হেয়ার স্টাইল

খুশকি দূর করার ৫টি ঘরোয়া উপায়

খুশকি শুধু আমাদের আত্মবিশ্বাসকেই কলঙ্কিত করে না বরং সবার মাঝেই আমাদের লজ্জায় ফেলে দেয়। কিন্তু এর মানে এই নয় যে এর কোনো প্রতিকার নেই! কিছু সহজ এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের যত্ন নিয়ে আমরা আমাদের চুল থেকে খুশকি দূর করতে পারি, শুধু কিছু বিশেষ জিনিসের যত্ন নেওয়া দরকার।

খুশকি কি?

খুশকিকে ডাক্তারি ভাষায় সেবোরিয়া বলা হয় এবং এটি আমাদের মাথার ত্বককে দুর্বল করে দেয়। এটি আসলে মৃত ত্বক, যা অনুপযুক্ত চিরুনি, স্ট্রেস এবং শুষ্ক ত্বক এর কারণে ঘটে। শীতকালে এই সমস্যা অনেক বেশি হয়ে যায়। এটি শুধুমাত্র প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রেই নয়, শিশুদের ক্ষেত্রেও ঘটে। নবজাতক শিশুদের অনেকেই এই সমস্যায় ভোগে। তাদের চুল থেকে খুশকি অপসারণ করা একটি কঠিন পরীক্ষা হতে পারে যদি এর চিকিৎসা সময়মতো না পাওয়া যায়।

খুশকির লক্ষণ

সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হল খুশকি আমাদের চুলে বাসা বেঁধেছে কি না বুঝব কিভাবে? খুশকি আসলে একটি আঁশযুক্ত সাদা রঙের তৈলাক্ত ফুসকুড়ির মতো, যা মাথার ত্বকের চুলের ভিতরে লুকিয়ে থাকে। অনেক সময় এত ঘন হয় যে চিরুনি দিয়েও বের হয় না, নখ দিয়ে মুছে ফেলতে হয়। এতে চুলে চুলকানিও হয় । নবজাতক শিশুদের খুশকিকে ক্র্যাডল ক্যাপ বলা হয়। এটি শিশুদের মাথা থেকে পরিষ্কার করার জন্য অবিরাম প্রচেষ্টা লাগে।

খুশকির কারণ

ম্যালাসেজিয়া নামক একটি ছত্রাক যখন আপনার মাথার ত্বকে বাড়তে শুরু করে তখন খুশকি চুলের গোড়ায় বাসা বাঁধে। খুশকির সময় ম্যালাসেজিয়া তার স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে বহুগুণ বেড়ে যায়। এটি মাথার ত্বকের ক্ষতি করে এবং গুরুতর শুষ্কতা সৃষ্টি করে। এর অধীনে, আপনার মাথার ত্বকে আরও তেল তৈরি হতে শুরু করে এবং খুশকি আঠালোভাবে আপনার চুলে লেগে যায়। খুশকি হওয়ার কিছু বড় কারণ বিশেষ।

শুষ্ক ত্বকঃ শুষ্ক ত্বক অনেক সমস্যার সৃষ্টি করে। সেজন্য আপনার চুল এবং মাথার ত্বকে পর্যাপ্ত তেল থাকা জরুরি। শুষ্ক চুল ফ্ল্যাকি হয়ে যায় এবং তারপরে খুশকি হওয়ার সম্ভাবনা বহুগুণ বেড়ে যায়।

সঠিকভাবে চিরুনি না দেয়াঃ নিয়মিত চিরুনি দিলে চুল পরিষ্কার হয়ে যায়। প্রতিদিন চিরুনি করলে চুলের মরা চামড়া উঠে যায় এবং চুলে ময়লাও জমে না।

সঠিক সময়ে এবং সঠিক উপায়ে শ্যাম্পু ব্যবহার না করাঃ চুল ঠিকমতো না ধুলে চুলে ময়লা জমে, খুশকি চুলে প্রবেশ করে। তাই নিয়মিত বিরতিতে ভালো শ্যাম্পু দিয়ে চুল পরিষ্কার করতে থাকুন। মনে রাখবেন খুশকির সাথে সাথে নোংরা চুলও পড়তে শুরু করে।

খারাপ চুলের পণ্যঃ আজকাল বাজারে এমন অনেক চুলের পণ্য রয়েছে যা দাবি করে যে তারা আপনার চুলকে চকচকে এবং স্বাস্থ্যকর করে তুলবে। আপনি সেসব বিজ্ঞাপন দেখে কিনবেন। প্রতিটি হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট আপনার চুলের সাথে মানানসই হবে এমন নয়, অনেকগুলি আপনার চুলের ক্ষতি করে এবং এর ফলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় যা কিছু দিনের মধ্যে খুশকি হয়ে যায়।

স্ট্রেস বা অন্য কোন মানসিক সমস্যাঃ মানসিক চাপ এমনই একটি সমস্যা যা আরও অনেক সমস্যার জন্ম দেয়। স্ট্রেস, দুশ্চিন্তার মতো মানসিক সমস্যাগুলো নিজের থেকে দূর করা ভালো। এটি খুশকির কারণও হতে পারে। প্রতিদিন 7-8 ঘন্টা ঘুমানো জরুরী এবং যদি আপনার স্ট্রেস না কমে, তবে প্রথমে এটি উপশম করার চেষ্টা করুন।

অন্যান্য রোগঃ একজিমা এবং সোরিয়াসিসের মতো ত্বকের অন্যান্য সমস্যার কারণেও চুলে খুশকি বাসা বাঁধে। এই ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রে আপনার অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা ভাল। এছাড়া পারকিনসনের মতো রোগের কারণেও খুশকি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

খুশকির চিকিৎসা

খুশকির সবচেয়ে ভালো চিকিৎসা হলো নিয়মিত চুল পরিষ্কার করা। চুল যাতে নোংরা না হয় সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখুন। শ্যাম্পু করার সময়, শ্যাম্পুটি কমপক্ষে 5 মিনিটের জন্য মাথার ত্বকে থাকতে দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

মাথার ত্বকে উপস্থিত খুশকি দূর করতে একটি সূক্ষ্ম চিরুনি ব্যবহার করুন। এটি খুশকির প্রাথমিক অবস্থা থেকে চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এটি রক্ত ​​সঞ্চালনকেও উন্নত করে এবং মাথার ত্বক থেকে খুশকি দূর হতে শুরু করে।
নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল দিয়ে স্ক্যাল্প ম্যাসাজ করাও খুবই কার্যকরী একটি চিকিৎসা। ভালো ফলাফলের জন্য লিনেন কাপড়ে তেল লাগিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন।

খুশকি দূর করার ঘরোয়া উপায় how to remove dandruff permanently

এরকম অনেক ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে, যা আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার করতে পারেন। হ্যাঁ, এই প্রতিকারগুলি গ্রহণ করার সময় এর উপাদানগুলির সঠিক পরিমাণ রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এগুলোকে সঠিক উপায়ে গ্রহণ করলে খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। এখানে কিছু ঘরোয়া প্রতিকার দেওয়া হল, যা খুশকি থেকে মুক্তি পেতে আশ্চর্যজনক ভাবে কার্যকরি।

১. দইঃ চুলে দই লাগানো খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়ার একটি কার্যকর উপায়। যদিও এটি বেশ নোংরা হতে পারে, এটি খুশকির চিকিৎসার জন্য একটি দুর্দান্ত ঘরোয়া প্রতিকার।

ব্যবহারবিধি:
এর জন্য বেশি কিছু করার দরকার নেই, শুধু চুলের সাথে মাথার ত্বকে কিছু দই লাগান।
সমস্ত চুল এবং মাথার ত্বকে সমান পরিমাণে দই সঠিকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে তা নিশ্চিত করুন।
এটি প্রায় 1 ঘন্টা রেখে শুকিয়ে নিন।
এর পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দই ভালো করে চুল থেকে তুলে নিতে হবে।

২. নিম পাতাঃ নিমকে খুশকির প্রতিষেধক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই কারণেই বাজারে পাওয়া যায় এমন অনেক আয়ুর্বেদিক শ্যাম্পুতে এর নির্যাস থাকে। খুশকির চিকিৎসায়ও নিম পাতা ব্যবহার করা হয়।

ব্যবহারবিধি:
যদি আপনি তাজা নিম পাতা পেতে পারেন তাহলে খুব ভাল অন্যথায় আপনি কয়েক দিন রাখা পাতা ব্যবহার করতে পারেন।
প্রথমে নিম পাতা ভেঙ্গে গুঁড়ো বানিয়ে কিছু পানিতে ফুটিয়ে নিন। তারপর এটির একটি পেস্ট তৈরি করুন, নিম পাতা একটি মিক্সারে পিষে পেস্ট তৈরি করুন।
এটি চুল এবং মাথার ত্বকে লাগান এবং প্রায় 10 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
এর পর সাধারণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৩. লেবুর রস + নারকেল তেলঃ নারিকেল তেল চুলের পুষ্টি জোগায় এবং লেবুর রসের সাথে মেশালে খুশকির প্রতিষেধক হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। এটি এমন একটি ঘরোয়া প্রতিকার, যা দাদিদের সময় থেকে চলে আসছে।

ব্যবহারবিধি:
প্রথমে ২ চামচ নারিকেল তেল নিয়ে তাতে ২ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন।
এবার আলতো করে চুলে এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন।
ম্যাসাজ করার পর এটি প্রায় 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

আরো পড়ুনঃ নিম পাতার উপকারিতা, লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

৪. ডিমের কুসুমঃ ডিমের কুসুমে বায়োটিন থাকে। এটি একটি ভিটামিন যা খুশকি দূর করতে বড় ভূমিকা পালন করে। এটি আপনার চুলের জন্য একটি দুর্দান্ত কন্ডিশনার হিসাবেও কাজ করে এবং আপনার চুলকে স্বাস্থ্যকর করে তোলে।

ব্যবহারবিধি:
ডিমের কুসুম প্রস্তুত করতে, আপনাকে ডিমের সাদা অংশ আলাদা করতে হবে। সর্বদা মনে রাখবেন যে কুসুম সাদা অংশের চেয়ে বেশি আমিষযুক্ত এবং স্বাস্থ্যকর।
এটি প্রয়োগ করার আগে, মনে রাখবেন আপনার চুল এবং মাথার ত্বক যেন শুকনো থাকে। এবার এটি চুলে এবং মাথার ত্বকে লাগিয়ে একটি প্লাস্টিকের কভার দিয়ে প্রায় ১ ঘণ্টা চুল ঢেকে রাখুন।
শ্যাম্পু ব্যবহার করে আলতো করে চুল ধুয়ে ফেলুন। চুল থেকে ডিমের কুসুমের গন্ধ দূর করতে দুই-তিনবার চুল পরিষ্কার করতে হতে পারে।

৫. চা গাছের তেলঃ টি ট্রি অয়েলে রয়েছে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য যা খুশকি দূর করতে অনেক সাহায্য করে। শুধু তাই নয়, এটি ব্যবহারে চুল ও মাথার ত্বকে শুষ্কতা থাকে না।

ব্যবহারবিধি:
আপনি যে শ্যাম্পু ব্যবহার করেন তাতে 10-15 ফোঁটা টি ট্রি অয়েল যোগ করুন এবং চুলে এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন।
এটি আপনার চুলে প্রায় 5 মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
একটি প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসাবে কাজ করে, চা গাছের তেল মাথার ত্বককে প্রশমিত করে এবং চুলকানি প্রতিরোধ করে।

খুশকি প্রতিরোধ করার উপায়

গ্রীষ্মের ঋতুতে সরাসরি সূর্যের রশ্মি থেকে আপনার চুলকে রক্ষা করার চেষ্টা করুন কারণ তাপের কারণে ঘাম হয় এবং ঘাম চুলকে আঠালো করে তোলে। এই গরমে মাথার ত্বকে তেলের উৎপাদন বাড়বে এবং খুশকি তৈরি হতে শুরু করবে। ভালো হয় যখনই রোদে বেরোবেন, স্কার্ফ দিয়ে চুল ঢেকে রাখুন।

স্বাস্থ্যকর খাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ, আপনার খাদ্য সঠিক রাখুন, আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাক-সবজি এবং মৌসুমি ফল অন্তর্ভুক্ত করুন।

নিয়মিত ব্যায়াম আপনাকে মানসিকভাবে শান্ত রাখতে সাহায্য করে এবং স্ট্রেস দূর করে, তাই ব্যায়াম করুন। বেশি কিছু করতে না পারলে অবশ্যই হাঁটা, জগিংয়ের মতো ব্যায়াম করুন।

প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন – FAQS

খুশকি কি সংক্রামক?

খুশকি মোটেও ছোঁয়াচে নয়! এটি মহামারীর মত একটি সমস্যা নয়, যা একটি থেকে অন্যটিতে ছড়িয়ে পড়ে না। আপনি কাউকে খুশকি দিতে পারেন না বা আপনার বন্ধুদের কাছ থেকে পেতে পারেন না।

শুধু প্রাপ্তবয়স্কদেরই কি খুশকি হয়?

খুশকি শুধুমাত্র প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রেই নয়, নবজাতকের পাশাপাশি সামান্য বড় শিশুদেরও হতে পারে। সাধারণত নবজাতক শিশুদের মাথায় খুশকি থাকে, যা সাবধানে ধীরে ধীরে দূর করা হয়।

শীত কি সত্যিই প্রধান খুশকির ঋতু?

ঠিক আছে, যদি দেখা যায়, সারা বছর খুশকির সমস্যা থাকলেও কিছু অজানা কারণে শীতকালে তা অনেক বেড়ে যায়। আসলে, ঠান্ডা আবহাওয়া আপনার মাথার ত্বকের আর্দ্রতা সরিয়ে দেয় এবং মাথার ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় এবং ক্রাস্ট এটিতে বসতে শুরু করে।

চুলের পণ্য কি খুশকির জন্য ভালো?

বাজারে অনেক অ্যান্টি-ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু পাওয়া যায় যা কিছু পরিমাণে চুল এবং মাথার ত্বক থেকে খুশকি দূর করে। তবে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ ছাড়া কোনো শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না।

উপসংহার

আমাদের চুল এবং মাথার ত্বককে খুশকি থেকে রক্ষা করতে এবং সঠিকভাবে চিকিৎসা করার জন্য, আমাদের চুলের সঠিক যত্ন নেওয়া এবং নিয়মিত চিরুনি এবং শ্যাম্পু করা গুরুত্বপূর্ণ। ঘরেই খুশকির চিকিৎসা করে আমরা চুলের যত্ন নিতে পারি খুশকি থেকে মুক্তি পেতে।

5/5 - (21 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button