স্বাস্থ্য

নাকের এলার্জি দূর করার উপায় – জেনে নিন ঘরোয়া প্রতিকার

সংক্রমণ, এলার্জিক রাইনাইটিস বা আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে নাকে অ্যালার্জি হতে পারে। এতে নাক দিয়ে পানি পড়া এবং নাকে চুলকানির মতো সমস্যা হতে পারে। নাকের এলার্জির কারণে কিছু লোকের মাথা ব্যথা এবং চোখ দিয়ে পানি পরতে পারে। এই অবস্থায়, ঘরোয়া প্রতিকার দিয়ে এই সমস্যা নিরাময়ের চেয়ে যে কোনও ওষুধ সেবন করা ভাল। এর জন্য রোগী মধু খেতে পারেন বা ঘরে এয়ার ফিল্টার বসাতে পারেন।

আজকের আলোচনায় আপনি নাকের এলার্জি দূর করার উপায়, যেগুলো বিভিন্ন গবেষণায় কার্যকরি প্রমাণিত হয়েছে সেসব ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে জানবেন।

নাকের এলার্জি দূর করার উপায়

বাহ্যিক এলার্জেনের সংস্পর্শে নাকে এলার্জির প্রতিক্রিয়া হতে পারে, যার ফলে নাকে ফোলা বা জ্বালা হতে পারে। নাক দিয়ে পানি পড়া, হাঁচি তার কিছু লক্ষণ। এমন পরিস্থিতিতে ভিটামিন-সি এবং এসেনশিয়াল অয়েল ব্যবহার করে নাকের এলার্জি দূর করা যায়। মনে রাখবেন যে এই প্রতিকারগুলি ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ব্যবহার করা উচিত নয়। আসুন নাকের এলার্জি দূর করার ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে বিস্তারিত জানি-

মধুঃ মধু অন্যতম সেরা ঘরোয়া প্রতিকার। নাকের এলার্জির বেশিরভাগ উপসর্গ নিরাময়ে মধু কার্যকর। মধুর অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলি নাকের প্রদাহ এবং অ্যালার্জি কমাতে সহায়ক। নাকের এলার্জির সময়, হালকা গরম পানির সাথে এক চা চামচ মধু দিনে অন্তত দুবার খেলে নাকের এলার্জি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: নাকের ব্ল্যাকহেডস দূর করার উপায়, নাক ও কপালের ফ্লেকি দূর করার উপায়

বাতাস পরিশোধকঃ কখনও কখনও, দূষিত বায়ু এবং বাতাসে উপস্থিত বিষাক্ত পদার্থের কারণেও এলার্জির প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। শীতকালে বাইরের বাতাস খুব শুষ্ক হয়ে যায়। যার কারণে নাক শুকিয়ে যায় এবং নাক দিয়ে রক্ত ​​পড়া বা জ্বালাপোড়া শুরু হয়। এই পরিস্থিতি প্রতিরোধ করতে, একটি এয়ার ফিল্টার বা হিউমিডিফায়ার বাড়ির ভিতরে ব্যবহার করা যেতে পারে। এয়ার ফিল্টার ঘরের এলার্জেন এবং ধুলাবালি কমাতে সাহায্য করে।

নিম পাতাঃ এলার্জির উপসর্গ থেকে মুক্তি পাওয়ার অন্যতম সেরা উপায় হল নিম পাতা। এটি মৌসুমী এবং পেরিনাল এলার্জিক রাইনাইটিস উভয় অবস্থা থেকে ত্রাণ প্রদান করতে পারে। নিম পাতা পিষে একটি পেস্ট তৈরি করে ট্যাবলেট তৈরি করে মধু লাগিয়ে সকালে খালি পেটে খেতে পারেন। এই ঘরোয়া প্রতিকারটি সব ধরনের এলার্জি নিরাময় করতে পারে।

স্পিরুলিনাঃ স্পিরুলিনা হল এক প্রকার শৈবাল, অর্থাৎ এটি পানিতে পাওয়া একটি উদ্ভিদ। এর রং নীল ও সবুজ। এটি একটি খাদ্যতালিকাগত সম্পূরক বা সম্পূর্ণ খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটিতে এন্টি-এলার্জিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এর ব্যবহার এলার্জির উপসর্গ উপশমে সহায়ক।

ভিটামিন সিঃ শরীর যখন এলার্জেনের সংস্পর্শে আসে তখন হিস্টামিনের মাত্রা বেড়ে যায়। এতে এলার্জি বাড়ে। এমন পরিস্থিতিতে ভিটামিন-সি গ্রহণ করলে এর বর্ধিত মাত্রা কমে যায়। তাই ভিটামিন-সি অবশ্যই কোনো না কোনো আকারে গ্রহণ করতে হবে।

পেপারমিন্ট এসেনশিয়াল অয়েলঃ এই তেলে এন্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা হাঁপানি এবং এলার্জিক রাইনাইটিস এর উপসর্গ কমাতে পারে। এই অপরিহার্য তেল বাতাসে ছড়িয়ে দিলেও স্বস্তি পাওয়া যায়। এই তেলের 2 বা 3 ফোঁটা সমপরিমাণ ল্যাভেন্ডার তেল বা লেবুর তেলের সাথে মিশিয়ে একটি ডিফিউজারে রেখে বাষ্প নিলে আরাম পাওয়া যায়। এই তেলগুলো নাকে লাগালেও আরাম পাওয়া যায়।

আপেল ভিনেগারঃ আপেল সিডার ভিনেগারে অ্যান্টি-হিস্টামিন বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি এলার্জি সৃষ্টিকারী হিস্টামিনের প্রভাব কমিয়ে কাজ করতে পারে। এটি নাক বন্ধ, নাক দিয়ে সর্দি বা নাকের মধ্যে যেকোন ধরনের বাধা নিরাময় করতে সক্ষম। এজন্য এক গ্লাস গরম পানিতে এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে দিনে অন্তত একবার পান করুন। এমনটা করলে অবশ্যই উপকার হবে।

আরও পড়ুন- ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

সারসংক্ষেপ

আবহাওয়ার পরিবর্তন এবং সংক্রমণের কারণে নাকের এলার্জির সমস্যা দেখা দেয়। কিছু ঘরোয়া প্রতিকার যেমন পেপারমিন্ট এসেনশিয়াল অয়েল এবং ভিটামিন সি ব্যবহার নাকের এলার্জির সমস্যা কমাতে পারে। মনে রাখবেন যে কোনও প্রতিকার নেওয়ার আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, এখানে উল্লিখিত কোনও ঘরোয়া প্রতিকার থেকে আপনি যদি উপশম না পান তবে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (9 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button