পারে।

১২) আর্থ্রাইটিসের উপসর্গ কমাতে
গ্রিন টি আর্থ্রাইটিসের উপসর্গ কমাতে পারে। বাতের উপসর্গ এবং প্রদাহ কমাতে আপনার দৈনন্দিন জীবনে গ্রিন টি যুক্ত করুন।

১৩) একটি পুষ্টিকর প্যাক
গ্রিন টি তে ক্যাফেইন থাকে যা স্নায়ুতন্ত্রের উপর উত্তেজক প্রভাব ফেলতে পারে। এতে উপস্থিত L-theanine-এর মতো অ্যামিনো অ্যাসিড এবং ফ্লোরাইড মনোযোগ বাড়াতে সাহায্য করে এবং দাঁতের এনামেলকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে।

সকালে খালি পেটে গ্রিন টি পানের উপকারিতা

১) দীর্ঘায়ু বৃদ্ধি
প্রতিদিন এক কাপ গ্রিন টি পান করলে আয়ু বৃদ্ধি পায়। এটি একটি সুস্থ জীবনের দিকে পরিচালিত করে। তাই আজ থেকেই গ্রিন টি পান করা শুরু করুন।

২) হতাশা কাটাতে
গ্রিন টি-তে রয়েছে থেনাইন, এক ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিড। যার কারণে শরীর শান্ত ও আরামদায়ক বোধ করে। এটি বিষণ্ণতায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের বিষণ্নতা থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ ডিপ্রেশন কি, এর কারণ, লক্ষণ এবং ডিপ্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

৩) নিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ
যারা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন তাদের সকালে গ্রিন টি পান করা উচিত। নিয়মিত গ্রিন টি সেবন উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমায় এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৪) ত্বকের জন্য
গ্রিন টিতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য যা ত্বককে করে তোলে তরুণ এবং বার্ধক্যের লক্ষণ কমায়। গ্রিন টি ত্বককে সূর্যের ক্ষতি থেকেও রক্ষা করে।

আরো পড়ুনঃ মুখের বলিরেখা দূর করার উপায়, স্ট্রেচ মার্কস দূর করার জন্য ঘরে তৈরি ক্রিম,

৫) খারাপ কোলেস্টেরল কমায়
গ্রিন টি খারাপ কোলেস্টেরল দূর করতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন সকালে গ্রিন টি পান করুন। গ্রিন টি-তে উপস্থিত উপাদান খারাপ কোলেস্টেরল কমায়।

ঘুমানোর সময় গ্রিন টি পান করার উপকারিতা-

ঘুমের উন্নতিঃ গ্রিন টি পান করলে ঘুমের মান উন্নত হয়। এটি স্ট্রেস-সম্পর্কিত হরমোন এবং মস্তিষ্কে নিউরনের উত্তেজনা হ্রাস করে। গ্রিন টি মস্তিষ্কের জন্য আরামদায়ক।

পজিটিভিটি & স্ট্রেসঃ গ্রিন টি-তে থাকা ক্যাফেইন মেজাজ ভালো করে। গ্রিন টি-তে উপস্থিত এল-থেনাইন বিষণ্নতার উপসর্গ কমায় এবং ইতিবাচক থাকতে সাহায্য করে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়ঃ গ্রিন টিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পলিফেনল রয়েছে যা প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্ট্য বলে পরিচিত। তাই গ্রিন টি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

কিভাবে গ্রিন টি তৈরি করবেন-

গ্রিন টি তৈরি করতে দরকার-

  • গ্রিন টি এর পাতা
  • পানি
  • সুইট
  • চালনি
  • থার্মোমিটার

প্রক্রিয়া-

  • প্রথমে, পানি গরম করুন, এটি ফুটাবেন না।
  • এবার এই পানি মগে ঢেলে দিন।
  • এতে গ্রিন টি যোগ করুন। গ্রিন টি ছড়াতে শুরু করবে, এভাবে তিন মিনিট রেখে দিন, বেশিক্ষণ ভিজিয়ে রাখলে চা তেতো হয়ে যাবে।
  • চা ছেঁকেও নিতে পারেন।
  • আপনার পছন্দের মিষ্টি যোগ করুন এবং গ্রিন টি উপভোগ করুন।

গ্রিন টি পান করার সঠিক সময় –

গ্রিন টি এর উপকারিতা সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় যখন এটি সঠিক সময়ে খাওয়া হয়।

সকালের নাস্তার পর- স্বাস্থ্যকর সকালের নাস্তা আপনাকে সারাদিন উদ্যমী রাখে। সকালের নাস্তার পর গ্রিন টি পান করা খুবই উপকারী। স্বাস্থ্যকর সকালের নাস্তার পাশাপাশি গ্রিন টি পান করা স্বাস্থ্যকর।

ব্যায়াম করার আগে- ব্যায়ামের আগে গ্রিন টি পান করলে এনার্জি লেভেল বাড়ে। এটি শরীরকে ট্র্যাকে নিয়ে আসে।

খাওয়ার আগে ও পরে- অনেকেই খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রিন টি পান করেন, কিন্তু এটি ভুল সময়। খাবারের দুই ঘণ্টা আগে এবং দুই ঘণ্টা পরে গ্রিন টি পান করা ভালো।

রাতে – রাতে ঘুমানোর দুই ঘণ্টা আগে গ্রিন টি পান করলে উপকার পাওয়া যায়। এটি ভালো ঘুম দেয় এবং ঘুমের সময় চর্বি পোড়াতে সহায়ক। শরীরের বিপাকীয় হারও বৃদ্ধি পায় এবং সকালে ঘুম থেকে উঠলে মেজাজ খুব সতেজ থাকে।

গ্রিন টি এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অপকারিতা

গ্রিন টি এর অনেক উপকারিতা রয়েছে, তবে এটি সমস্যার কারণও হতে পারে-

বমি হওয়া– অতিরিক্ত গ্রিন টি খাওয়া বা ভুল সময়ে পান করার কারণে বমি হতে পারে। অতএব, এটি অতিরিক্ত গ্রহণ করা বা অপ্রয়োজনীয়ভাবে পান করা এড়িয়ে চলুন।

মাথা ঘোরা – এর ফলেও মাথা ঘোরা হতে পারে। যাদের গ্রিন টি খেলে মাথা ঘোরে তাদের এটি খাওয়া উচিত নয়।

প্রস্রাবের সমস্যা – এটিতে ক্যাফেইন রয়েছে, যার কারণে ঘন ঘন প্রস্রাবের মতো সমস্যা হয়।

অ্যানিমিয়া এবং আয়রনের ঘাটতি – এতে পাওয়া উপাদানগুলি রক্তাল্পতার কারণ হতে পারে এবং আয়রনের ঘাটতি হতে পারে।

মাথাব্যথা– কারো কারো মাথা ভারী হয়ে যায়, যার কারণে মাথাব্যথা শুরু হয়।

পেটের সমস্যা– খুব বেশি গ্রিন টি পান করলে বা খালি পেটে সেবন করলে পেটের জ্বালা হতে পারে।


5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button