প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় ইউরিন ইনফেকশন (ইউটিআই) – কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা

গর্ভাবস্থা প্রতিটি মহিলার জন্য একটি স্মরণীয় সময়, তবে এই সময়ে তিনি বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। এর মধ্যে একটি হল ইউটিআই অর্থাৎ ইউরেথ্রাল ইনফেকশন, যা খুব বেদনাদায়ক হতে পারে। এই সমস্যার যদি সময়মতো চিকিৎসা না করা হয়, তাহলে গর্ভাবস্থায় এর খারাপ প্রভাব পড়তে পারে। অনেক সময় এই সমস্যা বাড়তে পারে এবং অনাগত শিশুর উপর খারাপ প্রভাব ফেলে। অতএব, আজকে আমরা গর্ভাবস্থায় UTI-এর সাথে সম্পর্কিত সুনির্দিষ্ট বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

Contents

ইউরেথ্রাল ইনফেকশন/ইউটিআই কি?

ইউটিআইকে মূত্রনালীর সংক্রমণ বলা হয়। এটি মূত্রনালীর যে কোন অংশে হতে পারে, যেমন কিডনি, মূত্রাশয় বা মূত্রনালী। এটি মূত্রনালীতে এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ, যা ‘ই’ দ্বারা সৃষ্ট হয়। কোলাই ব্যাকটেরিয়া। E. coli হল সবচেয়ে সাধারণ ব্যাকটেরিয়া, কিন্তু এটি Klebsiella yeast নামক ব্যাকটেরিয়া দ্বারাও হতে পারে।

এই সংক্রমণ যে শুধুমাত্র গর্ভাবস্থায় ঘটে তা নয়, এটি যে কোনও মহিলার যে কোনও সময় ঘটতে পারে, তবে সদ্য বিবাহিত মহিলা এবং গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে এর ঝুঁকি বেড়ে যায়। 20 থেকে 50 বছর বয়সী মহিলারা (যাদের মাসিক হয়) এই সমস্যাটি বেশি হয়। গর্ভাবস্থা সম্পর্কে কথা বলতে গেলে, ইউটিআই এর ঝুঁকি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ষষ্ঠ সপ্তাহ থেকে 24 তম সপ্তাহের মধ্যে হতে পারে।

ইউটিআই এর অর্থ জানার পর, আমরা এর কারণগুলি খুঁজে বের করি এবং এটিও জানি যে কত ধরণের সংক্রমণ রয়েছে।

গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের কারণ ও প্রকার

যেমন আমরা উল্লেখ করেছি যে ইউটিআই মূত্রনালীর যে কোনও অংশে ঘটতে পারে, এর অনেক প্রকার রয়েছে, যেমন :

ইউরেথ্রাইটিস: মূত্রনালীতে সংক্রমণ।
সিস্টাইটিস: মূত্রাশয়ের সংক্রমণ।
পাইলোনেফ্রাইটিস: কিডনির সংক্রমণ।
নন-টেকনিক্যাল ইউটিআই

গর্ভাবস্থায় ইউটিআই হওয়ার অনেক কারণ থাকতে পারে। জেনে নিন গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণের কারণ কী:

শারীরিক পরিবর্তন: গর্ভাবস্থায় অনেক শারীরিক ও হরমোন পরিবর্তন হয়। হরমোনের পরিবর্তন ব্যাকটেরিয়াকে সংক্রমণ ছড়ানোর সুযোগ দেয়। হরমোনের কারণে, ব্যাকটেরিয়া সহজেই মূত্রনালীতে শিকড় নেয়। এছাড়াও, ক্রমবর্ধমান জরায়ুও গর্ভাবস্থায় ইউটিআই-এর একটি কারণ হতে পারে, কারণ ক্রমবর্ধমান জরায়ুর কারণে, গর্ভবতী মূত্রাশয়ের মুখের উপর চাপ পড়ে, যার কারণে মূত্রাশয় সম্পূর্ণরূপে খালি হতে পারে না এবং ইউটিআই হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়। জরায়ুতে যমজ সন্তান থাকলে ইউরিন ইনফেকশনের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া: অন্ত্রে পাওয়া E. coli নামক ব্যাকটেরিয়া দ্বারা UTIs হয়। মহিলাদের ক্ষেত্রে, মূত্রনালী মলদ্বারের কাছে থাকায় এই ব্যাকটেরিয়া সহজেই মূত্রনালীতে প্রবেশ করতে পারে, যার কারণে ইউটিআই হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

যৌন মিলন: যৌন মিলনও ইউটিআই-এর একটি কারণ হতে পারে, কারণ মিলনের সময় যোনির চারপাশে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মূত্রনালীতে যেতে পারে, যা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ায়। যৌন মিলনের মাধ্যমে সংক্রমণের আরেকটি কারণ হতে পারে পুরুষের লিঙ্গে থাকা ময়লা।

গ্রুপ-বি স্ট্রেপ্টোকক্কাস: যদিও এই ব্যাকটেরিয়াটি ইউটিআই ঘটায় না, তবে এটি নবজাতকের যোনিপথে সংক্রমণ ঘটাতে পারে।

গর্ভাবস্থায় ইউটিআই হওয়া কি স্বাভাবিক?

গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীতে উপসর্গহীন ব্যাকটেরিউরিয়া থাকা স্বাভাবিক। একই সময়ে, যখন এই ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ঘটায় এবং লক্ষণগুলি দেখা দিতে শুরু করে, তখন চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। অন্যদিকে, যখন গর্ভাবস্থায় ইউটিআই আসে, তখন এটি সাধারণ নয়। গর্ভাবস্থায় শরীরের পরিবর্তনের কারণে, শরীর খুব সংবেদনশীল হয়ে ওঠে, যা সংক্রমণের কারণ হতে পারে। গর্ভাবস্থায় প্রোজেস্টেরন হরমোন বৃদ্ধির ফলে মূত্রনালীর পেশী শিথিল হতে পারে, যার ফলে ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি পায়।

চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক এই সমস্যা সম্পর্কিত লক্ষণগুলো সম্পর্কে।

মূত্রনালীর সংক্রমণের লক্ষণগুলি কী কী?

এতক্ষণ আমরা জেনেছি কোন কারণে গর্ভাবস্থায় ইউটিআই সমস্যা হতে পারে। এখন ইউটিআই-এর লক্ষণগুলি কী তা জানা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সময় মহিলারা গর্ভাবস্থায় ইউটিআই-এর লক্ষণগুলি চিনতে পারেন না। সময়মতো এগুলোর যত্ন না নিলে এই সমস্যা মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে। নীচে আমরা আপনার সাথে ইউটিআই এর কিছু লক্ষণ শেয়ার করছি, যা আপনার জানা দরকার:

  • প্রস্রাব করার সময় যোনি এলাকায় ব্যথা বা জ্বালা
  • আপনি ঘন ঘন প্রস্রাব করার প্রয়োজন অনুভব করবেন
  • বমি বমি ভাব এবং বমি
  • প্রস্রাব থেকে দুর্গন্ধ
  • জ্বর
  • প্রস্রাবে পুঁজ
  • কখনো গরম লাগছে, কখনো ঠান্ডা লাগছে
  • সহবাসের সময় ব্যথা
  • তলপেটে ব্যাথা
  • অনেক সময় এমনও হতে পারে যে প্রস্রাব করতে হবে, কিন্তু ওয়াশরুমে গেলে প্রস্রাব আসবে না।

দ্রষ্টব্য: যদি কোনও মহিলা গর্ভাবস্থায় এই লক্ষণগুলির মধ্যে কোনওটি দেখেন তবে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন এবং সঠিক চিকিত্সা নিন।

উপরে আমরা ইউটিআই-এর সাথে সম্পর্কিত উপসর্গগুলি সম্পর্কে কথা বলেছি। এখন আমরা জানব কিভাবে ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়।

কিভাবে একটি UTI নির্ণয় করা হয়?

যদি ইউটিআই-এর লক্ষণ দেখা যায়, তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত। ডাক্তার সমস্যাটির গুরুতরতা পরীক্ষা করবেন :

ইউরিনালাইসিস: এতে প্রস্রাবের রাসায়নিক পরীক্ষা করা হয়। এই সময়ে, শ্বেত রক্ত ​​​​কোষ (WBC), লোহিত রক্ত ​​​​কোষ (RBCs) বা ব্যাকটেরিয়া দেখা যাবে। প্রস্রাবের নমুনা দেওয়ার আগে যৌনাঙ্গ ভালোভাবে পরিষ্কার করতে বলা হবে।

ইউরিন কালচার টেস্ট: ডাক্তার ইউরিন কালচার টেস্ট করতে পারেন। এর জন্য ডাক্তার মহিলার প্রস্রাবের নমুনা নেবেন। এই পরীক্ষায় জানা যায় কোন ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ ঘটিয়েছে এবং এর জন্য কোন ওষুধ খেতে হবে।

মূত্রনালীর আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষা: ডাক্তার যদি কিডনি বা মূত্রাশয়ে সংক্রমণ খুঁজে পান, তাহলে ডাক্তার আল্ট্রাসাউন্ডের পরামর্শ দিতে পারেন।

সিস্টোস্কোপি: যদি ওষুধ দিয়েও সংক্রমণ না সারে, তবে ডাক্তার সিস্টোস্কোপি করতে পারেন। এটি এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে মূত্রাশয়ের অভ্যন্তরে একটি টেলিস্কোপ দিয়ে দেখা যায়।

আসুন এখন জেনে নিই কিভাবে UTI এর চিকিৎসা করা হয়।

কিভাবে UTI চিকিত্সা করা হয়?

ইউটিআই এর তীব্রতার উপর নির্ভর করে ডাক্তাররা বিভিন্ন উপায়ে এর চিকিৎসা করতে পারেন। বেশিরভাগ ইউটিআই-এর জন্য, ডাক্তাররা অ্যান্টিবায়োটিক লিখে দেন, যার কোর্স তিন থেকে সাত দিন স্থায়ী হয়।

অ্যান্টিবায়োটিক ছাড়া গর্ভাবস্থায় ইউটিআই কীভাবে চিকিত্সা করবেন?

কারো ইউটিআই থাকলে তার চিকিৎসা করাতে হবে। তবুও কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে ইউটিআই এড়ানো যায়। আমরা নিচে এর জন্য কিছু সহজ উপায় বলছি:

প্রচুর পানি পান করুন: মূত্রনালীর সংক্রমণ হলে চিকিৎসক বেশি করে পানি পান করার পরামর্শ দেবেন। এই সময় মহিলা যত বেশি জল পান করবেন, তত বেশি উপকার পাবেন। বেশি পানি পান করলে প্রস্রাবের মাধ্যমে ব্যাকটেরিয়া বের হয়ে যায়।

ভিটামিন-সি: ভিটামিন-সি ইউরিন ইনফেকশনের বিরুদ্ধে লড়াই করতে উপকারী। এ জন্য কমলা খাওয়া যেতে পারে বা লেবুপাতা খাওয়া যেতে পারে।

ডাবের পানি: গর্ভাবস্থায় ইউরিন ইনফেকশন থেকে মুক্তি পেতে ডাবের পানি খুবই উপকারী। গর্ভাবস্থায় ডাবের পানি পান করা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং ইউটিআই থেকে মুক্তি দেয়।

ক্র্যানবেরি জুস: এই জুস ইউটিআই থেকে মুক্তি পেতে অনেক সাহায্য করে। ভিটামিন-সি, ই এবং বিটা-ক্যারোটিন ক্র্যানবেরিতে পাওয়া যায়, যা মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে উপকারী বলে প্রমাণিত হয়।

এছাড়া রসুন ও আপেল সিডার ভিনেগার ইউটিআই-এ উপকারী হতে পারে। এর সাথে দই এবং অন্যান্য প্রোবায়োটিকও গ্রহণ করা যেতে পারে।

যদি কারো ইউটিআই থাকে, তবে আপনার ডাক্তারের পরামর্শের পরেই উপরে উল্লিখিত জিনিসগুলি সেবন করুন, কারণ মহিলার স্বাস্থ্য অনুসারে কী খাওয়া ঠিক হবে তা একমাত্র ডাক্তারই ভাল বলতে পারবেন।

মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে আমি কী করতে পারি?

শুরু থেকেই সতর্কতা অবলম্বন করলে মূত্রনালীর সংক্রমণ এড়ানো যায়। কিছু সতর্কতা অবলম্বন এবং সতর্ক থাকার মাধ্যমে আপনি এই সমস্যা এড়াতে পারেন। নীচে আমরা এমন কিছু ব্যবস্থার কথা বলব, যা অবলম্বন করে আপনি এই সংক্রমণ এড়াতে পারেন:

চা, কফি এড়িয়ে চলুন: মূত্রনালীর সংক্রমণ এড়াতে চা এবং কফি এড়িয়ে চলুন, কারণ এতে ক্যাফেইন পাওয়া যায়। যেসব মহিলার ইউটিআই-এর সমস্যা রয়েছে তাদের ক্যাফিনযুক্ত জিনিস গ্রহণ করা নিষিদ্ধ, কারণ ক্যাফেইন মূত্রনালীর মধ্যে একটি বিরক্তিকর হিসাবে কাজ করে। এছাড়াও এটি পানিশূন্যতার সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

প্রস্রাব আটকে রাখবেন না: অনেক মহিলাই কাজ বা অলসতার কারণে কিছু সময়ের জন্য প্রস্রাব বন্ধ করে দেন, যা ভালো নয়। এতে ইউরিনারি ইনফেকশনের ঝুঁকি বাড়ে। তাই, যখনই প্রস্রাব অনুভব করবেন, থামবেন না, সঙ্গে সঙ্গে ওয়াশরুমে যান।

মূত্রনালী পরিষ্কার রাখুন: যখনই আপনি ওয়াশরুমে যান, টিস্যু পেপার দিয়ে সামনে থেকে পিছনের অংশটি পরিষ্কার করুন। এতে করে আপনার মলদ্বারের জীবাণু যোনিপথ দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না এবং আপনি এই সংক্রমণ প্রতিরোধ পারবেন।

কঠোর সাবান ব্যবহার করবেন না: যোনি এলাকায় কঠোর সাবান, অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম, কোনো ধরনের স্প্রে, পাউডার বা ডিও ব্যবহার করবেন না।

পরিষ্কার অন্তর্বাস পরুন: পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিন। পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন বিশেষ করে অন্তর্বাস। সুতির প্যান্টি পরার চেষ্টা করুন এবং প্রতিদিন পরিবর্তন করুন।

ঢিলেঢালা প্যান্ট পরুন: এমন পোশাক পরবেন না যা আপনার জন্য খুব টাইট। সবসময় ঢিলেঢালা, সুতির প্যান্ট পরুন যা আপনার জন্য আরামদায়ক।

সহবাসের আগে ও পরে যোনিপথ ধুয়ে নিন: মিলনের আগে ও পরে প্রস্রাব করা এবং যোনিপথের চারপাশের জায়গা ধুয়ে নেওয়া জরুরি।

পরীক্ষা করাতে থাকুন: গর্ভাবস্থায় কোনো ঝুঁকি নেবেন না। তাই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে সময়ে সময়ে ইউটিআই পরীক্ষা করাতে হবে। এতে করে বিপদ এড়ানো যায়।

যৌন মিলন করবেন না: কেউ যদি ইতিমধ্যেই ইউরিনারি ইনফেকশনে ভুগে থাকেন, তাহলে এই সময়ে শারীরিক সম্পর্ক এড়িয়ে চলুন। সংক্রমণের সময় সহবাস করলে তা আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

পাবলিক টয়লেটের ব্যবহার কম করুন: যদি কখনও এমন পরিস্থিতিতে বাইরে যেতে হয়, তাহলে পাবলিক টয়লেটের ব্যবহার কম করার চেষ্টা করুন। তাদের মধ্যে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

ইউটিআই কি গর্ভাবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে?

যদি সঠিক সময়ে ইউটিআই-এর চিকিৎসা করা হয় এবং এটির অগ্রগতি রোধ করা হয়, তাহলে এটি গর্ভধারণকে প্রভাবিত করে না। একই সময়ে, যদি এই সংক্রমণ কিডনিতে ছড়িয়ে পড়ে, তবে এটি গর্ভাবস্থায় উদ্বেগের বিষয় হতে পারে। গর্ভাবস্থায় কিডনিতে সংক্রমণ পৌঁছলে অকাল প্রসবের ঝুঁকি বেড়ে যায়। অতএব, যদি কোনও মহিলার প্রস্রাবের সংক্রমণের সামান্যতম অনুভূতিও থাকে তবে অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

কিভাবে একটি UTI গর্ভের শিশুকে প্রভাবিত করবে?

গর্ভাবস্থায় যদি ইউটিআই-এর সমস্যা বেশি বেড়ে যায়, তাহলে জন্মগতভাবে কম ওজন নিয়ে শিশুর জন্ম হতে পারে। শুধু তাই নয়, প্রিম্যাচিউর ডেলিভারির সম্ভাবনাও বেড়ে যায়।

আপনি কি গর্ভাবস্থায় UTI-এর জন্য Keflex নিতে পারেন?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় UTI-এর সময় Keflex নেওয়া যেতে পারে। কেফ্লেক্সকে সেফালেক্সিন ও বলা হয়। এই ওষুধটি গর্ভাবস্থার শেষ চার মাসে নেওয়া হয় না। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনোই কোনো ওষুধ খাবেন না।

প্র. ম্যাক্রোব্রিড কি গর্ভাবস্থায় ইউটিআই চিকিৎসায় কার্যকর?

সাধারণত, ডাক্তাররা গর্ভাবস্থায় ম্যাক্রোবিড (নাইট্রোফুরানটোইন নামেও পরিচিত) ড্রাগ গ্রহণ করতে নিষেধ করেন, বিশেষ করে গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে। এটি গর্ভবতীর শারীরিক অবস্থার উপরও নির্ভর করে তাদের এই ওষুধ খাওয়া উচিত কি না। চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই এই ওষুধ খাওয়া বা না খাওয়ার পরামর্শ দেন। এখানেও আমরা বলব যে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাওয়া উচিত নয়।

ইউটিআই কি গর্ভাবস্থা পরীক্ষাকে প্রভাবিত করতে পারে?

না, গর্ভাবস্থা পরীক্ষায় এইচসিজি হরমোন পরীক্ষা করা হয়। কোনো সংক্রমণ এই পরীক্ষাকে প্রভাবিত করতে পারে না।

মূত্রনালী সংক্রমণ কি গর্ভাবস্থার একটি লক্ষণ?

না, ইউরেথ্রাল ইনফেকশন গর্ভাবস্থার লক্ষণ নয়। এটা যে কারোরই হতে পারে।

গর্ভাবস্থায় পুনরাবৃত্ত ইউটিআই কি সাধারণ?

হ্যাঁ, গর্ভাবস্থায় পুনরাবৃত্ত ইউটিআই সাধারণ। এর জন্য, গর্ভবতীর প্রফিল্যাকটিক চিকিত্সার প্রয়োজন হতে পারে।

দ্রষ্টব্য: এই সময়ের মধ্যে, নিজের ইচ্ছামত ওষুধ সেবন করবেন না। সর্বদা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার পরেই সঠিক ওষুধ সেবন করুন।

ইউরিন ইনফেকশন খুবই বেদনাদায়ক, তাই অবিলম্বে এর চিকিৎসা করানো জরুরি। যখন গর্ভাবস্থার কথা আসে, তখন কোনও ঝুঁকি নেওয়া উচিত নয়। আমরা আশা করি আপনি গর্ভাবস্থায় মূত্রনালীর সংক্রমণ সম্পর্কে প্রয়োজনীয় সব তথ্য পেয়েছেন। এছাড়াও, এই লেখাটি সেই সমস্ত পরিচিত মহিলাদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যারা গর্ভবতী এবং ইউটিআই সমস্যায় ভুগছেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (12 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button