প্রেগন্যান্সি

গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়ার উপকারিতা

গর্ভাবস্থা যে কোনো মহিলার জন্য এমন একটি সময় যখন তাকে আরও সতর্ক থাকতে হয়। এ সময় বসা, উঠা ও হাঁটার পদ্ধতির পাশাপাশি খাবারের আইটেম বাছাই করতে হয় ভেবেচিন্তে। এই কারণে অনেক সময় মহিলারা তাদের জন্য কোনটি খাওয়া ঠিক হবে এবং কোনটি খাওয়া ঠিক হবে না তা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়েন। এই পোস্টে, আমরা গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়া নিয়ে আলোচনা করব।

গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়া কি নিরাপদ?

গর্ভাবস্থায় মেথি পরিমিত মাত্রায় ব্যবহার করলে এটি সম্পূর্ণ নিরাপদ। এটির ব্যবহার গর্ভবতীকে পেটে ব্যথা, পেটে খিঁচুনি এবং জ্বর এর মতো অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। এর সাথে, রক্তে শর্করার সমস্যায় ভুগছেন এমন গর্ভবতী মহিলাদের জন্যও এর ব্যবহার উপকারী, কারণ এতে হাইপোগ্লাইসেমিক (ব্লাড সুগার কমানোর) বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

আরো পড়ুনঃ- ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্য তালিকা ডায়েট চার্ট ও প্ল্যান, ডায়াবেটিসের লক্ষণ

গর্ভাবস্থায় কি পরিমাণ মেথি পাতা ও বীজ খাওয়া নিরাপদ?
রান্নায় ব্যবহার করতে চাইলে এক থেকে দুই চিমটি মেথি বীজ দিলেই যথেষ্ট হয়। তবে দিনে ৫/৬ গ্রামের বেশি মেথি বীজ ব্যবহার করবেন না। মেথি দানা সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে, দ্বিতীয় দিনে এটি সেবন করতে হয়। আবার মেথি শাক খেতে চাইলে, দিনে এক কাপ কাটা মেথি শাক খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়ার উপযুক্ত সময় কখন?
গর্ভাবস্থার প্রথম পর্যায় থেকে শেষ পর্যায় পর্যন্ত যে কোনো সময় মেথি খাওয়া যায়। তবে, আপনি যদি এটি নিয়মিত খেতে চান, আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

মেথির পুষ্টিগুণ
নিচের চার্টের সাহায্যে আপনি মেথিতে উপস্থিত পুষ্টিগুণ সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য পাবেন।

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম পরিমাণ
পানি8.84 গ্রাম
শক্তি323 কিলোক্যালরি
প্রোটিন 23 গ্রাম
লিপিড6.41 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট 58.35 গ্রাম
ফাইবার24.6 গ্রাম

খনিজ

  • ক্যালসিয়াম 176 মিলিগ্রাম
  • আয়রন 33.53 মিলিগ্রাম
  • ম্যাগনেসিয়াম 191 মিলিগ্রাম
  • ফসফরাস 296 মিলিগ্রাম
  • পটাসিয়াম 770 মিলিগ্রাম
  • সোডিয়াম 67 মিলিগ্রাম
  • দস্তা 2.5 মিলিগ্রাম
  • তামা 1.11 মিলিগ্রাম
  • ম্যাঙ্গানিজ 1.228 মিলিগ্রাম
  • সেলেনিয়াম 6.3 μ

ভিটামিন

  • ভিটামিন সি 3 মি.গ্রা
  • থায়ামিন 0.322 মিলিগ্রাম
  • রিবোফ্লাভিন 0.366 মিলিগ্রাম
  • নিয়াসিন 1.64 মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন বি 6 0.6 মিলিগ্রাম
  • ফোলেট (DFE) 57 µg
  • ভিটামিন এ (RAE) 3 µg
  • ভিটামিন এ (IU) 60 আইইউ

লিপিড

  • ফ্যাটি অ্যাসিড (স্যাচুরেটেড) 1.46 গ্রাম

গর্ভাবস্থায় মেথির স্বাস্থ্য উপকারিতা

গর্ভাবস্থায় মেথির অনেক উপকারিতা রয়েছে।যেমন-

১. গর্ভাবস্থায় চিনি পরিমাণ

গর্ভাবস্থায় যদি চিনির সমস্যা হয়, তাহলে মেথির ব্যবহার আপনার সমস্যা দূর করবে। আসলে, মেথির একটি হাইপোগ্লাইসেমিক (রক্তে শর্করার হ্রাস) প্রভাব রয়েছে। এই কারণে, এর ব্যবহার ইনসুলিনের সক্রিয়তা বাড়িয়ে বর্ধিত চিনির পরিমাণ কমাতে পারে। এ ছাড়া মেথিতে রয়েছে ফলিক অ্যাসিড যা ভ্রূণের মানসিক বিকাশে সাহায্য করে। এটি নিউরাল টিউব ত্রুটির সম্ভাবনাও কমাতে পারে।

২. বুকের দুধ বাড়িয়ে তুলতে-
যেসব মহিলারা দুধের অভাবের অভিযোগ করেন তাদের জন্য মেথি একটি চমৎকার ওষুধ হিসেবে প্রমাণিত। বিশেষজ্ঞদের মতে, মেথি দুধ উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় হরমোনকে উদ্দীপিত করে। যাদের সিজারিয়ান ডেলিভারি হয়েছে বা যাদের যমজ সন্তান হয়েছে তাদের জন্য এটি উপকারী। এটি গর্ভবতী মহিলার দুধ উৎপাদনের প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে যা শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত।

৩. প্রসবের সময় কমাতে-
মেথির অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল যে এটি জরায়ুতে সংকোচন বৃদ্ধি করে যা প্রসবের সময় কমায়। এর কারণে প্রসবের সময় মহিলাদের কম ব্যথার সম্মুখীন হতে হয়।

৪. স্তন বৃদ্ধিতে সহায়ক-
কখনও কখনও গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের কারণে স্তনের বৃদ্ধি বন্ধ হয়ে যায় বা ফুলে যায়। এ কারণে নারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এই সমস্যায়ও মেথির ব্যবহার উপকারী প্রমাণিত হয়। এই বিষয়ে করা একটি গবেষণার মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়েছে যে মেথির ইতিবাচক প্রভাব স্তন্যপায়ী গ্রন্থির বিকাশে দেখা যায়।

মেথির স্বাস্থ্য উপকারিতা জানার পর এবার আমরা জেনে নিই এর ফলে সৃষ্ট কিছু অপকারিতাও।

গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
প্রচুর পরিমাণে মেথি খাওয়ার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও দেখা যায়। আসুন কিছু পয়েন্টের মাধ্যমে এর অসুবিধাগুলো বোঝার চেষ্টা করি-

  • মেথি খাওয়া জরায়ুতে সংকোচনের কারণ হতে পারে। এই কারণে, শিশুর পূর্ণ বিকাশ হওয়ার আগে মেথির ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত, অন্যথায় গর্ভপাতের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে।
  • মেথির অতিরিক্ত সেবনের কারণে শিশুর মধ্যে দেখা দিতে পারে জন্মগত ত্রুটি যেমন- হাইড্রোসেফালাস (একটি মানসিক ব্যাধি), অ্যানেন্সফালি (শিশুর একটি অনুন্নত মস্তিষ্কের জন্ম) এবং স্পাইনা বিফিডা (যেটিতে মেরুদণ্ড সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হয় না)।
  • এর ওভারডোজ কিছু ক্ষেত্রে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়াও সৃষ্টি করতে পারে, যেমন – শ্বাসকষ্ট, বুকে বা গলায় আঁটসাঁটতা, বুকে ব্যথা, ত্বকের আলসার, ফুসকুড়ি, চুলকানি এবং ত্বকের ফোলাভাব।
  • গর্ভাবস্থার শেষ পর্যায়ে এর অত্যধিক সেবনের ফলে দুর্গন্ধযুক্ত ঘাম এবং প্রস্রাব হতে পারে।
  • মেথি প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্ট হিসেবে কাজ করে। এটি মেজাজ পরিবর্তন, কাঁপুনি এবং অস্থিরতার মতো সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

নিবন্ধের পরবর্তী অংশে, আমরা আপনাকে আপনার খাদ্যতালিকায় মেথি অন্তর্ভুক্ত করার কিছু উপায় বলব।

কীভাবে আপনার ডায়েটে মেথি অন্তর্ভুক্ত করবেন?
নিম্নলিখিত বিষয়গুলির মাধ্যমে, আমরা খাদ্যতালিকায় মেথি অন্তর্ভুক্ত করার কিছু সহজ উপায় জানব-

মেথি বীজ- আপনি সবজি রান্না করার সময় মসলা হিসাবে মেথি বীজ ব্যবহার করতে পারেন।
মেথি লাড্ডু- শুকনো ফলের সাথে মেথি বীজ পিষে নিন মেথি লাড্ডু তৈরি করে ব্যবহার করতে পারেন।
মেথি শাক- আপনি মেথির শাক রান্না করে খেতে পারেন।

মেথির তরকারি – মেথির সাথে আপনি আলু এবং সয়া শাক মিশিয়ে এর সবজি তৈরি করতে পারেন এবং খাওয়ার জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি নিশ্চয়ই বুঝেছেন গর্ভাবস্থায় মেথি খাওয়া কতটা নিরাপদ। একই সঙ্গে মেথির সুষম পরিমাণ সম্পর্কেও তথ্য পেয়েছেন। পোস্টটির মাধ্যমে, আমরা আপনাকে মেথির উপকারিতা এবং আনুমানিক কিছু অসুবিধা সম্পর্কেও সচেতন করেছি, যা মাথায় রেখে খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। আশা করি সুস্থ গর্ভধারণের জন্য এই লেখাটি আপনার কাজে আসবে।

আরো পড়ুন-

গর্ভাবস্থায় ডিম খাওয়া কি নিরাপদ?, গর্ভাবস্থায় আজওয়াইন খাওয়া কি নিরাপদ? গর্ভাবস্থায় খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

3.2/5 - (4 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button