স্বাস্থ্য

কালোজিরার উপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম


আমরা প্রায়শই খাবারে টেম্পারিংয়ের (মশলা) জন্য জিরা ব্যবহার করি। বাড়িতে টেম্পারিংয়ের জন্য ব্যবহৃত জিরা ছাড়াও আরও একটি জিরা রয়েছে, যা কালোজিরা নামে পরিচিত। কালোজিরা অনেক ঔষধি গুণে ভরপুর।

নীচে বৈজ্ঞানিক গবেষণার উপর ভিত্তি করে কালোজিরার উপকারিতাগুলো বিস্তারিতভাবে দেওয়া হল:

কালোজিরার উপকারিতা

হজমের জন্য

হজমের জন্য কালোজিরা অনেক উপকারি। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, কালোজিরা অনেক সমস্যার জন্য একটি ঐতিহ্যগত প্রতিকার হিসাবে কাজ করে, যার মধ্যে একটি হজম। কালোজিরা হজমের উন্নতির পাশাপাশি পরিপাকতন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত সমস্যাগুলো থেকেও মুক্তি দিতে পারে। গবেষণায় বলা হয়েছে যে, কালোজিরার ক্বাথ (পানিতে ফুটানো কালোজিরা) পান করলে বদহজমের সমস্যা কমে যায়।

ঠান্ডা এবং জ্বর

ঠান্ডা ও জ্বর থেকে মুক্তি পেতে কালোজিরা ব্যবহার করুন। এটি সর্দি-কাশির জন্য একটি ঐতিহ্যগত ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয় । এর পাশাপাশি কালোজিরা জ্বর কমাতেও সহায়ক।

ইমিউনিটি বাড়াতে

ইমিউনিটি বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কালোজিরা খাওয়া উপকারি। NCBI-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে কালোজিরা ইমিউনোমোডুলেটরি এবং থেরাপিউটিক বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ। এই বৈশিষ্ট্যগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে অ্যালার্জিজনিত রোগ যেমন অ্যালার্জিক রাইনাইটিস, ব্রঙ্কিয়াল অ্যাজমা, এটোপিক একজিমা ইত্যাদি প্রতিরোধ করতে পারে।

ওজন কমানোর জন্য

আপনি যদি স্থূলতা এবং ওজন বৃদ্ধি নিয়ে অস্থির হয়ে থাকেন তবে কালোজিরা খেয়ে দেখুন। কারণ, এ বিষয়ে প্রকাশিত একটি চিকিৎসা গবেষণায় বলা হয়েছে, কালোজিরাতে রয়েছে স্থূলতা বিরোধী গুণ, যা স্থূলতা কমাতে সাহায্য করে। এর সাথে, কোমরের আকার এবং বডি মাস ইনডেক্স (BMI) কিছুটা হলেও হ্রাস পেতে পারে। তাই ওজন কমাতে ডায়েটে কালোজিরা অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ স্বাভাবিক নিয়মে ওজন কমানোর উপায়, ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম, ৪ সপ্তাহে পেট কমানোর উপায় ডায়েট প্ল্যান

পেটে ব্যথা

কালোজিরার ব্যবহার পাকস্থলী ও অন্ত্র সংক্রান্ত সমস্যার জন্য ভালো। NCBI-তে প্রকাশিত একটি গবেষণা পত্রে লেখা হয়েছে যে কালোজিরা পেট ফাঁপা, বমিভাব থেকে মুক্তি দিতে পারে। এছাড়াও, কালোজিরাতে উপস্থিত অ্যানালজেসিক প্রভাব পেটের ব্যথা কমায়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

ক্যান্সারের মতো মরণ ব্যাধি থেকে সবাই দূরে থাকতে চায়। কালোজিরা এই সমস্যাকে দূরে রাখতে সহায়ক । এই বিষয়ে NCBI দ্বারা প্রকাশিত গবেষণা দেখায় যে কালোজিরাতে ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে। এটি একটি বিকল্প কেমোথেরাপি হিসাবেও ব্যবহার করা হয়। শুধু মনে রাখবেন কালোজিরা ক্যান্সারের নিরাময় নয়, এই গুরুতর সমস্যার জন্য চিকিৎসাও করা উচিৎ।

আরো পড়ুনঃ টনসিলাইটিসের কারণ, ইনফেকশনের লক্ষণ ও প্রতিরোধের উপায়, প্রস্রাবে ইনফেকশনের লক্ষণ, কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার

মাথাব্যথা উপশম করে

মাথা ব্যথা হলে কালোজিরার পানি পান করতে পারেন। কালোজিরা বছরের পর বছর ধরে মাথাব্যথার জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রকৃতপক্ষে, এটির ব্যথানাশক অর্থাৎ এতে ব্যথা কমানোর প্রভাব রয়েছে।

ত্বকের জন্য উপকারী

ত্বক সংক্রান্ত সমস্যা দূর করতে কালোজিরার উপকারিতা দেখা যায়। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি বৈজ্ঞানিক সমীক্ষা অনুসারে, কালোজিরার অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং সেইসাথে ক্ষত নিরাময় এবং ত্বকের পিগমেন্টেশন কমানোর প্রভাব রয়েছে। এই বৈশিষ্ট্যগুলো সোরিয়াসিস, ব্রণ, ক্ষত, পোড়া, প্রদাহ এবং পিগমেন্টেশনের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে । একজিমা এবং অন্যান্য ত্বক সংক্রান্ত সমস্যায় কালোজিরার পেস্ট লাগালে উপশম পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ মুখের কালো দাগ দূর করার উপায় ঘরোয়া পদ্ধতি, স্থায়ীভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়, মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় ঘরোয়া স্কিন গ্লোয়িং টিপস

চুলের যত্নে

চুলের জন্য কালোজিরার উপকারিতা দেখা যায়। এই বিষয়ে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, চুলে কালোজিরার তেল লাগালে চুলের উজ্জ্বলতা, গঠন উন্নত হয় এবং চুলের সমস্যা কমে যায়। চুলের সমস্যায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিরা কালোজিরার তেল ব্যবহার করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ চুল গজানোর উপায়, চিরতরে চুল পড়া বন্ধ করার উপায়, চুলে ও ত্বকে কালোজিরার তেলের ব্যবহার, বানানোর নিয়ম

কালোজিরার পুষ্টি উপাদান

পুষ্টি উপাদানপ্রতি ১০০ গ্রাম পরিমাণে
শক্তি৪০০ কিলোক্যালরি
প্রোটিন১৬.৬৭ গ্রাম
মোট লিপিড (চর্বি)৩৩.৩৩ গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট৫০ গ্রাম
আয়রন১২ মিলিগ্রাম

কালো জিরা ব্যবহারের নিয়ম

বছরের পর বছর ধরে কালোজিরা নানাভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে যেমনঃ-

  • কালোজিরা বা এর গুঁড়া সবজিতে দিতে পারেন।
  • কালোজিরা স্ন্যাকস বা কুকিতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • রুটি এবং নান তৈরি করার সময় এটি যোগ করা হয়।
  • বিরিয়ানি এবং পুলাও তৈরিতেও কালোজিরা ব্যবহার করা হয়।
  • কালোজিরা ডালে মেশানোর জন্যও ব্যবহার করা হয়।
  • এটি আচার তৈরির সময়ও যোগ করা যেতে পারে।
  • পানিতে কালোজিরা ফুটিয়ে ক্বাথ হিসেবে পান করা যায়।
  • কালোজিরার পেস্ট তৈরি করে ত্বকের সমস্যায় আক্রান্ত স্থানে লাগানো হয় ।

কালোজিরার অপকারিতা

যদিও এর বীজ খুব একটা ক্ষতি করে না, কিন্তু বেশি পরিমাণে সেবন করলে কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে।

কেউ যদি কালোজিরার তেল অতিরিক্ত পরিমাণে খান, তবে তার পেটে ব্যথা হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় কালোজিরার ব্যবহার পরিহার করা উচিৎ। যদি গর্ভবতী কেউ এটি ব্যবহার করার কথা ভাবছেন, তবে তাদের অবশ্যই এই বিষয়ে একবার একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

কালোজিরা আঘাতের কারণে রক্ত ​​প্রবাহকে ত্বরান্বিত করতে পারে। আসলে এতে থাইমোকুইনোন নামক এক ধরনের উপাদান পাওয়া যায়, যা রক্ত ​​জমাট বাঁধার গতি কমিয়ে দেয়। এটি আঘাতের সময় রক্ত ​​​​আরও দ্রুত প্রবাহিত করতে পারে।

আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে সাধারণ জিরার মতো কালোজিরাও উপকারী। তবে ব্যবহার করার সময় কালোজিরার ক্ষতির কথা মাথায় রাখুন, যাতে কালোজিরার অতিরিক্ত ব্যবহার এড়ানো যায়। কালোজিরার উপকারিতা পেতে, যা স্বাদ এবং ঔষধি গুণে সমৃদ্ধ, এর জল পান করা সবচেয়ে উপকারী।

কিছু সাধারণ প্রশ্ন

১। কালোজিরা কি সকালে খালি পেটে খাওয়া যাবে?

হ্যাঁ, কালোজিরা খালি পেটে খেতে পারেন। শুধু পানিতে ফুটিয়ে কালোজিরার ক্বাথ সেবন করুন।

২। কাঁচা কালোজিরা খেলে কি কি উপকার পাওয়া যায়?

না, কাঁচা কালোজিরা খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে। হ্যাঁ, এটি ভাজা এবং পাউডার হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

৩। কালোজিরা ও মধু কি একসাথে খাওয়া যাবে?

হ্যাঁ, অবশ্যই কালোজিরা ও মধু একসঙ্গে খাওয়া যেতে পারে। উভয়ই উপকারী, তবে উভয়ই ক্বাথের মধ্যে মিশিয়ে ব্যবহার করুন।

৪। কালোজিরা কিভাবে খাবেন?

কালোজিরা ভেজে পিষে নিন। এটি রাইতা এবং সবজি যোগ করে খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া পানিতে কালোজিরা সিদ্ধ করে একটি ক্বাথ তৈরি করে খেতে পারেন।

৫। কালোজিরা খাওয়ার উপকারিতা কি?

কালোজিরা খাওয়ার উপকারিতা অনেক। একটি গবেষণায়, কালোজিরাকে স্পষ্টভাবে মাথাব্যথা, মাইগ্রেন, মাথা ঘোরা, কাশি, ব্রঙ্কাইটিস, হাঁপানি, স্থূলতা, ডায়াবেটিস, পাইলস, আর্থ্রাইটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যা যেমন ডিসপেপসিয়া, পেট ফাঁপা, আমাশয় এবং ডায়রিয়া উপশমের জন্য দরকারী হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (14 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button