প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় হাত ও পায়ে ফোলাভাব (এডিমা) হওয়ার কারণ ও প্রতিকার

গর্ভাবস্থা একজন মহিলার জন্য সবচেয়ে সুখী অনুভূতি। এই সময়ে, তাকে অনেক জটিলতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়, যা উপেক্ষা করলে মা এবং ভ্রূণের জন্য মারাত্মক হতে পারে। গর্ভাবস্থায় হাত ও পা ফুলে যাওয়া এমনই একটি সমস্যা যা অনেক গর্ভবতী মহিলাদেরই সম্মুখীন হতে হয়। প্রদাহের পর্যায় স্বাভাবিক এবং গুরুতরও হতে পারে।

এই পোস্টে আমরা গর্ভাবস্থায় ফোলাভাব, এর কারণ এবং এর থেকে মুক্তি পেতে কিছু সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা এবং সতর্কতা সম্পর্কে কথা বলব। তার আগে জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়া কী?

গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়া কি?

টিস্যুতে তরল জমা হওয়াকে ফোলা বলা হয়। এটি শরীরের এক বা একাধিক অংশকে প্রভাবিত করতে পারে। তরল জমার কারণে শরীরের আক্রান্ত অংশ ফুলে যায়। গর্ভাবস্থায় এই শারীরিক সমস্যা সামনে আসতে পারে। আধুনিক চীনা স্ত্রীরোগবিদ্যায়, এই সমস্যাটি অনেক নামে পরিচিত, যেমন ‘গর্ভাবস্থায় পানি ফোলা’, ‘গর্ভাবস্থায় প্রসারণ’ ইত্যাদি। গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়া কোন রোগ নয়, বরং একটি শারীরিক সমস্যা, যা নিরাময় করা যেতে পারে। আসুন নিচে জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় এবং কখন শরীরের কোন অংশে ফুলে যেতে পারে।

কোথায় এবং কখন আমি গর্ভাবস্থায় ফুলে উঠব?

গর্ভাবস্থায় শরীরের অনেক অংশে ফোলাভাব দেখা যায়, যার মধ্যে রয়েছে :

  • হাত
  • পা দুটো
  • গোড়ালি
  • আঙ্গুল
  • মুখ
  • পেটের ফাঁপ

ফোলা হওয়ার সময়: প্রথম ত্রৈমাসিকে স্তনে সামান্য ফোলাভাব হতে পারে। একই সময়ে, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় শরীরের বিভিন্ন অংশে (পা, হাত, আঙুল, গোড়ালি এবং মুখ ইত্যাদি) ফোলাভাব স্পষ্টভাবে দেখা যায়। ডেলিভারির তারিখ যত ঘনিয়ে আসছে, ফোলাটা আরও খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা বাড়তে থাকে।

গর্ভাবস্থায় ফোলা কতটা সাধারণ?

গর্ভাবস্থায় ফোলা একটি সাধারণ সমস্যা, যা যেকোনো গর্ভবতী মহিলাকে প্রভাবিত করতে পারে। প্রদাহের বিভিন্ন ওঠানামা দেখা যায়। যদিও প্রদাহজনক অবস্থা গর্ভাবস্থায় নিরাময় করা যেতে পারে, তবে মহিলা যদি অন্য কোনও শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন তবে ফোলা তীব্র হতে পারে। যাইহোক, গর্ভাবস্থায় শরীরের পরিবর্তনের কারণে এই সমস্যাটি দেখা দেয়, যার সম্পর্কে আমরা আরও বিশদভাবে বলতে যাচ্ছি।

গর্ভাবস্থায় ফোলার কারণ কী?

গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়া সম্পর্কে জানার পর এর কারণগুলোও জানা জরুরি। প্রকৃতপক্ষে, গর্ভাবস্থায় শরীরে মোট পানির পরিমাণ ছয় থেকে আট লিটারে বেড়ে যায় এবং এই অবস্থার ফলে শরীরের বিভিন্ন অংশে ফুলে যায়। এগুলি ছাড়াও, অনেকগুলি কারণ রয়েছে, যা গর্ভবতী মহিলা ফুলে যেতে পারে, যেমন:

হরমোনের পরিবর্তনঃ গর্ভাবস্থায় শরীরে হরমোনের পরিবর্তন ঘটে যা শরীরে সোডিয়াম ও তরলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। ফলস্বরূপ, শরীরের অনেক অংশে প্রদাহ দেখা দেয়।

জরায়ু বৃদ্ধিঃ জরায়ুর ক্রমবর্ধমান আকার পেলভিক শিরা এবং ভেনা কাভা (বড় শিরা যা হৃৎপিণ্ডে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত ​​বহন করে) উপর চাপ দেয়, যা পেলভিসে রক্ত ​​সঞ্চালনকে ধীর করে দেয় এবং নীচের অংশে রক্ত ​​সংগ্রহ করতে দেয়। শরীর সংগৃহীত রক্ত ​​টিস্যুতে উপস্থিত পানির উপর চাপ দেয় এবং পায়ে ফোলাভাব সৃষ্টি করে।

প্রি-এক্লাম্পসিয়াঃ প্রি-এক্লাম্পসিয়ায় গর্ভবতী মহিলার হাত এবং মুখ ফুলে যেতে পারে। প্রি-এক্লাম্পসিয়া হল একটি মেডিকেল অবস্থা যা গর্ভবতী মহিলার গর্ভাবস্থার 20 তম সপ্তাহের পরে হঠাৎ রক্তচাপ বৃদ্ধি এবং প্রস্রাবে প্রোটিনের পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে পারে। যেসব মহিলাদের দীর্ঘস্থায়ী উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে তাদেরও প্রি-এক্লাম্পসিয়া হতে পারে। প্রি-এক্লাম্পসিয়ায় গর্ভবতী মহিলাদের অবশ্যই সময়মত চেকআপ করাতে হবে। কারণ এই রোগ মারাত্মক রূপ নিতে পারে।

উপরে উল্লিখিত কারণগুলি ছাড়াও, একজন গর্ভবতী মহিলার নিম্নলিখিত কারণেও ফুলে যেতে পারে:

দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকাঃ এক জায়গায় দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে, বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে, গোড়ালি এবং পায়ের পাতা ফুলে যেতে পারে।

কিডনির সমস্যাঃ যেসব গর্ভবতী মহিলাদের কিডনির সমস্যা আছে তাদেরও শরীরে ফুলে যাওয়ার সমস্যা হতে পারে। যখন কিডনি শরীর থেকে অতিরিক্ত সোডিয়াম এবং পানি অপসারণ করতে অক্ষম হয়, তখন রক্তের ধমনীর উপর চাপ বেড়ে যায় এবং ফলস্বরূপ পা ও চোখ ফুলে যেতে পারে।

লিভারের সমস্যাঃ লিভারের রোগ বা অন্যান্য সমস্যা গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়ার কারণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়া সম্পর্কে আমার কখন উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত?

গর্ভাবস্থায় ফুলে যাওয়ার কারণ যদি প্রি-এক্লাম্পসিয়া হয়, তাহলে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। প্রি-এক্লাম্পসিয়ায়, গর্ভাবস্থার 20 তম সপ্তাহের পরে হঠাৎ রক্তচাপ বৃদ্ধি পায় এবং প্রস্রাবে প্রোটিনের পরিমাণও বেশি থাকে।

আপনি যদি প্রি-এক্লাম্পসিয়ার নিম্নলিখিত উপসর্গগুলি দেখতে পান, আপনার অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত :

  • ক্রমাগত মাথাব্যথা
  • ঝাপসা দৃষ্টি বা দৃষ্টি পরিবর্তন
  • epigastric ব্যথা
  • বমি বা বমি বমি ভাব
  • মুখের উপর ফোলা
  • দ্রুত শরীরের ওজন বৃদ্ধি
  • শ্বাস নিতে অসুবিধা
  • চরম ফোলা বা হঠাৎ পা এবং গোড়ালি ফুলে যাওয়া
  • চোখের চারপাশে ফুলে যাওয়া
  • কম প্রস্রাব করা

এই অবস্থা গুরুতরও হতে পারে-

এক পায়ে অন্য পায়ের চেয়ে বেশি ফোলা এবং শিন বা উরুর বেশি কোমলতা। এই অবস্থা একটি রক্ত ​​​​জমাট বাঁধা (শিরাস্থ থ্রম্বোসিস) নির্দেশ করতে পারে। আপনি যদি এই লক্ষণগুলি দেখতে পান, অবিলম্বে আপনার ডাক্তারকে কল করুন।

ফোলা এবং প্রদাহের কারণগুলি জানার পর, আসুন এখন জেনে নেওয়া যাক গর্ভাবস্থায় ফোলা কমাতে প্রয়োজনীয় প্রতিকারগুলি কী কী।

গর্ভাবস্থায় ফোলা প্রতিরোধের টিপস/ঘরোয়া প্রতিকার

এমন নয় যে গর্ভাবস্থায় ফোলা নিরাময় করা যায় না। নীচে জেনে নিন, গর্ভাবস্থায় ফোলা থেকে মুক্তি পেতে কিছু নির্বাচিত প্রতিকার।

স্থির থাকা এড়িয়ে চলুন – এক জায়গায় দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে পা ফুলে যেতে পারে। অতএব, গর্ভাবস্থায় দীর্ঘ সময় এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা এড়িয়ে চলুন।

বাম দিকে ঘুমান- গর্ভাবস্থায় মহিলাদের বাম দিকে ঘুমানো উচিত। এভাবে ঘুমালে হৃৎপিণ্ড, জরায়ু ও লিভারসহ সারা শরীরে রক্ত ​​সঞ্চালন ঠিক থাকে।

বায়ুচলাচল এবং আরামদায়ক জুতা পরুন – টাইট জুতা পায়ে রক্ত ​​​​প্রবাহকে প্রভাবিত করতে পারে, যা ফুলে যাওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে। এই সময়, গর্ভবতী মহিলাদের আরামদায়ক এবং বায়ুচলাচলযুক্ত জুতা পরতে হবে, যাতে হাঁটাচলায় কোন বাধা না হয়।

পুষ্টিকর খাবার খান – গর্ভাবস্থায় পুষ্টিকর খাবার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পুষ্টিকর খাবার আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি প্রদাহের মতো সমস্যার সম্ভাবনা কমায়। আপনি গর্ভাবস্থায় ফোলা কমাতে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ খাবার খেতে পারেন। এর মধ্যে রয়েছে পালং শাক, বাদাম, মাছ যেমন স্যামন-টুনা, কমলা এবং নীল বেরি ইত্যাদি।

সোডিয়াম কম গ্রহণ – ফোলা হওয়ার পিছনে একটি কারণ হল শরীরে সোডিয়ামের আধিক্য। অতএব, গর্ভাবস্থায় সোডিয়াম গ্রহণ নিয়ন্ত্রণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শরীরকে হাইড্রেটেড রাখুন – শরীরের ফোলাভাব এড়াতে শরীরকে যতটা সম্ভব হাইড্রেটেড রাখুন। একটি হাইড্রেটেড শরীর প্রদাহের অবস্থা নিরাময়ে কাজ করে।

ঢিলেঢালা এবং আরামদায়ক পোশাক পরুন – ফুলে যাওয়ার ক্ষেত্রে ঢিলেঢালা এবং আরামদায়ক পোশাক পরুন। টাইট পোশাক আপনার ফোলা জায়গার জন্য বেদনাদায়ক হতে পারে।

থেরাপি – আপনি শরীরের ফোলা কমাতে থেরাপি অবলম্বন করতে পারেন। এই জন্য, আপনি একজন অভিজ্ঞ থেরাপিস্টের সাথে পরামর্শ করুন। থেরাপিস্ট আপনার প্রদাহের পর্যায় অনুযায়ী থেরাপি এবং অন্যান্য ব্যায়াম করতে সাহায্য করবে।

কম্প্রেস স্টকিং – পায়ের ফোলাভাব কমাতে আপনি কম্প্রেস স্টকিংয়ের সাহায্য নিতে পারেন। এগুলি হল এক ধরনের ইলাস্টিক মোজা, যা ফোলা পায়ে সংকুচিত করে ফোলা কমাতে কাজ করে।

ব্যায়াম – শরীরের ফোলাভাব কমাতে ব্যায়ামের সাহায্য নিতে পারেন। ব্যায়াম ফোলা জায়গা থেকে তরল প্রবাহ স্বাভাবিক করতে সাহায্য করবে। গর্ভাবস্থায় যেকোনো ধরনের শারীরিক ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

পুলে আরাম করুন – শরীরের ফোলাভাব থেকে মুক্তি পেতে, আপনি পুলে শরীরকে শিথিল করতে পারেন। কিছু সময়ের জন্য পানিতে থাকা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় রক্ত ​​​​সঞ্চালন উন্নত করে এবং ফোলা উপশম করে।

ধূমপান এড়িয়ে চলুন – শরীরের প্রদাহের সময় আপনার ধূমপান এড়ানো উচিত। এই সময়ে ধূমপান আরও প্রদাহ বাড়াতে পারে।

ক্যাফেইন গ্রহণ কম করুন – প্রদাহের ক্ষেত্রে যতটা সম্ভব ক্যাফেইন গ্রহণ কমিয়ে দিন। ক্যাফেইনযুক্ত পানীয় (চা এবং কফি) শরীরকে ডিহাইড্রেট করতে কাজ করবে, যা শরীরের ফোলা অংশকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে।

রিফ্লেক্সোলজি – আপনি প্রদাহ থেকে মুক্তি পেতে রিফ্লেক্সোলজির সাহায্য নিতে পারেন। এটি একটি বিকল্প ঔষধ পদ্ধতি, যাতে আক্রান্ত স্থান টিপে দিয়ে চিকিৎসা করা হয়। প্রদাহের ক্ষেত্রে এটি কতটা কার্যকর তা নিয়ে আরও গবেষণা করা বাকি। এই থেরাপি গ্রহণ করার আগে সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

পায়ে সাপোর্ট – পায়ের পাতায় ফোলাভাব থাকলে পায়ের নিচে বালিশও রাখতে পারেন। এতে করে পা উঁচু থাকবে এবং আপনি আরাম বোধ করতে পারবেন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

গর্ভাবস্থায় পা ফুলে যাওয়া কি শিশুর লিঙ্গ নির্দেশ করে?

গর্ভাবস্থায় পা ফুলে যাওয়া এবং শিশুর লিঙ্গ পরিচয়ের মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই। এছাড়াও এই সত্যের কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

কখন গর্ভাবস্থার ফোলা দূর হবে?

দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ত্রৈমাসিকে গর্ভাবস্থায় ফোলা বেশি প্রাধান্য পায়, যার প্রভাব প্রসবের পরেও দেখা যায়। যাইহোক, প্রসব-পরবর্তী ফোলা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে চলে যেতে পারে বা প্রি-এক্লাম্পসিয়ার মতো পরিস্থিতিতে আরোগ্য হতে বেশি সময় লাগতে পারে। গর্ভাবস্থায় ফোলা পুনরুদ্ধারের সময়কাল আপনার স্বাস্থ্যের উপর নির্ভর করে। তাই এ বিষয়ে অভিজ্ঞ গাইনোকোলজিস্টের পরামর্শ নিতে হবে।

স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থায় শরীর ফুলে যাওয়া আপনাকে বিরক্ত করতে পারে, তবে মোটেও আতঙ্কিত হবেন না। ফোলা থেকে মুক্তি পেতে, আপনি চিকিত্সার পরামর্শে উপরে উল্লেখিত প্রতিকার এবং সতর্কতাগুলি অনুসরণ করতে পারেন। এছাড়াও, মনে রাখবেন যে যদি ফোলা ভাল হওয়ার পরিবর্তে বাড়তে থাকে, তবে অবিলম্বে আপনার স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। গর্ভাবস্থায় আপনার শরীরের প্রতি যতটা সম্ভব সচেতন থাকুন। আশা করি আপনি এই লেখটি পছন্দ করেছেন। গর্ভাবস্থা সম্পর্কিত এই ধরনের আরও তথ্যের জন্য, আপনি আমাদের অন্যান্য লেখাগুলো পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (9 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button