স্বাস্থ্য

রাতে কলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম

কলা অনেক পুষ্টি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ একটি ফল, যা আপনাকে অবশ্যই আপনার খাদ্যের একটি অংশ হিসেবে যোগ করতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা হল কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়, যা শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং আজকাল প্রচুর পরিমাণে মানুষের রক্তচাপের সমস্যা গ্রাস করছে। তাই সবাইকে কলা খেতেই হবে। কিন্তু যেকোনো স্বাস্থ্যকর ফলের মতোই কলা নিয়ে একটা প্রশ্ন যা প্রায়ই মানুষের মনে আসে তা হল রাতে কলা খাওয়া নিরাপদ কিনা? রাতে কলা খেলে কি কোন ক্ষতি হতে পারে?

কলা পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি 6 এবং ফাইবারের মতো পুষ্টিতে সমৃদ্ধ। কলা এমন একটি নাস্তা যা আপনার ছোট ক্ষুধা এবং মিষ্টির লোভ মেটাতে নিখুঁত ফল হিসাবে বিবেচিত হয়। কলায় ক্যালোরি কম থাকে, তাই এটি ওজন কমাতেও সাহায্য করে এবং প্রদাহের সমস্যায়ও উপশম দেয়। কিন্তু আপনি নিশ্চয়ই প্রায়ই লোকেদের বলতে শুনেছেন যে রাতে কলা খাওয়া উচিৎ নয় এবং তাই বহু বছর ধরে আপনিও এটি একটি নিয়ম হিসাবে অনুসরণ করছেন। কিন্তু রাতে কলা খাওয়া কি সত্যিই ক্ষতিকর হতে পারে?

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং পুষ্টিবিদদের মতে, আপনার যদি বর্তমানে সর্দি-কাশির সমস্যা থাকে বা আপনি যদি হাঁপানি বা সাইনাসের রোগী হন, তাহলে রাতে কলা খাওয়া উচিৎ নয়। কারণ রাতে ঘুমানোর আগে একটি কলা খেলে শ্লেষ্মা তৈরি হতে শুরু করে, যা আপনার সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে। আয়ুর্বেদও বিশ্বাস করে যে রাতে কলা খেলে ঠান্ডা ও কফের সমস্যা বেড়ে যায়। এছাড়াও, কলা হজম হতে অনেক সময় নেয়, তাই রাতে কলা খেলে পেটে ভারী হওয়ার অনুভূতি হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে আপনি যদি রাতে কলা খেতে চান, তাহলে ঘুমানোর অন্তত ২-৩ ঘণ্টা আগে খেয়ে নিন।

সহজ কথায় বুঝতে পারলে সর্দি-কাশির সমস্যা না থাকলে রাতে কলা খেতে পারেন। কিন্তু এই পোস্টে আমরা আপনাদের জানাচ্ছি রাতে কলা খাওয়ার কী কী উপকারিতা ও কী কী অপকারিতা রয়েছে।

রাতে কলা খাওয়ার উপকারিতা

রাতে কলা খাওয়া উপকারী কারণ কলা আপনাকে ভালো ঘুমাতে সাহায্য করে। কলায় ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ভিটামিন বি 6 সহ ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান রয়েছে, যা আপনার ঘুমের মান উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও কলা টেনশন ও অস্থিরতা কমিয়ে পেশীর ক্র্যাম্পের সমস্যা দূর করার পাশাপাশি ঘুম ও জেগে থাকার চক্রকে নিয়ন্ত্রণ করে। তাই রাতে কলা খাওয়ার কত উপকারিতা আছে, জেনে নিন এখানেঃ

কলা মানসিক চাপ ও অস্থিরতা দূর করে: যদি কোনো ব্যক্তি ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খান, তাহলে তার মানসিক চাপ ও অস্থিরতা স্বয়ংক্রিয়ভাবে কমে যায়। এখন যেহেতু কলা ম্যাগনেসিয়ামের একটি ভালো উৎস, তাই রাতে ঘুমানোর আগে এগুলো খাওয়া আপনার শরীরকে শিথিল করতে এবং স্ট্রেস থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে। মানুষের ঘুমের সমস্যা বা অনিদ্রা হওয়ার জন্য স্ট্রেস একটি প্রধান কারণ। তাই ঘুমের আগে কলা খেলে ঘুম তাড়াতাড়ি ও ভালো হয়।

অনিদ্রা নিরাময় করে কলা: স্ট্রেস এবং অস্থিরতা ছাড়াও, ম্যাগনেসিয়াম ঘুম আনতে সাহায্য করতে পারে কারণ এই খনিজটি শরীরের GABA মাত্রা (গামা-অ্যামিনোবুটিরিক অ্যাসিড) নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এই GABA স্তরটি আপনাকে ভাল ঘুমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অতএব, যারা অনিদ্রা বা অন্যান্য ঘুমের ব্যাধিতে ভুগছেন তারা ঘুমানোর আগে ম্যাগনেসিয়াম সাপ্লিমেন্ট নিতে পারেন বা একটি কলা খেতে পারেন।

কলায় থাকা সেরোটোনিন এবং মেলাটোনিনের উৎপাদন বাড়ায় ভিটামিন বি৬ শরীরে উপস্থিত অ্যামিনো অ্যাসিড ট্রিপটোফ্যানকে সেরোটোনিনে রূপান্তরিত করে যা শরীরের মেলাটোনিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। মেলাটোনিনের কারণেই আমাদের ঘুম আসে। শরীরে মেলাটোনিনের অভাব হলে ঘুমের সমস্যা হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে ঘুমানোর আগে যদি আপনি একটি কলা খান, তাহলে তা আপনাকে আরাম পেতে এবং স্বাভাবিকভাবে ভালো ঘুম পেতে সাহায্য করবে।

পেশীর ক্র্যাম্প কমাতে: আপনি যদি রাতে ঘুমানোর সময় পেশীতে ব্যথা এবং ক্র্যাম্প অনুভব করেন, যার কারণে আপনার ঘুমও ব্যাহত হয়, তবে কলা আপনাকে এতে সহায়তা করতে পারে। হ্যাঁ, কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে এবং এই পটাসিয়ামই আপনার পেশীগুলিকে শিথিল করতে এবং রাতের পেশীর ক্র্যাম্পের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। পটাশিয়াম পেশী শিথিলকারী হিসাবে কাজ করে, যাতে আপনি দ্রুত ঘুমিয়ে পড়েন এবং ঘুমের কোনও ব্যাঘাত না ঘটে।

পাকস্থলীর অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ করে: আপনি যদি রাতের খাবারে তেল ও মশলা যুক্ত খুব মশলাদার এবং ভারী খাবার খেয়ে থাকেন, তাহলে আপনার অ্যাসিডিটি বা বুকজ্বালার অভিযোগ শুরু হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমন সময়ে আপনি একটি কলা খেতে পারেন কারণ কলা পাকস্থলীর অ্যাসিড নিরপেক্ষ করতে সাহায্য করে এবং এইভাবে আপনি অ্যাসিডিটি বা বুকজ্বালার অভিযোগ করবেন না।

মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছা নিয়ন্ত্রণ করে: আপনিও যদি খাওয়ার পর মিষ্টি কিছু খেতে পছন্দ করেন, তাহলে এখানেও কলা আপনার জন্য সহায়ক হতে পারে। রাতে মিষ্টি খাওয়া সঠিক বিকল্প নয় এবং গভীর রাতে মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছা থাকলে কি হবে? এমন সময়ে, আপনি চাইলে কলা খেতে পারেন যা মিষ্টির পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর বিকল্প।

রাতে কলা খাওয়ার অপকারিতা

সব মানুষের শরীর একই নয়, তাই সব নিয়ম সব মানুষের ওপর একইভাবে কাজ করে না। যদিও কিছু লোক রাতে কলা খাওয়ার অনেক উপকার অনুভব করতে পারে, কিছু লোকের জন্য রাতে কলা খাওয়া ক্ষতিকারক প্রমাণিত হতে পারে। অতএব, এই ব্যক্তিদের রাতে কলা খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিৎঃ

আপনার সর্দি বা কাশি হলে রাতে কলা খাবেন না, কারণ এতে আপনার কফ বাড়তে পারে।

এমনকি আপনি হাঁপানির রোগী হলেও, আপনার রাতে কলা খাওয়া উচিৎ নয় কারণ এটি আরও শ্লেষ্মা তৈরি করবে এবং শ্বাস নিতে অসুবিধা হতে পারে।

আপনি যদি পেটে গ্যাসের সমস্যায় থাকেন, পেট ফাঁপা থাকে, তাহলে রাতে কলা খাইয়েন না, আপনার সমস্যার বৃদ্ধি হতে পারে।

দাঁত সংক্রান্ত সমস্যা এড়াতে চাইলে রাতে কলা খাবেন না কারণ এতে দাঁত নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় ।

আপনি যদি আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান, তাহলে রাতে কলা খাবেন না কারণ রাতে কলা খেলে তা হজম করতে অসুবিধা হয়।

আপনি যদি রাতে পড়াশোনা বা কাজ করার কথা ভাবছেন, তাহলে কলা খাবেন না, এটি আপনাকে আরও অলস এবং ঘুম বোধ করবে।

শেষ কথা

রাতে খুব বেশি মিষ্টি জিনিস খাওয়া এড়িয়ে চলুন, বিশেষ করে বেশি মিষ্টি ফল কারণ এগুলো খেলে শরীরের এনার্জি লেভেল বাড়িয়ে দেয় এবং আপনার শরীরের রাতে ঘুমের প্রয়োজন হয়। কিন্তু আপনি যদি কিছু খেতে চান তবে কলা খেলে কোনো ক্ষতি নেই কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে এবং এটি আপনাকে ভালো ঘুম পেতে সাহায্য করতে পারে। এ ছাড়া আপনার যদি কোনো রোগ থাকে তাহলে রাতে কলা খাওয়া উচিৎ কি না সে বিষয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

5/5 - (23 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button