প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় জ্বরের কারণ ও কমানোর ঘরোয়া উপায়

গর্ভাবস্থায় জ্বর হলে তা গুরুত্ব সহকারে নেওয়া জরুরি। মনে রাখবেন গর্ভাবস্থায় ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের কারণে জ্বর মা এবং নবজাতক উভয়ের জন্যই মারাত্মক হতে পারে। বোস্টন ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে মহিলারা গর্ভাবস্থার ঠিক আগে বা শুরুতে জ্বর হওয়ার কথা জানিয়েছেন তাদের নবজাতকের ‘নিউরাল টিউব ডিফেক্ট’ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি ছিল। ‘নিউরাল টিউব ডিফেক্ট’ হল একটি জন্মগত ত্রুটি যা মস্তিষ্ক বা মেরুদন্ডের সাথে জড়িত, যা গর্ভাবস্থার প্রথম মাসে ঘটতে পারে।

গর্ভাবস্থায় জ্বরও ভাইরাল সংক্রমণের ইঙ্গিত দিতে পারে। ভাইরাল সংক্রমণ যেমন CMV, রুবেলা, হারপিস ইত্যাদি শিশুর উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং টেরাটোজেনিসিটি বা বৃদ্ধির সীমাবদ্ধতার কারণ হতে পারে। এই পোস্টে গর্ভাবস্থা এবং জ্বরের মধ্যে সংযোগ এবং এর সাথে সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।

প্রথমেই আমরা জ্বর সম্পর্কে বিস্তারিত বলতে যাচ্ছি।

জ্বর কি?

শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হলে তাকে জ্বর বলে। প্রতিটি ব্যক্তির স্বাভাবিক তাপমাত্রা একে অপরের থেকে আলাদা হতে পারে, তবে বৈজ্ঞানিকভাবে এটি প্রায় 98.6 ফারেনহাইট। একটা বিষয় পরিষ্কার যে জ্বর কোনো রোগ নয়। এটি একটি লক্ষণ যে আপনার শরীর কোনো রোগ বা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার চেষ্টা করছে।

জ্বর কি গর্ভাবস্থার লক্ষণ?

জ্বর গর্ভাবস্থার লক্ষণ হতে পারে। কারণ ডিম্বস্ফোটনের সময় (ডিম্বাশয় থেকে ডিম্বাণু বের হওয়ার প্রক্রিয়া) শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায়, যাকে বেসাল বডি টেম্পারেচার (BBT) বলা হয়। যদি নির্ধারিত তারিখের দুই সপ্তাহ পর পর্যন্ত পিরিয়ড না আসে এবং ডিম্বস্ফোটনের সময় শরীরের বেসাল তাপমাত্রা বেশি থাকে, (শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রার চেয়ে প্রায় .5 ফারেনহাইট বেশি), এটি গর্ভাবস্থার লক্ষণ হতে পারে।

এইভাবে BBT এর ভিত্তিতে এটি নিশ্চিত করা যেতে পারে যে মহিলাটি তার গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায়ে পৌঁছেছেন।

গর্ভাবস্থায় জ্বরের কারণ

গর্ভাবস্থায় ইমিউন সিস্টেম দুর্বল হয়ে যায়, কারণ মা এবং শিশু উভয়কে রক্ষা করার জন্য অতিরিক্ত কাজ করতে হয়। এই সময়, শরীর সংবেদনশীল হয়ে ওঠে এবং সংক্রমণের প্রবণ হতে পারে, যা জ্বর হিসাবে দেখাতে পারে। নীচে দেওয়া পয়েন্টগুলির মাধ্যমে, গর্ভাবস্থায় সাধারণত জ্বর হওয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণগুলি সম্পর্কে জানুন –

ঠান্ডা বা ইনফ্লুয়েঞ্জা: গর্ভাবস্থায় সর্দি, যা সাধারণত একটি ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাল সংক্রমণ, জ্বর হতে পারে। এই সময় সর্দি, কাশি এবং গলা ব্যথা হতে পারে। এটি সাধারণত 3-4 দিনের মধ্যে ভাল হয়ে যায়, তবে সমস্যাটি দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকলে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

ইউরেথ্রাল ইনফেকশন (ইউটিআই): গর্ভাবস্থায় মহিলাদের মূত্রনালীর সংক্রমণের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। এটি একটি মূত্রনালীর সংক্রমণ, এতে প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত, ঠান্ডা লাগা এবং জ্বর হতে পারে। প্রস্রাবের ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি, প্রস্রাবের সময় ব্যথা মূত্রনালীর সংক্রমণের লক্ষণ। গর্ভাবস্থায় এটি একটি সাধারণ সমস্যা নয়। এই কারণে, অকাল প্রসব এবং অ্যামনিওটিক ঝিল্লি ফেটে যাওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়।

গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিস (বা পেটের সংক্রমণ): গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিস প্রধানত ভাইরাস এবং কিছু ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট হয়। এটি বমি, ডায়রিয়া এবং জ্বরের মতো লক্ষণগুলির সাথে আসে। এই সমস্যাটি একজন গর্ভবতী মহিলার ক্ষেত্রেও ঘটতে পারে এবং এর মারাত্মক পরিণতি হতে পারে।

পারভো ভাইরাস B19: সিডিসি অনুসারে, গর্ভবতী মহিলাদের মাত্র পাঁচ শতাংশ এই বিরল ভাইরাসে আক্রান্ত হন। সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে ত্বকের ফুসকুড়ি, জয়েন্টে ব্যথা, মাথাব্যথা, গলা ব্যথা এবং জ্বর। পারভোভাইরাস B19 রক্তাল্পতা এবং হৃদপিন্ডের প্রদাহ, গর্ভপাত বা ভ্রূণের অন্তঃসত্ত্বা মৃত্যুর মতো জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে।

ডেঙ্গু এবং ম্যালেরিয়া: এটি মূলত মশার কামড়ের কারণে হয়। প্রধান উপসর্গগুলো হলো উচ্চ গ্রেডের জ্বর, জ্বরের সঙ্গে ঠান্ডা লাগা, ঘাম, চরম দুর্বলতা, মাথাব্যথা, চোখের পেছনে ব্যথা (ডেঙ্গু)। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য মশার কামড় থেকে নিজেদের রক্ষা করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ম্যালেরিয়া সংক্রমণের কারণে গর্ভপাত হতে পারে, প্রিটারম ডেলিভারি হতে পারে এবং এমনকি ভ্রূণের সংক্রমণের ঘটনাও রয়েছে।

টাইফয়েড: প্রধান উপসর্গগুলো হলো জ্বর, দুর্বলতা, ডায়রিয়া, বমি, ফোলাভাব, পেটে ব্যথা, মাথাব্যথা, ক্ষুধামন্দা, মুখে রুচিহীনতা। জটিলতা প্রতিরোধের জন্য অ্যান্টিবায়োটিকের প্রাথমিক সূচনা অপরিহার্য।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ: করোনা ভাইরাস সংক্রমণও এখন একটি সাধারণ কারণ। এটি কোনো লক্ষণ ছাড়াই ঘটতে পারে। তবে প্রধান উপসর্গগুলো হলো জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট, গন্ধ ও স্বাদ অনুপস্থিতি। ভ্রূণের সংক্রমণের ঝুঁকি কম হলেও সতর্কতা প্রয়োজন। কোভিড সংক্রমণ এড়াতে, ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ রাখুন, মাস্ক ব্যবহার করুন এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন।

ভ্রূণের সংক্রমণ ( Chorioamnionitis): যোনিপথে ফুটো হওয়ার সমস্যা থাকলে মেমব্রেন ফেটে যাওয়ার জন্য ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। ঝিল্লি ফেটে যাওয়ার পরে, ভ্রূণ যোনি ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সংক্রামিত হতে পারে, যা শিশুর জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক। এর জন্য প্রয়োজন অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসা এবং শিশুর তাড়াতাড়ি ডেলিভারি।

লিস্টেরিয়া: লিস্টেরিওসিস ঘটে যখন আপনি দূষিত পানি এবং খাবার গ্রহণ করেন। সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে উচ্চ জ্বর, বমি বমি ভাব, পেশী ব্যথা, ডায়রিয়া, মাথাব্যথা এবং গলা ব্যথা। যদি এটির প্রাথমিক চিকিৎসা না করা হয়, তবে এটি গুরুতর জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে যেমন অকাল প্রসব, জন্মের সময় শিশুর মৃত্যু বা এমনকি গর্ভপাত।

গর্ভাবস্থায় জ্বরের অন্যান্য বিরল কারণগুলির মধ্যে রয়েছে হেপাটাইটিস, পাইলোনেফ্রাইটিস (কিডনি সংক্রমণ), যক্ষ্মা, কোলানজাইটিস, নিউমোনিয়া।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় নিম্ন রক্তচাপ, গর্ভাবস্থায় চুলকানির চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার, গর্ভাবস্থায় ফলিক এসিড সমৃদ্ধ খাবার কেন গ্রহণ করা উচিৎ?

গর্ভাবস্থায় জ্বরের কারণে শিশুর উপর প্রভাব

গর্ভাবস্থায় জ্বর শুধুমাত্র মায়ের জন্য নয়, শিশুর জন্যও মারাত্মক হতে পারে। নিচের বিষয়গুলোর মাধ্যমে জেনে নিন গর্ভাবস্থায় জ্বর কীভাবে শিশুর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে-

ভ্রূণের বিকাশে ব্যাঘাত- গর্ভাবস্থায় হাইপারথার্মিয়া (অস্বাভাবিকভাবে শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি) গর্ভপাত ঘটাতে পারে বা ভ্রূণের বিকাশে বাধা হতে পারে। গর্ভাবস্থায় জ্বর, বিশেষ করে জন্মগত ত্রুটির সাথে যুক্ত।

মৌখিক ফাটলের ঝুঁকি- একটি সমীক্ষা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় জ্বর হলে শিশুদের মুখের ফাটলের (উপরের ঠোঁট নাকের সংস্পর্শে আসা) হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। যাইহোক, অ্যান্টিপাইরেটিক (জ্বর কমানোর ওষুধ) ব্যবহার এর ক্ষতিকর প্রভাব কমাতে পারে। শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে এই ওষুধটি সেবন করুন।

জন্মগত ত্রুটির ঝুঁকি (টেরাটোজেন)- রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে যেসব মহিলারা গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে বা তার ঠিক আগে জ্বরে আক্রান্ত হন তাদের নবজাতকের জন্মগত ত্রুটির ঝুঁকি বেশি থাকে।

নিউরাল টিউব ডিফেক্টস- স্লোয়ান এপিডেমিওলজি সেন্টার (বোস্টন ইউনিভার্সিটি) গর্ভাবস্থার আগে বা গর্ভাবস্থায় মহিলাদের জ্বর নিয়ে গবেষণা করেছে। এর মাধ্যমে দেখা গেছে যে নারীদের গর্ভাবস্থায় জ্বর ছিল তাদের নবজাতকের মধ্যে ‘নিউরাল টিউব ডিফেক্ট’ হওয়ার প্রবণতা বেশি।

অটিজম এবং শিশু বিকাশ- একটি গবেষণায় নিশ্চিত করা হয়েছে যে গর্ভাবস্থায় জ্বর শিশুর বিকাশকে প্রভাবিত করে এবং অটিজম হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় জ্বরের সাথে কীভাবে মোকাবিলা করবেন

গর্ভাবস্থায় জ্বর হতে পারে, তাই এটি নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করবেন না। বাড়িতে একটি থার্মোমিটার রাখুন এবং আপনার তাপমাত্রা পরীক্ষা করতে থাকুন। যদি এটি শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা (98.6 ফারেনহাইট) থেকে অনেক বেশি হয় তবে অবিলম্বে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। শুরুতে, আপনি নিম্নলিখিত সহজ পদ্ধতিগুলি অবলম্বন করে ক্রমবর্ধমান জ্বর কমাতে পারেন।

১. আরামদায়ক এবং ঢিলেঢালা পোশাক পরুন। সুতির পোশাক আপনার জন্য বেশি মানানসই হবে। ঠান্ডা লাগলে চাদর বা কম্বল পরতে পারেন।

২. এই সময়ে হাইড্রেটেড থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মাঝে পানি পান করতে থাকুন।

৩. শরীরকে যতটা সম্ভব বিশ্রাম দিন। জ্বরের কারণে মাথা ঘোরাও হতে পারে, তাই বেশি নড়াচড়া করবেন না।
একটি ভাল বায়ুচলাচল ঘরে থাকার চেষ্টা করুন।

৪. আপনার কোন নির্দিষ্ট উপসর্গ থাকলে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

গর্ভাবস্থায় জ্বরের ওষুধ

গর্ভাবস্থায় জ্বর মোকাবেলা করার জন্য আপনি কিছু নির্বাচনী ওষুধ গ্রহণ করতে পারেন। নিচে জেনে নিন কোন ওষুধ আপনার জন্য সঠিক হবে–

জ্বরের জন্য বাজারে অনেক ওষুধ পাওয়া যায়, কিন্তু গর্ভাবস্থায় খুব কমই নিরাপদ বলে মনে করা হয়। সাধারণত গর্ভাবস্থায় ডাক্তাররা প্যারাসিটামল দিয়ে থাকেন। প্যারাসিটামল একটি নিরাপদ ওষুধ এবং এটি ভ্রূণকে প্রভাবিত করে না, যদি না খুব বেশি মাত্রায় গ্রহণ করা হয়।

অ্যাসপিরিন বা আইবুপ্রোফেনের মতো নন-স্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি (NSAIDs) ওষুধগুলিও ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরে নির্ধারিত ডোজে নেওয়া যেতে পারে।

সঠিক ওষুধ বেছে নেওয়ার জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করাই ভালো, কারণ ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া আপনার এবং আপনার শিশুর জন্য বিপজ্জনক হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায়

গর্ভাবস্থায় জ্বর কমানোর জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার গ্রহণ করা যেতে পারে। এটি সাধারণ সর্দি, ফ্লু এবং কিছু সংক্রমণ প্রতিরোধেও সহায়ক। মনে রাখবেন যে এগুলো কোনো চিকিৎসা নয়, তাই সমস্যার লক্ষণ অনুযায়ী এগুলি বেছে নেওয়া উচিত। এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি নির্দিষ্ট সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং অনাক্রম্যতা উন্নত করতেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

তুলসি চা- গর্ভাবস্থায় অনেক সমস্যা দূর করতে তুলসি খাওয়া হয়। জ্বর হলে চার থেকে পাঁচটি তুলসী পাতা এক কাপ পানিতে দুই থেকে তিন মিনিট ফুটিয়ে কিছুটা ঠান্ডা হলে পান করুন। তুলসীর জ্বর-বিরোধী গুণ আপনাকে জ্বর থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে।

আদা ও মধু- গর্ভাবস্থায় জ্বর কমাতে আদামধু ব্যবহার করতে পারেন। এক কাপ পানিতে আধা চা-চামচ কাটা আদা দিয়ে পাঁচ মিনিট ভালো করে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা হলে এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে পান করুন। আদা এবং মধু এন্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ, যা আপনাকে জ্বর থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে।

মেথির জল- গর্ভাবস্থায় জ্বর থেকে মুক্তি পেতে মেথির বীজ ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য আপনি এক কাপ পানিতে এক চামচ মেথি দানা দিয়ে সারারাত রেখে দিন এবং সকালে ছাঁকলে পানি পান করুন। গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়া নিরাপদ।

হলুদ খাওয়া- গর্ভাবস্থায় জ্বর কমাতে হলুদ ব্যবহার করতে পারেন। এটিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। হলুদ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং জ্বর কমায়। আপনি এক গ্লাস পানিতে আধা চা চামচ হলুদ, আদা গুঁড়া এবং প্রয়োজনমতো চিনি দিয়ে গরম করুন। মিশ্রণটি কিছুটা ঠান্ডা হলে ধীরে ধীরে পান করুন।

পর্যাপ্ত পানি- গর্ভাবস্থায় জ্বর কমাতে, আপনার মাঝে জল পান করা উচিত, যাতে আপনি সম্পূর্ণ হাইড্রেটেড থাকেন।

গর্ভাবস্থায় জ্বর কমাতে সতর্কতা

কোন বিষয়গুলো মাথায় রাখা জরুরি-

. ডায়েটে বিশেষ মনোযোগ দিন। আপনার খাদ্যতালিকায় ফল এবং সবুজ শাকসবজি অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না। এছাড়াও, এই সময়ে, ডাক্তারের কাছ থেকে সঠিক ডায়েট সম্পর্কিত তথ্য নিন।

. যেকোনো সংক্রমণ এড়াতে, নিজেকে পরিষ্কার রাখুন এবং এর মধ্যে আপনার হাত ধুয়ে নিন।

. নিয়মিত মেডিকেল চেকআপ করান।

. আপনি চাইলে থার্মোমিটার দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করতে পারেন।

. এলার্জি হতে পারে এমন খাবার থেকে দূরে থাকুন।

. কোন অস্বস্তির ক্ষেত্রে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

আমরা উপরে উল্লেখ করেছি যে করোনাভাইরাস গর্ভাবস্থায় জ্বরের কারণ হতে পারে, তাই সামাজিক দূরত্ব অনুসরণ করুন, মাস্ক ব্যবহার করুন এবং ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার খান।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য:

গর্ভাবস্থায় খড় জ্বরের চিকিৎসা কি?

খড় জ্বর একটি প্রতিকূল পরিবেশে একটি এলার্জি প্রতিক্রিয়া। এর প্রধান কারণ ধুলাবালি, পোষা প্রাণী বা দূষিত পরিবেশ থেকে এলার্জি। গর্ভাবস্থায় এর থেকে পরিত্রাণ পেতে, আপনি কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে পারেন, যেমন-

জেনে নিন আপনার এলার্জির কারণ। এটি করার মাধ্যমে আপনি ক্রমবর্ধমান খড় জ্বর কমাতে সক্ষম হবেন এবং এটি চিকিত্সার ক্ষেত্রেও সাহায্য করবে। আপনি অ্যান্টি-এলার্জিক ওষুধ খেতে পারেন, এর জন্য আপনাকে সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। দূষিত পরিবেশ এবং পোষা প্রাণী থেকেও দূরে থাকুন, কারণ এগুলিও খড় জ্বরের কারণ।

গর্ভাবস্থায় গ্রন্থি জ্বর কি ঝুঁকিপূর্ণ?

গ্ল্যান্ডুলার জ্বর হল এপস্টাইন বার ভাইরাস (EBV) দ্বারা সৃষ্ট একটি সংক্রমণ। একে সংক্রামক মনোনিউক্লিওসিস এবং চুম্বন রোগও বলা হয়। একবার একজন ব্যক্তি এপস্টাইন-বার ভাইরাসে আক্রান্ত হলে, এর অ্যান্টিবডি সারাজীবনের জন্য শরীরে থাকে। EBV সংক্রমণ গর্ভাবস্থায় শরীরে প্রবেশ করতে পারে। এর সাধারণ লক্ষণগুলি হল জ্বর, গলা ব্যথা এবং গ্রন্থি ফুলে যাওয়া এবং তলপেটে ব্যথা। গ্রন্থিজনিত জ্বরের লক্ষণ দেখা দিলে সঠিক চিকিৎসাকে অগ্রাধিকার দিন।

গর্ভাবস্থায় ডেঙ্গু জ্বরের ঝুঁকি কী?

ডেঙ্গু জ্বর গর্ভবতী মহিলাকে সংক্রমিত করতে পারে। এই সময়ে এটি ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। এই সময়ের মধ্যে প্লেটলেট কমে যাওয়া, প্রি-টার্ম লেবার এবং ডেঙ্গুর কারণে ভ্রূণ সংক্রমণের মতো জটিলতাগুলি লক্ষ করা গেছে। অতএব, এর সাথে যুক্ত সঠিক চিকিৎসা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

আশা করি আপনি গর্ভাবস্থায় মা ও শিশুর উপর জ্বরের প্রভাব এবং তা থেকে মুক্তি পাওয়ার বিভিন্ন ঘরোয়া ও চিকিৎসা পদ্ধতি সম্পর্কে জেনেছেন। জ্বর হলে প্রদত্ত সতর্কতা ও ব্যবস্থার প্রতি মনোযোগ দিতে ভুলবেন না। এটা ভালো হবে যে আপনি সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের পরামর্শে এর চিকিৎসার প্রক্রিয়া চালিয়ে যান।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (18 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button