স্বাস্থ্য

জিরার উপকারিতা, ঔষুধি গুণাবলী এবং ব্যবহারবিধি

মসলার মধ্যে জিরা খুব পরিচিত একটি নাম। এই জিরা খাবার হজমে সহায়তা করে। আয়ুর্বেদে, জিরাকে একটি অত্যন্ত উপকারী ওষুধ হিসাবেও বর্ণনা করা হয়েছে। জিরা অনেক রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।

জিরার বোটানিক্যাল নাম হল Cuminum cyminum

জিরা গাছের ফুল ও ফল হয় জুন থেকে আগস্ট মাসে। এই উদ্ভিদ ৬০-৯০ সেন্টিমিটার উঁচু এবং খাড়া। এর ফুল গাঢ় নীল বা বেগুনি রঙের এবং ফল ৪.৫-৬ মিমি লম্বা, নলাকার। এর রং বাদামী ও কালো। এই ফলের একটি তীব্র গন্ধ আছে।

আয়ুর্বেদ অনুসারে, জিরা তিন প্রকার, কালো জিরা (বন্য জিরা), সাদা জিরা এবং শ্যামাঙ্গিণী রঙের জিরা (কৃষ্ণ জিরা)।

সাদা জিরার সাথে সবাই পরিচিত, কারণ এটি মশলা হিসেবে ব্যবহৃত হয়। শ্যামাঙ্গিণী রঙের জিরাও সাদা জিরার মতো। দুটির মধ্যে এত বেশি মিল রয়েছে যে এটি আলাদা করা কঠিন, তবে কালো জিরা সাদা জিরার চেয়ে দামী।

জিরার উপকারী অংশ

  • ফল
  • বীজ

কিভাবে জিরা ব্যবহার করবেন?

ব্যবহৃত জিরার পরিমাণ হল-

১। জিরা গুঁড়া – ৩-৬ গ্রাম

২। জিরার ক্বাথ – ২০-৪০ মিলি

জিরার উপকারিতা ও ব্যবহার

মশলা ছাড়াও, আপনি জিরা ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের জন্য-
দিনে দুবার জিরার গুঁড়ো, এবং শিলা লবণ নিন। এটি মুখ থেকে আসা বাজে গন্ধ নিরাময় করে ।

বমি বন্ধ করতে-

  • বমি বমি ভাব এবং বমি হলে, একটি সিল্কের কাপড়ে জিরা মুড়িয়ে রাখুন এবং এর ধোঁয়া নাকে নিন। এতে উপকার হয়।
  • সৌভারচাল লবণ, জিরা, চিনি এবং গোলমরিচের সমান অংশ (2 গ্রাম) গুঁড়া করুন। এতে ৪ গ্রাম মধু মিশিয়ে দিনে ৩-৪ বার খান। এটি বমি বমি ভাব এবং বমি বন্ধ করে।

সর্দি-কাশি থেকে মুক্তি পেতে-

  • ঠান্ডা বা দীর্ঘস্থায়ী সর্দি থেকে উপশম পেতে কালোজিরা পোড়ান। এর ধোঁয়ার ঘ্রাণ নিলে উপকার পাওয়া যায়।
  • কফের সমস্যা থাকলে ১০-২০ মিলি জিরার ক্বাথ পান করলে উপকার পাওয়া যায়।

মুখের রোগে উপকারী-
মুখের রোগে ৫ গ্রাম জিরা পিষে পানিতে মিশিয়ে পান করুন। এই পানিতে চন্দনের গুঁড়া, আড়াই গ্রাম এলাচ এবং আড়াই ফোঁটা ফিটরির গুঁড়া মিশিয়ে ফিল্টার করুন। এই পানি দিয়ে গার্গল করলে মুখের রোগে উপকার পাওয়া যায়।

টক ঢেঁকুর থেকে মুক্তি পেতে-
উল্টাপাল্টা কিছু খাওয়ার পর টক ঢেঁকুর হওয়া খুবই সাধারণ ব্যাপার। এই ক্ষেত্রে, ২০০ মিলি পানিতে ৫০ মিলি জিরা যোগ করে একটি ক্বাথ তৈরি করুন। এবার এর সাথে ৪ গ্রাম কালো গোলমরিচ গুঁড়ো, ৪ গ্রাম লবণ মিশিয়ে পান করুন। এটি টক দম বন্ধ করে।

উকুন চিকিৎসায়-

মহিলারা উকুন দ্বারা বেশি সমস্যায় পড়েন। উকুন থেকে মুক্তি পেতে জিরার গুঁড়া এর সাথে লেবুর রস মিশিয়ে মাথায় লাগালে উকুন চলে যাবে।

আরো পড়ুনঃ উকুন দূর করার উপায় যা চুলকে সুস্থ রাখবে

চুলকানির চিকিৎসায়-
চুলকানি থেকে মুক্তি পেতে, ৪০ গ্রাম জিরা এবং ২০ গ্রাম সিঁদুর নিয়ে ৩০০ মিলি তেতো তেলে রান্না করে ব্যবহার করুন। এটি চুলকানিতে উপকারী।

হেঁচকি সমস্যায়-
হেঁচকির সমস্যায় ঘিতে ৫ গ্রাম জিরা মিশিয়ে চিলামে রেখে ধূমপান করুন। এতে হেঁচকি পড়া বন্ধ হয়।

আরো পড়ুনঃ ঘি এর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম, গর্ভাবস্থায় ঘি খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা এবং নিয়ম

অ্যাসিডিটির সমস্যায়-
অ্যাসিডিটি একটি সাধারণ সমস্যা। আপনি যদি অ্যাসিডিটির সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে ১২০ গ্রাম জিরা, ৭০০ গ্রাম ঘিতে ধনেপাতা দিয়ে রান্না করুন । প্রতিদিন ১০-১৫ গ্রাম পরিমাণে এটি গ্রহণ করুন। এটি অ্যাসিডিটির পাশাপাশি দীর্ঘস্থায়ী কফ, পিত্তরোগ এবং ক্ষুধামন্দার সমস্যা নিরাময় করে।

আরো পড়ুনঃ পেটের গ্যাস কমানোর উপায়, প্রাকৃতিক ঔষুধে গ্যাস্ট্রিক দূর করার উপায়

ক্ষুধা বাড়াতে-
কখনও কখনও অসুস্থতার কারণে বা অন্য কারণে ক্ষুধার অভাব হয়। এই ক্ষেত্রে, ৩ মিলি লেবুর রসে ৩ গ্রাম জিরা ভিজিয়ে রাখুন এবং এর সাথে ৩ গ্রাম লবণ মিশিয়ে সেবন করুন। এতে ক্ষুধা বাড়বে।

জ্বরের সাথে লড়াইয়ে-

  • কাচনার ছালের ২০ মিলি রসের সাথে ৫ গ্রাম জিরা গুঁড়ো মেশান । দিনে তিনবার খেলে জ্বর কমে যায়।
  • ৫-১০ গ্রাম জিরা পেস্ট, এবং একই পরিমাণ গুড় খেয়ে হালকা গরম পানি পান করলে জ্বরে উপশম দেয়।
  • হরিতকী, জিরা ও গুড় খাবারে ব্যবহার করলে তীব্র জ্বর সেরে যায় ।
  • গরুর দুধে ৫ গ্রাম জিরা ভিজিয়ে শুকিয়ে নিন। এবার এটির গুঁড়া তৈরি করে এতে চিনি মিছরি যোগ করুন। এটি দিনে তিনবার খেলে শারীরিক দুর্বলতা দূর করে এবং প্রচন্ড জ্বরে উপশম দেয়।

বদহজমের সমস্যায়-
জিরা এবং ধনেপাতার পেস্ট থেকে রান্না করা ঘি নিয়ে সকালে এবং সন্ধ্যায় খাবারের আধা ঘন্টা আগে সেবন করুন। এটি বদহজম ও বাতপিত্ত দোষে উপকারী ।

পেটের কৃমির জন্য-

  • পেটে কৃমি থাকলে জিরা সেবনে উপকার পাওয়া যায়। এর জন্য ক্যাস্টর অয়েলের সঙ্গে ২-৪ গ্রাম জিরার গুঁড়ো মিশিয়ে নিন । এটি খেলে পেটের কৃমি দূর হয়।
  • একইভাবে, ১৫ গ্রাম জিরা ৪০০ মিলি পানিতে সিদ্ধ করুন। ক্বাথের এক-চতুর্থাংশ অবশিষ্ট থাকলে সকাল ও সন্ধ্যায় এর ২০-৪০ মিলি পান করুন। এতে পেটের কৃমি মারা যায়।


দাঁতের রোগে
আপনার যদি দাঁত ব্যথার সমস্যা থাকে, তাহলে জিরার ব্যবহার উপকারী হবে। কালোজিরার ক্বাথ তৈরি করে কুলি করলে দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

রক্তপাত বন্ধ করতে-
১-২ ফোঁটা জিরা পাতার রস নাকে দিন। এতে নাক থেকে রক্ত ​​পড়া বন্ধ হয়।

ডায়রিয়া বন্ধ করতে-

  • ডায়রিয়ায় জিরা খাওয়া খুব উপকারী। কারো ডায়রিয়া হলে ৫ গ্রাম জিরা ভুনা করে পিষে খেলে ডায়রিয়া ভালো হয়।
  • জিরা গুঁড়ো এক চামচ পানিতে গুলে দিনে দুই-তিনবার পান করালে শিশুদের ডায়রিয়া ভালো হয়।
  • ভাজা জিরা, কাঁচা এবং ভাজা মৌরি সমান পরিমাণে মেশান। দুই-তিন ঘণ্টা পর পর এক চা চামচ পরিমাণে তাজা পানির সাথে সেবন করুন। এটি খিঁচুনি সহ ডায়রিয়া নিরাময় করে।

স্তনে দুধ বাড়াতে

  • মা হওয়ার পর প্রায়ই অনেক মহিলাই স্তনে কম দুধের অভিযোগ করেন। এমন সমস্যায় ঘিতে জিরা ভেজে ময়দায় মিশিয়ে লাড্ডু তৈরি করুন। এটি মায়েদের দুধ তৈরি করতে সাহায্য করে।
  • ঘিতে জিরা ভেজে পুডিং এ খাওয়ালেও দুধ বাড়ে।
  • গরুর দুধের সঙ্গে সমপরিমাণ অ্যাসপারাগাস, চাল ও জিরার গুঁড়া নিয়মিত সেবন করলে দুধ বাড়ে।
  • মধু এবং দুধের সাথে ১০-২০ মিলি জিরার ক্বাথ মেশান। এটি গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায়ে মহিলাদের নেওয়া উচিত। দিনে একবার খেলে গর্ভবতী মহিলা এবং গর্ভস্থ শিশু সুস্থ থাকে।

জরায়ু ফোলা কমাতে
অনেক মহিলা জরায়ুর প্রদাহে ভোগেন। এক্ষেত্রে জিরার ব্যবহার উপকারী। কালোজিরার একটি ক্বাথ তৈরি করে জরায়ুর প্রদাহে আক্রান্ত মহিলাকে এই ক্বাথ খাওয়ান। এটি জরায়ুর প্রদাহে উপকারী। কালোজিরার জায়গায় সাদা জিরাও ব্যবহার করতে পারেন।

ম্যালেরিয়া চিকিৎসায়

  • ম্যালেরিয়াল জ্বরের জন্য করলার ১০ মিলি রসে ৫ গ্রাম জিরার গুঁড়া মিশিয়ে নিন । এটি দিনে তিনবার খেলে উপকার পাওয়া যায়।
  • ৪ গ্রাম জিরার গুড়ো, গুড়ের সাথে মিশিয়ে খাওয়ার ১ ঘন্টা আগে খান। এটি ম্যালেরিয়া এবং গাউট নিরাময় করে।

আরো পড়ুনঃ লেবু চাষ পদ্ধতিঃ সহজেই ফুলদানি বা ঘরের পাত্রে লেবুর চাষ করতে পারেন

লিউকোরিয়ায়-
অনেক মহিলাই লিউকোরিয়ায় ভোগেন। জিরা খেলে এই রোগ উপশম হয়। এর জন্য ৫ গ্রাম জিরা গুঁড়ো এবং ১০ গ্রাম চিনির গুঁড়ো মেশান। সকাল-সন্ধ্যা চালের পানির সাথে পান করুন। এতে লিউকোরিয়া ভালো হয়।

চোখের রোগের চিকিৎসায়-
আধা লিটার ফুটন্ত পানিতে ৭ গ্রাম কালোজিরা রেখে একটি ক্বাথ তৈরি করুন। এই পানি দিয়ে চোখ ধুলে চোখ থেকে পানি পড়া বন্ধ হয়ে যায়। কালোজিরার জায়গায় সাদা জিরাও নিতে পারেন।

চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে
আধা লিটার ফুটন্ত পানিতে ৭ গ্রাম কালোজিরা দিয়ে একটি ক্বাথ তৈরি করুন। এই পানি দিয়ে চোখ ধুলে দৃষ্টিশক্তি ভালো হয়। কালোজিরার জায়গায় সাদা জিরাও নিতে পারেন।

রাতকানা রোগে-
ঠাণ্ডা জলে জিরা, আমলা এবং তুলা পাতা পিষে নিন। মাথায় বেঁধে রাখুন 21 দিন। এটি করলে রাতকানা রোগে উপকার পাওয়া যায়।

বাত রোগে-
বাত রোগে গুড় ও জিরার গুঁড়া (৫-১০ গ্রাম) সমান অংশে উষ্ণোদকের সাথে খেলে উপকার পাওয়া যায়।

জ্বলন্ত চিকিৎসায়
আগুনে যদি মানুষের কোনো অংশ পুড়ে যায়, তাহলে জিরার পেস্ট এবং রজন মিশিয়ে ঘি দিয়ে রান্না করুন। আগুনে পোড়া জায়গায় লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

মূত্রনালীর রোগে-
কালোজিরার একটি ক্বাথ তৈরি করুন। এই ক্বাথে ১০-৩০ মিলি চিনি/মিছরি মিশিয়ে পান করলে প্রস্রাবের রোগে উপকার পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ প্রস্রাবে ইনফেকশনের লক্ষণ, কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার, পিত্তথলির পাথর হওয়ার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিকার

পাইলসের চিকিৎসায়-
৫ গ্রাম সাদা জিরা পানিতে সিদ্ধ করুন। পানির এক-চতুর্থাংশ অবশিষ্ট থাকলে তাতে মিছরি/চিনি মিশিয়ে সকাল-সন্ধ্যা পান করুন। এর ফলে পাইলসের ব্যথা ও ফোলা নিরাময় হয়।
আবার, কালোজিরা জলে পিষে পাইলসের উপর লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

প্যারালাইসিস এর চিকিৎসায়-
জিরা পিষে শরীরের প্যারালাইসিস অংশে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

মাকড়সার বিষ দূর করতে
শুকনো আদা ও জিরা পানির সাথে পিষে লাগালে মাকড়সার বিষ দূর হয়।

আরো পড়ুনঃ আদার উপকারিতা ও অপকারিতা, লবঙ্গ খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

কুকুরের কামড়ের জন্য-
কুকুর কামড়ালে তার দাঁতের বিষের কারণে জলাতঙ্ক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমন অবস্থায় ৪ গ্রাম জিরা এবং ৪ গ্রাম কালো মরিচ সকাল-সন্ধ্যা সেবন করলে কুকুরের বিষে আরাম পাওয়া যায়।

বিচ্ছুর বিষ দূর করতে-

  • বিচ্ছু কামড়ালে জিরা ও লবণ পিষে ঘি ও মধুতে মিশিয়ে নিন। একটু গরম করে এটি বিচ্ছুর দংশনের জায়গায় লাগান। বিচ্ছুর বিষ চলে যাবে।
  • ঘি, এবং শিলা লবণ মিশিয়ে জিরা পিষে নিন। খুব সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করে গরম করুন। এটি বিচ্ছুর কামড়ের স্থানে লাগালে ব্যথায় আরাম পাওয়া যায়।

আপনি যদি ওষুধ আকারে জিরা ব্যবহার করে কোন রোগ নিরাময় করতে চান তবে অবশ্যই একজন আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

জিরা কোথায় পাওয়া যায় বা জন্মায়?

জিরা সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হয় চীন ও ভারতে। এছাড়া গাড়োয়াল, কুমায়ুন, কাশ্মীর, আফগানিস্তান এবং বেলুচিস্তানে কালোজিরা (কালো জিরা) চাষ করা হয়। এই সব স্থানে ২০০০-৩৪০০ মিটার উচ্চতা পর্যন্ত জিরা পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (9 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button