প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় চুল পড়া: কারণ ও প্রতিরোধের উপায়

যে কোন মহিলার জন্য, গর্ভাবস্থা তার জীবনের অন্যতম সুখের অভিজ্ঞতা, তবে অনেক সুখের পাশাপাশি এই পর্যায়টি কিছু শারীরিক পরিবর্তনও নিয়ে আসে। এ সময় বমি বমি ভাব, হাত-পা ফুলে যাওয়া, ক্লান্তি, ত্বকে দাগ পড়া খুবই সাধারণ ঘটনা। চুল পড়াও একই রকম একটি সমস্যা, যার সম্মুখীন হতে হতে পারে গর্ভাবস্থায়। যাইহোক, সবার গর্ভধারণ এক রকম হয় না, তাই চুল পড়ার কারণ ভিন্ন হতে পারে। এর এই পোস্টে, আমরা জানব গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার কারণ ও প্রতিরোধের উপায়।

গর্ভাবস্থায় চুল পড়া কি স্বাভাবিক?

গর্ভাবস্থার পরবর্তী সময়ের সাথে তুলনা করলে, গর্ভাবস্থায় চুল পড়া সাধারণ নয়। গবেষণা অনুসারে, তৃতীয় ত্রৈমাসিকে বেশি চুল পড়ে। এই সময়ে চুল পড়া গর্ভবতীর স্বাস্থ্য এবং গর্ভাবস্থার প্রকৃতির উপরও নির্ভর করে। অনেক মহিলা বলেন যে গর্ভাবস্থায় তাদের চুল পড়া কমে গেছে।

এই পর্যায়ে চুল গুচ্ছ আকারে পড়তে পারে বা প্যাচ আকারেও বেরিয়ে আসতে পারে, যেমন মাথার মাঝখান থেকে বা সামনের দিক থেকে বা মাথার অন্য কোনো অংশ থেকে। প্যাচ আকারে চুল পড়ার এই সমস্যাটিকে ডাক্তারি ভাষায় অ্যালোপেসিয়া বলা হয়। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য এটি করা সাধারণ।

এখন, আমরা গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার কারণগুলি সম্পর্কে কথা বলব।

গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার কারণ কী?

গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার অনেক কারণে হতে পারে। এই সময়ে একজন গর্ভবতী মহিলার শারীরিক, মানসিক এবং হরমোনের পরিবর্তন হয়, যার ফলে চুল পড়ে যেতে পারে। এগুলি ছাড়াও, আরও কিছু কারণ রয়েছে, যা আমরা পরে আলোচনা করব:

হরমোনের পরিবর্তন: গর্ভাবস্থায় নারীর হরমোনে অনেক পরিবর্তন হয়। হরমোনের পরিবর্তন (বিশেষ করে ইস্ট্রোজেন) চুলের বৃদ্ধি চক্রে পরিবর্তন ঘটায়, যা চুলের ক্ষতি হতে পারে।

পুষ্টির ঘাটতি: গর্ভাবস্থায় আয়রন, জিঙ্ক এবং ফলিক অ্যাসিডের মতো পুষ্টির ঘাটতিও চুল পড়া বাড়াতে পারে।
থাইরয়েড সমস্যা : হাইপোথাইরয়েডিজম মানে শরীরে থাইরয়েড হরমোনের অভাব। এটি গর্ভাবস্থায় খুব সাধারণ। থাইরয়েড হরমোন চুলের বৃদ্ধি এবং রক্ষণাবেক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর হ্রাসের কারণে চুল পড়ার সমস্যা বাড়তে পারে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় ফলিক এসিড সমৃদ্ধ খাবার কেন গ্রহণ করা উচিৎ?, আয়রন যুক্ত খাবার এর তালিকা

পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম: এটি এক ধরনের হরমোনের ভারসাম্যহীনতা। মহিলাদের ডিম্বাশয়ে এই ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়। পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের কারণে ডিম্বাশয়ে ডিম সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হয় না এবং মহিলাদের মাসিক হতে সমস্যা হয়। এই সময়ে, শরীরে এন্ড্রোজেন নামক হরমোনের বেশি উৎপাদন হয়, যা চুল পড়ার কারণ হতে পারে।

জেনেটিক: গর্ভাবস্থায় চুল পড়াও জেনেটিক হতে পারে। যদি আপনার মায়ের এই সমস্যা থাকে তবে এটি আপনারও হতে পারে।

আসুন এখন গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার সমস্যা প্রতিরোধের ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে কথা বলি।

গর্ভাবস্থায় চুল পড়া বন্ধের ঘরোয়া উপায়

গর্ভবতীর গর্ভাবস্থায় চুলে রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করা এড়িয়ে চলা উচিত। এটা মহিলাদের চুলের জন্য ভালো নয়। গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় নিম্নোক্ত ঘরোয়া প্রতিকারের সাহায্যে।

১. উষ্ণ তেল ম্যাসেজ

উপাদান: নারকেল তেল (প্রয়োজনমতো)

প্রক্রিয়া: তেল গরম করে চুলে ১৫-২০ মিনিট ম্যাসাজ করুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: নারকেল তেলে রয়েছে লরিক অ্যাসিড, যা চুলে প্রোটিন সরবরাহ করে এবং চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এটি দিয়ে ম্যাসাজ করলে চুলে পরিপূর্ণ পুষ্টি পাওয়া যায় এবং তাদের ভাঙ্গা কমাতে পারে।

২. এলোভেরা জেল

উপকরণ: 1 কাপ অ্যালোভেরা জেল

প্রক্রিয়া: মাথার ত্বকে অ্যালোভেরা জেল লাগান, 10 মিনিট ম্যাসাজ করুন এবং 15 মিনিট রেখে দিন।
এর পর পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: অ্যালোভেরা জেলে উপস্থিত এনজাইম মাথার ত্বককে যেকোনো ধরনের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে চুল পড়া রোধ করে।

৩. আমলকি পাউডার

উপাদান: 2 চা চামচ আমলা গুঁড়া, 2 টেবিল চামচ নারকেল/জলপাই তেল

প্রক্রিয়া: একটি প্যানে তেল গরম করে তাতে আমলা গুঁড়ো দিন। এটি বাদামী হওয়া পর্যন্ত গরম করুন। তেলে আমলকি গুঁড়া ভালোভাবে মিশে গেলে একটি পাত্রে নামিয়ে নিন। মিশ্রণটি কিছুটা ঠাণ্ডা হয়ে গেলে, এটি দিয়ে 15 মিনিটের জন্য মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। ম্যাসাজ করার পর চুলে ৩০ মিনিট রেখে তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে শ্যাম্পু করুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: আমলকি বহু শতাব্দী ধরে আয়ুর্বেদিক ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি শরীরকে ক্যালসিয়াম সম্পূর্ণরূপে কাজে লাগাতে সাহায্য করে। উপরন্তু, এটি চুল মজবুত করে এবং ধূসর হওয়া প্রতিরোধ করে। নারকেল তেলের সাথে মিলিত হলে আমলার বৈশিষ্ট্য বৃদ্ধি পায়।

আরো পড়ুনঃ আমলকির উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম, মেথি তেলের উপকারিতা ও তৈরির নিয়ম

৪. নারকেল দুধ

উপাদান: কাপ তাজা নারকেল দুধ

প্রক্রিয়া: নারকেলের দুধ সামান্য গরম করুন। 15 মিনিটের জন্য দুধ দিয়ে মাথার ত্বক ম্যাসাজ করুন।
45 মিনিট চুলে রেখে দিন। এবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: নারকেলের দুধে উপস্থিত ঔষধিগুণ আপনার চুলের পুষ্টি জোগায়। এটি চুল পড়া কমাতে পারে।

৫. বিভিন্ন তেলের মিশ্রণ

উপাদান: 6 চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল 1/4 চা চামচ ল্যাভেন্ডার অপরিহার্য তেল

প্রক্রিয়া: উভয় তেল মিশিয়ে চুলে হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন। এক ঘণ্টা রাখার পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: ক্যাস্টর অয়েল 90 শতাংশ ফ্যাটি অ্যাসিড দিয়ে তৈরি, যা চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং চুল পড়া রোধ করে।

৬. লেবুর রস

উপাদান: 1টি ডিম, 1 চা চামচ লেবুর রস

প্রক্রিয়া: একটি পাত্রে একটি ডিম ফেটিয়ে নিন। তারপর এতে এক চামচ লেবুর রস মেশান। এই মিশ্রণটি দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। 30 মিনিট পর আপনার শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: লেবুর রস ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। এটি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

৭. চুল পড়ার জন্য মেথি বীজ

উপাদান: কাপ মেথি বীজ

প্রক্রিয়া: আধা কাপ মেথি দানা সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে উঠে মেথি দানা পিষে পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই পেস্টটি দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন এবং সারা চুলে লাগান। পেস্টটি চুলে তিন থেকে চার ঘণ্টা রেখে দিন।

কিভাবে এটা কাজ করে: মেথির বীজে রয়েছে ভিটামিন-বি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান, যা শুধু চুল বাড়াতে সাহায্য করে না বরং চুল ঘন করে তোলে।

৮. ডিম-দই মাস্ক:

উপাদান: 1টি ডিম, 2 টেবিল চামচ দই

প্রক্রিয়া: একটি পাত্রে একটি ডিম ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এবার এতে ২ চামচ দই মেশান।
এই মিশ্রণটি চুলের গোড়া থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে লাগান। 20-30 মিনিটের জন্য চুলে মাস্ক ছেড়ে দিন।
এবার শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

কিভাবে এটা কাজ করে: ডিমে রয়েছে আয়রন, ভিটামিন-ডি এবং বায়োটিনের মতো উপাদান, যা চুলকে সুস্থ রাখতে এবং চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও এটি চুলকে করে নরম ও ঝলমলে। একই সময়ে, দই চুলের পুষ্টি জোগায় এবং বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

এই সমস্ত ঘরোয়া প্রতিকারের সাথে, আপনার কিছু সতর্কতাও নেওয়া উচিত। আমরা পরবর্তী অংশে এই বিষয়ে কথা বলব।

কিভাবে গর্ভাবস্থায় চুল পড়া বন্ধ করবেন?

বলা হয় প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই উত্তম। গর্ভাবস্থায় চুল পড়া রোধ করতে আপনি নীচের উল্লেখিত টিপসগুলি অনুসরণ করতে পারেন:

  • খুব বেশি চুল আঁচড়াবেন না। এতে চুল খারাপ হতে পারে।
  • চুল খুব শক্ত করে বাঁধবেন না। এতে চুল ভেঙে যেতে পারে।
  • চুলের রং, সোজা করা, রিবন্ডিং ইত্যাদির মতো চুলে কোনো রাসায়নিক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এতে চুলের আর্দ্রতা নষ্ট হয়ে যায়।
  • আপনি যে শ্যাম্পু বা কন্ডিশনারই ব্যবহার করুন না কেন, নিশ্চিত করুন যে এটি আপনার চুলের সাথে মানানসই।
  • চুলে ম্যাসাজ করলে রক্ত ​​চলাচলের উন্নতি ঘটে, যা চুলকে সুস্থ রাখে।
  • চুলে রাসায়নিক রং ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।
  • আপনার খাদ্যতালিকায় সবুজ শাক-সবজির পরিমাণ বাড়ান। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে, যা চুল পড়া কমাতে সহায়ক হতে পারে।
  • ফল খান। এতে উপস্থিত পুষ্টি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় কোন ফল খাওয়া উচিত এবং কোনটি উচিত নয়

আপনি গর্ভাবস্থায় চুল পড়া বন্ধ করার আরো কিছু প্রতিকার চেষ্টা করতে পারেন, যা আমরা পরে বলব।

গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার জন্য চিকিৎসা

গর্ভাবস্থায় চুল পড়া অল্প সময়ের জন্য হয় এবং সময়ের সাথে সাথে সেরে যায়। এর জন্য যেকোনো চিকিৎসার চেয়ে ঘরোয়া উপায়ে চেষ্টা করা ভালো। এছাড়াও, সতর্কতাগুলি মাথায় রাখলে, গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। যদি সমস্যাটি খুব গুরুতর হয়, আপনি একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পারেন এবং ভিটামিন এবং খনিজ সম্পূরক গ্রহণ করতে পারেন, যেমন:

  • বায়োটিন
  • ভিটামিন-এ/বি/সি/ডি
  • আয়রন

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় চুলে রং করা কি নিরাপদ?

গবেষণা অনুসারে, গর্ভাবস্থায় চুল রং করা নিরাপদ, তবে এটি খুব নিরাপদ উপায়ে ব্যবহার করা উচিত যেমন:

প্রথম ত্রৈমাসিকে চুলে রঙ করা এড়িয়ে চলুন।
আপনার মাথার ত্বকে বা ত্বকে রঞ্জক না পেতে চেষ্টা করুন।
রং করার সময় গ্লাভস পরুন।
আপনার চুলে রং খুব বেশি সময় ধরে রাখবেন না।

গর্ভাবস্থায় চুলে মেহেদি লাগানো কি নিরাপদ?

এটা নির্ভর করে আপনি কি ধরনের মেহেদি ব্যবহার করবেন তার উপর। প্রাকৃতিক মেহেদি ব্যবহার করা নিরাপদ, কারণ এতে কোনো রাসায়নিক নেই। তবে কালো মেহেদি ব্যবহার এড়িয়ে চলুন। এতে প্যারা-ফেনাইলেনডিয়ামাইন (PPD) নামক একটি রাসায়নিক রয়েছে, যা অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

গর্ভাবস্থায় চুল পড়ার অনেক কারণ এবং তাদের প্রতিকার রয়েছে। এছাড়া সন্তান প্রসবের পর যদি আপনার চুল পড়ার সমস্যা বেড়ে যায়, তাহলে আতঙ্কিত না হয়ে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। এটি স্বাভাবিক এবং যে কোনও মহিলার ক্ষেত্রে ঘটতে পারে। আশা করি এই পোস্ট টি আপনার সমস্যার সমাধান খুঁজে পেতে সাহায্য করেছে। আপনার যদি প্রচুর চুল পড়ে তবে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাবেন না।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button