স্কিন কেয়ার

শুষ্ক ত্বকের যত্ন নেয়ার সঠিক গাইডলাইন

স্বাভাবিক, স্বাস্থ্যকর ত্বকে প্রাকৃতিক চর্বির পাতলা স্তর থাকে। এটি ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে এবং ত্বককে নরম ও কোমল রাখতেও সাহায্য করে। ত্বকের শুষ্কতার অনেক কারণ রয়েছে। সাধারণত, আপনি আপনার ত্বকে যা ব্যবহার করেন তা ত্বকের প্রাকৃতিক তেলকে ক্ষয় করে এবং ত্বককে দুর্বল করে দিতে পারে। কখনও কখনও এটি আপনার স্বাস্থ্য, মেনোপজ বা জেনেটিক প্রবণতা ইত্যাদির মতো অভ্যন্তরীণ কারণেও হয়।

যেখানে শুষ্ক, চুলকানি ত্বকের প্যাচগুলো শরীরের যে কোন জায়গায় হতে পারে। সাধারণত এই দাগগুলো হাত, নীচের পা এবং পেটে দেখা যায়। শুষ্ক ত্বক যতটা দেখায় তার চেয়ে বেশি অনুভূত হয়। শুষ্ক ত্বক অনেক কালো মানুষের জন্য বিশেষ উদ্বেগের কারণ, তাদের ত্বকে এটি ধূসর দাগের মত দেখায়।

আরো পড়ুনঃ স্ট্রেচ মার্কস দূর করার জন্য ঘরে তৈরি ক্রিম

শুষ্ক ত্বকের কারণ ও চিকিৎসা

যদি চিকিৎসা না করা হয়, শুষ্ক ত্বকে কখনও কখনও এটোপিক ডার্মাটাইটিস হতে পারে যেমন: ত্বকের জ্বালা, প্রদাহ এবং সংক্রমণ। তবে শুষ্ক ত্বকের বেশিরভাগ কারণগুলো বাহ্যিক, তাই এগুলোকে বাহ্যিকভাবে চিকিৎসা করা যায়। শুষ্ক ত্বকের যত্ন নিয়ে এই সমস্যার সমাধান করতে পারেন। তবে এর জন্য প্রথমে শুষ্ক ত্বকের কারণগুলি জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা নিম্নরূপ:

  • ময়েশ্চারাইজারের অপব্যবহার।
  • শুষ্ক বায়ু।
  • গরম পানি দিয়ে দীর্ঘক্ষণ গোসল করলেও ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়।
  • সাবানের অতিরিক্ত ব্যবহার।
  • চুলকানির কারণে।
  • ওষুধ শুষ্ক ত্বকের একটি প্রধান কারণ।
  • রোগের কারণে ত্বকের শুষ্কতা দেখা দেয়।

ময়েশ্চারাইজারের অপব্যবহার-
কারণ- আপনার যদি শুষ্ক ত্বক হয়, তাহলে আপনি সম্ভবত ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি ময়েশ্চারাইজার প্রয়োগ করেছেন। ময়েশ্চারাইজারগুলো প্রকৃতপক্ষে শুষ্ক ত্বকের যত্নের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ, তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে মানুষেরা এগুলো সঠিকভাবে ব্যবহার করে না।

ময়েশ্চারাইজার প্রয়োগ করার সময় কিছু মানুষের সবচেয়ে বড় ভুল হল তারা এটি সরাসরি শুষ্ক ত্বকে প্রয়োগ করে। সেক্ষেত্রে এটা ঠিকমতো কাজ করে না।

চিকিৎসা

আপনার ত্বক সামান্য স্যাঁতসেঁতে হলে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। অর্থাৎ গোসলের পরপরই বা ত্বকে আর্দ্রতা থাকলে হাত ধোয়ার পরপরই লাগানো ভালো। কারণ এটি করার মাধ্যমে ময়েশ্চারাইজার ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে। তবে এমনও করবেন না যে আপনি এটি সরাসরি ভেজা ত্বকে ব্যবহার করবেন। গোসল বা হাত পা ধোয়ার পরে, একটি তোয়ালে দিয়ে মুছুন এবং তারপরে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার লাগান। এটি কয়েক মিনিটের জন্য ত্বকে ভিজিয়ে রাখবেন।

সঠিক ধরনের ময়েশ্চারাইজার নির্বাচন করাও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন যে শুষ্ক ত্বকের মানুষদের হালকা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা উচিত।

শুষ্ক ত্বকের যত্নের জন্য প্রয়োজনীয় আর্দ্রতা ধরে রাখতে ময়েশ্চারাইজারগুলো কিছুটা পুরু এবং চর্বিযুক্ত হওয়া উচিত।

শুষ্ক বায়ু –
কারণ – শুষ্ক বায়ু শুষ্ক ত্বকের সবচেয়ে সাধারণ কারণ, বিশেষ করে শীত মৌসুমে। এটি ত্বক থেকে আর্দ্রতা বের করে এবং শীতকালে ত্বকের শুষ্কতা ও চুলকানির কারণ হয় ।

ঠাণ্ডা বাতাসের কারণে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়।

ঘরের ভেতরে রাখা হিটার ত্বকের শুষ্কতার একটি বড় কারণ। গ্রীষ্মকালে, এয়ার কন্ডিশনারগুলো ত্বকে একই প্রভাব ফেলে।

চিকিৎসা– এটি প্রতিরোধেও ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। শীতকালে, হিটারের গরম কিছুটা কমিয়ে দেওয়া সাহায্য করবে। এছাড়াও, আপনি আপনার বেডরুমে একটি এয়ার-হিউমিডিফায়ার ব্যবহার করতে পারেন।

৩। গরম পানি দিয়ে দীর্ঘক্ষণ গোসল করলে

কারণ – দীর্ঘক্ষণ পানির সংস্পর্শে (বিশেষত গরম পানি) আপনার ত্বকের প্রাকৃতিক তেল ক্ষয় হতে শুরু করে। গোসল করার পর যদি আপনার ত্বক টানটান মনে হয়, তাহলে এর মানে হল এটি শুকিয়ে যাচ্ছে।

চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, আপনি যদি দীর্ঘ সময় ধরে গোসল করতে অভ্যস্ত হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার গোসলের সময়কাল একটু কমিয়ে দিন, বিশেষ করে গরম পানি দিয়ে।

চিকিৎসা– শীতকালে, শুষ্ক ত্বক এড়াতে গোসল করার জন্য পানি খুব গরম না হয়ে হালকা গরম হতে হবে। এ জন্য গোসল করার সময় শুধু শাওয়ার থেকে শরীর ভিজিয়ে রাখুন এবং যতক্ষণ সাবান লাগাবেন ততক্ষণ ঝরনা থেকে দূরে থাকুন। এরপর তোয়ালে দিয়ে শরীর না ঘষে, হাতে হালকাভাবে তোয়ালে দিয়ে মুছে নিন।

৪। সাবানের অতিরিক্ত ব্যবহার

কারণ –

মানুষ খুব বেশি সাবান ব্যবহার করে যার ফলে ত্বকের প্রাকৃতিক তেল দ্রুত ক্ষয় হয়ে যায়। সাবান বা ক্লিনজার শুধুমাত্র শরীরের এমন অংশে ব্যবহার করা উচিত যেখানে প্রয়োজন। যেমন, মুখ, হাত, পা, যৌনাঙ্গ এবং আন্ডারআর্ম ইত্যাদি। শরীরের বাকি অংশ শুধু পানি দিয়ে ধুতে হবে।

জীবাণু থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য, অতিরিক্ত হাত ধোয়ায় ত্বক শুকিয়ে যেতে পারে, যার ফলে ফাটল এবং রক্তপাত হতে পারে, যা ত্বকের সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়।

সস্তা বা সুগন্ধযুক্ত সাবান ত্বকের জন্য কঠোর। এগুলো ত্বকের উপরিভাগ থেকে তেল দূর করে যা ত্বককে শুষ্ক করে।

চিকিত্সা – শুষ্ক ত্বকের যত্নের জন্য, একটি হালকা এবং সুগন্ধিমুক্ত সাবান বেছে নিন। বিশেষজ্ঞদের মতে, শুষ্ক ত্বকের মানুষদের জন্য সাবানের পরিবর্তে ক্লিনজার ব্যবহার করা ভালো।

স্পঞ্জ এবং ব্রাশের ব্যবহার ত্বকের প্রাকৃতিক তেলের পাতলা স্তরকেও সরিয়ে ফেলতে পারে। তাই ত্বকে ব্যবহার করা জিনিসগুলো সাবধানে কিনুন।

৫। চুলকানির কারণে শুষ্ক ত্বক
কারণ – যেসব সোয়েটার পরলে চুলকানি অনুভব হয়, সেগুলো পড়া উচিত নয়। কারণ এগুলো ত্বকের সংক্রমণ ঘটায় এবং ত্বককে আরো শুষ্ক করে তোলে ।

চিকিৎসা- কাপড় ধোয়ার জন্য ভালো ওয়াশিং পাউডার ব্যবহার করতে হবে। শীতকালে উলের পরিবর্তে আপনার বাজেটে গরম কাশ্মীরি কেনার চেষ্টা করুন।

৬। ওষুধ শুষ্ক ত্বকের একটি প্রধান কারণ
কারণ- অনেক ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। এই ওষুধগুলি নিম্নরূপ:

  • উচ্চ রক্তচাপ এবং মূত্রবর্ধক ক্ষেত্রে নেওয়া ওষুধ ইত্যাদি।
  • ব্রণ এবং ত্বকের অন্যান্য সমস্যা যেমন রেটিনয়েড ইত্যাদি ক্ষেত্রে নেওয়া ওষুধ।

চিকিৎসা – আপনি যদি কোনও ওষুধ শুরু করার পরে ত্বকের সমস্যা বা শুষ্কতা অনুভব করেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন তারা আপনার ডোজ পরিবর্তন বা কমাতে পারে।

৭। রোগের কারণে ত্বকের শুষ্কতা দেখা দেয় –
কারণ – সাধারণত শুষ্ক ত্বক বাহ্যিক কারণের উপর নির্ভর করে। কিন্তু কখনও কখনও, এটি একটি অভ্যন্তরীণ শারীরিক পরিবর্তন বা অসুস্থতার একটি চিহ্নও হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, প্রায়শই বৃদ্ধ বয়সে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়, বিশেষ করে মহিলাদের। এটি হরমোনের মাত্রা পরিবর্তনের কারণে হয়।

যেসব রোগের কারণে শুষ্ক ত্বক হতে পারে-

  • ত্বকের অবস্থা, যেমন একজিমা এবং সোরিয়াসিস
  • ডায়াবেটিস- রক্তে শর্করার মাত্রা ডিহাইড্রেশন ঘটাতে পারে, যা শুষ্ক ত্বকের দিকে পরিচালিত করে।
  • হাইপোথাইরয়েডিজম- থাইরয়েড হরমোনের নিম্ন মাত্রা আপনার ত্বকে যে পরিমাণ তেল উৎপন্ন করে তা কমিয়ে দেয়। ফলস্বরূপ, ত্বক শুষ্ক এবং ফ্ল্যাকি হয়ে যায়। হাইপোথাইরয়েডিজমে সাধারণত অন্যান্য উপসর্গও থাকে, যেমন ক্লান্তি এবং ওজন বৃদ্ধি।
  • অপুষ্টি – শরীর প্রয়োজনীয় পুষ্টি না পেলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। ত্বকের শুষ্কতা নির্ভর করে খাদ্যাভ্যাসের উপর।

চিকিৎসা – শুষ্ক ত্বকের চিকিৎসার সর্বোত্তম উপায় হল প্রথমে এর কারণ চিহ্নিত করা এবং সেই অনুযায়ী চিকিৎসা করা। তাই আপনি যদি ত্বকের শুষ্কতার সমস্যা নিয়ে খুব চিন্তিত থাকেন, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ডাক্তার আপনাকে সঠিক ওষুধ লিখে দেবেন, যেমন- স্টেরয়েড, অ্যান্টিহিস্টামাইনস (যে ওষুধগুলি এলার্জি ইত্যাদির মতো সমস্যার জন্য দেওয়া হয়), যা শুষ্ক ত্বকের চুলকানি উপশম করতে পারে।

ত্বকের শুষ্কতা প্রতিরোধের টিপস-

শীতকালে ত্বক শুষ্কতার সমস্যায় পড়ে। কারণ, শীতল বাতাসে আর্দ্রতা কম থাকে। তাই বাতাস শরীরের আর্দ্রতা শোষণ করে আর্দ্রতা সরবরাহ করার চেষ্টা করে।

শীতকালে এই সমস্যা মোকাবেলা করতে এবং ত্বকের সমস্যা যেমন চুলকানি, শুষ্কতা, ফাটল ইত্যাদি প্রতিরোধ করার জন্য, আপনার ত্বককে নিয়মিত ময়শ্চারাইজ করা উচিত।

আমেরিকান একাডেমি অফ ডার্মাটোলজি অনুসারে, আপনার ত্বকের শুষ্কতা প্রতিরোধ করতে আপনি কিছু অভ্যাস পরিবর্তন করতে পারেন। যেমন-

১। আপনার গোসল এবং শেভ করার অভ্যাস পরিবর্তন করুন।

  • গোসলের সময় ঠিক করুন। ১০ মিনিটের বেশি গোসল করবেন না এবং গোসলের জন্য গরম পানির পরিবর্তে হালকা গরম পানি ব্যবহার করুন।
  • মৃদু, অগন্ধযুক্ত সাবান এবং ক্লিনজার ব্যবহার করুন। ডিওডোরেন্ট, কঠোর সাবান এবং ক্যামিকেল দিয়ে তৈরি পণ্য ব্যবহার করবেন না।
  • গোসলের পরপরই শেভ করুন কারণ সেই সময় আপনার চুল নরম থাকে, যা ত্বকে জ্বালাপোড়া করে না।

২। ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার –

শীতে ত্বক, বিশেষ করে মুখ, হাত ও পায়ের ময়েশ্চারাইজিং উপকারী। গোসলের পরপরই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এতে আপনার ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।
লোশনের পরিবর্তে ক্রিম ব্যবহার করুন। এগুলি আরও কার্যকর কারণ এতে ভাল তেলের মিশ্রণ রয়েছে। যেমন-

  • জলপাই তেল
  • পেট্রোলিয়াম জেলি
  • গ্লিসারিন- আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।
  • ল্যাকটিক অ্যাসিড, ইউরিয়া, হায়ালুরোনিক অ্যাসিড এবং ডাইমেথিকোন ইত্যাদি ত্বককে নরম করে।
  • অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট (ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন ই) ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখে।
  • ঠোঁটের যত্ন নিতে একটি ভালো লিপবাম নিন যা ঠোঁটকে নরম রাখে।

৩। শুষ্ক বাতাস এড়িয়ে চলা

  • আপনার ত্বককে ঠান্ডা, শুষ্ক বাতাস ইত্যাদি থেকে রক্ষা করতে সুরক্ষামূলক পোশাক পরুন।
  • আপনার হাত এবং পা সাধারণত আর্দ্র বা দ্রুত ভিজে যায়। তাই মোজা এবং গ্লাভস শুকনো রাখুন। এর কারণেও ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে।
  • ফায়ারপ্লেস এর কাছে বসবেন না। যদিও শীতকালে এটি শরীরে উষ্ণতা দেয়, তবে গরম বাতাস আপনার ত্বক থেকে আর্দ্রতা কেড়ে নিতে পারে।
  • উল এবং মোটা কাপড় ধোয়ার জন্য একটি ভাল ডিটারজেন্ট বেছে নিন।
  • ঘরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক করার মেশিন ব্যবহার করুন। এটি ঘরের বাতাসে আর্দ্রতা তৈরি করতে সহায়তা করে।

৪। একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করুন

আপনি যদি এই টিপসগুলি অনুসরণ করেন এবং আপনার ত্বক এখনও ভাল না হয় তবে আপনার ত্বকের অন্য কোনও সমস্যা বা রোগ হতে পারে। তবে আপনাকে শুষ্ক ত্বক থেকে মুক্তি পেতে একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (7 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button