হেয়ার স্টাইল

চুল গজানোর উপায়

চুল আমাদের ব্যক্তিত্বের জন্য এতই গুরুত্বপূর্ণ যে তা লম্বা হোক বা ছোট, এগুলো ছাড়া ব্যক্তিত্ব অসম্পূর্ণ দেখায়। এই কারণেই সবাই কালো লম্বা চুল চায়। নারীরা এক্ষেত্রে একটু এগিয়ে থাকে কারণ তাদের অধিকাংশই লম্বা ঘন চুল চায়। অথচ কোনো মানুষই চায় না তার চুল পড়ে যাক।

কিন্তু অনেক সময় খারাপ হেয়ার প্রোডাক্ট, ডায়েটের অভাব, খারাপ মানসিক অবস্থা এবং দিন দিন দূষণ বৃদ্ধির মতো অনেক কারণে চুলের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায় এবং চুল পড়া শুরু হয়। তাই আমাদের চুলের আলাদা যত্ন নিতে হবে এবং আমাদের কাছে অনেক প্রাকৃতিক উপাদান রয়েছে যার সাহায্যে আমরা ঘরে বসেই দ্রুত চুল গজাতে পারি।

চুল পড়ার প্রধান কারণ

সবাই চায় তাদের চুল বাড়ুক এবং না পড়ুক। কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছেন চুল না গজানোর কারণগুলো কী? কি কি কারণে আমাদের চুল গজায় না। এই কারণগুলো সঠিকভাবে না জানলে আমরা চুল বাড়ানোর উপায় বের করতে পারব না। চুল লম্বা না হওয়ার অনেক কারণ আছে, প্রধান কারণ গুলো হলঃ

বংশগতি, মানে যদি আপনার পরিবারের কারো চুল সংক্রান্ত এই সমস্যা থেকে থাকে, তাহলে আপনার চুল লম্বা নাও হতে পারে। আপনার বয়স বাড়লেও চুল গজানো বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আজকাল পাওয়া জাঙ্ক ফুডের অতিরিক্ত সেবনও চুলের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে এবং চুলের বৃদ্ধি বন্ধ করে দেয়।

অনেক সময় চুলে ইনফেকশনের কারণেও চুল পড়া বেড়ে যায়। ব্যাকটেরিয়া মাথার ত্বকে বৃদ্ধি পায় এবং তার কারণে চুল পড়া বন্ধ হয়। আপনি যদি জাঙ্ক ফুড খান তবে এটা স্পষ্ট যে আপনি পুষ্টিকর খাবার খান না, এতে শরীরে পুষ্টির অভাব হবে এবং চুলের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাবে।

দূষণ চুলের সবচেয়ে বড় শত্রু। দূষণে বিদ্যমান ধুলো-জীবাণু চুল ও শিকড়কে দুর্বল করে এবং চুলের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায়। অনেক সময় কিছু রোগের কারণে ওষুধ খেতে হয় এবং এসব ওষুধ এতই শক্তিশালী যে চুলের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ে। মানসিক চাপ একটি বড় কারণ যার কারণে আপনি সুস্থ বোধ করেন না এবং আপনার চুলও ওঠে না এবং ফলস্বরূপ তারা বৃদ্ধি বন্ধ করে দেয়।

বয়সের সাথে সাথে অনেক হরমোনের পরিবর্তন হয় যা চুলের বৃদ্ধিতে বিরূপ প্রভাব ফেলে। আমাদের চুলের স্টাইল করার জন্য, আমরা প্রায়শই কেমিক্যালযুক্ত চুলের পণ্য ব্যবহার করি যা আমাদের চুলের জন্য ভাল নয়। চুলে খুশকি বা মাথার ত্বকে সংক্রমণও একটি কারণ।

চুলের বৃদ্ধির জন্য সঠিক খাবার

আপনি যদি দ্রুত চুল বাড়াতে চান, তাহলে আপনাকে আপনার ডায়েট ঠিক করতে হবে। এমন কিছু জিনিস আপনার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে, যা চুলে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে এবং চুল দ্রুত বাড়তে শুরু করবে।

বায়োটিনঃ বায়োটিন চুলের বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বায়োটিন কলা, ডিম এবং দুধে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়, তাই এগুলিকে আপনার দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না।

ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিডঃ ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিড চুল ঘন করে এবং চুল পড়া রোধ করে। অর্থাৎ চুল লম্বা করতে এর বড় ভূমিকা রয়েছে, তাই ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের জন্য মাছ খাওয়া উচিৎ।

ভিটামিনঃ চুলের জন্য ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ভিটামিন ই যুক্ত খাবার প্রয়োজন। এর জন্য আপনাকে অবশ্যই আপনার ডায়েটে ব্রকলি, বাঁধাকপি, পালং শাক, স্প্রাউটস, টমেটো, পেঁয়াজ, মটরশুটি, সয়া, মটর, আপেল, কমলা, বেরি, আঙ্গুর, আখরোট, পেস্তা, চিনাবাদাম, পনির, দই, মসুর ডাল অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

সুস্থ মনঃ একটি সুস্থ মন থাকা চুলের বৃদ্ধির জন্য আপনার দৈনন্দিন জীবনে সঠিক খাদ্যাভ্যাসকে অন্তর্ভুক্ত করার মতোই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি মানসিক চাপের মধ্যে বসবাস করেন, অনেক ধরনের ঝামেলাকে আপনার বন্ধু বানিয়ে ফেলেন এবং দুশ্চিন্তা আপনাকে ছাড়ছে না, তাহলে এর মানে হল আপনি ভেতর থেকে সুস্থ নন। সব সময় এভাবে দুশ্চিন্তা করা আপনার চুলের উপর খারাপ প্রভাব ফেলে। দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ এবং অস্বস্তি চুল গজাতে বাধা দেয়, তবে চুল পড়ার একটি উল্লেখযোগ্য কারণ।

চুলের বৃদ্ধির জন্য যোগব্যায়াম

স্ট্রেস একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর, যার কারণে চুলের দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে চুল পড়া রোধ এবং দৈর্ঘ্য বাড়াতে যোগব্যায়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

উত্তরাসনঃ উত্তরাসন শুরুতে কিছুটা কঠিন মনে হতে পারে তবে ধীরে ধীরে আপনি এটি আয়ত্ত করতে পারবেন। এ জন্য মাটিতে মাদুরের ওপর সোজা হয়ে দাঁড়াতে হবে। এখন একটি গভীর শ্বাস নিন এবং ছেড়ে দিন, তারপর কোমরের দিকে বাঁকুন। আপনার মাথা দিয়ে আপনার হাত এবং হাঁটু দিয়ে মাটি স্পর্শ করার চেষ্টা করুন। এই অবস্থায় আপনার হাঁটু যেন বাঁকা না হয় সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখুন। কয়েক সেকেন্ডের জন্য এই অবস্থানে থাকুন এবং স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিন। তারপর পুরনো অবস্থায় ফিরে আসুন। আপনি যতবার সম্ভব এটি পুনরাবৃত্তি করতে পারেন।

বজ্রাসনঃ হাঁটুর সাহায্যে মাদুরের উপর বসুন এবং উভয় পায়ের আঙ্গুল যোগ করুন তবে হিলগুলি আলাদা থাকতে হবে। পিঠ ও মাথা একটি সরলরেখায় রাখুন এবং উভয় হাতের তালু হাঁটুর উপর রাখুন। মনে রাখবেন উভয় হাঁটু যেন এক সাথে সংলগ্ন থাকে। আপনার চোখ বন্ধ করুন এবং স্বাভাবিকভাবে শ্বাস নিতে থাকুন। এভাবে কিছুক্ষণ বসে থাকুন।

বালায়মঃ এই যোগব্যায়ামে আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার আঙুলের নখ একসাথে ঘষতে হবে। আপনি যে কোন সময় এবং যে কোন জায়গায় এটি করতে পারেন।

দ্রুত চুল গজানোর উপায়

দ্রুত চুল গজাতে চালের পানি ব্যবহার করতে পারেন। এ জন্য চাল পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। প্রায় 20 মিনিট পর, এই জল ছেঁকে নিয়ে চুলে এবং মাথার ত্বকে হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন। তারপর সাধারণ পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। ভাতের পানিতে ইনোসিটল নামক কার্বোহাইড্রেট থাকে যা চুলের জন্য দারুণ উপকারী। এতে অ্যামিনো অ্যাসিডও পাওয়া যায়, যা চুলের গোড়া মজবুত করে এবং চুল ঘন, কালো ও চকচকে করে।

প্রতিদিন চুলের যত্নঃ আপনি যদি প্রতিদিন আপনার চুলের যত্ন না করেন তবে আপনার চুল দ্রুত বাড়বে না। এ জন্য প্রথমে চুল অনুযায়ী শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ও তেল ব্যবহার করুন। খুব গরম বা ঠান্ডা হলে চুল ঢেকে রাখুন যাতে আবহাওয়ার কারণে আপনার চুল ভেঙ্গে না যায়।

চুল শুকানোর জন্য বা অন্য কোনো উদ্দেশ্যে ড্রায়ারের মতো গরম সরঞ্জাম ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন। সপ্তাহে দুবার তেল ম্যাসাজ করে চুলকে পুষ্টি দিন এবং আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাক-সবজি ও মৌসুমি ফল অন্তর্ভুক্ত করুন।

চুল গজানোর ঘরোয়া উপায়

চুলের বৃদ্ধির জন্য আমাদের বাড়িতে এমন অনেক ঘরোয়া উপায় পাওয়া যায়, যা ব্যবহার করে আমরা আমাদের চুল দ্রুত বৃদ্ধি করতে এবং চুল পড়া বন্ধ করতে পারি।

পেঁয়াজের রসঃ পেঁয়াজের রস অর্গানিক অলিভ অয়েলের সাথে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন যা চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়।পেঁয়াজের রস এমনই একটি রেসিপি, যা খুবই কার্যকরী। চুল লম্বা করার পাশাপাশি ঘন করে। এটি অ্যালোপেসিয়া রোগেও উপকারী।

ব্যবহার নিয়মঃ পেঁয়াজ কুচি করে মিক্সারে পিষে নিন। এবার একটি পাতলা সুতি বা মসলিন কাপড়ে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে চেপে নিন। সহজে রস বের হবে। আঙুলের ডগা বা তুলোর সাহায্যে চুলে ও গোড়ায় লাগান। প্রায় আধা ঘণ্টা চুলে রেখে তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

ডিমঃ চুলের দৈর্ঘ্য বাড়ানোর একটি ঘরোয়া উপায় হল ডিম, এতে থাকা পেপটাইড চুল লম্বা করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ব্যবহার নিয়মঃ ডিম সিদ্ধ না করে ফাটিয়ে একটি পাত্রে তরল বের করে নিন। এবার ভালো করে ফেটিয়ে চুলে লাগান। আপনি চাইলে ওপর থেকে একটা ক্যাপ পরুন, এতে ডিমের গন্ধ কমে যাবে। আধা ঘণ্টা পর সাধারণ পানি দিয়ে চুল ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।

নারিকেল তেলঃ নারিকেল তেল দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ বিস্ময়কর কাজ করে। এটি চুল এবং মাথার ত্বকে রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়ায় এবং চুলকে শক্তিশালী করে। নারিকেল তেলে ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা চুলে পুষ্টি যোগায়। এটিই একমাত্র তেল, যা চুলে প্রোটিনের অভাবও পূরণ করে।

ব্যবহার নিয়মঃ একটি পাত্রে গ্যাসের উপর রেখে নারিকেল তেল হালকা গরম করে নিন। এবার তুলোর সাহায্যে বা আঙুলের সাহায্যে এই তেল চুলে ও গোড়ায় লাগান। আলতো করে ম্যাসাজ করুন। চুলের দৈর্ঘ্যেও প্রচুর পরিমাণে তেল লাগান।

মেহেদিঃ মেহেদি চুলের কন্ডিশন করার একটি দুর্দান্ত উপায়। চুলের দৈর্ঘ্য বাড়াতেও এটি কার্যকরী।

ব্যবহার নিয়মঃ আপনি যদি মেহেদি প্রাকৃতিক গ্রহণ করেন তবে এর চেয়ে ভাল কিছু নয়, অর্থাৎ আপনার বাড়িতে একটি মেহেন্দি গাছ লাগানো উচিৎ এবং এর পাতা ব্যবহার করা উচিৎ। এক কাপ মেহেদি পাউডারে কিছু দই (প্রোবায়োটিকের একটি বড় উৎস) মিশিয়ে মিশ্রণটি প্রস্তুত করুন।

এবার এই মিশ্রণটি ব্রাশের সাহায্যে চুলে লাগান। এই মিশ্রণটি শুকিয়ে গেলে সাধারণ পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। তারপর পরের দিন শ্যাম্পু করুন। কিছু লোকের মেহেদি থেকে অ্যালার্জি হতে পারে, তাই আপনি যদি এটি প্রথমবার ব্যবহার করতে যাচ্ছেন তবে প্রথমে আপনার চুলে একটু প্রয়োগ করার চেষ্টা করুন।

শিকাকাইঃ শিকাকাই চুলের জন্য অমৃতের মতো। এটি আপনার চুলকে নরম ও চকচকে করার পাশাপাশি শুষ্ক মাথার ত্বক মেরামত করে। খুশকির চিকিৎসা করে এবং চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে। বিভক্ত প্রান্ত দূর করে, চুল পাকা হওয়া রোধ করে, চুলে উকুন থাকলে তা দূর করে। প্রাকৃতিক হেয়ার ক্লিনজার হিসেবেও কাজ করে।

ব্যবহার নিয়মঃ শিকাকাই শ্যাম্পু ঘরেই বানাতে পারেন। এর জন্য শিকাকাইয়ের কিছু ফল নিন, তাতে কিছু বীজহীন রিটা, শুকনো আমলকি এবং মেথির বীজ মিশিয়ে সারারাত পানিতে রেখে দিন। এবার সকালে ঘুম থেকে উঠে সিদ্ধ করে নিন এবং সবকিছু নরম হয়ে এলে গ্যাস বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন। পানি ঝরিয়ে এই পানি দিয়ে চুল শ্যাম্পু করুন।

শিকাকাই তেলও বানাতে পারেন। এর জন্য দুই-তিন চামচ শিকাকাই পাউডারের সঙ্গে এক কাপ বাদাম তেল এবং দুই কাপ নারিকেল তেল মিশিয়ে কাচের বোতলে ভরে রাখুন। শিকাকাই পাউডার ঠিকভাবে মিশে না যাওয়া পর্যন্ত কয়েকবার নাড়ুন। এটি 8-10 দিনের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে দ্রবীভূত হবে, তারপর আপনি আপনার চুল ম্যাসেজ করতে এই তেল ব্যবহার করতে পারেন।

চুলের বৃদ্ধির জন্যঃ চুল বাড়ানোর আরেকটি উপায় হল নিয়মিত আপনার চুল এবং মাথার ত্বক ম্যাসাজ করা। সপ্তাহে অন্তত দুবার ম্যাসাজ করুন। পর্যাপ্ত ঘুম চুলের বৃদ্ধির জন্য দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, আপনি যদি 7-8 ঘন্টা ঘুম না করেন তবে এর প্রভাব কেবল আপনার ত্বকে দেখাবে না আপনার চুলের উপরও দেখাবে এবং চুলের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যাবে।

চাপ, উদ্বেগ এবং উদ্বেগকে TATA-বাই-বাই বলুন, কারণ এগুলো চুলের বৃদ্ধিকে বিরূপভাবে প্রভাবিত করে।
স্প্লিট এন্ড চুলের দৈর্ঘ্যকে ব্লক করে দেয়, তাই সঠিক সময়ে চুল ছাঁটাই করা গুরুত্বপূর্ণ।

আপনি আপনার ডায়েট সংশোধন করেছেন, নিয়মিত ম্যাসেজ করছেন, তবুও আপনি আপনার চুলের বৃদ্ধির সমাধানের অংশ হিসাবে কিছু সম্পূরক গ্রহণ করতে চান। যদিও বাজারে অনেক ধরনের সাপ্লিমেন্ট পাওয়া যায়, কিন্তু সবগুলোই ভালো নয়। আপনি যদি কোন পরিপূরক ব্যবহার করতে চান, তাহলে প্রথমে আপনার চুল বুঝুন এবং তারপর সে অনুযায়ী সঠিক পণ্য নির্বাচন করুন।

আপনি যদি অনেক প্রতিকার চেষ্টা করে থাকেন, কিন্তু তারপরও আপনি কোন উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন দেখতে না পান, তাহলে আপনার একজন ট্রাইকোলজিস্টের সাথে দেখা করা উচিৎ। তারা আপনাকে সঠিক পরামর্শের সাথে কিছু প্রয়োজনীয় ওষুধের কথাও বলবে।

উপসংহার

আমাদের ব্যক্তিত্বের সাথে মানানসই চুলের দৈর্ঘ্যের জন্য অনেকগুলি ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা আমরা চেষ্টা করতে পারি। আপনার ডায়েটে কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস অন্তর্ভুক্ত করে এবং আপনার জীবনযাত্রায় কিছু পরিবর্তন করে আপনি চুল গজাতে পারেন। এই ব্যবস্থাগুলি আমাদের বাজেটে এবং সহজলভ্য। চুল বৃদ্ধির ব্যবস্থার পাশাপাশি মানসিক সমস্যা, চাপ এবং দুশ্চিন্তা থেকে নিজেকে দূরে রাখাও জরুরি।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (75 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button