প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

গর্ভাবস্থায় খাবার ও পানীয়ের বিশেষ যত্ন নেওয়া জরুরি। অস্বাস্থ্যকর যে কোনো কিছু অনাগত শিশুর ক্ষতি করতে পারে। তাই নারীদের পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। বিশেষ করে এই সময়ে ফল ও ড্রাই ফ্রুট খাওয়ার অনেক উপকারী, কারণ এগুলো বিশেষ পুষ্টিগুণে ভরপুর। ডুমুরও এমন একটি ফলের অন্তর্ভুক্ত। আজকে আমরা আপনাকে বলব যে গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়া কতটা নিরাপদ। পাশাপাশি, আপনি ডুমুর খাওয়ার সাথে সম্পর্কিত ক্ষতি সম্পর্কেও তথ্য দেবেন।

গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়া কি নিরাপদ?

ডুমুর অনেক স্বাস্থ্যকর বৈশিষ্ট্যে পরিপূর্ণ, তবে গর্ভাবস্থা এমন একটি সূক্ষ্ম সময়, যেখানে কী খাওয়া উপকারী তা নিয়ে বিভ্রান্তিকর অবস্থা থেকে যায়। ডুমুরের ক্ষেত্রে এটিতে উপস্থিত ভিটামিন, ক্যালসিয়াম এবং ফাইবারের মতো পুষ্টির কারণে গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়া উচিৎ। বিশেষ করে এতে উপস্থিত ফাইবার গর্ভবতী মহিলাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এই ফলটির প্রতি আপনার যদি কোনো ধরনের অ্যালার্জি থাকে, তাহলে অবশ্যই এটি খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

চলুন এবার জেনে নেই ডুমুরে থাকা পুষ্টিগুণ সম্পর্কে।

ডুমুরের পুষ্টিগুণ

ডুমুর এমন ফলের মধ্যে রয়েছে, যা তাজা খেলে শরীরের জন্য স্বাস্থ্যকর, তবে শুকানোর পরেও উপকারী থেকে যায়। অতএব, এটি তাজা ফল এবং শুকনো ফল উভয় আকারে খাওয়া যেতে পারে। প্রতি 100 গ্রাম ডুমুরে উপস্থিত পুষ্টির দিকে নজর দেওয়া যাক –

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম পরিমাণ
পানি79.11 গ্রাম
শক্তি74 kacl
প্রোটিন0.75 গ্রাম
মোট লিপিড (চর্বি)0.30 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট19.18 গ্রাম
ফাইবার2.9 গ্রাম
চিনি16.26 গ্রাম
ক্যালসিয়াম35 মিলিগ্রাম
আয়রন0.37 মিলিগ্রাম
ম্যাগনেসিয়াম17 মিলিগ্রাম
ফসফরাস14 মিলিগ্রাম
ফোলেটডিএফই 6µg
ভিটামিন সি2.0 মিলিগ্রাম
ভিটামিন এRAE 7µ
ভিটামিন ডিআইইউ 142IU
ভিটামিন ই0.11 মিলিগ্রাম
ভিটামিন কে4.7 µg

ফ্যাটি অ্যাসিড, স্যাচুরেটেড 0.060 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, মনোস্যাচুরেটেড 0.066 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, পলিআনস্যাচুরেটেড 0.144 গ্রাম

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ডুমুরের উপকারিতা এবং কতটা সেবন করা উচিত সে সম্পর্কে জানতে পড়তে থাকুন।

গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়ার উপকারিতা

ভ্রূণের বিকাশে সহায়ক: ডুমুরে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এই ভিটামিন ভ্রূণের বিকাশে খুবই উপকারী।

কোষ্ঠকাঠিন্যে সাহায্য করে: গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়া কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়ক, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। তাই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ডায়েটে ডুমুর অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করুন: শরীরে রক্তশূন্যতা দূর করতে আয়রনের প্রয়োজন হয় এবং ডুমুরে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়। গর্ভাবস্থায় রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করতে ডুমুর খাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও ডুমুর ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা শরীরে আয়রনের শোষণ বাড়াতে কাজ করে।

ভ্রূণের হাড়ের স্বাস্থ্য: ভ্রূণের হাড় ও দাঁতের বিকাশের জন্য ক্যালসিয়াম অপরিহার্য। তাই আপনি আপনার খাদ্যতালিকায় ডুমুর অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন, কারণ ডুমুর ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ।

অস্টিওপোরোসিস থেকে রক্ষা করে: গর্ভাবস্থায় এবং প্রসবের পরে মহিলাদের অস্টিওপোরোসিস (হাড়ের রোগ) হওয়ার ঝুঁকি বেশি হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ ডুমুর আপনাকে এই রোগের ঝুঁকি থেকে বাঁচাতে পারে। এই রোগের কারণে হাড়গুলি ভঙ্গুর হয়ে যায় এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকিও বাড়তে পারে।

গর্ভকালীন ডায়াবেটিস: গর্ভবতী হওয়ার পরে মহিলাদের গর্ভকালীন ডায়াবেটিস দেখা দিতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) যুক্ত ফল খাওয়া উচিত। ডুমুরও এ জাতীয় ফলের অন্তর্ভুক্ত। এটি শরীরের রক্তে শর্করার মাত্রা একবারে বাড়ায় না, তবে এর সেবনে ধীরে ধীরে গ্লুকোজ বাড়ে।

গর্ভাবস্থায় দিনে কতটি ডুমুর খাওয়া উপকারী তা আমরা আপনাকে জানাব।

গর্ভবতী মহিলারা দিনে কয়টি ডুমুর খেতে পারেন?

ডুমুর গরম প্রকৃতির, তাই এটি নির্ধারিত পরিমাণের বেশি খাওয়া উচিত নয়। সাধারণভাবে, প্রতিদিন তিনটির বেশি ডুমুর খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, তবে গর্ভাবস্থায় কতটা ডুমুর সঠিক হবে তা কেবল একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারই বলতে পারেন। আপনার গর্ভাবস্থা এবং আপনার স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে আপনার এটি খাওয়া উচিত।

ডুমুর শুধুমাত্র স্বাস্থ্যের জন্যই উপকারী নয়, ক্ষতিকারকও হতে পারে। জেনে নিন কিভাবে এই পুষ্টিকর ফলটি আপনার গর্ভাবস্থার জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ডুমুর খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ডুমুর খুবই পুষ্টিকর একটি ফল। যদিও এটি খাওয়ার কোনো ক্ষতি নেই, তবে গর্ভাবস্থায় এর মাত্রাতিরিক্ত সেবনে অনেক শারীরিক সমস্যা হতে পারে-

১. ডুমুরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে, যা একটি কার্যকর রেচক হিসেবে কাজ করে, তবে অতিরিক্ত সেবনে ডায়রিয়ার পাশাপাশি ব্যথা হতে পারে।

২. ডুমুরে পটাসিয়ামও বেশি থাকে, তাই আপনার হাইপারক্যালেমিয়া (শরীরে অতিরিক্ত পটাসিয়াম) হতে পারে।

৩. অতিরিক্ত ডুমুর খাওয়ার কারণেও আপনার মাইগ্রেনের ব্যথা হতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় শুকনো ডুমুর খাওয়া কি ভালো?

হ্যাঁ, শুকনো ডুমুরও খুব পুষ্টিকর। আপনি এর ব্যবহার থেকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাবেন। এছাড়াও, এতে উপস্থিত ক্যালরি এবং প্রাকৃতিক মিষ্টি আপনার শরীরে শক্তি বজায় রাখতে সহায়ক।

গর্ভাবস্থায় ডুমুরের রস কি উপকারী?

ডুমুরে উপস্থিত পুষ্টির কথা মাথায় রেখে বলা যায় যে গর্ভাবস্থায় ডুমুরের রস পান করা উপকারী। ডুমুরের মতো, এর রসও পুষ্টিতে সমৃদ্ধ, তবে গর্ভাবস্থায় এটি কতটা উপকারী হবে তা নিয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন। গর্ভাবস্থায় ডুমুরের রস পান সংক্রান্ত তথ্যের জন্য, অনুগ্রহ করে একবার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

ডুমুর প্রকৃতি প্রদত্ত এমন একটি মূল্যবান ফল, যা স্বাদে যেমন মিষ্টি তেমনি স্বাস্থ্যকর। মনে রাখবেন, গর্ভাবস্থায় ডুমুরে উপস্থিত প্রয়োজনীয় পুষ্টি আপনি কেবলমাত্র এর পরিমিত সেবনেই পাবেন, কারণ ডুমুরের উপকারিতা এবং অপকারিতা উভয়ই রয়েছে। তাই ডুমুর খাওয়ার আগে একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

5/5 - (13 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button