প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়া কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থার নাজুক মুহুর্তে, মা এবং অনাগত শিশু উভয়েরই যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে নিজের প্রতি গর্ভবতী মহিলার দায়িত্ব আরও বেড়ে যায়। ব্যায়াম এবং যোগব্যায়ামের পাশাপাশি তাদের পুষ্টিরও প্রয়োজন, যা শুধুমাত্র ভালো খাবারের মাধ্যমেই পূরণ করা সম্ভব। অভিজ্ঞ মহিলারা গর্ভাবস্থায় সঠিক খাদ্যের জন্য বিভিন্ন ধরণের ফল এবং শাকসবজি খাওয়ার পরামর্শ দেন। এসব ফল ও সবজির মধ্যে একটি হল বেগুন। এই প্রবন্ধে আমরা জানব গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়া উচিত কি না বা গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়ার উপকারিতা কী হতে পারে।

আসুন প্রথমে জেনে নিই গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়া উচিত কি না।

আমি কি গর্ভাবস্থায় বেগুন খেতে পারি?

গর্ভাবস্থায় সুষম পরিমাণে গ্রহণ করলে বেগুন খুবই উপকারী প্রমাণিত হবে। এতে পাওয়া যায় এমন অনেক পুষ্টি উপাদান, যা গর্ভবতী মহিলাদের পাশাপাশি ভ্রূণের বিকাশে সহায়ক। আপনাদের জানিয়ে রাখি এতে যে উপাদানগুলো পাওয়া যায় যেমন:- ফাইবার, ফোলেট এবং পটাশিয়াম ভ্রূণের বিকাশের জন্য উপকারী।

আসুন জেনে নিই গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়ার কী কী স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় বেগুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় বেগুন মা ও ভ্রূণ উভয়ের জন্যই উপকারী এবং এর কারণ হল এতে পাওয়া পুষ্টিগুণ। এখানে আমরা বলছি গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়ার কী কী স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

জন্মগত ত্রুটি প্রতিরোধ: বেগুন ফোলেটের একটি ভাল উৎস। ফোলেট গর্ভাবস্থায় মহিলাদের মধ্যে ঘটে এমন মানসিক ব্যাধি (মাথাব্যথা, চাপ এবং উদ্বেগ) সহ ভ্রূণের বিকাশের জন্য উপকারী। এটি লোহিত রক্তকণিকার বিকাশেও সাহায্য করে। এই কারণে এর সম্মিলিত প্রভাব নিউরাল টিউব ত্রুটির ঝুঁকিও কমাতে সক্ষম (যা একটি জন্মগত ত্রুটি)।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে: একটি গবেষণা অনুযায়ী, টাইপ 2 ডায়াবেটিস প্রতিরোধে বেগুন উপকারী। বেগুনে উপস্থিত ফাইবার এবং কম দ্রবণীয় কার্বোহাইড্রেট ডায়াবেটিস প্রতিরোধে কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে। এছাড়াও, বেগুনে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলি রক্তে উপস্থিত গ্লুকোজ কমাতে সহায়ক বলে বিবেচিত হয়েছে, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কার্যকর।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা ও ঘরোয়া প্রতিকার, গর্ভাবস্থায় এনিমিয়া বা রক্তশূন্যতার কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা

ভালো হজমের জন্য: বেগুনে রয়েছে ফাইবার, যা পরিপাকতন্ত্রকে শক্তিশালী করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো পেটের সমস্যা দূর করতে কাজ করে। ফাইবার মলকে নরম করে মলত্যাগের প্রক্রিয়াকে সহজ করে, যা কোষ্ঠকাঠিন্যের সম্ভাবনাকে অনেকাংশে কমিয়ে দেয়।

প্রিক্ল্যাম্পসিয়ার ঝুঁকি হ্রাস: এছাড়াও কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে বেগুনে উপস্থিত ফাইবার গ্রহণ গর্ভাবস্থায় প্রিক্ল্যাম্পসিয়ার ঝুঁকি কমায়। প্রিক্ল্যাম্পসিয়া এমন একটি সমস্যা, যাতে রক্তচাপ, মানসিক ব্যাধি (মাইগ্রেন), কিডনি সংক্রান্ত সমস্যা হতে পারে।

কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে: গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়া উপকারী কারণ বেগুনে রয়েছে অ্যান্থোসায়ানিন, যা নাসুনিন নামে পরিচিত। এটি আমাদের শরীরে একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে, যা লিপিড পারক্সিডেশনের (শরীরের কোষের ক্ষতির কারণ ) প্রভাব কমায়।

খারাপ কোলেস্টেরল কমায়: গর্ভাবস্থায় বেগুনের ব্যবহার ক্ষতিকারক কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে এবং আপনার রক্তে ভাল কোলেস্টেরল বাড়াতে সহায়ক।

রক্তচাপ ও মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করে: বেগুনে প্রচুর পরিমাণে ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে। গর্ভাবস্থায় এটি খেলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এর সাথে, এটি মানসিক চাপ উপশম করতেও সহায়ক।

কোলন ক্যান্সার দূর করুন: কোলন ক্যান্সারের (অন্ত্রের ক্যান্সার) সমস্যায়ও বেগুনের ব্যবহার উপশম দিতে কাজ করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এতে পাওয়া ফাইবার অন্ত্রকে সুস্থ রাখে এবং কোলন ক্যান্সারের সমস্যায়ও অনেকাংশে উপকারী।

নিবন্ধের পরবর্তী অংশে, আমরা বেগুনে পাওয়া পুষ্টি এবং তাদের পরিমাণ সম্পর্কে জানব।

বেগুনে পাওয়া পুষ্টিগুণ

বেগুনে বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি রয়েছে, যার কয়েকটি নিম্নরূপঃ

পুষ্টি উপাদান | পুষ্টিকর মান

  • জল 92.30 গ্রাম
  • ক্যালোরি 25 ক্যালোরি
  • কার্বোহাইড্রেট 5.88 গ্রাম
  • চর্বি 0.18 গ্রাম
  • প্রোটিন 0.98 গ্রাম
  • চিনি 3.53 গ্রাম
  • ফাইবার 3.0 গ্রাম

ভিটামিন

  • ভিটামিন সি 2.2 মিলিগ্রাম
  • নিয়াসিন 0.649 মিলিগ্রাম
  • রিবোফ্লাভিন 0.037 মিলিগ্রাম
  • থায়ামিন 0.039 মিলিগ্রাম
  • ফোলেট 22 µg
  • ভিটামিন এ 23 আইইউ
  • ভিটামিন ই 0.30 মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন বি 6 0.084 মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন কে 3.5 μg

ইলেক্ট্রোলাইটস

  • সোডিয়াম 2 মি.গ্রা
  • পটাসিয়াম 229 মিলিগ্রাম

খনিজ

  • ক্যালসিয়াম 9 মিলিগ্রাম
  • আয়রন 0.23 মিলিগ্রাম
  • ম্যাগনেসিয়াম 14 মিলিগ্রাম
  • ফসফরাস 24 মিলিগ্রাম
  • দস্তা 0.16 মিলিগ্রাম

গর্ভাবস্থায় বেগুনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

আয়ুর্বেদ চিকিৎসকরা বিশ্বাস করেন যে আপনার প্রচুর পরিমাণে বেগুন খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত, কারণ এর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকতে পারে।

১. বেগুন সেবনে রক্তে উপস্থিত চিনির পরিমাণ কমে যায়, তাই যাদের শর্করার সমস্যা কম বা এর সাথে সম্পর্কিত ওষুধ সেবন করেন তারা অবশ্যই এটি খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

২. বেগুনের অত্যধিক ব্যবহার গ্যাস্ট্রিক এবং ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে।

৩. বেগুনের অত্যধিক ব্যবহার অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

৪. নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায়, এটি খাওয়ার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন, অন্যথায় কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও দেখা যেতে পারে।

আসুন এখন জেনে নিই কিভাবে গর্ভবতী এবং ভ্রূণের স্বাস্থ্যের জন্য বেগুন ব্যবহার করবেন।

গর্ভাবস্থায় বেগুন কিভাবে অন্তর্ভুক্ত করবেন?

বেগুন সঠিকভাবে রান্না করা হলে, এটি সত্যিই সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী হবে। আপনি অনেক উপায়ে আপনার খাদ্যতালিকায় এটি অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। উপরে আমরা পড়লাম গর্ভাবস্থায় বেগুনের সীমিত ব্যবহার কতটা উপকারী হতে পারে। এখন আমরা এখানে ব্যাখ্যা করছি কিভাবে গর্ভাবস্থায় বেগুন অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।

ভাতের সাথে খেতে পারেন এমন রসালো তরকারি তৈরি করতে আপনার প্রিয় পিউরি দিয়ে বেগুন স্টাফ করুন।
এটি অন্যান্য সবজির সাথে ভুনা করেও খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।
এটি রান্না করে স্যান্ডউইচে ভরে খাওয়া যায়।
বেগুন ভাজুন এবং খোসা ছাড়ুন এবং তারপর এটি পাস্তা বা রুটির উপরে পরিবেশন করুন।
এটি বেক করা যায় এবং অন্যান্য সবজির সাথে পরিবেশন করা যায়।
এটি আচার করা যেতে পারে বা স্যুপ তৈরিতেও ব্যবহার করা যেতে পারে।

এবার আমরা জেনে নিই বেগুন ব্যবহার করার সময় যেসব সতর্কতা মাথায় রাখতে হবে।

গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়ার ক্ষেত্রে যেসব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে

অবশ্য গর্ভাবস্থায় কোনো সবজি খাওয়া নিষেধ নয়, তবুও কিছু সতর্কতা মাথায় রাখা জরুরি। বেগুন খাওয়ার আগে কিছু বিষয় মাথায় রাখুন, যা নিম্নরূপ:

কোনও নেতিবাচক প্রভাব এড়াতে এটি পরিমিতভাবে খাওয়া ভাল।
এটি ব্যবহার করার আগে সর্বদা একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।
তাজা এবং ভালভাবে রান্না করা বেগুন ব্যবহার করুন। কাঁচা বেগুন খেলে পেটের সমস্যা হতে পারে।
বাজার থেকে আনার পর বেগুন ভালো করে ধুয়ে ব্যবহার করুন। এর বাইরের স্তরে কীটনাশক রাসায়নিক থাকতে পারে, যা আপনার ক্ষতি করতে পারে।
এটি কাটার সময়, নিশ্চিত করুন যে এতে কোন পোকামাকড় নেই।

এই নিবন্ধে, আপনি শিখেছেন কিভাবে গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়া নিরাপদ। এগুলি ছাড়াও, আপনি নিবন্ধটির মাধ্যমে এর উপকারিতা এবং নেতিবাচক পরিণতি সম্পর্কেও শিখেছেন। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি যদি গর্ভাবস্থায় বেগুন খাওয়ার কথা ভাবছেন, তবে প্রথমে এখানে দেওয়া বেগুনের সাথে সম্পর্কিত সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পড়ুন। তবেই বেগুন ব্যবহার করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button